1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
দুর্গন্ধ নিয়ে মসজিদে না আসা সুন্নত - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ০৯:৪২ অপরাহ্ন

দুর্গন্ধ নিয়ে মসজিদে না আসা সুন্নত

  • Update Time : শনিবার, ২০ এপ্রিল, ২০২৪
  • ৪২ Time View

মসজিদ আল্লাহর ঘর। পৃথিবীতে আল্লাহর সবচেয়ে প্রিয় জায়গা মসজিদ। রাসুলুল্লাহ (সা.) মদিনায় গিয়ে প্রথমে মসজিদ তৈরি করেন। মুসলমানরা যেখানে যান, সেখানে মসজিদ গড়ে তোলেন। মসজিদই মুসলমানদের ইবাদতের কেন্দ্রস্থল। সব সময় মসজিদের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন ও সুন্দর রাখা মুমিনের বৈশিষ্ট্য। রাসুলুল্লাহ (সা.)ও সব সময় মসজিদ পরিচ্ছন্ন রাখতে সচেষ্ট থাকতেন। সব মুসলমান যেন মসজিদে সমবেত হয়ে জামাতে নামাজ আদায় করে, সেদিকে গুরুত্বারোপ করতেন তিনি। তাই যারা দুর্গন্ধ বহন করে, গা থেকে দুর্গন্ধ দূর না হওয়া পর্যন্ত তাদের তিনি মসজিদে আসতে বারণ করতেন। কারণ সব মুসল্লির একাগ্রতা নষ্ট করার চেয়ে একজন মুসল্লির জামাত ছুটে যাওয়াই শ্রেয়। দুর্গন্ধ আসে বিশেষ কিছু খাবার খাওয়ার কারণে। এ তালিকায় সবার আগে থাকবে পেঁয়াজ, দুর্গন্ধ তৈরি করা পেঁয়াজজাতীয় সবজি ও রসুন।

জাবের ইবনে আবদুল্লাহ (রা.) বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, “কেউ যদি এ জাতীয় গাছ থেকে খায়—তিনি রসুন বুঝিয়েছেন—সে যেন আমাদের মসজিদে না আসে।’ (আতা রহ. বলেন) ‘আমি জাবের (রা.)-কে জিজ্ঞাসা করলাম, রাসুল (সা.) এর দ্বারা কী বুঝিয়েছেন?’ জাবের (রা.) বললেন, ‘আমার ধারণা, রাসুল এর দ্বারা কাঁচা রসুন বুঝিয়েছেন।’’ (বুখারি, হাদিস: ৮৫৪)

আরেক হাদিসে রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘যে এইসব রসুনের তরকারি খাবে (কখনো বলেছেন) যে পেঁয়াজ, রসুন ও কুররাস (গন্ধে ও স্বাদে পেঁয়াজজাতীয় সবজিবিশেষ) খাবে, সে যেন আমাদের মসজিদের কাছে না আসে। কেননা আদমসন্তান যা দ্বারা কষ্ট পায়, ফেরেশতারাও তা দ্বারা কষ্ট পান।’ (মুসলিম, হাদিস: ৫৬৩)

শেষোক্ত বর্ণনায় এ জাতীয় সবজি খেয়ে মসজিদে আসতে নিষেধ করার পেছনে একটি নতুন তথ্য দিয়েছেন রাসুল (সা.)। আর তা হলো, ফেরেশতাদের কষ্ট পাওয়া। কারণ মানুষের মতো তারাও এ রকম দুর্গন্ধের কারণে কষ্ট পান। তবে এ কথা বলে খাবারগুলো খাওয়া হারাম করার উদ্দেশ্য নয় রাসুল (সা.)-এর। বরং নিঃসন্দেহে এগুলো হালাল খাদ্য।

রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, “খাইবার বিজয়ের পর আমরা তখনো ফিরে আসতে পারিনি। এদিকে আমরা রাসুল (সা.)-এর সঙ্গীসাথিরা রসুন ইত্যাদি সবজি খেতে শুরু করলাম। সবাই ভীষণ ক্ষুধার্ত ছিল। আমরা খুব খেলাম। তারপর মসজিদে গেলাম। রাসুল (সা.) গন্ধ পেয়ে বললেন, ‘যে ব্যক্তি এই দুর্গন্ধযুক্ত উদ্ভিদ থেকে কিছু খাবে, সে যেন আমাদের মসজিদের কাছে না আসে। লোকেরা বলতে লাগল, ‘(রসুন) হারাম হয়ে গেছে, হারাম হয়ে গেছে। এ খবর রাসুল (সা.)-এর কাছে পৌঁছলে তিনি বললেন, ‘হে লোকসকল, আল্লাহ আমার জন্য যা হালাল করেছেন, আমি তা হারাম করতে পারি না। কিন্তু এটি এমন এক উদ্ভিদ, যার গন্ধ আমার অপছন্দ।’’ (মুসলিম, হাদিস: ৫৬৫)

দুর্গন্ধ বয়ে বেড়ালে মসজিদে আসা যাবে না। দুর্গন্ধ চলে গেলে পরে মসজিদে আসবে। কুররা (রা.) বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘যদি খেতেই হয়, তবে তোমরা তা রান্না করে দুর্গন্ধ দূর করে খাবে। বর্ণনাকারী বলেন, তা হলো রসুন ও পেঁয়াজ।’ (আবু দাউদ, হাদিস : ৩৮২৭)। কারণ, রান্না করলে দুর্গন্ধ প্রায় চলে যায়। সুতরাং মসজিদে কাঁচা পেঁয়াজ, রসুন ইত্যাদি দুর্গন্ধজাতীয় জিনিস না খেয়ে যাওয়া উত্তম।

সৌজন্যে খবরের কাগজ

শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com