দ্বীনি শিক্ষার অভাবেই মানুষ এত বড় ভুল করে

উবায়দুর রহমান খান নদভী::

ইসলামী মূল্যবোধের শিক্ষার অভাব থেকে আত্মহত্যার দিকে মানুষ চলে যায়। সমাজের সহায়তা না পাওয়া এবং অভিভাবকদের মনে ধৈর্য সবর ও আল্লাহ নির্ভরতা না থাকা অনেক মানুষকে আত্মহত্যার পথে ঠেলে দেয়। পরীক্ষায় কাক্সিক্ষত নাম্বার না পেয়ে যেসব ছাত্রছাত্রী আত্মহত্যা করে, তাদের ওপর পরিবার ও সমাজের অন্যায় চাপও তাদের আত্মহত্যার জন্য কম দায়ী নয়। যদি তারা তকদিরে বিশ্বাসী হতো, তাহলে চরম মুসিবতে ধৈর্যধারণ তাদের পক্ষে সহজ হতো। পরকাল ও হিসাব কিতাব বিশ্বাস করলে আত্মহত্যার মতো মহাপাপ মানুষ করত না। বিশ্বের সব ঈমানহীন মানুষই সাধারণত আত্মহত্যা করে। প্রকৃত ঈমানদার আত্মহত্যা করতে পারে না। দ্বীনি শিক্ষার অভাবেই মানুষ এত বড় ভুল সিদ্ধান্ত নেয়। বাংলাদেশে সারা জীবনই মানুষ প্রাকৃতিক বিপর্যয় মোকাবেলা করে বেঁচে আছে। অনেক সময় বছরের পুরো ফসলই নষ্ট হয়ে যায়। কৃষক দুঃখ ও হতাশার সমুদ্রে পড়ে যান। কিন্তু আল্লাহর ওপর আস্থা ও বিশ্বাস তাকে বাঁচতে সাহায্য করে। কেননা, রিজিক তিনিই দান করেন। ব্যবসা, কৃষি, চাকরি ইত্যাদি মাধ্যম ছাড়া আর কিছু নয়।
আল্লাহপাক চাইলে এসব মাধ্যম ছাড়াও মানুষকে রিজিক দিতে পারেন। যে জন্য আমরা দেখি সংবাদপত্রে আসে ভারতে প্রতিদিন গড়ে পাঁচজন কৃষক আত্মহত্যা করে। আর বাংলাদেশে এ সংখ্যা শূন্যের কোঠায়। এদেশে দু’চারটে ঘটনা যা ঘটে তার পেছনে এনজিওদের ক্ষুদ্র ঋণের কড়া তাগাদা, অসম্মান ও সীমাহীন চাপই দায়ী। সাধারণ অভাব বা ফসলহানী নয়। তা ছাড়া সুদি ঋণগ্রহিতা ঈমান থেকেও দূরে সরে যায়। তার ওপর আল্লাহর রহমত-বরকত বিপন্ন কৃষকের মতো বর্ষিত হয় না। যে মা তার দুইটি শিশুকন্যাসহ সম্প্রতি আত্মহত্যা করল, তার মানসিক অবস্থা কিছুতেই স্বাভাবিক হতে পারে না। কারণ, সে নিজে আত্মহত্যা করা ছিল বড় একটি অপরাধ, কিন্তু নিজের শিশুর কন্যা দু’টিকে মেরে ফেলা কোনো সাধারণ অপরাধ নয়। এর কোনো অধিকার মা’কে দেয়া হয়নি। এখানে মা দু’টি মানুষ খুন ও নিজেকে খুন, এমন তিনটি অপরাধ সংঘটিত করেছে। অথচ এদেশে কোটি কোটি মা এমন আছে যারা শিশু সন্তানদের নিয়ে তার চেয়েও খারাপ অবস্থায় দিনাতিপাত করছে। এখানে এই মা নিজে চাকরিজীবী ছিল। তার স্বামীও সরকারি চাকরি করত। কী অসুবিধা এমন হতে পারে যার জন্য মা তার দুই নিষ্পাপ শিশুকন্যাসহ জীবন দিলো। এখানে দ্বীনি শিক্ষার অভাব যেমন কার্যকর, তেমনি কোনো প্রকৃত ওলামা-মাশায়েখ বা ধর্মীয় জ্ঞানী মুরব্বির তত্ত্বাবধানের ছায়া মাথার ওপর না থাকাও এমন ভয়ঙ্কর সিদ্ধান্ত নেয়ার পেছনে দায়ী। সুস্থ ধর্মীয় ও সামাজিক জীবন হতাশ মানুষকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনে। বড় বড় গোনাহ ও মারাত্মক ভুল সিদ্ধান্ত থেকে রক্ষা করে।
সৌজন্য ইনকিলাব

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» সুনামগঞ্জে বিএনপি নেতাকর্মীর গণপদত্যাগ

