টাকার অভাবে হাসপাতাল থেকে এখন বাড়িতে…

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::
অর্থের অভাবে চিকিৎসাসেবা নিতে না পারায় মৃত্যু যন্ত্রনায় কাতরাচ্ছেন গৃহবধু সালমা বেগম। অগ্নিদগ্ধ হয়ে শরীরের ৩০ শতাংশ পুড়ে গেছে তারা।
সে মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলার গোলাপনগর গ্রামের কৃষক রুবেল মিয়ার স্ত্রী।

জানা গেছে, গত ৭ ফেব্রুয়ারি সকালে নিজ বাড়িতে রান্না করার সময় অসাবধানতার ফলে তার গায়ের কাপড়ে আগুন লেগে যায়। তাৎক্ষণিক পরিবারের লোকজন তাকে গুরুতর অবস্থায় ঘিওর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। সেখান থেকে তাকে মানিকগঞ্জ ২৫০ শয্যা হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখান থেকে রেফার করে দেওয়া হয় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে। সেখানকার চিকিৎসকরা জানায়, সালমার শরীরের নিচের অংশের ৩০ ভাগ পুড়েছে। তাকে দীর্ঘদিন চিকিৎসায় থাকতে হবে।

তবে চিকিৎসা খরচ অনেক বেশি হবে।

টানা ৫ দিন মেডিক্যাল কলেজের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসা নিতে তার ব্যয় হয় প্রায় ৮০ হাজার টাকা। এ অবস্থায় চিকিৎসকরা বলেন, সালমাকে সুস্থ করতে হলে আরও উন্নত চিকিৎসা প্রয়োজন। কিন্ত দরিদ্র স্বামীর পক্ষে তার চিকিৎসার ব্যয়ভার নির্বাহ করা সম্ভব হচ্ছে না। বাধ্য হয়ে টাকার অভাবে চিকিৎসা নিতে না পারায় গত ১৩ ফেব্রুয়ারি বিকেলে ঢাকা বার্ন ইউনিট থেকে বাড়িতে ফিরিয়ে আনা হয় তাকে।

সালমার স্বামী দরিদ্র কৃষক রুবেল মিয়া জানান, তার নিজের কোনো জমিজমা নেই। অন্যের জমিতে ফসল ফলিয়ে তিনি দিনাতিপাত করেন। তাদের সংসারের দুই বছরের একটি মেয়ে রয়েছে। এদিকে সালমা তিন মাসের অন্তস্বত্তা। এমতাবস্থায় তিনি নিরুপায় হয়ে বিত্তবানদের সাহায্য প্রার্থনা করেছেন।

বিছানায় মৃত্যু যন্ত্রনায় কাতরানো সালমা জানান, তার বাবা-মা মারা গেছে বহু বছর আগে। চাচার কাছে মানুষ হয়েছে সে। চাচাই তাকে দরিদ্র কৃষকের কাছে বিয়ে দেয়। তার আত্মীয়-স্বজন বলতে তেমন কেউ নেই। টাকার অভাবে সে চিকিৎসা নিতে পারছে না। এমতাবস্থায় সালমা স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও মানিকগঞ্জের এমপি জাহিদ মালেক স্বপন, মমতাজ বেগম ও নাঈমুর রহমান দূর্জয়ের সাহায্য কামনা করেছেন।

সে মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলার গোলাপনগর গ্রামের কৃষক রুবেল মিয়ার স্ত্রী।

জানা গেছে, গত ৭ ফেব্রুয়ারি সকালে নিজ বাড়িতে রান্না করার সময় অসাবধানতার ফলে তার গায়ের কাপড়ে আগুন লেগে যায়। তাৎক্ষণিক পরিবারের লোকজন তাকে গুরুতর অবস্থায় ঘিওর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। সেখান থেকে তাকে মানিকগঞ্জ ২৫০ শয্যা হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখান থেকে রেফার করে দেওয়া হয় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে। সেখানকার চিকিৎসকরা জানায়, সালমার শরীরের নিচের অংশের ৩০ ভাগ পুড়েছে। তাকে দীর্ঘদিন চিকিৎসায় থাকতে হবে।

