তিন শিক্ষার্থীকে নির্যাতনের ঘটনায় বরখাস্ত পুলিশের দুই কনস্টেবল

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) তিন শিক্ষার্থীকে নির্যাতনের ঘটনায় শাহবাগ থানার দুই পুলিশ কনস্টেবলকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। শনিবার রাতে দোয়েল চত্বরে অভিযুক্ত কনস্টেবল সাইফুল্লাহ ও মামুন তিন শিক্ষার্থীকে বন্দুকের বাট দিয়ে পিটিয়ে আহত করেন। এরপর নির্যাতিত শিক্ষার্থীদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে প্রাথমিক তদন্তে সত্যতা পাওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে তাৎক্ষণিক এ ব্যবস্থা নেয় পুলিশের উর্ধতন কর্তৃপক্ষ।

শাহবাগ থানার ওসি আবুল হাসান বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, শিক্ষার্থীদের অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা আমরা পেয়েছি। তার প্রেক্ষিতে এই দুই পুলিশ সদস্যকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। বিষয়টির তদন্ত করে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীরা হলেন- বিশ^বিদ্যালয়ের সমুদ্রবিজ্ঞান বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী জুয়েল রানা, গণিত বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের কামরুল হাসান ও পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের খাজা ইরফানুল হক। তারা সবাই শহীদুল্লাহ হলের আবাসিক ছাত্র। এদের মধ্যে জুয়েলের মুখ দিয়ে রক্ত ঝরতে দেখা যায়।
ডান হাতেও প্রচণ্ড ব্যথা পান। তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

জুয়েল রানা বলেন, আমি নীলক্ষেত থেকে বই কিনে দোয়েল চত্বর হয়ে হলে যাচ্ছিলাম। সেখানে এক ফুচকার দোকানদার আবর্জনা রাস্তায় ফেলছিল বলে আমি প্রতিবাদ জানাই। এরপর ফুচকাওয়ালার সঙ্গে এ নিয়ে আমার কথা কাটাকাটি হয়।

এ সময় ওই কনস্টেবল ওই দোকান থেকে চাঁদা নিচ্ছিলেন। তখন তিনি এসে আমাকে ধাক্কা দেন। এরপর আমার আরও তিন বন্ধু এসে প্রতিবাদ জানালে তিনি আমাদের বন্দুকের বাট দিয়ে পেটাতে থাকেন। পাশে দাঁড়ানো মামুন নামে এক কনস্টেবল ভিডিও করছিল। কয়েকজন পুলিশ দাঁড়িয়ে দেখছিল। আমরা সবার কাছে হেল্প চাচ্ছিলাম। কেউই এই কনস্টেবলকে নিবৃত করেনি।

এ খবর শহীদুল্লাহ হলে জানাজানি হলে কয়েকশ শিক্ষার্থী দোয়েল চত্বরে এসে অবস্থান নেন। সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করতে থাকেন তারা। পরে ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীসহ সংগঠনটির নেতারা ঘটনাস্থলে গিয়ে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেন।

উত্তেজিত শিক্ষার্থীরা মারধরকারী পুলিশ সদস্যকে দোয়েল চত্বরে এনে ‘ক্ষমা চাওয়ানোর’ দাবি জানায়। তাদের বুঝিয়ে ছাত্রলীগ নেতারা আহত তিন শিক্ষার্থীকে নিয়ে শাহবাগ থানায় আসেন।

রাত ১টার দিকে শাহবাগ থানায় আহত তিন শিক্ষার্থীসহ ছাত্রলীগ নেতাদের সামনে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে ওই দুই কনস্টেবলের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানান ওসি আবুল হাসান।
সুত্র-মানব জমিন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» আসসালামু আলাইকুম বলে পার্লামেন্টে বক্তব্য দিলেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী

» সুনামগঞ্জে ছুরিকাঘাতে আ.লীগ নেতা খুন, আটক-৩

» আ.লীগের দু’পক্ষের গোলগুলি, নিহত ২

» ওসির বিরুদ্ধে ৫ লাখ টাকা ঘুষ দাবী’র অভিয়োগ আ.লীগ প্রার্থীর

» জগন্নাথপুরে ছাত্রলীগের উদ্যোগে যুক্তরাজ্য আ.লীগ নেতাকে সংবর্ধনা

» বালাগঞ্জে নৌকার প্রার্থী মফুর নির্বাচিত

» নেদারল্যান্ডসে যাত্রীবাহী ট্রামে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ১