» জগন্নাথপুরে অতিরিক্ত মূল্যে বোরো ধানের বীজ বিক্রির অভিযোগ

» সুনামগঞ্জ-৩ আসনে মনোনয়ন সংগ্রহ করলেন বিএনপির তিন নেতা

» সিলেটে বাড়ছে যানবাহনের চাপ, বাড়ছে না সড়ক

» জগন্নাথপুরে মাসিক আইনশৃঙ্খলা সভা অনুষ্ঠিত

» অটোরিকশার চাকায় ওড়না পেচিয়ে নারীর মৃত্যু

» ঐক্য ধরে রেখে সামনে এগিয়ে যাওয়ার আহ্বান খালেদা জিয়ার

» দ্বিতীয় দিন শেষে চালকের আসনে বাংলাদেশ

» জগন্নাথপুরে ডাকাতি মামলার সাজাপ্রাপ্ত আসামীসহ গ্রেফতার-৬

» স্পিডবোটডুবির ঘটনায় নবদম্পতিসহ তিন যাত্রীর লাশ উদ্ধার

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

দ্বীনি শিক্ষার অভাবেই মানুষ এত বড় ভুল করে

উবায়দুর রহমান খান নদভী::

ইসলামী মূল্যবোধের শিক্ষার অভাব থেকে আত্মহত্যার দিকে মানুষ চলে যায়। সমাজের সহায়তা না পাওয়া এবং অভিভাবকদের মনে ধৈর্য সবর ও আল্লাহ নির্ভরতা না থাকা অনেক মানুষকে আত্মহত্যার পথে ঠেলে দেয়। পরীক্ষায় কাক্সিক্ষত নাম্বার না পেয়ে যেসব ছাত্রছাত্রী আত্মহত্যা করে, তাদের ওপর পরিবার ও সমাজের অন্যায় চাপও তাদের আত্মহত্যার জন্য কম দায়ী নয়। যদি তারা তকদিরে বিশ্বাসী হতো, তাহলে চরম মুসিবতে ধৈর্যধারণ তাদের পক্ষে সহজ হতো। পরকাল ও হিসাব কিতাব বিশ্বাস করলে আত্মহত্যার মতো মহাপাপ মানুষ করত না। বিশ্বের সব ঈমানহীন মানুষই সাধারণত আত্মহত্যা করে। প্রকৃত ঈমানদার আত্মহত্যা করতে পারে না। দ্বীনি শিক্ষার অভাবেই মানুষ এত বড় ভুল সিদ্ধান্ত নেয়। বাংলাদেশে সারা জীবনই মানুষ প্রাকৃতিক বিপর্যয় মোকাবেলা করে বেঁচে আছে। অনেক সময় বছরের পুরো ফসলই নষ্ট হয়ে যায়। কৃষক দুঃখ ও হতাশার সমুদ্রে পড়ে যান। কিন্তু আল্লাহর ওপর আস্থা ও বিশ্বাস তাকে বাঁচতে সাহায্য করে। কেননা, রিজিক তিনিই দান করেন। ব্যবসা, কৃষি, চাকরি ইত্যাদি মাধ্যম ছাড়া আর কিছু নয়।
আল্লাহপাক চাইলে এসব মাধ্যম ছাড়াও মানুষকে রিজিক দিতে পারেন। যে জন্য আমরা দেখি সংবাদপত্রে আসে ভারতে প্রতিদিন গড়ে পাঁচজন কৃষক আত্মহত্যা করে। আর বাংলাদেশে এ সংখ্যা শূন্যের কোঠায়। এদেশে দু’চারটে ঘটনা যা ঘটে তার পেছনে এনজিওদের ক্ষুদ্র ঋণের কড়া তাগাদা, অসম্মান ও সীমাহীন চাপই দায়ী। সাধারণ অভাব বা ফসলহানী নয়। তা ছাড়া সুদি ঋণগ্রহিতা ঈমান থেকেও দূরে সরে যায়। তার ওপর আল্লাহর রহমত-বরকত বিপন্ন কৃষকের মতো বর্ষিত হয় না। যে মা তার দুইটি শিশুকন্যাসহ সম্প্রতি আত্মহত্যা করল, তার মানসিক অবস্থা কিছুতেই স্বাভাবিক হতে পারে না। কারণ, সে নিজে আত্মহত্যা করা ছিল বড় একটি অপরাধ, কিন্তু নিজের শিশুর কন্যা দু’টিকে মেরে ফেলা কোনো সাধারণ অপরাধ নয়। এর কোনো অধিকার মা’কে দেয়া হয়নি। এখানে মা দু’টি মানুষ খুন ও নিজেকে খুন, এমন তিনটি অপরাধ সংঘটিত করেছে। অথচ এদেশে কোটি কোটি মা এমন আছে যারা শিশু সন্তানদের নিয়ে তার চেয়েও খারাপ অবস্থায় দিনাতিপাত করছে। এখানে এই মা নিজে চাকরিজীবী ছিল। তার স্বামীও সরকারি চাকরি করত। কী অসুবিধা এমন হতে পারে যার জন্য মা তার দুই নিষ্পাপ শিশুকন্যাসহ জীবন দিলো। এখানে দ্বীনি শিক্ষার অভাব যেমন কার্যকর, তেমনি কোনো প্রকৃত ওলামা-মাশায়েখ বা ধর্মীয় জ্ঞানী মুরব্বির তত্ত্বাবধানের ছায়া মাথার ওপর না থাকাও এমন ভয়ঙ্কর সিদ্ধান্ত নেয়ার পেছনে দায়ী। সুস্থ ধর্মীয় ও সামাজিক জীবন হতাশ মানুষকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনে। বড় বড় গোনাহ ও মারাত্মক ভুল সিদ্ধান্ত থেকে রক্ষা করে।
সৌজন্য ইনকিলাব

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।