তবে চিকিৎসা খরচ অনেক বেশি হবে।

টানা ৫ দিন মেডিক্যাল কলেজের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসা নিতে তার ব্যয় হয় প্রায় ৮০ হাজার টাকা। এ অবস্থায় চিকিৎসকরা বলেন, সালমাকে সুস্থ করতে হলে আরও উন্নত চিকিৎসা প্রয়োজন। কিন্ত দরিদ্র স্বামীর পক্ষে তার চিকিৎসার ব্যয়ভার নির্বাহ করা সম্ভব হচ্ছে না। বাধ্য হয়ে টাকার অভাবে চিকিৎসা নিতে না পারায় গত ১৩ ফেব্রুয়ারি বিকেলে ঢাকা বার্ন ইউনিট থেকে বাড়িতে ফিরিয়ে আনা হয় তাকে।

সালমার স্বামী দরিদ্র কৃষক রুবেল মিয়া জানান, তার নিজের কোনো জমিজমা নেই। অন্যের জমিতে ফসল ফলিয়ে তিনি দিনাতিপাত করেন। তাদের সংসারের দুই বছরের একটি মেয়ে রয়েছে। এদিকে সালমা তিন মাসের অন্তস্বত্তা। এমতাবস্থায় তিনি নিরুপায় হয়ে বিত্তবানদের সাহায্য প্রার্থনা করেছেন।

বিছানায় মৃত্যু যন্ত্রনায় কাতরানো সালমা জানান, তার বাবা-মা মারা গেছে বহু বছর আগে। চাচার কাছে মানুষ হয়েছে সে। চাচাই তাকে দরিদ্র কৃষকের কাছে বিয়ে দেয়। তার আত্মীয়-স্বজন বলতে তেমন কেউ নেই। টাকার অভাবে সে চিকিৎসা নিতে পারছে না। এমতাবস্থায় সালমা স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও মানিকগঞ্জের এমপি জাহিদ মালেক স্বপন, মমতাজ বেগম ও নাঈমুর রহমান দূর্জয়ের সাহায্য কামনা করেছেন।
সৌজন্যে কালের কণ্ঠ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» জগন্নাথপুরে প্রবাসিদের সঙ্গে আইডিয়াল ভিলেজ ফোরামের মতবিনিময় সভা

» নিউজিল্যান্ডের সংসদে পবিত্র আল কোরআন তিলাওয়াত!

» প্রাথমিক শিক্ষক পদে এপ্রিলে পরীক্ষা

» বিশ্বনাথে দুই ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ ৯ জনের জামাত বাজেয়াপ্ত

» স্যান্ডেলের ভেতর ১০ হাজার ডলার!

» আবারও নিরাপদ সড়ক’র দাবীতে আন্দোলনে নামছে শিক্ষার্থীরা

» গ্র্যাজুয়েটদের উদ্দেশে রাষ্ট্রপতি- রডের পরিবর্তে বাঁশ দেবেন না

» জগন্নাথপুরে গাঁজাসহ গ্রেফতার-১

» আসসালামু আলাইকুম বলে পার্লামেন্টে বক্তব্য দিলেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী

» সুনামগঞ্জে ছুরিকাঘাতে আ.লীগ নেতা খুন, আটক-৩

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

টাকার অভাবে হাসপাতাল থেকে এখন বাড়িতে…

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::
অর্থের অভাবে চিকিৎসাসেবা নিতে না পারায় মৃত্যু যন্ত্রনায় কাতরাচ্ছেন গৃহবধু সালমা বেগম। অগ্নিদগ্ধ হয়ে শরীরের ৩০ শতাংশ পুড়ে গেছে তারা।
সে মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলার গোলাপনগর গ্রামের কৃষক রুবেল মিয়ার স্ত্রী।

জানা গেছে, গত ৭ ফেব্রুয়ারি সকালে নিজ বাড়িতে রান্না করার সময় অসাবধানতার ফলে তার গায়ের কাপড়ে আগুন লেগে যায়। তাৎক্ষণিক পরিবারের লোকজন তাকে গুরুতর অবস্থায় ঘিওর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। সেখান থেকে তাকে মানিকগঞ্জ ২৫০ শয্যা হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখান থেকে রেফার করে দেওয়া হয় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে। সেখানকার চিকিৎসকরা জানায়, সালমার শরীরের নিচের অংশের ৩০ ভাগ পুড়েছে। তাকে দীর্ঘদিন চিকিৎসায় থাকতে হবে।

তবে চিকিৎসা খরচ অনেক বেশি হবে।

টানা ৫ দিন মেডিক্যাল কলেজের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসা নিতে তার ব্যয় হয় প্রায় ৮০ হাজার টাকা। এ অবস্থায় চিকিৎসকরা বলেন, সালমাকে সুস্থ করতে হলে আরও উন্নত চিকিৎসা প্রয়োজন। কিন্ত দরিদ্র স্বামীর পক্ষে তার চিকিৎসার ব্যয়ভার নির্বাহ করা সম্ভব হচ্ছে না। বাধ্য হয়ে টাকার অভাবে চিকিৎসা নিতে না পারায় গত ১৩ ফেব্রুয়ারি বিকেলে ঢাকা বার্ন ইউনিট থেকে বাড়িতে ফিরিয়ে আনা হয় তাকে।

