জগন্নাথপুর সরকারি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে আর্থিক অনিয়মের অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার :; সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর সরকারি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ জাহিদুল ইসলাম এর বিরুদ্ধে আর্থিক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। গতকাল মঙ্গলবার কলেজের সহকারী অধ্যাপক প্রভাষক ও কর্মচারী সহ কর্মরত ২৫ জনের মধ্যে ২৩ জন ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ জাহিদুল ইসলাম এর বিরুদ্ধে জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট লিখিত অভিযোগ করেন।
অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, নতুন জাতীয়করনকৃত ওই কলেজ জাতীয়করনের তালিকাভুক্ত হওয়ার পর কলেজের স্থাবর অস্থাবর সম্পত্তি হস্তান্তরের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। কিন্তু তিনি ওই নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে কলেজেরগাছ ও ডালপালা কেটে ৫০ হাজার টাকায় বিক্রি করে উক্ত টাকা কলেজের তহবিলে জমা না দিয়ে টাকা কি করেছেন তার কোন হিসাব কলেজের কোথাও নেই। কলেজের পুকুর লীজ বাবদ এক লাখ ৮০ হাজার টাকা কলেজ ফান্ডে জমা দেননি। উক্ত টাকা কলেজের আয় ব্যয়ের কোথাও এন্টি নেই। সরকারি বিধান অনুযায়ী তিনশত টাকার অতিরিক্ত কোন টাকা অধ্যক্ষ নগদ রাখতে পারেন না।
দায়িত্বভাতা হিসেবে ৫% বা সবোচ্চ ১৫০০ টাকা নেয়ার বিধান থাকলেও তিনি প্রতি মাসে ১৫ হাজার টাকা নিচ্ছেন। যা সম্প্রতি শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের অডিট টিমের আপত্তি রয়েছে।
কলেজ ভবনে বসবাস করলেও তিনি প্রতিমাসে ১৯ হাজার টাকা বাসা ভাড়া বাবদ নিচ্ছেন। তিনি দায়িত্ব গ্রহনের পর থেকে কলেজের আর্থিক ও অফিস ব্যবস্থাপনা ভেঙ্গে পড়েছে। চলতি বছরের এইচএসসি পরীক্ষার হিসাব ও চতুর্থশ্রেণীর কর্মচারীদের প্রাপ্য পারিশ্রমিক দেননি। চলতি বছরের ডিগ্রী ফিাইনাল পরীক্ষার প্রকৃত ব্যয় অপেক্ষা ছয়গুন বেশী ব্যয় দেখিয়ে অর্থ আত্মসাত করেছেন। এছাড়াও কলেজের অফিস সহকারীর নামে ইস্যুকৃত একলক্ষ পঞ্চান্ন হাজার টাকার চেক রেজিষ্টারে এন্টি না করে তার স্বাক্ষর ব্যতিরেখে নিজেহই ব্যাংক থেকে টাকা তুলে নিয়েছেন। অভিযোগকারী সুষ্ঠ তদন্তক্রমে নিরপেক্ষ অডিটের মাধ্যমে কলেজের আর্থিক অব্যবস্থাপনা চিত্র নিরুপনের পাশাপাশি আইনানুগ পদক্ষেপ গ্রহনের দাবি জানান।
এবিষয়ে কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ জাহিদুল ইসলাম বলেন, আমার বিরুদ্ধে আর্থিক অনিয়মের অভিযোগ ঠিক নয়।শিক্ষকদের সাথে ভূলবুঝাবুঝি হয়েছিল তা অবসান হয়েছে।
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহ্ফুজুল আলম মাসুম বলেন, জগন্নাথপুর সরকারি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে আর্থিক অনিয়মের লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত করে পদক্ষেপ নেয়া হবে।

 

 

 

 

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» ‘উন্নয়নের মহাসড়কে জগন্নাথপুর’ শীর্ষক বইয়ের মোড়ক উম্মোচণ,

» সুনামগঞ্জ-৩ আসনে বৃষ্টি উপেক্ষা করে দুই প্রার্থীর প্রচারনা

» সারাদেশ বিজিবি মোতায়েন

» ভোটের মাঠে থাকছেন না ইলিয়াসপত্নী লুনা

» আ.লীগের নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষনা, ২১টি অঙ্গীকার

