দুর্যোগে জগন্নাথপুরসহ জেলাবাসীর পাশে ছিলেন তিনি

স্টাফ রিপোর্টার::
দক্ষিণ সুনাগঞ্জের ডুংরিয়া গ্রামের কৃষক পরিবারের সন্তান সজ্জন রাজনীতিবিদ এমএ মান্নান অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী থেকে পূর্ণ মন্ত্রী হয়েছেন। পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পেয়েছেন তিনি।
এমএ মান্নান পূর্ণমন্ত্রী হওয়ায় নির্বাচনী এলাকা দক্ষিণ সুনামগঞ্জ ও জগন্নাথপুরবাসীর পাশাপাশি পুরো জেলাবাসী খুশি ও আনন্দিত।
এমএ মান্নানকে সমগ্র জেলাবাসীর ভালবাসা ও ভালগালার অনেক কারণ রয়েছে। বিভিন্ন সময়ে তিনি জেলার মানুষের সুঃখে-দুঃখে ও দুর্যোগে সবার পাশে থেকেছেন। হাওরবাসীর বিপদে কৃষকদের পাশে দাঁড়িয়েছেন। সরকারের গুরুত্বপূর্ণ দুইটি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে থেকেও হাওরের বোরো ফসলরক্ষা বাঁধ ভাঙার ঘটনায় দুর্নীতির বিরুদ্ধে সোচ্চার ছিলেন। কৃষকদের পক্ষে গণমাধ্যমে অনিয়ম-দুর্নীতির বিরুদ্ধে তীর্যক মন্তব্য করেন।
জানা যায়, ২০১৭ সালে হাওরের বাঁধ ভেঙে সুনামগঞ্জে স্মরণকালের বোরো ফসলডুবির পর অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান ব্যক্তিগতভাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে দেখা করেন। তিনি জেলার পুরো চিত্র প্রধানমন্ত্রীর কাছে তোলে ধরেন ও দ্রুত খাদ্য সহায়তা প্রদানের অনুরোধ করেন। প্রধানমন্ত্রী সুনামগঞ্জ জেলার দেড় লাখ কৃষক পরিবারকে বিশেষ ভিজিএফ এর আওতায় প্রতি মাসে ৩০ কেজি চাল ও নগদ ৫০০ টাকা করে দেন। জেলাবাসীর পক্ষ আরো সহায়তা প্রদানের দাবি উঠলে এমএ মান্নান প্রধানমন্ত্রীর সাথে সাক্ষাৎ করে সহায়তা বৃদ্ধির অনুরোধ জানান। এমএ মান্নানের অনুরোধে প্রধানমন্ত্রী পরে সুনাগঞ্জের জেলেদের জন্য আরও ১৮ হাজার ভিজিএফ কার্ড প্রদান করেন।
বিশেষ ভিজিএফ চালুর পাশাপাশি এমএ মান্নানের অনুরোধে খাদ্যমন্ত্রণালয় সুনামগঞ্জে কমদামে ফেয়ারপ্রাইসের মাধ্যমে চাল ও আটা বিক্রি করে। এক সময় ওএমএস’র চাল ও আটা বিক্রি বন্ধ হলে তিনি অনুরোধ করে তা পুনরায় চালু করেন।
জেলার বোরো ফসলহারা কৃষকদের পুনর্বাসন করার লক্ষ্যে তিনি কৃষিমন্ত্রণালয়ে যোগাযোগ করে কৃষি সহায়তা প্রদানের অনুরোধ করেন। ২০১৮ সালে জেলার তিন লাখ কৃষক পরিবারকে নগদ ১ হাজার টাকা, সার ও বীজ ধান বাবদ সাড়ে ৫৮ কোটি টাকা কৃষি ভর্তুকি প্রদান করা হয়।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» জগন্নাথপুরে শুক্রবার সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৫ টা পর্যন্ত বিদ্যুৎ থাকবে না

» লোকসভা নির্বাচন মুসলিমদের কি একপেশে করে রাখা হচ্ছে!

