শনিবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৬:১৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
একটি নৃশংস হত্যাকাণ্ড,নাড়িয়ে দিল জগন্নাথপুরবাসিকে, ক্রাইম সিন ইউনিটের ঘটনাস্থল পরিদর্শন অফিসার্স ক্লাব থেকে রানীগঞ্জের তহশীলদারসহ ৪ জুয়াড়ি গ্রেফতার আজানের মর্মবানী জগন্নাথপুরে ২২তম ক্রিকেট টুর্নামেন্টের উদ্বোধন সম্পন্ন জগন্নাথপুরে সেই সড়কে ২৩ কোটি টাকার টেন্ডার সম্পন্ন, নতুন বছরের শুরুতেই কাজ শুরু হতে পারে জগন্নাথপুরে ১৫ দিন পর অবশেষে ধান কেনা শুরু জগন্নাথপুরে গলায় ফাঁস দিয়ে দুর্বৃত্তরা হত্যা করল স্টুডিও’র মালিক আনন্দকে সিলেট জেলা আ’লীগের নেতৃত্বে লুৎফুর-নাসির, মহানগরে মাসুক-জাকির প্রতিবন্ধীদের জন্য প্রতিটি উপজেলায় সহায়তা কেন্দ্র: প্রধানমন্ত্রী জগন্নাথপুর পৌরশহরে স্টুডিও দোকানদারের মরদেহ পাওয়া গেছে

দল থেকে অব্যাহতি নিলেন জামায়াত নেতা

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ৫ জুলাই, ২০১৭
  • ১২১ Time View

জগন্নাথপু টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: যে ঘটনায় পাঁচ মাস আগে জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নায়েবে আমিরের পদ থেকে অব্যাহতি পেয়েছিলেন, সে ঘটনায় এবার মামলার মুখোমুখি হলেন রাজশাহী মহানগর জামায়াতের সাবেক আমির আতাউর রহমান। তাঁর স্ত্রী দাবি করে রশিদা বেগম (৫২) নামের এক নারী গতকাল মঙ্গলবার রাজশাহীর মুখ্য মহানগর হাকিমের আদালতে মামলা করেন।

বাদী অভিযোগ করেন, ২০১৬ সালের ১১ এপ্রিল আতাউর রহমানের সঙ্গে দুই লাখ টাকা দেনমোহর ধার্য করে তাঁর বিয়ে হয়। নগরের রাজপাড়া থানার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের বিবাহ রেজিস্ট্রার ও কাজী আবদুস সাত্তারের কাছে দুই লাখ টাকা দেনমোহরে তাঁদের কাবিন (নম্বর ০৬/২০১৬) হয়। এরপর তাঁরা গোপনে বসবাসও করেন। পরে দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতির পরিবর্তন হলে তিনি প্রকাশ্য হন, কিন্তু তাঁকে স্ত্রী হিসেবে অস্বীকার করেন। তিনি কাবিননামা নিয়ে বিভিন্ন স্থানে দেনদরবার করলে উল্টো তাঁকে ভয়ভীতি দেখানো হয়।
অভিযোগে বলা হয়, একপর্যায়ে আতাউর রহমান দাবি করেন, তাঁর সঙ্গে ঘর-সংসার করতে হলে পাঁচ লাখ টাকা যৌতুক দিতে হবে। সর্বশেষ গত ২ জুন ভাইদের নিয়ে রশিদা বেগম শহরের তেরখাদিয়া এলাকায় আতাউর রহমানের বাড়িতে যান। কিন্তু আতাউর রহমান তাঁকে ঘরে তুলে নেননি।
আইনজীবী মোমিনুল ইসলাম বাদীর পক্ষে আদালতে মামলাটি দায়ের করেন। শুনানি শেষে মুখ্য মহানগর হাকিম মাহবুবুর রহমান আগামী ৪ সেপ্টেম্বরের মধ্যে আসামি আতাউর রহমানকে হাজির হওয়ার জন্য সমন জারি করেন।
জামায়াতের দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, রশিদা বেগম রাজশাহী মহানগরের লক্ষ্মীপুর শাখা ইসলামী ব্যাংক মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আয়া। তাঁর আগের পক্ষের দুই মেয়ে আছে। এক মেয়েকে নিয়ে তিনি এখন নগরের বসুয়া এলাকায় থাকেন। আতাউর রহমানের বয়স ৬৫ বছর। তাঁর স্ত্রী ও পাঁচ সন্তান আছে। রশিদা একসময় আতাউর রহমানের বাসায় কাজ করতেন। সেই সূত্রে পারিবারিকভাবে তাঁদের পরিচয়। বিগত সরকারবিরোধী আন্দোলনের সময় গ্রেপ্তার এড়াতে অনেক দিন আত্মগোপনে ছিলেন আতাউর রহমান। তখন তিনি রাজশাহী মহানগরীর আমির ছিলেন।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, একবার আতাউর রহমান পুলিশি অভিযানে রশিদা বেগমের বাসা থেকে গ্রেপ্তার হন। তখন ওই বাসায় তাঁর আত্মগোপনে থাকা নিয়ে দলে প্রশ্ন ওঠে। পরে স্থানীয় নেতাদের মধ্যেও এ নিয়ে বিতর্ক উঠলে কেন্দ্রীয়ভাবে এ ঘটনার তদন্ত হয়।
ওই সূত্রের দাবি, তদন্তে আতাউর রহমানের নৈতিক স্খলনের প্রমাণ পাওয়া যায়। এরপর তাঁকে ডেকে এনে দলের রুকনিয়াত (সদস্যপদ) স্থগিত করার সিদ্ধান্ত জানানো হয়। একই সঙ্গে তাঁকে দলের কেন্দ্রীয় নায়েবে আমিরের পদ থেকে অব্যাহতি নিতে পরামর্শ দেওয়া হয়। একপর্যায়ে তিনি অব্যাহতি নেন।
যোগাযোগ করা হলে আতাউর রহমান বিয়ের কথা অস্বীকার করেন। তিনি বলেন, বিয়ে করতে হলে মানুষের একটা শক্তি থাকতে হয়। তিনি অসুস্থ মানুষ। এটা সাজানো ঘটনা।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে রশিদা বেগম বলেন, বিয়ের কথা অস্বীকার করার সুযোগ নেই। কাবিননামায় তাঁর (আতাউর রহমানের) স্বাক্ষর রয়েছে, সাক্ষীরাও আছেন। এখন তিনি তাঁর জীবন নিয়ে শঙ্কায় আছেন বলে জানান। সুত্র-প্রথম আলো

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24