শুক্রবার, ২২ নভেম্বর ২০১৯, ০৪:২২ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
বাস-মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ৭ জগন্নাথপুরের রসুলপুর আর্দশ ক্রিকেট ক্লাবের জার্সি উম্মোচন শাহারপাড়ায় মেডিকেল সেন্টার উদ্ধোধন ও মেডিকেল ক্যাম্প অনুষ্ঠিত এম এ মান্নান প্রাথমিক মেধাবৃত্তি পরীক্ষা ২৯ নভেম্বর ‘মার্টিন স্বপ্নে ইসলামের কোনো এক নবীর কথা বারবার উচ্চারণ করছিল’ জগন্নাথপুরের নয়াবন্দর-শংকপুর সড়ক উদ্বোধন করলেন পরিকল্পনামন্ত্রী জগন্নাথপুরে পরিকল্পনামন্ত্রী-ক্ষমতায় আসতে না পেরে একটি মহল গুজব ছড়াচ্ছে মিরপুর ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান শেরীন শপথ নেবেন ২৫ নভেম্বর দক্ষিণ সুরমার একাধিক মামলার আসামি গ্রেফতার সাহাবাদের যুগে শিশুদের শিক্ষায় অধিক গুরুত্ব দেওয়া হতো

জেলা পরিষদ নির্বাচনে আন্তরিকতায় মুগ্ধ নারী জনপ্রতিনিধিরা

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ২৪ ডিসেম্বর, ২০১৬
  • ৬০ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি:;
এক যুগ ধরে নারী জনপ্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি, কেউ আমাদের প্রতি এত আন্তরিকতা দেখায়নি। হঠাৎ করে আমাদের কদর এত বেড়েছে যে, আত্মীয় স্বজন ও শুভাকাংখিদের আন্তরিকতায় হিমশিম খেতে হচ্ছে।
কথাগুলো বলছিলেন জগন্নাথপুর উপজেলার মীরপুর ইউনিয়নের নারী সদস্য রাজিয়া বেগম। তিনি বলেন, ইউনিয়ন পরিষদের সকল দায় দায়িত্ব পুরুষ সদস্যরাই বেশী পালন করে থাকেন। ভিজিএফ চাল দেয়া থেকে শুরু করে সবকিছুতেই আমরা নারী সদস্যরা বঞ্চিত পুরুষ সদস্যদের অগ্রাধিকার। হঠাৎ করে জেলা পরিষদ নির্বাচন আসতেই আমাদের কদর বেড়ে গেছে। এখন প্রতিদিন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান থেকে শুরু করে জেলা পরিষদ নির্বাচনের চেয়ারম্যান ও সদস্য প্রার্থীদের পাশাপাশি তাদের স্বজনরা
বাড়ি পর্যন্ত হানা দিয়ে আন্তরিকতা দেখাচ্ছেন। দিচ্ছেন নানা প্রতিশ্রুতি। এত প্রতিশ্রুতি ও আন্তরিকতায় আমরা রীতিমত মুগ্ধ। শুধু রাজিয়া বেগমই নন তাঁর মতো আরো অনেক নারী জনপ্রতিনিধি রয়েছেন ইউনিয়ন পরিষদ থেকে কাজের খুব একটা সুযোগ পান না। পরিষদের তাদের খুব একটা কাজ থাকে না। বর্তমানে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদস্য প্রার্থীদের তৎপরতায় তাদের কদর বেড়ে গেছে বলে জানিয়েছেন। তাদের ভাষ্যমতে এখন জেলা পরিষদের প্রার্থীরা পুরুষদের পাশাপাশি তাদেরকে আরো বেশি করে খোঁজ খবর নি্েচ্ছন।
পাটলী ইউনিয়নের দ্বিতীয়বার নির্বাচিত সদস্য ফেরদৌসি বেগম তানিয়া বলেন, ‘ইউনিয়ন পরিষদের নারী জনপ্রতিনিধিদের বঞ্চনার যেন অবসান হয় সে ব্যাপারে পদক্ষেপ নিতে নারী প্রার্থীসহ সকল প্রার্থীকে ভূমিকা রাখতে বলছি।’ তিনি বলেন,‘প্রার্থীরা যেভাবে এসে খোঁজছেন তাতে ভালই লাগছে।’
চিলাউড়া-হলদিপুর ইউনিয়নের নারী সদস্য শান্তনা বেগম লাখি বলেন, ‘আমি এর আগেও ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত তিন ওয়ার্ডের নির্বাচিত সদস্য ছিলাম। নারী হিসেবে অবমুল্যায়িত হয়েছি। কিছু করতে পারিনি। এবারও নির্বাচিত হয়ে এসে দেখছি নারীদের কাজ করার সুযোগ নেই বললেই চলে। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, পাউবোর উপজেলাব্যাপী প্রকল্পে এ উপজেলার একজন নারী সদস্যকেও দায়িত্ব দেয়া হয়নি।
জগন্নাথপুর পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ডের দ্বিতীয়বার নির্বাচিত সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর মীনা রানী পাল বলেন, ‘স্থানীয় সরকার ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করতে নারীরা নির্বাচিত হয়ে আসলেও মানসিকতার পরির্বতন না হওয়ায় নারী সদস্যদেরকে বঞ্চিত থাকতে হয়। জেলা পরিষদ নির্বাচন যাতে বঞ্চনা ঘুচাতে ভূমিকা রাখতে পারে তা প্রত্যাশা করি।’
অনুসন্ধানে জানা গেছে, জগন্নাথপুর উপজেলার আটটি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভায় মোট ৯০ জন ভোটারের মধ্যে নারী ভোটার রয়েছেন ২৮জন। নির্বাচনে জয় পরাজয়ে এসব নারী ভোটারদের ভূমিকা ফ্যাক্টর হওয়ায় নারীদের প্রতি প্রার্থীদের সুনজর একটু বেশী। অনেক প্রার্থী আত্মীয়তা খুঁজে খুঁজে স্বজনদের নিয়ে এসে ভোট প্রার্থনা করছেন। কেউবা আবার এসব নারী জনপ্রতিনিধিদের মধ্যে দরিদ্র জনপ্রতিনিধিদেরকে টাকার বিনিময়ে নিজেদের পক্ষে আনার চেষ্টা করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।
জেলা পরিষদ নির্বাচনে সংরক্ষিত ৪নং ওয়ার্ডের সদস্য প্রার্থী কবি সাবিনা সুলতানা জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ‘নির্বাচিত হলে ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচিত নারী সদস্যদের বঞ্চনার অবসান ঘটাতে কাজ করব।’ তিনি বলেন,‘নারীদের বঞ্চনায় রেখে স্থানীয় সরকার ব্যবস্থা শক্তিশালী হয় না। জেলা পরিষদ সদস্য নির্বাচিত হলে এ বিষয়ে বিশেষ ভূমিকা রাখব।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24