সালমার স্বামী দরিদ্র কৃষক রুবেল মিয়া জানান, তার নিজের কোনো জমিজমা নেই। অন্যের জমিতে ফসল ফলিয়ে তিনি দিনাতিপাত করেন। তাদের সংসারের দুই বছরের একটি মেয়ে রয়েছে। এদিকে সালমা তিন মাসের অন্তস্বত্তা। এমতাবস্থায় তিনি নিরুপায় হয়ে বিত্তবানদের সাহায্য প্রার্থনা করেছেন।

বিছানায় মৃত্যু যন্ত্রনায় কাতরানো সালমা জানান, তার বাবা-মা মারা গেছে বহু বছর আগে। চাচার কাছে মানুষ হয়েছে সে। চাচাই তাকে দরিদ্র কৃষকের কাছে বিয়ে দেয়। তার আত্মীয়-স্বজন বলতে তেমন কেউ নেই। টাকার অভাবে সে চিকিৎসা নিতে পারছে না। এমতাবস্থায় সালমা স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও মানিকগঞ্জের এমপি জাহিদ মালেক স্বপন, মমতাজ বেগম ও নাঈমুর রহমান দূর্জয়ের সাহায্য কামনা করেছেন।

সে মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলার গোলাপনগর গ্রামের কৃষক রুবেল মিয়ার স্ত্রী।

জানা গেছে, গত ৭ ফেব্রুয়ারি সকালে নিজ বাড়িতে রান্না করার সময় অসাবধানতার ফলে তার গায়ের কাপড়ে আগুন লেগে যায়। তাৎক্ষণিক পরিবারের লোকজন তাকে গুরুতর অবস্থায় ঘিওর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। সেখান থেকে তাকে মানিকগঞ্জ ২৫০ শয্যা হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখান থেকে রেফার করে দেওয়া হয় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে। সেখানকার চিকিৎসকরা জানায়, সালমার শরীরের নিচের অংশের ৩০ ভাগ পুড়েছে। তাকে দীর্ঘদিন চিকিৎসায় থাকতে হবে।

তবে চিকিৎসা খরচ অনেক বেশি হবে।

টানা ৫ দিন মেডিক্যাল কলেজের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসা নিতে তার ব্যয় হয় প্রায় ৮০ হাজার টাকা। এ অবস্থায় চিকিৎসকরা বলেন, সালমাকে সুস্থ করতে হলে আরও উন্নত চিকিৎসা প্রয়োজন। কিন্ত দরিদ্র স্বামীর পক্ষে তার চিকিৎসার ব্যয়ভার নির্বাহ করা সম্ভব হচ্ছে না। বাধ্য হয়ে টাকার অভাবে চিকিৎসা নিতে না পারায় গত ১৩ ফেব্রুয়ারি বিকেলে ঢাকা বার্ন ইউনিট থেকে বাড়িতে ফিরিয়ে আনা হয় তাকে।

সালমার স্বামী দরিদ্র কৃষক রুবেল মিয়া জানান, তার নিজের কোনো জমিজমা নেই। অন্যের জমিতে ফসল ফলিয়ে তিনি দিনাতিপাত করেন। তাদের সংসারের দুই বছরের একটি মেয়ে রয়েছে। এদিকে সালমা তিন মাসের অন্তস্বত্তা। এমতাবস্থায় তিনি নিরুপায় হয়ে বিত্তবানদের সাহায্য প্রার্থনা করেছেন।

বিছানায় মৃত্যু যন্ত্রনায় কাতরানো সালমা জানান, তার বাবা-মা মারা গেছে বহু বছর আগে। চাচার কাছে মানুষ হয়েছে সে। চাচাই তাকে দরিদ্র কৃষকের কাছে বিয়ে দেয়। তার আত্মীয়-স্বজন বলতে তেমন কেউ নেই। টাকার অভাবে সে চিকিৎসা নিতে পারছে না। এমতাবস্থায় সালমা স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও মানিকগঞ্জের এমপি জাহিদ মালেক স্বপন, মমতাজ বেগম ও নাঈমুর রহমান দূর্জয়ের সাহায্য কামনা করেছেন।
সৌজন্যে কালের কণ্ঠ

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।