“ দুইটা দলের মাঝেরে এরশাদ কান্ডারী” বাউল কামাল পাশা মননে পল্লীবন্ধু”


আল-হেলাল
বাংলাদেশের রাজনীতির ইতিহাসে এখন একটি আলোচিত নাম আলহাজ্ব হুসাইন মোহাম্মদ এরশাদ। বাউল কামাল পাশার গানের কথার মতই“দুইটা দলের মাঝেরে এরশাদ কান্ডারী”। যিনি দীর্ঘ ৯ বছর সফলভাবে রাষ্ট্র পরিচালনা করেছেন। ১৯৮৩-১৯৯০ সাল পর্যন্ত দেশের দশম রাষ্ট্রপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। উপজেলা প্রবর্তণ,সংবিধানে বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহীম শব্দটি চালুকরণ,রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম ঘোষণা ও মুক্তিযোদ্ধাদেরকে সর্বকালের শ্রেষ্ট সন্তান হিসেবে উপাধিদান এবং দেশে পর্যাপ্ত পরিমাণ ব্রীজ কালভার্ট ও রাস্তাঘাট স্থাপনের মধ্যে দিয়ে তিনি উন্নয়নের নজীর স্থাপন করেছেন। আশির দশকে দেশের এক ক্রান্তিলগ্নে তিনি ক্ষমতায় আসেন। পরে ৯ বছরের সফল রাষ্ট্রনায়ক হিসেবে ৬৮ হাজার গ্রাম বাংলার নয়নের মনি ও পল্লীবন্ধু হিসেবে তিনি স্বীকৃত হন। বর্তমান শেখ হাসিনার ও মহাজোট সরকারের ৩ বারের ক্ষমতাসীন হওয়ার মধ্যে তার রয়েছে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা। ১৯৮৫ সালে সর্বপ্রথম সুনামগঞ্জ জেলার দিরাই উপজেলার ভাটিপাড়া গ্রামে অতিথি পাখির নিরাপদ আশ্রয়স্থল আয়লা বিল পরিদর্শনে আসেন। অবস্থান করেন জমিদার বাড়ি ও স্থানীয় ভাটিপাড়া হাইস্কুল সংলগ্ন ডাকবাংলোতে। ভাটিপাড়ার জমিদার বাড়ির বিশিষ্ট শিল্পপতি এম.এইচ চৌধুরী পারুল মিয়া,ইউপি চেয়ারম্যান মইনুল হক চৌধুরী ও তৎকালীন দিরাই উপজেলা পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান পরবর্তীতে জাতীয় পার্টির এমপি নাছির উদ্দিন চৌধুরীর সহায়তায় তখন এই রাষ্ট্রপ্রধানের সাথে ভাটিপাড়া গ্রামের কবি ও গণসঙ্গীত শিল্পী বাউল কামাল পাশা (কামাল উদ্দিন) এর পরিচয় হয়। পরিচয় থেকে তাৎক্ষনিকভাবে রাষ্ট্রপ্রধান এরশাদ এর প্রশংসা করে তাকে অভিনন্দন জানিয়ে বেশ কয়েকটি গান রচনা ও পরিবেশন করেন বাউল কামাল পাশা। কালের আবর্তে ও বাউল কামাল পাশার মৃত্যুতে এই গানগুলি হারিয়ে গেলেও বাউল কামাল পাশা স্মৃতি সংসদ সুনামগঞ্জ নামের সাংস্কৃতিক সংগঠণটি আজো গানগুলো খুজে বেড়াচ্ছে। ব্যাপক অনুসন্ধানের পর ভাটিপাড়া গ্রামের বাউল শিল্পী রুহেল মিয়া,বাউল ছারোয়ার আলম তালুকদার,সাবেক মেম্বার দিলনূর মিয়ার কাছ থেকে বিচ্ছিন্নভাবে নি¤েœাক্ত গানটি পাওয়া যায়। দীর্ঘ ৩৩ বছরের আগের গানটি অনেকেই ভূলে গেছেন। বাউল কামাল পাশার সুযোগ্য শিষ্য বাউল মজনু পাশার ছাত্র সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার হালুয়ারগাঁও গ্রামের বাউল আলাউদ্দিন তার হৃদয়ের মনিকোটার স্মৃতি থেকে এলোমেলোভাবে প্রাপ্ত গানটির কথা ও সুর মোটামোটি মিলিয়েছেন। আজ সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদের সুনামগঞ্জ আগমনে বাউল কামাল পাশা স্মৃতি সংসদ সেই গানটি সংগ্রহপূর্বক উপস্থাপন করেছে। দেশের লাঙ্গলপ্রিয় মানুষ গানটির সদব্যবহারে সক্ষম হলে আমাদের প্রচেষ্টাও সার্থক হবে।
“লাঙ্গল বানাইয়া দিল সুজন মেস্তরী
দুইটা দলের মাঝেরে এরশাদ কান্ডারী।।
কাঠের লাঙ্গল,মাঠের লাঙ্গল জমিতে চাষ করি
চাষাবাদের পরে আমরা গোলায় ধান ভরি।।
এ লাঙ্গলতো সে লাঙ্গল নয়,বলি ইঙ্গিত করি
ব্যালট মাঝে কালো লাঙ্গল,দেখে সীল মারি।।
লাঙ্গল যার জমিনটা তার এই শ্লোগান ধরি
লাঙ্গল মার্কার হবেরে জয়,দেখিতে পারি।।
বাউল কামাল বলে এই লাঙ্গলটা কুদরতে তৈয়ারী
কোথায় হতে আসে লাঙ্গল বুঝিতে না পারি”।।

