জল ঘোলা করে শেষ পর্যন্ত জামায়াতের সঙ্গেই হাত মেলাচ্ছেন ড. কামাল

নিউজ ডেস্ক: জামায়াত থাকলে আমার দল কোনো ঐক্য প্রক্রিয়ায় যাবে না। তবে অন্য দলগুলো কী করবে তা বলতে পারছি না। সারা জীবনে কখনো জামায়াতের সঙ্গে যাইনি, শেষ জীবনে এসে সেটা করতে যাব কেন?’- গত ১১ সেপ্টেম্বর রাজধানীতে এক সংবাদ সম্মেলনে ড. কামাল হোসেনের এই বক্তব্যে গণমাধ্যমের শিরোনাম ছিল- ‘জামায়াত সঙ্গে থাকলে বিএনপির সঙ্গে ঐক্য নয়: ড. কামাল’।

তবে ১৩ অক্টোবর বিএনপিকে সঙ্গে নিয়েই ঐক্যের ঘোষণা দেন ড. কামাল হোসেন। ঐক্যের নাম রাখা হয় ‘জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট’। তবে ১৯৭১ সালে পাকিস্তানের পক্ষে অস্ত্র ধরা জামায়াত এখনও বিএনপির সঙ্গেই জোটবদ্ধ আছে। ফলে বর্তমান প্রেক্ষাপটে এ সত্য প্রবলভাবে উচ্চারিত হচ্ছে যে, পরোক্ষভাবে স্বাধীনতাবিরোধীর সঙ্গেই ঐক্য হয়েছে।

এই জোটের আলোচনার শুরু থেকেই ছিল জামায়াত প্রসঙ্গ। ড. কামাল হোসেনও বরাবরই স্বাধীনতাবিরোধীদের সঙ্গে জোটে আপত্তি তুলেছিলেন। কিন্তু ঐক্যের আলোচনায় মধ্যস্থতা করা গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর একটি কৌশলে অবশেষে জামায়াতকে ছাড়ার প্রশ্ন ছাড়াই বিএনপির সঙ্গে জোটে আবদ্ধ হয়েছেন ড. কামাল।

জাফরুল্লাহর কৌশলটি ছিল এমন- বিএনপি ঐক্যবদ্ধ থাকবে জামায়াতের সঙ্গে, আর জাতীয় ঐক্য হবে বিএনপির সঙ্গে। ফলে এখানে জামায়াত কোনো বিষয় নয়। কৌশল মোতাবেক শেষ পর্যন্ত হলোও তাই।

তবে ঐক্যের আলোচনায় মধ্যস্থতাকারী জাফরুল্লাহ চৌধুরী দাবি করেন, ‘জামায়াতের সঙ্গে ঐক্য হয়নি। জামায়াতকে বাদ দিয়েই আমাদের ঐক্য হয়েছে।’ বিএনপির সঙ্গে জামায়াতের জোট থাকার পরও এই ঐক্যে জামায়াত নেই বলার সুযোগ আছে কি না, এই প্রশ্নে জাফরুল্লাহ বলেন, ‘এটা নিয়ে তর্কে যাব না। আগামী নির্বাচনে জামায়াত কোনো ইস্যু হবে না।’

ঐক্যফ্রন্টের আনুষ্ঠানিক যাত্রার পর সংবাদ সম্মেলন শেষে মাহমুদুর রহমান মান্নার প্রতি সাংবাদিকরা প্রশ্ন রাখলে তিনি বলেন, ‘এসব নিয়ে এখন কথা বলার সময় নেই।’

জানতে চাইলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক গৌতম চক্রবর্তী বলেন, ‘বিএনপি এখানে একটি কৌশল করেছে। ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের জন্য তাদের সঙ্গে ঐক্য, আর ভোটের রাজনীতির জন্য জামায়াতকে তাদের দরকার। সেই জায়গা থেকে জামায়াতকে ছাড়ছে না বিএনপি।’

জামায়াত কেনো বিএনপির জন্য গুরুত্বপূর্ণ- সেটিও ব্যাখ্যা করেন এই অধ্যাপক। তিনি বলেন, ‘আগামী নির্বাচনে জামায়াতের কৌশলগত গুরুত্ব রয়েছে। তারা ক্যাডারভিত্তিক রাজনীতি করে। এছাড়া সারা দেশে ৫০-৬০ আসনে জামায়াতের পাঁচ শতাংশ ভোটে বিএনপির জয়-পরাজয়ের নিয়ামক হিসেবে কাজ করে। বিএনপি জামায়াতকে ছেড়ে ঐক্য করলে সরকারি দল সুবিধা পেত।’

জামায়াতকে রেখে এই ঐক্যের ভবিষ্যত কী?- এমন প্রশ্নে গৌতম চক্রবর্তী বলেন, ‘এই ঐক্যের ভবিষ্যত পূর্বের জোটের মতোই। গণফোরাম এবং যুক্তফ্রন্ট অতীতেও নিজেদের তৃতীয় শক্তি হিসেবে দেখতে চেয়েছিল। কিন্তু সেগুলো কেবল স্বপ্নই রয়ে গেছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» সুনামগঞ্জে বিএনপি নেতাকর্মীর গণপদত্যাগ