» জগন্নাথপুরে ১ম শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণ, ধর্ষক গ্রেফতার

» পরীক্ষা কেন্দ্রে ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে আটক-১

» দলকে না জানিয়ে এমপি হিসেবে শপথ নিলেন বিএনপির জাহিদুর

» ‘ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে হামলার সঙ্গে শ্রীলঙ্কা হামলার সম্পর্কের প্রমাণ নেই’

» ক্লাসে শিক্ষকদের সিগারেট-পান নিষিদ্ধ

» জগন্নাথপুরে এক সন্তানের জননীর আত্মহত্যা

» জগন্নাথপুরে নিসচা’র উদ্যোগে লিফলেট বিতরণ

» জগন্নাথপুরের সাবেক ছাত্রলীগ নেতা যুক্তরাজ্য প্রবাসিকে আনহার মিয়াকে সংবর্ধনা প্রদান

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

দুর্যোগে জগন্নাথপুরসহ জেলাবাসীর পাশে ছিলেন তিনি

স্টাফ রিপোর্টার::
দক্ষিণ সুনাগঞ্জের ডুংরিয়া গ্রামের কৃষক পরিবারের সন্তান সজ্জন রাজনীতিবিদ এমএ মান্নান অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী থেকে পূর্ণ মন্ত্রী হয়েছেন। পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পেয়েছেন তিনি।
এমএ মান্নান পূর্ণমন্ত্রী হওয়ায় নির্বাচনী এলাকা দক্ষিণ সুনামগঞ্জ ও জগন্নাথপুরবাসীর পাশাপাশি পুরো জেলাবাসী খুশি ও আনন্দিত।
এমএ মান্নানকে সমগ্র জেলাবাসীর ভালবাসা ও ভালগালার অনেক কারণ রয়েছে। বিভিন্ন সময়ে তিনি জেলার মানুষের সুঃখে-দুঃখে ও দুর্যোগে সবার পাশে থেকেছেন। হাওরবাসীর বিপদে কৃষকদের পাশে দাঁড়িয়েছেন। সরকারের গুরুত্বপূর্ণ দুইটি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে থেকেও হাওরের বোরো ফসলরক্ষা বাঁধ ভাঙার ঘটনায় দুর্নীতির বিরুদ্ধে সোচ্চার ছিলেন। কৃষকদের পক্ষে গণমাধ্যমে অনিয়ম-দুর্নীতির বিরুদ্ধে তীর্যক মন্তব্য করেন।
জানা যায়, ২০১৭ সালে হাওরের বাঁধ ভেঙে সুনামগঞ্জে স্মরণকালের বোরো ফসলডুবির পর অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান ব্যক্তিগতভাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে দেখা করেন। তিনি জেলার পুরো চিত্র প্রধানমন্ত্রীর কাছে তোলে ধরেন ও দ্রুত খাদ্য সহায়তা প্রদানের অনুরোধ করেন। প্রধানমন্ত্রী সুনামগঞ্জ জেলার দেড় লাখ কৃষক পরিবারকে বিশেষ ভিজিএফ এর আওতায় প্রতি মাসে ৩০ কেজি চাল ও নগদ ৫০০ টাকা করে দেন। জেলাবাসীর পক্ষ আরো সহায়তা প্রদানের দাবি উঠলে এমএ মান্নান প্রধানমন্ত্রীর সাথে সাক্ষাৎ করে সহায়তা বৃদ্ধির অনুরোধ জানান। এমএ মান্নানের অনুরোধে প্রধানমন্ত্রী পরে সুনাগঞ্জের জেলেদের জন্য আরও ১৮ হাজার ভিজিএফ কার্ড প্রদান করেন।
বিশেষ ভিজিএফ চালুর পাশাপাশি এমএ মান্নানের অনুরোধে খাদ্যমন্ত্রণালয় সুনামগঞ্জে কমদামে ফেয়ারপ্রাইসের মাধ্যমে চাল ও আটা বিক্রি করে। এক সময় ওএমএস’র চাল ও আটা বিক্রি বন্ধ হলে তিনি অনুরোধ করে তা পুনরায় চালু করেন।
জেলার বোরো ফসলহারা কৃষকদের পুনর্বাসন করার লক্ষ্যে তিনি কৃষিমন্ত্রণালয়ে যোগাযোগ করে কৃষি সহায়তা প্রদানের অনুরোধ করেন। ২০১৮ সালে জেলার তিন লাখ কৃষক পরিবারকে নগদ ১ হাজার টাকা, সার ও বীজ ধান বাবদ সাড়ে ৫৮ কোটি টাকা কৃষি ভর্তুকি প্রদান করা হয়।

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।