লেখক : আল-হেলাল,সাংবাদিক,গবেষক,কলামিস্ট,লোকগীতি সংগ্রাহক ও প্রতিষ্ঠাতা আহবায়ক বাউল কামাল পাশা স্মৃতি সংসদ,সুনামগঞ্জ।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» জেলা আইনজীবি সমিতির নির্বাচন, সভাপতি চাঁন মিয়া, সেক্রেটারী সাহারুল

» জগন্নাথপুর ক্রিকেট এসোসিয়েশনের বিরুদ্ধে কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করায় সৈয়দপুর ইয়াংম্যান ক্রিকেট ক্লাবকে ৫ বছরের জন্য নিষিদ্ধ

» সামাদ আজাদের ৯৭ তম জন্মবার্ষিকী তাঁর জন্মভূমি জগন্নাথপুরে পালিত

» জগন্নাথপুরে ঘোড়দৌড় সম্পন্ন: মায়ের আদেশকে হারিয়ে রাজমুকুট চ্যাম্পিয়ান, উৎসুক মানুষের ঢল

» যে ১০ ক্যাটাগরির আবেদনকারী কানাডার যেতে পারবে সহজে

» কাদেরকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইতে বললেন ফখরুল

» ১২ বছর দল না করলে উপজেলায় মনোনয়ন দেবে না আ. লীগ

» জগন্নাথপুরে ভারতীয় নিষিদ্ধ বিড়িসহ র‌্যাবের হাতে আটক-১

» সবার সাথে বন্ধুত্বসুলভ সম্পর্ক রেখেই আমরা চলতে চাই: ড.মোমেন

» সংসদ নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ ও বির্তকিত: টিআইবি

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

“ দুইটা দলের মাঝেরে এরশাদ কান্ডারী” বাউল কামাল পাশা মননে পল্লীবন্ধু”


