শুক্রবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৯, ১১:৩১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের চিতুলিয়া গ্রামে আগুন,দুইটি ঘরসহ পুড়ল ১২ লাখ টাকার মালামাল জগন্নাথপুরে এখনও সম্পন্ন হয়নি আ.লীগের ওয়ার্ড ভিত্তিত্ব কমিটি প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা শুরু ১৭ নভেম্বর জগন্নাথপুরে সংবাদ প্রকাশের পর অবশেষে সুযোগ পেল ১৭ পরীক্ষার্থী বন্ধ হলো ফেসবুকের সাড়ে পাঁচ’শ কোটি ভুয়া অ্যাকাউন্ট রংপুর এক্সপ্রেসে আগুন, চারটি বগি লাইনচ্যুত জেলা মহিলা আ.লীগ নেত্রী রফিকা চৌধুরীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জগন্নাথপুরে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত আর্জেন্টিনার আদালতে সু চির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ছাতক-সুনামগঞ্জ সড়কে বিআরটিসি বাস চালুর দাবি সম্মেলনকে সামনে রেখে জগন্নাথপুরে আ.লীগের কার্যকরী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত

জনগণের কথা বিবেচনা নিয়েই বাজেট প্রণয়ন করা হয়েছে-এম এ মান্নান

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ৫ জুন, ২০১৮
  • ৮৭ Time View

অনলাইন ডেস্ক:আগামী ৭ জুন জাতীয় সংসদে উত্থাপিত হতে যাচ্ছে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট। এরই মধ্যে বাজেট ঘিরে সার্বিক প্রস্তুতি প্রায় সম্পন্ন হয়ে গেছে, কেবল উত্থাপন বাকি। প্রস্তাবিত প্রায় চার লাখ ৬০ হাজার কোটি টাকার প্রস্তাবিত বাজেটকে নির্বাচনী বাজেট বলা হলেও সরকার সংশ্লিষ্টদের দাবি, জনগণের কথা বিবেচনা নিয়েই বাজেট প্রণয়ন করা হয়েছে।

বাজেটের প্রস্তুতি নিয়ে অর্থ প্রতিমন্ত্রী আবদুল মান্নান বলেন, ‘বাজেট প্রস্তাবনা পুরোপুরি প্রিন্ট হয়ে গেছে। তবে শেষ মুহূর্তে যদি বড় কোনো নির্দেশনা আসে তবে তা ভিন্ন।’

অর্থ মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, নির্বাচন সামনে রেখে এবারের বাজেটে নিম্মবিত্তের জন্য ভাতাসহ অতিরিক্ত বরাদ্দ এবং নতুন নতুন রাস্তাঘাট ও চোখে পড়ার মতো অবকাঠামো নির্মাণের জন্য বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

এছাড়া সংসদ সদস্যদের নিজ নিজ এলাকার উন্নয়নের জন্য সরাসরি সংসদ সদস্যদের বরাদ্দ দেয়ার এখতিয়ার রেখে বাড়তি বরাদ্দ দিয়ে বাজেট প্রস্তাব করতে যাচ্ছে সরকার।

জানতে চাইলে অর্থ প্রতিমন্ত্রী বলেন, এটা নির্বাচনী বাজেট তা ঠিক নয়। শীতে বাজেট বাসলে বলে শীতকালীন বাজেট, গরমে বসলে গ্রীষ্মকালীন আর নির্বাচন সামনে তাই বলে নির্বাচনী বাজেট। আসলে তা নয়। জনগণের কথা বিবেচনায় রেখেই বাজেট প্রণয়ন করা হয়েছে। এটা সবসময় হয়ে থাকে।

তিনি বলেন, এবারের বাজেটে ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের অনুকূলে রোহিঙ্গাদের জন্য আলাদা বরাদ্দ রাখা হচ্ছে। সরকার মনে করে রোহিঙ্গারা চলে যাবে। কিন্তু যতদিন আছে যেহেতু তাদের মানবিকভাবে বাঁচতে দিতে হবে তাই বাজেটে এই বরাদ্দ রাখা হয়েছে।

