বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯, ১০:৫৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতন বাড়ছে জগন্নাথপুরে জুয়া খেলার দায়ে আ.লীগ নেতাসহ চারজনের কারাদণ্ড এরালিয়া বাজার উচ্চ বিদ্যালয়ের ১৭ শিক্ষার্থী ফরম পূরন থেকে বঞ্চিত নতুন সড়ক আইন সংশোধনের দাবিতে জগন্নাথপুরে পরিবহন ধর্মঘট পালন, জনভোগান্তি জগন্নাথপুরে গানে গানে মাতিয়ে গেলেন ‘ক্লোজআপ ওয়ান’র তারকা শিল্পী সালমা আইন শৃঙ্খলা সভা: জগন্নাথপুরে মাদক বিরোধী অভিযান জোরদারের আহবান জগন্নাথপুরে সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার দুই ট্রেনের মুখামুখি সংঘর্ষে নিহত ১৬ রাধারমন দত্ত এ দেশের লোক সংস্কৃতির ভান্ডার কে সমৃদ্ধ করেছেন: জেলা প্রশাসক ‘আওয়ামী লীগে দুঃসময়ের কর্মী চাই, বসন্তের কোকিল না’

নারায়নগঞ্জে আইভীর নৌকা-সাখায়াতের ধানের শীষের লড়াই আজ

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২২ ডিসেম্বর, ২০১৬
  • ৬৫ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক::সিটি কর্পোরেশনে মেয়র পদে প্রথমবারের মতো দলীয় প্রতীকে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন (নাসিক) নির্বাচনে ভোট গ্রহণ আজ। বৃহস্পতিবার (২২ ডিসেম্বর) সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ১৭৪টি কেন্দ্রের ১ হাজার ৩০৪টি ভোটকক্ষে টানা ভোট গ্রহণ চলবে।

এ নির্বাচনে মেয়র পদে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী (নৌকা) এবং বিএনপি মনোনীত অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খানের (ধানের শীষ) মধ্যে। এ ছাড়া বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি, ইসলামী আন্দোলন ও ইসলামী ঐক্যজোট মনোনীত প্রার্থীও মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ইতিমধ্যে বিএনপির মেয়র প্রার্থীকে সমর্থন জানিয়ে নির্বাচন থেকে সরে গেছেন লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এলডিপি) ও বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির প্রার্থীরা।

মেয়র, ৯ জন সংরক্ষিত কাউন্সিলর এবং ২৭ কাউন্সিলর নির্বাচনের। ২৭ ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত এ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ৩৮ জন সংরক্ষিত কাউন্সিলর ও ১৫৬ জন কাউন্সিলর প্রার্থী রয়েছেন।

নির্বাচনী এলাকায় পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবির সদস্যরা টহল দিচ্ছেন। গুরুত্বপূর্ণ স্থানে বসানো হয়েছে চেকপোস্ট। নির্বাচনে সব মিলিয়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রায় দশ হাজার সদস্য থাকছেন। ভোটের দিন বৃহস্পতিবার নির্বাচনী এলাকায় সরকারি ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে।

এ নির্বাচনে ভোটার সংখ্যা ৪ লাখ ৭৪ হাজার ৯৩১ জন। এর মধ্যে পুরুষ ২ লাখ ৩৯ হাজার ৬৬২ জন ও মহিলা ভোটার ২ লাখ ৩৫ হাজার ২৬৯ জন। মোট ভোট কেন্দ্র ১৭৪টি। এর মধ্যে ৪টি অস্থায়ী কেন্দ্র। বুথের সংখ্যা ১ হাজার ৩০৪টি। নিয়োগ দেয়া হয়েছে চার হাজারের বেশি নির্বাচন কর্মকর্তা।

রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. নুরুজ্জামান তালুকদার বলেন, উৎসবমুখর পরিবেশ বজায় আছে। আমরা আশা করছি, ভোট শেষ হওয়া পর্যন্ত এ অবস্থা থাকবে। তিনি বলেন, সুষ্ঠু ভোট গ্রহণে সব ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। কেউ আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবনতির চেষ্টা করলে কোনো ছাড় দেয়া হবে না।

৭৯ শতাংশ কেন্দ্রই ঝুঁকিপূর্ণ
নির্বাচনে মোট ভোট কেন্দ্র ১৭৪টি। এর মধ্যে ১৩৭টি ঝুঁকিপূর্ণ, যা মোট কেন্দ্রের ৭৯ ভাগ। সিদ্ধিরগঞ্জের সব কটি কেন্দ্রই ঝুঁকিপূর্ণ। বাকিগুলো বন্দর ও শহর এলাকায় অবস্থিত।

বর্তমান কমিশনের অধীনে নাসিকই শেষ বড় নির্বাচন। ৮ ফেব্রুয়ারি এ কমিশনের মেয়াদ শেষ হচ্ছে।

মাঠে ইসির ৯ গোপন পর্যবেক্ষক
নাসিক এলাকায় নির্বাচন কমিশনের নিজস্ব ৯ জন কর্মকর্তা গোপন পর্যবেক্ষক হিসেবে মাঠে নেমেছেন। তারা নিজেদের পরিচয় গোপন রেখে তথ্য সংগ্রহ করে সরাসরি নির্বাচন কমিশনকে জানাবেন। তাদের কর্মপরিধি হচ্ছে- ব্যালট ছিনতাই, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি, ভোটারদের কেন্দ্রে প্রবেশে বাধা, জাল ভোট, অবৈধ প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা নজরে এলে তাৎক্ষণিক ইসি সচিব বা অতিরিক্ত সচিবকে জানাবেন। তাদের তথ্যের ভিত্তিতে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেবে কমিশন।

২ বিদেশীসহ ৩২০ পর্যবেক্ষক
এ নির্বাচনে থাকবেন ৩২০ জন পর্যবেক্ষক। এর মধ্যে ৯টি স্থানীয় সংস্থার ৩১৮ জন ও একটি বিদেশী সংস্থার দু’জন। ৯টি সংস্থার ১৮৫ জন স্থানীয়ভাবে ও এর মধ্যে ৭টি সংস্থার ১৩৩ জন কেন্দ্রীয়ভাবে ভোট পর্যবেক্ষণ করবেন এবং এশিয়া ফাউন্ডেশনের আওতায় ২ জন বিদেশী পর্যবেক্ষক এ নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করবেন।

কে হাসবে শেষ হাসি
নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনে সেলিনা হায়াৎ আইভীই মেয়র নির্বাচিত হবেন, নাকি সাখাওয়াত হোসেন খান নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন এ আলোচনা এখন সর্বত্র। এতদিন নির্দলীয় প্রার্থী হয়ে চেয়ারম্যান এবং তারপর মেয়রের দায়িত্ব চালিয়ে আসা আইভী এবার দলের নৌকায় উঠে তার উন্নয়ন কাজ এগিয়ে নিতে ফের ভোট চাইছেন। অন্যদিকে জনপ্রতিনিধি হতে প্রথম ভোটে নেমে শিল্প নগরীটিতে ১৩ বছরের মুখ বদলের আহ্বান জানিয়ে আসছেন সাত খুনের আইনজীবী হয়ে পরিচিতি পাওয়া সাখাওয়াত।

আওয়ামী লীগ নেতারা বলছেন, নারায়ণগঞ্জে আইভীর জয় হলে তা সরকারের কাজের প্রতি জনগণের সমর্থনের প্রকাশ ঘটবে। অন্যদিকে নারায়ণগঞ্জের ভোটে সরকারের বিরুদ্ধে জনরায়ের আশায় আছে বিএনপি। গত ৫ ডিসেম্বর প্রচার শুরুর পর ভোটের মাঠে উত্তেজনা ছড়ালেও গোলযোগ ছাড়াই প্রার্থীদের দ্বারে দ্বারে ঘোরা শেষ হয়েছে। ভোটের একদিন আগে পুলিশের ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি এস এম মাহফুজুল হক নুরুজ্জামান সবাইকে আশ্বস্ত করেছেন এই বলে যে নারায়ণগঞ্জে কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলার আশঙ্কা তারা দেখছে না।