আল-হেলাল
বাংলাদেশের রাজনীতির ইতিহাসে এখন একটি আলোচিত নাম আলহাজ্ব হুসাইন মোহাম্মদ এরশাদ। বাউল কামাল পাশার গানের কথার মতই“দুইটা দলের মাঝেরে এরশাদ কান্ডারী”। যিনি দীর্ঘ ৯ বছর সফলভাবে রাষ্ট্র পরিচালনা করেছেন। ১৯৮৩-১৯৯০ সাল পর্যন্ত দেশের দশম রাষ্ট্রপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। উপজেলা প্রবর্তণ,সংবিধানে বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহীম শব্দটি চালুকরণ,রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম ঘোষণা ও মুক্তিযোদ্ধাদেরকে সর্বকালের শ্রেষ্ট সন্তান হিসেবে উপাধিদান এবং দেশে পর্যাপ্ত পরিমাণ ব্রীজ কালভার্ট ও রাস্তাঘাট স্থাপনের মধ্যে দিয়ে তিনি উন্নয়নের নজীর স্থাপন করেছেন। আশির দশকে দেশের এক ক্রান্তিলগ্নে তিনি ক্ষমতায় আসেন। পরে ৯ বছরের সফল রাষ্ট্রনায়ক হিসেবে ৬৮ হাজার গ্রাম বাংলার নয়নের মনি ও পল্লীবন্ধু হিসেবে তিনি স্বীকৃত হন। বর্তমান শেখ হাসিনার ও মহাজোট সরকারের ৩ বারের ক্ষমতাসীন হওয়ার মধ্যে তার রয়েছে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা। ১৯৮৫ সালে সর্বপ্রথম সুনামগঞ্জ জেলার দিরাই উপজেলার ভাটিপাড়া গ্রামে অতিথি পাখির নিরাপদ আশ্রয়স্থল আয়লা বিল পরিদর্শনে আসেন। অবস্থান করেন জমিদার বাড়ি ও স্থানীয় ভাটিপাড়া হাইস্কুল সংলগ্ন ডাকবাংলোতে। ভাটিপাড়ার জমিদার বাড়ির বিশিষ্ট শিল্পপতি এম.এইচ চৌধুরী পারুল মিয়া,ইউপি চেয়ারম্যান মইনুল হক চৌধুরী ও তৎকালীন দিরাই উপজেলা পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান পরবর্তীতে জাতীয় পার্টির এমপি নাছির উদ্দিন চৌধুরীর সহায়তায় তখন এই রাষ্ট্রপ্রধানের সাথে ভাটিপাড়া গ্রামের কবি ও গণসঙ্গীত শিল্পী বাউল কামাল পাশা (কামাল উদ্দিন) এর পরিচয় হয়। পরিচয় থেকে তাৎক্ষনিকভাবে রাষ্ট্রপ্রধান এরশাদ এর প্রশংসা করে তাকে অভিনন্দন জানিয়ে বেশ কয়েকটি গান রচনা ও পরিবেশন করেন বাউল কামাল পাশা। কালের আবর্তে ও বাউল কামাল পাশার মৃত্যুতে এই গানগুলি হারিয়ে গেলেও বাউল কামাল পাশা স্মৃতি সংসদ সুনামগঞ্জ নামের সাংস্কৃতিক সংগঠণটি আজো গানগুলো খুজে বেড়াচ্ছে। ব্যাপক অনুসন্ধানের পর ভাটিপাড়া গ্রামের বাউল শিল্পী রুহেল মিয়া,বাউল ছারোয়ার আলম তালুকদার,সাবেক মেম্বার দিলনূর মিয়ার কাছ থেকে বিচ্ছিন্নভাবে নি¤েœাক্ত গানটি পাওয়া যায়। দীর্ঘ ৩৩ বছরের আগের গানটি অনেকেই ভূলে গেছেন। বাউল কামাল পাশার সুযোগ্য শিষ্য বাউল মজনু পাশার ছাত্র সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার হালুয়ারগাঁও গ্রামের বাউল আলাউদ্দিন তার হৃদয়ের মনিকোটার স্মৃতি থেকে এলোমেলোভাবে প্রাপ্ত গানটির কথা ও সুর মোটামোটি মিলিয়েছেন। আজ সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদের সুনামগঞ্জ আগমনে বাউল কামাল পাশা স্মৃতি সংসদ সেই গানটি সংগ্রহপূর্বক উপস্থাপন করেছে। দেশের লাঙ্গলপ্রিয় মানুষ গানটির সদব্যবহারে সক্ষম হলে আমাদের প্রচেষ্টাও সার্থক হবে।
“লাঙ্গল বানাইয়া দিল সুজন মেস্তরী
দুইটা দলের মাঝেরে এরশাদ কান্ডারী।।
কাঠের লাঙ্গল,মাঠের লাঙ্গল জমিতে চাষ করি
চাষাবাদের পরে আমরা গোলায় ধান ভরি।।
এ লাঙ্গলতো সে লাঙ্গল নয়,বলি ইঙ্গিত করি
ব্যালট মাঝে কালো লাঙ্গল,দেখে সীল মারি।।
লাঙ্গল যার জমিনটা তার এই শ্লোগান ধরি
লাঙ্গল মার্কার হবেরে জয়,দেখিতে পারি।।
বাউল কামাল বলে এই লাঙ্গলটা কুদরতে তৈয়ারী
কোথায় হতে আসে লাঙ্গল বুঝিতে না পারি”।।

লেখক : আল-হেলাল,সাংবাদিক,গবেষক,কলামিস্ট,লোকগীতি সংগ্রাহক ও প্রতিষ্ঠাতা আহবায়ক বাউল কামাল পাশা স্মৃতি সংসদ,সুনামগঞ্জ।

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।