বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯, ১১:৩৭ অপরাহ্ন

জগন্নাথপুরে হাওরবাসীর কষ্টের শেষ নেই, নতুন সংকট বিশুদ্ধ পানি

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ২৩ এপ্রিল, ২০১৭
  • ১১১ Time View

আলী আহমদ/গোবিন্দ দেব :: জগন্নাথপুরের হাওরপাড়ের মানুষের দুর্দিন যেন শেষ হচ্ছেই না। শুধু বেড়েই চলছে। ধান গেল, মাছ গেল, এবার বিশুদ্ধ পানির তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। ধানগাছ পচে হাওরের পানি দূষিত ছড়িয়ে পড়ে সর্বত্র জুড়ে দূর্গদ্ধ। ফলে হাওরবাসির খাওয়ার পানির সংকট দেখা দিয়েছে। এছাড়া পানিতে দূর্গদ্ধ থাকায় নিত্য প্রয়োজনীয় কাজেও এখন হাওরের পানি ব্যবহার করা যাচ্ছে না।
রোববার নলুয়ার হাওরের তীরবর্তী হাওরপাড়ের বাসিন্দাদের সঙ্গে আলাপ করে জানা যায়, ফসলডুবির পর গত ১৬ এপ্রিল হাওরের ধান পচে বিষাক্ত এ্যানোমিয়া গ্যাসে আক্রান্ত হয়ে হাওরের, মাছ মরে পানিতে ভেসে উঠে। ধানগাছ পচে বাতাসে দূর্গদ্ধ ছড়িয়ে পড়ে চারিদিকে। দূর্ষিত হয়ে যায় হাওরসহ নদ,নদী, খাল ও বিলের পানি। বিষাক্ত পানি পান করে হাসেঁ মড়ক দেখা দিচ্ছে বলেও তারা জানান। এই মুর্হুতে হাওরবাসির বিশুদ্ধ পানি সংকট দেখা দিয়েছে।

নলুয়া হাওরপাড়ের বাসিন্দা উপজেলার চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়নের ভুরাখালি গ্রামের বাসিন্দা আবদুল হাসিম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে জানান, ফসলডুবির পর কৃষকদের বেঁচে থাকার একমাত্র সম্বল হয়ে উঠে হাওরের মাছ। ধান পচে পানি বিষাক্ত হয়ে বিষক্রিয়ায় মাছও মরেছে। ধানগাছ পচে হাওরের পানি দূষিত হওয়ায় খাওয়ার পানি আমাদের জন্য দুরূহ হয়ে উঠেছে।

একই গ্রামে কৃষক আসমান উল্লাহ জানান, হাওরের অধিকাংশ মানুষ খাওয়া পানি, গোসল করাসহ নিত্য প্রয়োজনীয় কাজে হাওরের পানি ব্যবহার করেন। কিন্তু গত কয়েকদিন ধরে পানিতে দুর্গদ্ধ ছড়িয়ে পড়ায় আমরা খুবই কষ্টের মধ্যে আছি। দূষিত পানিতে অনেকই গোসল করছেন। আবার কেউ কেউ হাওরের পানিতে গোসল করছে না। গ্রামের দূরবর্তী একটি বাড়ি থেকে বিশুদ্ধ পানি সংগ্রহ করছি।

কৃষক আসলাম উল্লাহ জানান, পর পর তিন বছর ধরে ফসল পাইনি। খুবই অভাবের মধ্যে আছি। ধার কর্জা করে সংসার কোন মতে চালাচ্ছি। দুঃখ, কষ্ট আমাদের পিছু ছাড়ছেই না আল্লাহপাকই জানেন কবে কষ্ট শেষ হবে।

জগন্নাথপুর উপজেলা হাওর উন্নয়ন পরিষদের সাধারন সম্পাদক সিদ্দেকুর রহমান জানান, হাওরপাড়ের মানুষের শুধুই দুঃসংবাদ শুনা যাচ্ছে। ধান পচে পানি দূর্ষিত হওয়ার পর এখনো বিশুদ্ধ পানির তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। এছাড়াও হাওরের দূষিত পানি খেয়ে গৃহপালিত হাঁস মোরগে মড়ক দেখা দিচ্ছে বলে খবর পাচ্ছি।

গতকাল শনিবার উপজেলার মইয়ার হাওরের পানি পরীক্ষা নিরীক্ষা করেছেন মৎস্য মন্ত্রনালয়ের একটি বিশেষজ্ঞ দল। বিশেষজ্ঞ দলের প্রধান নেতৃত্বদানকারী মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রনালয়ের যুগ্ন সচিব সৈয়দ মেহেদী হাসান স্থানীয় গণমাধ্যম কর্মীদের জানান, জগন্নাথপুরের হাওরগুলোতে এ্যামোনিয়া গ্যাস কমে গেছে এবং পানি স্বাভাবিকের কাছে পাওয়া গেছে। পানির দূষনও কমেছে। আশা করছি আর মাছ মরবে না।
বিশেষজ্ঞ দলের সঙ্গে ছিলেন ঢাকা মৎস্য অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোঃ রমজান আলী, সুনামগঞ্জ জেলা মৎস্য কর্মকর্তা শংকর রঞ্জন দাস, জগন্নাথপুরের ইউএনও মোহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ, উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা ওয়াহিদুল আবরার, প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ কামরুল আহমদ খান প্রমুখু।

জগন্নাথপুর প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ কামরুল আহমদ খান জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে জানান, জগন্নাথপুরের হাওরগুলোতে হাঁসের মড়ক নেই বলে তিনি জানান। তবে একটি খামার পরির্দশন করে দেখেছি,ওই খামারের ১৬শত হাঁস বিষক্রিয়া মারা গেছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24