রবিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯, ১১:০৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে হালিমা খাতুন ট্রাষ্টের মেধা বৃত্তি পরীক্ষায় প্রথম স্থান অর্জন করেছে তাওহিদা কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলনে পরিকল্পনামন্ত্রী- তোমাদের স্বপ্নের বাংলাদেশ আসছে জগন্নাথপুরে আমার বিদ‌্যালয়, আমার অহংকার, নিজেরাই করি সুন্দর ও পরিস্কার প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে বন্ধুকে নিয়ে বেড়াতে গিয়ে গাছের সঙ্গে ধাক্কায় মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় দুই বন্ধু নিহত ছাতকে একই স্থানে আ.লীগের দুই পক্ষের সমাবেশ,১৪৪ ধারা জারি আজ কলকলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সন্মেলন ভারমুক্ত না নতুন নেতৃত্ব? কাশফুলের শাদা যন্ত্রণা ||আব্দুল মতিন জগন্নাথপুরের মিরপুরে ডাকাত আতঙ্ক, রাত জেগে দলবেঁধে পাহারা চলছে কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলনে রোববার পরিকল্পনামন্ত্রী প্রধান অতিথি হিসেবে থাকবেন ৫ বছর পর কাল কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন: বিতর্কিত নেতৃত্ব চান না নেতাকর্মীরা