» রাঙ্গামাটিতে সন্ত্রাসীদের ব্রাশফায়ারে প্রিজাইডিং কর্মকর্তাসহ নিহত ৫

» জগন্নাথপুরে ‘বাঁধা’ দেয়ায় হাওরের সড়কের কাজ বন্ধ

» জগন্নাথপুরে সড়ক থেকে মাইক্রোবাস দোকানে, আহত ৩

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

তিন শিক্ষার্থীকে নির্যাতনের ঘটনায় বরখাস্ত পুলিশের দুই কনস্টেবল

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) তিন শিক্ষার্থীকে নির্যাতনের ঘটনায় শাহবাগ থানার দুই পুলিশ কনস্টেবলকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। শনিবার রাতে দোয়েল চত্বরে অভিযুক্ত কনস্টেবল সাইফুল্লাহ ও মামুন তিন শিক্ষার্থীকে বন্দুকের বাট দিয়ে পিটিয়ে আহত করেন। এরপর নির্যাতিত শিক্ষার্থীদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে প্রাথমিক তদন্তে সত্যতা পাওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে তাৎক্ষণিক এ ব্যবস্থা নেয় পুলিশের উর্ধতন কর্তৃপক্ষ।

শাহবাগ থানার ওসি আবুল হাসান বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, শিক্ষার্থীদের অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা আমরা পেয়েছি। তার প্রেক্ষিতে এই দুই পুলিশ সদস্যকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। বিষয়টির তদন্ত করে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীরা হলেন- বিশ^বিদ্যালয়ের সমুদ্রবিজ্ঞান বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী জুয়েল রানা, গণিত বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের কামরুল হাসান ও পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের খাজা ইরফানুল হক। তারা সবাই শহীদুল্লাহ হলের আবাসিক ছাত্র। এদের মধ্যে জুয়েলের মুখ দিয়ে রক্ত ঝরতে দেখা যায়।
ডান হাতেও প্রচণ্ড ব্যথা পান। তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

জুয়েল রানা বলেন, আমি নীলক্ষেত থেকে বই কিনে দোয়েল চত্বর হয়ে হলে যাচ্ছিলাম। সেখানে এক ফুচকার দোকানদার আবর্জনা রাস্তায় ফেলছিল বলে আমি প্রতিবাদ জানাই। এরপর ফুচকাওয়ালার সঙ্গে এ নিয়ে আমার কথা কাটাকাটি হয়।

এ সময় ওই কনস্টেবল ওই দোকান থেকে চাঁদা নিচ্ছিলেন। তখন তিনি এসে আমাকে ধাক্কা দেন। এরপর আমার আরও তিন বন্ধু এসে প্রতিবাদ জানালে তিনি আমাদের বন্দুকের বাট দিয়ে পেটাতে থাকেন। পাশে দাঁড়ানো মামুন নামে এক কনস্টেবল ভিডিও করছিল। কয়েকজন পুলিশ দাঁড়িয়ে দেখছিল। আমরা সবার কাছে হেল্প চাচ্ছিলাম। কেউই এই কনস্টেবলকে নিবৃত করেনি।

এ খবর শহীদুল্লাহ হলে জানাজানি হলে কয়েকশ শিক্ষার্থী দোয়েল চত্বরে এসে অবস্থান নেন। সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করতে থাকেন তারা। পরে ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীসহ সংগঠনটির নেতারা ঘটনাস্থলে গিয়ে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেন।

উত্তেজিত শিক্ষার্থীরা মারধরকারী পুলিশ সদস্যকে দোয়েল চত্বরে এনে ‘ক্ষমা চাওয়ানোর’ দাবি জানায়। তাদের বুঝিয়ে ছাত্রলীগ নেতারা আহত তিন শিক্ষার্থীকে নিয়ে শাহবাগ থানায় আসেন।

রাত ১টার দিকে শাহবাগ থানায় আহত তিন শিক্ষার্থীসহ ছাত্রলীগ নেতাদের সামনে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে ওই দুই কনস্টেবলের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানান ওসি আবুল হাসান।
সুত্র-মানব জমিন

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।