» সিলেটে পাইনিয়ার ইয়ুত এসোসিয়শনের উদ্যােগে বিজয় দিবস বিভিন্ন কর্মসুচী পালিত

» জগন্নাথপুর উপজেলা বিএনপির সভাপতি-যুবদল নেতার গ্রেফতারে নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে উপজেলা বিএনপি

» প্রার্থী হতে পারছেন না বিএনপির ৪ উপজেলা চেয়ারম্যান

» জগন্নাথপুরে নৌকার সমর্থনে স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রতিনিধিসভায়- ঐক্যবদ্ধ হয়ে নৌকার বিজয় নিশ্চিতের আহবান

» জগন্নাথপুরে মা সমাবেশ অনুষ্ঠিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

জগন্নাথপুর সরকারি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে আর্থিক অনিয়মের অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার :; সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর সরকারি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ জাহিদুল ইসলাম এর বিরুদ্ধে আর্থিক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। গতকাল মঙ্গলবার কলেজের সহকারী অধ্যাপক প্রভাষক ও কর্মচারী সহ কর্মরত ২৫ জনের মধ্যে ২৩ জন ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ জাহিদুল ইসলাম এর বিরুদ্ধে জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট লিখিত অভিযোগ করেন।
অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, নতুন জাতীয়করনকৃত ওই কলেজ জাতীয়করনের তালিকাভুক্ত হওয়ার পর কলেজের স্থাবর অস্থাবর সম্পত্তি হস্তান্তরের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। কিন্তু তিনি ওই নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে কলেজেরগাছ ও ডালপালা কেটে ৫০ হাজার টাকায় বিক্রি করে উক্ত টাকা কলেজের তহবিলে জমা না দিয়ে টাকা কি করেছেন তার কোন হিসাব কলেজের কোথাও নেই। কলেজের পুকুর লীজ বাবদ এক লাখ ৮০ হাজার টাকা কলেজ ফান্ডে জমা দেননি। উক্ত টাকা কলেজের আয় ব্যয়ের কোথাও এন্টি নেই। সরকারি বিধান অনুযায়ী তিনশত টাকার অতিরিক্ত কোন টাকা অধ্যক্ষ নগদ রাখতে পারেন না।
দায়িত্বভাতা হিসেবে ৫% বা সবোচ্চ ১৫০০ টাকা নেয়ার বিধান থাকলেও তিনি প্রতি মাসে ১৫ হাজার টাকা নিচ্ছেন। যা সম্প্রতি শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের অডিট টিমের আপত্তি রয়েছে।
কলেজ ভবনে বসবাস করলেও তিনি প্রতিমাসে ১৯ হাজার টাকা বাসা ভাড়া বাবদ নিচ্ছেন। তিনি দায়িত্ব গ্রহনের পর থেকে কলেজের আর্থিক ও অফিস ব্যবস্থাপনা ভেঙ্গে পড়েছে। চলতি বছরের এইচএসসি পরীক্ষার হিসাব ও চতুর্থশ্রেণীর কর্মচারীদের প্রাপ্য পারিশ্রমিক দেননি। চলতি বছরের ডিগ্রী ফিাইনাল পরীক্ষার প্রকৃত ব্যয় অপেক্ষা ছয়গুন বেশী ব্যয় দেখিয়ে অর্থ আত্মসাত করেছেন। এছাড়াও কলেজের অফিস সহকারীর নামে ইস্যুকৃত একলক্ষ পঞ্চান্ন হাজার টাকার চেক রেজিষ্টারে এন্টি না করে তার স্বাক্ষর ব্যতিরেখে নিজেহই ব্যাংক থেকে টাকা তুলে নিয়েছেন। অভিযোগকারী সুষ্ঠ তদন্তক্রমে নিরপেক্ষ অডিটের মাধ্যমে কলেজের আর্থিক অব্যবস্থাপনা চিত্র নিরুপনের পাশাপাশি আইনানুগ পদক্ষেপ গ্রহনের দাবি জানান।
এবিষয়ে কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ জাহিদুল ইসলাম বলেন, আমার বিরুদ্ধে আর্থিক অনিয়মের অভিযোগ ঠিক নয়।শিক্ষকদের সাথে ভূলবুঝাবুঝি হয়েছিল তা অবসান হয়েছে।
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহ্ফুজুল আলম মাসুম বলেন, জগন্নাথপুর সরকারি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে আর্থিক অনিয়মের লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত করে পদক্ষেপ নেয়া হবে।

 

 

 

 

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।