টিসিবি’র পণ্য তুলছেন না জগন্নাথপুরসহ জেলার বিভিন্ন ডিলাররা

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১০ মে, ২০১৯
  • ২৮৯ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::
এবার টিসিবি’র পন্যের মূল্য বাজার দরের চেয়ে অপেক্ষাকৃত কম। তবুও মালামাল তুলছেন না ডিলাররা। জেলার ২০ ডিলারের মধ্যে মাত্র ২ জন ডিলার একবার মালামাল তুলেছেন। অন্যদিকে টিসিবি’র সিলেট অঞ্চলের অন্য ৪ জেলা শহরে (ব্রাহ্মণবাড়িয়াসহ) গত ২৩ এপ্রিল থেকে টিসিবির পণ্য ট্রাকে করে খোলা বাজারে বিক্রয় শুরু হলেও সুনামগঞ্জে টিসিবির পণ্য বিক্রয় হচ্ছে না। একারণে রমজানে কমদামে নিত্যপণ্য প্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন ভোক্তারা।
রমজানে কম দামের দ্রব্যমূল্য সরবরাহ করা এবং বাজার স্থিতিশীল রাখতে টিসিবি’র পণ্য বিক্রয় শুরু হয়েছে সারাদেশে। বাজারে চিনির কেজি ৫০ থেকে ৫২ টাকা, মুসুর ডাল ৫০ থেকে ৫২ টাকা, সোয়াবিন তেল ৮৫ থেকে ৯০ টাকা, ছোলা ৭০ থেকে ৭৫ টাকা বিক্রয় হচ্ছে। অথচ. টিসিবি’র চিনি প্রতি কেজি ৪৭ টাকা, মুসুর ডাল ৪৪ টাকা, সোয়াবিল তেল ৮৫ টাকা এবং ছোলা ৬০ টাকা বিক্রয় মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে।
ভোক্তাদের এই মূল্যে বিক্রয় করার পরও ৫০ কিলোমিটার দূরবর্তী অর্থাৎ সুনামগঞ্জে এনে এই মালামাল বিক্রয় করলে ডিলাররা প্রতি কেজিতে সাড়ে ৪ টাকা কমিশন পাবেন। এরপরও জেলার ১৮ জন ডিলার টিসিবির পণ্য তুলছেন না।
এসব ডিলাররা হলেন- জগন্নাথপুরের মেসার্স সুমন ট্রেডার্স, শাহ্ মিয়াধন ট্রেডার্স, দোয়ারাবাজারের আমবাড়ী’র দূর্গা ভা-ার, শাল্লার শ্রীপালি ভা-ার, সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার জয়নগর বাজারের মেসার্স জীসপ সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতি লিঃ, দক্ষিণ সুনামগঞ্জের নোয়াখালী বাজারের মেসার্স সেবা টেলিকম, দক্ষিণ সুনামগঞ্জের পাগলা বাজারের মেসার্স হাবিবুর রহমান, দোয়ারাবাজারের মেসার্স বিনয় ট্রেডার্স, একই উপজেলার বাংলাবাজারের হাজী সামছুল হক এ- সন্স, জগন্নাথপুর পৌর পয়েন্টের মেসার্স দি মোহাম্মদীয়া ট্রেডার্স, সুনামগঞ্জের মধ্যনগরের মেসার্স মায়া ট্রেডার্স, বিশ্বম্ভরপুরের মেসার্স সৌখিন নির্মাণ সংস্থা ও সরবরাহকারী, দিরাই উপজেলার মেসার্স স্টার এন্টার প্রাইজ, ছাতকের জাউয়া বাজারের মেসার্স আলী এন্টারপ্রাইজ, একই উপজেলার আলীগঞ্জ বাজারের মেসার্স হাসনাত ট্রেডার্স, ছাতকের বুড়াইরগাঁও বাজারের মেসার্স শমসের এন্টারপ্রাইজ এবং জামালগঞ্জের মেসার্স শাহরিয়া ট্রেডার্স। এরা এখনও (বৃহস্পতিবার পর্যন্ত) মালামাল তুলেননি।
দোয়ারাবাজারের আমবাড়ী’র দুর্গা ভান্ডারের মালিক কৃপা সিন্ধু রায় এবার টিসিবি’র পণ্যের মূল্য নির্ধারণ সঠিক হয়েছে স্বীকার করে বললেন,‘আমি খাদ্য পণ্যের ব্যবসায়ী, টিসিবি’র পণ্য আমি এনে বিক্রয় করতে না পারলে, অন্যরা কীভাবে বিক্রয় করবে। টিসিবির সিলেট অঞ্চলের আঞ্চলিক কর্মকর্তা ইসমাইল মজুমদারের সঙ্গে মুঠোফোনে কথা হয়েছে আমার। তাঁকে বলেছি, মালামাল বেশি না দিলে, এতো কম মাল এনে ট্রাক ভাড়া দিয়ে পুষাবে কীভাবে? তিনি এর উত্তর না দিয়ে ফোন কেটে দিয়েছেন।’
দোয়ারাবাজারের মেসার্স বিনয় ট্রেডার্সের মালিক বিনয় চক্রবর্তী বলেন,‘টিসিবি’র পণ্য কেউ কিনে না, এজন্য তুলিনি, প্রতি বছর লোকসান গুনতে হয়। এজন্য এবার মালামাল তুলবো না।’ দক্ষিণ সুনামগঞ্জের ডিলার হাবিবুর রহমান, দোয়ারাবাজারের ডিলার সামছুল হক এর সঙ্গে এ বিষয়ে কথা বলার জন্য ফোন দিলেও মুঠোফোন বন্ধ থাকায় তাদের বক্তব্য নেওয়া যায়নি।
টিসিবি’র সিলেট অঞ্চলের আঞ্চলিক প্রধান মো. ইসমাইল মজুমদার বলেন,‘গত ২৩ এপ্রিল থেকে প্রতিদিন সিলেট অঞ্চলের অধীনের জেলা শহর ব্রাহ্মণবাড়িয়া, মৌলভীবাজার, হবিগঞ্জ ও সিলেট শহরে ট্রাকে করে খোলা বাজারে টিসিবি’র পণ্য বিক্রয় হচ্ছে। কিন্তু সুনামগঞ্জে আমরা টিসিবি’র পণ্য বিক্রয় কার্যকর করতে পারছি না। বার বার যোগাযোগ করেও ডিলারদের মালামাল তোলার জন্য আনা যাচ্ছে না। ট্রাক দিয়ে শহরে টিসিবি’র পণ্য বিক্রি করাতেও কোন ডিলারকে রাজি করানো যাচ্ছে না।’
সুনামগঞ্জের ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক মো. সফিউল আলম বলেন,‘আমরা ডিলারদের ডেকে এনে টিসিবি’র পণ্য তোলার জন্য অনুরোধ করেছি। আবারও সবাইকে পণ্য তোলার জন্য বলবো।’

সুত্র-সুনামগঞ্জের খবর

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24