সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯, ০২:২৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
সুনামগঞ্জে বিতর্কিতদের আওয়ামী লীগে স্হান না দিতে তৃণমূল নেতাদের দাবি প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী পরীক্ষা:জগন্নাথপুরে প্রথম দিনে অনুপস্থিত ২৬০ যুক্তরাজ্য বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটিকে জগন্নাথপুর বিএনপির অভিনন্দন পেঁয়াজ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের সমালোচনা করলেন কাদের সিদ্দিকী ‘ব্রিটিশ বাংলাদেশী হুজহু’র প্রকাশনা ও এওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানের বারোতম আসর বর্ণাঢ্য আয়োজনে সম্পন্ন পেঁয়াজ খাওয়া বন্ধ করে দিয়েছি:প্রধানমন্ত্রী জগন্নাথপুর পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ড আ.লীগের কমিটি গঠন জগন্নাথপুরে অগ্নিকাণ্ডে নি:স্ব ৮ পরিবার আশ্রয় নিলেন স্কুলে.মানবেতর জীবন যাপন মিশর থেকে কার্গো বিমানে পেঁয়াজ আসছে মঙ্গলবার যুক্তরাজ্যে বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটি

জগন্নাথপুরে ৪ ভরি স্বর্ণালংকার ২০ হাজার টাকায় বিক্রি করতে গিয়ে ধরা পড়ল চোর

বিশেষ প্রতিনিধি::
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৯ অক্টোবর, ২০১৯
  • ১৬৩৬ Time View

প্রায় ৪ ভরি ওজনের স্বর্ণালংকার বিক্রির জন্য বাজারে যায় এক কিশোর। জুয়েলারি দোকানে গিয়ে দাম চাইলো মাত্র ২০ হাজার টাকা। দাম শুনেই চমকে গেলেন জুয়েলারির দোকানদার। বুঝতে দেরি হলো না যে, এসব চুরির মালামাল।

আজ মঙ্গলবার দুপুর ১টার দিকে সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর পৌরশহরে এ ঘটনাটি ঘটেছে।

পুলিশ ও ব্যবসায়ীরা জানান, জগন্নাথপুর পৌরশহরের সদরের জগন্নাথপুর বাজারের বাসুদেব জুয়েলারি নামে দোকানে স্বর্ণালংকার বিক্রির জন্য যায় নিজাম খাঁ (১৬)। এসময় জুয়েলারি দোকানের মালিক কাজল বনিককে স্বর্ণালংকারগুলো দেখিয়ে বিক্রি করবে বলে জানায়, জুয়েলারির মালিক স্বর্নালংকার ওজন করে দেখেন ৪ ভরি ৬ আনা সোনা রয়েছে। দোকানি যখন কিশোরের নিকট কত টাকায় স্বর্নালংকার বিক্রি করতে চায়, দাম জানতে চান তখন সে জানায়, ২০ হাজার টাকায় বিক্রি করবে। তখন দোকানির সন্দেহ হয়, এসময় তিনি বাজার ব্যবস্থাপনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক জাহির উদ্দিনকে মোবাইল ফোনে ডেকে আনেন তাঁর দোকানে। ব্যাপক জিঙ্গাসাবাদের এক পর্যায়ে সে জানায়, স্বর্নালংকারগুলো চুরি করে এনেছে। এবং তার পরিচয় দেয় সে জগন্নাথপুর উপজেলা কলকলিয়া ইউনিয়নের ঘীপুরা এলাকার নাছির খা’র ছেলে।
জুয়েলারির দোকান মালিক কাজল বনিক জানান, ৪ ভরি ৬ আনা ওজন কিছু স্বনাংলকার বেচার জন্য ওই কিশোর দোকানে নিয়ে আসে। কত টাকায় বিক্রি করতে চায়, জানতে চাইলে সে জানায়, ২০ হাজার টাকায় বিক্রি করবে। দাম শুনেই আমি অবাক হয়ে যায়ই। বিষয়টি বাজার ব্যবস্থাপনা কমিটির সেক্রেটারিকে জানাই আমি। পরে তিনি এসে স্বর্নালংকারসহ কিশোরকে তাঁর কার্যালয়ে নিতে যান।

জগন্নাথপুর বাজার ব্যবস্থাপনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক জাহির উদ্দিন জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, খবর পেয়ে স্বর্নালংকারসহ ওই কিশোরকে আমার কার্যালয়ে নিয়ে এসে জিঙ্গাসাবাদ করি। প্রথমে সোনাগুলো তার মায়ের বলে জানায়। এক পর্যায়ে সে বলে, সোনাগুলো পৌরশহরের হবিবনগর এলাকা থেকে চুরি করেছে। পরে তাকে জগন্নাথপুর থানা পুলিশে সোর্পদ করেছি।

জগন্নাথপুর থানার এসআই লুৎফুর রহমান জগন্নাথপুর টুূয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, পৌরশহরের হবিবনগর এলাকার বাসিন্দা সৈয়দ জিতু মিয়ার বাসা থেকে স্বর্নালংকারগুলো চুরি করেছে বলে আটককৃত কিশোর জানিয়েছে। উদ্বারকৃত স্বর্নালংকার আমাদের জিম্মায় রয়েছে। এবিষয়ে মামলার প্রস্তুুতি চলছে।

হবিবনগর এলাকার বাসিন্দা পৌর যুবলীগ নেতা সৈয়দ জিতু মিয়া জানান, আমি আর আমার স্ত্রী বাহিরে ছিলাম। দুপুরের দিকে বাসায় খালি পেয়ে চোর প্রবেশ করে ওয়ারড্রপ থেকে আলমারির চাবি নিয়ে তালাবদ্ধ আলমারি খুলে স্বর্নালংকারগুলো চুরি করে নিয়ে যায়। তিনি জানান, চুরি যাওয়া স্বর্নালংকারের মধ্যে ১টি গলার হার, ১ জোড়া দুল, ১ জোড়া রিং, ২টি আংটি ও একটি চেইন ছিল। চোর ধরা পড়েছে শুনে থানায় এসেছি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24