শুক্রবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ১২:৩৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ২২তম ক্রিকেট টুর্নামেন্টের উদ্বোধন সম্পন্ন জগন্নাথপুরে সেই সড়কে ২৩ কোটি টাকার টেন্ডার সম্পন্ন, নতুন বছরের শুরুতেই কাজ শুরু হতে পারে জগন্নাথপুরে ১৫ দিন পর অবশেষে ধান কেনা শুরু জগন্নাথপুরে গলায় ফাঁস দিয়ে দুর্বৃত্তরা হত্যা করল স্টুডিও’র মালিক আনন্দকে সিলেট জেলা আ’লীগের নেতৃত্বে লুৎফুর-নাসির, মহানগরে মাসুক-জাকির প্রতিবন্ধীদের জন্য প্রতিটি উপজেলায় সহায়তা কেন্দ্র: প্রধানমন্ত্রী জগন্নাথপুর পৌরশহরে স্টুডিও দোকানদারের মরদেহ পাওয়া গেছে হিন্দুরাষ্ট্রের পথে ভারত: সংসদে বিজেপি নেতা জামিন শুনানি পেছালো, এজলাসে হট্টগোল, আইনজীবীদের অবস্থান মানবজাতির প্রতি কোরআনের অমূল্য উপদেশ

তাহিরপুরে বাল্য বিবাহ চলছেই

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১০ অক্টোবর, ২০১৮
  • ১৩৪ Time View

গোলাম সরোয়ার লিটন
২০১০ সালে প্রথম শ্রেণিতে ভর্তি হয় ইশরাত জাহান ইমু, ফারিয়া সুলতানা জিনাত, রুবিনা আক্তার, ইলমা আক্তারসহ তাদের ৪৫ জন বান্ধবী। বর্তমানে তারা অষ্টম শ্রেণির মডেল টেস্ট পরীক্ষা দিচ্ছে।
মঙ্গলবার ছিল শেষ দিনের পরীক্ষা। ছাত্রছাত্রীরা বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় বিষয়ের পরীক্ষা দিচ্ছিল। কিন্তু লাকিমা আক্তার এ পরীক্ষায় অংশ নিতে আসেনি।
ছাত্রছাত্রীরা জানায়, বিয়ে হওয়ার কারণে লাকিমা এ পরীক্ষায় অংশ নিতে পারেনি। বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে জানা যায়, বাল্যবিবাহের কারণে এ পর্যন্ত তাদের ৯ জন বান্ধবীর পড়াশুনা বন্ধ হয়েছে।
জিনাত ও ইমু জানায়, বিয়ে হওয়া এ সকল বান্ধবীর সাথে তাদের যোগাযোগ আছে। একই শ্রেণিতে পড়া ও একই মাঠে খেলার এ সকল সাথীরা এখন নানারকম শারীরিক ও মানসিক কষ্টে ভুগছে। তাদের কেউ কেউ মৃত সন্তানেরও জন্ম দিয়েছে। এ তথ্যটি তাহিরপুর উপজেলার সোহালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের। বিদ্যালয়টিতে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত পাঠদান চলে।
তবে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, তাহিরপুর উপজেলার অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিশুরাই বাল্যবিবাহের শিকার। প্রশাসন ও প্রতিষ্ঠানগুলো বাল্যবিবাহ ঠেকাতে চেষ্টা করলেও এ সকল বিয়ে হচ্ছে গোপনে। বাবা-মায়ের অসেচতনতাই এর মূল কারণ বলে মনে করছেন সচেতন এলাকাবাসী।
সোহালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রীদের দেয়া তথ্য থেকে জানা যায়, ২০১৩ সালে তৃতীয় শ্রেণিতে পড়ায় সময় তাদের সহপাঠী রোজিনা আক্তারের বিয়ে হয়। সে বর্তমানে এক মেয়ে সন্তানের জননী। ২০১৪ সালে চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ায় সময় বিয়ে হয় রোকেয়া আক্তারের। সে বর্তমানে দুই মেয়ের মা। ২০১৫ সালে বিয়ে হয় তাদের ৫ম শ্রেণির বান্ধবী শারমিন আক্তারের। সে বর্তমানে এক মেয়ের মা। ২০১৬ সালে বিয়ে হয় ষষ্ঠ শ্রেণির বান্ধবী সালেহা আক্তারের। ২০১৭ সালে সালেহার ঘরে জন্ম নেয় এক মৃত শিশু। ২০১৭ সালে বিয়ে হয় তাদের সপ্তম শ্রেণির বান্ধবী জেসমিন আক্তার, হেপি আক্তার, শান্তা আক্তার ও স্বপ্না আক্তারের। সর্বশেষ বিয়ে হয় তাদের অষ্টম শ্রেণির বান্ধবী লাকিমা আক্তারের।
অষ্টম শ্রেণির ছাত্রীরা জানায়, তারা নিজেরা ও বিদ্যালয়ের শিক্ষক-অভিভাবক সমিতি বাল্যবিবাহ রোধে আলোচনা করেছেন ও বাল্যবিবাহের খবর জানলে বান্ধবী, ভাইবোন মিলে বাল্যবিবাহ রোধ করেন। তবে হঠাৎ করেই গোপনে পারিবারিকভাবে কোন কোন বান্ধবীর বিয়ে হয়ে যায়। বিয়ের পরই তারা জানতে পারেন বিয়ে হয়েছে। তখন কিছু করা কঠিন হয়ে পড়ে। কোন কোন বান্ধবীর বিয়ের কথা শুনে তারা কেঁদেছেন। বিবাহিত সহপাঠীরা বিদ্যালয়ে আসাও বন্ধ করে দেয়। তবে আগে জানলে সহপাঠীরা উদ্যোগী হয়ে বাল্যবিবাহ বন্ধ করেছেন এমন উদাহরণ তারা দেখিয়েছেন। আর এ কারণে খুব গোপনে এ সব বাল্যবিবাহ হচ্ছে।
সোহালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি হাবিজ উদ্দিন বলেন বাল্যবিবাহ রোধে বিদ্যালয়ে অভিভাবক সমাবেশ করা হয়েছে। তারপরেও গোপনে কোন ছাত্রীর বিয়ে হয়ে যায়। আমরা শীঘ্রই ক্যাচমেন্ট এরিয়ার প্রতিটি গ্রামে এ বিষয়ে সভা করব।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পূর্ণেন্দু দেব বলেন, বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে সব ধরনের প্রশাসনিক উদ্যোগ রয়েছে। যখনই কোন সংবাদ পাই বাল্যবিবাহ বন্ধে তাৎক্ষণিক উদ্যোগ নিই। আমরা জনগণকে নানাভাবে সচেতন করতে চেষ্টা করেছি। তবে এ ব্যাপারে শিক্ষক, অভিভাবক, কাজী, ইমাম ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের জনসচেতনতা বাড়াতে আরো উদ্যোগী হতে হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24