সরকারের বিরুদ্ধে স্বৈরাচারী কায়দায় দেশ পরিচালনার অভিযোগ করে আসা বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া আশা করছেন ‘নীরব ভোট বিপ্লবের’। খালেদা জিয়া এক বিবৃতিতে বলেছেন, “বিএনপি ও ধানের শীষের পক্ষে নারায়ণগঞ্জে ইতোমধ্যে যে জনজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে, আমার আবেদন ভোটের বাক্সে এই সমর্থনের প্রতিফলন ঘটান। আমি আশা করি, আপনারা নারায়ণগঞ্জে ২২ ডিসেম্বর নীরব ভোট বিপ্লব ঘটাবেন।”

ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী
আইভীর বাবা আলী আহমদ চুনকা ছিলেন নারায়ণগঞ্জ পৌরসভার প্রথম নির্বাচিত চেয়ারম্যান। ১৯৬৬ সালের ৫ জুন জন্ম নেওয়া আইভী একজন চিকিৎসক। আওয়ামী লীগ সমর্থক চিকিৎসকদের সংগঠন স্বাচিপের নারায়ণগঞ্জ শাখার আহ্বায়ক তিনি। ১৯৯২ সালে রাশিয়ার ওডেসা পিগারভ মেডিকেল ইন্সটিটিউটে ডক্টর অব মেডিসিন (এমডি) ডিগ্রি নেওয়ার পর মিটফোর্ড হাসপাতালে ইন্টার্নশিপ করেন আইভী। এরপর ১৯৯৪ সাল থেকে এক বছর নারায়ণগঞ্জের ২০০ শয্যা মেডিকেল হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা দেওয়ার পর উচ্চতর পড়াশোনা করতে আইভী যান নিউজিল্যান্ডে।

সেখান থেকে ২০০২ সালে ফিরে পরের বছর নারায়ণগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে বিপুল ভোটে জিতে প্রথম নারী চেয়ারম্যানের দায়িত্ব নেন তিনি। নগর আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক হিসাবে আওয়ামী লীগের রাজনীতি শুরু করা আইভী এখন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি। আইভী ও তার স্বামী কাজী আহসান হায়াতের দু’টি ছেলে রয়েছে।

অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান
পেশায় আইনজীবী সাখাওয়াতের বাড়ি মুন্সীগঞ্জে হলেও অনেক দিন ধরে তিনি নারায়ণগঞ্জের বাসিন্দা। ১৯৬৯ সালের ২০ অগাস্ট জন্ম নেওয়া সাখাওয়াত ১৯৯৫ সালের ১ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ জেলা বারে তালিকাভুক্ত হন। স্থায়ীভাবে বসত গড়েন নগরীর জামতলা এলাকায়। ২০০৬-০৭ সালে সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালনের পর ২০১৩ থেকে ২০১৫ পর্যন্ত তিনি জেলা বারে সভাপতি ছিলেন। জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি হিসেবে সাত খুনের ঘটনায় সরব হয়ে পরিচিতি পান সাখাওয়াত।

১৯৯৮ সালে তিনি নারায়ণগঞ্জ পৌর বিএনপির সদস্য হন। ২০০৪ সাল থেকে তিনি নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সহ-আইন সম্পাদক নির্বাচিত হন। ২০০৯ সালে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য হন। ২০০২ সাল থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত তিনি নারায়ণগঞ্জ জেলা জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সাধারণ সম্পাদক পদে ছিলেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24