» জগন্নাথপুরে অতিরিক্ত মূল্যে বোরো ধানের বীজ বিক্রির অভিযোগ

» সুনামগঞ্জ-৩ আসনে মনোনয়ন সংগ্রহ করলেন বিএনপির তিন নেতা

» সিলেটে বাড়ছে যানবাহনের চাপ, বাড়ছে না সড়ক

» জগন্নাথপুরে মাসিক আইনশৃঙ্খলা সভা অনুষ্ঠিত

» অটোরিকশার চাকায় ওড়না পেচিয়ে নারীর মৃত্যু

» ঐক্য ধরে রেখে সামনে এগিয়ে যাওয়ার আহ্বান খালেদা জিয়ার

» দ্বিতীয় দিন শেষে চালকের আসনে বাংলাদেশ

» জগন্নাথপুরে ডাকাতি মামলার সাজাপ্রাপ্ত আসামীসহ গ্রেফতার-৬

» স্পিডবোটডুবির ঘটনায় নবদম্পতিসহ তিন যাত্রীর লাশ উদ্ধার

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

জল ঘোলা করে শেষ পর্যন্ত জামায়াতের সঙ্গেই হাত মেলাচ্ছেন ড. কামাল

নিউজ ডেস্ক: জামায়াত থাকলে আমার দল কোনো ঐক্য প্রক্রিয়ায় যাবে না। তবে অন্য দলগুলো কী করবে তা বলতে পারছি না। সারা জীবনে কখনো জামায়াতের সঙ্গে যাইনি, শেষ জীবনে এসে সেটা করতে যাব কেন?’- গত ১১ সেপ্টেম্বর রাজধানীতে এক সংবাদ সম্মেলনে ড. কামাল হোসেনের এই বক্তব্যে গণমাধ্যমের শিরোনাম ছিল- ‘জামায়াত সঙ্গে থাকলে বিএনপির সঙ্গে ঐক্য নয়: ড. কামাল’।

তবে ১৩ অক্টোবর বিএনপিকে সঙ্গে নিয়েই ঐক্যের ঘোষণা দেন ড. কামাল হোসেন। ঐক্যের নাম রাখা হয় ‘জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট’। তবে ১৯৭১ সালে পাকিস্তানের পক্ষে অস্ত্র ধরা জামায়াত এখনও বিএনপির সঙ্গেই জোটবদ্ধ আছে। ফলে বর্তমান প্রেক্ষাপটে এ সত্য প্রবলভাবে উচ্চারিত হচ্ছে যে, পরোক্ষভাবে স্বাধীনতাবিরোধীর সঙ্গেই ঐক্য হয়েছে।

এই জোটের আলোচনার শুরু থেকেই ছিল জামায়াত প্রসঙ্গ। ড. কামাল হোসেনও বরাবরই স্বাধীনতাবিরোধীদের সঙ্গে জোটে আপত্তি তুলেছিলেন। কিন্তু ঐক্যের আলোচনায় মধ্যস্থতা করা গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর একটি কৌশলে অবশেষে জামায়াতকে ছাড়ার প্রশ্ন ছাড়াই বিএনপির সঙ্গে জোটে আবদ্ধ হয়েছেন ড. কামাল।

জাফরুল্লাহর কৌশলটি ছিল এমন- বিএনপি ঐক্যবদ্ধ থাকবে জামায়াতের সঙ্গে, আর জাতীয় ঐক্য হবে বিএনপির সঙ্গে। ফলে এখানে জামায়াত কোনো বিষয় নয়। কৌশল মোতাবেক শেষ পর্যন্ত হলোও তাই।

তবে ঐক্যের আলোচনায় মধ্যস্থতাকারী জাফরুল্লাহ চৌধুরী দাবি করেন, ‘জামায়াতের সঙ্গে ঐক্য হয়নি। জামায়াতকে বাদ দিয়েই আমাদের ঐক্য হয়েছে।’ বিএনপির সঙ্গে জামায়াতের জোট থাকার পরও এই ঐক্যে জামায়াত নেই বলার সুযোগ আছে কি না, এই প্রশ্নে জাফরুল্লাহ বলেন, ‘এটা নিয়ে তর্কে যাব না। আগামী নির্বাচনে জামায়াত কোনো ইস্যু হবে না।’

ঐক্যফ্রন্টের আনুষ্ঠানিক যাত্রার পর সংবাদ সম্মেলন শেষে মাহমুদুর রহমান মান্নার প্রতি সাংবাদিকরা প্রশ্ন রাখলে তিনি বলেন, ‘এসব নিয়ে এখন কথা বলার সময় নেই।’

জানতে চাইলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক গৌতম চক্রবর্তী বলেন, ‘বিএনপি এখানে একটি কৌশল করেছে। ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের জন্য তাদের সঙ্গে ঐক্য, আর ভোটের রাজনীতির জন্য জামায়াতকে তাদের দরকার। সেই জায়গা থেকে জামায়াতকে ছাড়ছে না বিএনপি।’

জামায়াত কেনো বিএনপির জন্য গুরুত্বপূর্ণ- সেটিও ব্যাখ্যা করেন এই অধ্যাপক। তিনি বলেন, ‘আগামী নির্বাচনে জামায়াতের কৌশলগত গুরুত্ব রয়েছে। তারা ক্যাডারভিত্তিক রাজনীতি করে। এছাড়া সারা দেশে ৫০-৬০ আসনে জামায়াতের পাঁচ শতাংশ ভোটে বিএনপির জয়-পরাজয়ের নিয়ামক হিসেবে কাজ করে। বিএনপি জামায়াতকে ছেড়ে ঐক্য করলে সরকারি দল সুবিধা পেত।’

জামায়াতকে রেখে এই ঐক্যের ভবিষ্যত কী?- এমন প্রশ্নে গৌতম চক্রবর্তী বলেন, ‘এই ঐক্যের ভবিষ্যত পূর্বের জোটের মতোই। গণফোরাম এবং যুক্তফ্রন্ট অতীতেও নিজেদের তৃতীয় শক্তি হিসেবে দেখতে চেয়েছিল। কিন্তু সেগুলো কেবল স্বপ্নই রয়ে গেছে।

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।