অর্থ প্রতিমন্ত্রী বলেন, তিনি ব্যক্তিগতভাবে মনে করেন রোহিঙ্গাদের দ্রুত মিয়ানমারের ফিরিয়ে নেয়া উচিত। তবে তিনি নিজেই এই রোহিঙ্গা ফেরত যাওয়া নিয়ে হতাশ। মিয়ানমারের লোকজন আসে, চুক্তি করে আর চলে গিয়ে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়ার কথা মনে রাখে না।

তিনি বলেন, রোহিঙ্গারা নিজেরাওতো ভিটেমাটি ফেলে আসতে চায় না। নতুন করে রোহিঙ্গা আসুক তা সরকার চায় না। তবে যখন নৌকায় করে চলে আসে তখনতো আর গুলি ছোড়া যায় না বা ঠেলে ফিরিয়ে দেয়া যায় না।

অর্থনীতি সার্বিকভাবে ইতিবাচক জানিয়ে আবদুল মান্নান বলেন, দেশে মূল্যস্ফীতি এরমধ্যে আর বাড়েনি, বরং এক-দুই পয়েন্ট কমেছে।

তিনি বলেন, নতুন করে ভ্যাট আরোপ না হলেও প্রবৃদ্ধি বাড়বে। বাড়তি ট্যাক্স পাবো আমরা বেশ কিছু খাত থেকে। রেমিটেন্স নিয়ে যে ধীর অবস্থা ছিল তা কাটতে শুরু করেছে। এরই মধ্যে ইউরোপের বাজার চাঙ্গা হয়েছে আমাদের। কাতারের প্রচুর জনশক্তি দরকার যা আমরা দিয়েও কুলাতে পরছি না।

অর্থ প্রতিমন্ত্রী বলেন, এবার প্রত্যাশার চেয়েও অনেক চমৎকার বোরো ফসল হয়েছে। তাই খাদ্য ঘাটতি নিয়ে অনেক বছর যেমন খাদ্য আমদানির চাপ থাকে এবার সেটা থাকবে না। তাই নতুন বাজেট বাস্তবায়নে টানাপোড়েন হবে না।

একটি ভালো ও যুগোপযোগী বাজেট প্রস্তাবনার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, যার যার জায়গা, প্রয়োজনীয়তা এবং দৃষ্টিভঙ্গি থেকে বাজেটের বাস্তবায়ন নিয়ে একেকজন একেকরকম বলেন। এটা খারাপ কিছু না।

তবে তিনি আবদুল মান্নান বলেন, প্রতিনিয়ত সৃষ্ট নতুন নতুন সমস্যা তারা সমাধান করে আসছেন। তারা প্রয়োগিক অর্থনীতি দিয়ে চলেন, কেতাবি অর্থনীতি দিয়ে নয়।

বেসরকারি খাতে পেনশন চালু প্রসঙ্গে অর্থ প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘এটি মাননীয় অর্থমন্ত্রীর আইডিয়া। এজন্য আইন লাগবে। আলোচনা চলছে, আইন হবে।’

পর্যটন খাত নিয়ে তিনি বলেন, যেহেতু এই বিষয়ে একটি মন্ত্রণালয় আছে তাই বরাদ্দতো থাকবেই। তবে তিনি মনে করেন দেশে পর্যটন তেমন বড় সেক্টর না। চট্টগ্রাম, কক্সবাজার এবং সিলেটেই কিছু পর্যটক যায়। অভ্যন্তরীণ ট্যুরিজম কিছুটা বেড়েছে। তারপরও পরিবার নিয়ে সব জায়গায় যাওয়ার মতো নয়।

আর কক্সবাজারের মতো জায়গায় এখন রোহিঙ্গাদের কারণে ট্যুরিজম ভালো হবে না বলে মনে করেন অর্থ প্রতিমন্ত্রী। তিনি বলেন, এদেশে এখন গরীব দেখতে কিছু লোক আসবে। আর আসবে বিভিন্ন সংস্থার লোক। কিন্তু পেশাদার ট্যুরিস্ট খুব একটা এখন আসবে না। সাধারণ পর্যটক কমবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24