বুধবার, ১৯ জুন ২০১৯, ০১:৪৬ পূর্বাহ্ন

পল্লীগীতি রচয়িতা বাউল কবি শাহ্ আব্দুস ছালিক আবুল কাশেম আকমল

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৮
  • ৫৮ Time View

ভিন্ন এক জগতের মানুষ। নিবিষ্ট মনে কী যেন খোঁজেন। উড়নচন্ডি বাউল। মনের গহীনে যাঁর একতারা বাজ্ েসুরের তালে তালে। ঝাঁকড়া চুলের বাহার নিয়ে একিভ’ত হয়ে যায় তাঁর উদাত্ত কন্ঠ। সেই বাউল কবির নাম শাহ্ আব্দুস ছালিক। আউল বাউলের দেশ সুনামগঞ্জ জেলার জগন্নাথপুর উপজেলার অন্তর্গত কুবাজপুর গ্রামে ১৫ নভেম্বর ১৯৫৬ ইং তারিখে তিনি জন্ম গ্রহন করেন। তাঁর পিতা মরহুম রহিম উল্লাহ ও মাতা আমিনা বেগম। ৭ ভাই ও ২ বোনের মধ্যে ২য় কব্ আব্দুস ছালিক। তাঁর প্রিয়তমা স্ত্রীর নাম আকলিমা বেগম, একমাত্র পুত্র শাহ্ আলী মাহবুব তুহিন।

এক সময় তাঁর কথায় একটা তাল ও প্রত্যয় লক্ষ করা গেছে। সদালাপী ও নিরহংকার মনের মানুষ তিনি। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাঠ সমাপনের সাথে সাথে তাঁর লেখাপড়া বন্ধ হয়ে যায়। মনের ভিতর অচিন পাখি, লালন ফকির ও একতারার সুরের ঝঙ্কার তাঁকে উতলা করে দেয়। আর তাইতো বাউল কবি হিসাবে তিনি আত্মপ্রকাশ করেন। জীবনের অনেক বছর কেটে গেছে তাঁর। শান্ত, সৌম্য, ধ্যানমগ্ন কবি যখন গেয়ে যান ’তুমি ছাড়া এ সংসারে কেউ নেই আমার’ এযে কত সত্য কথা ! যারা তাঁর প্রতিদিনের জীবন যাপনের খবর রাখেন শুধু তারাই বোঝতে পারবেন যে, একতারাই তাঁকে এ পর্যন্ত ঘর বঁাঁধতে ভুলিয়ে রেখেছিল। ঘর সংসার ফেলে গানের পেছনেই লেগে থাকতেন সারাক্ষন। একজন সঙ্গীত শিল্পী হয়েও ধর্মের প্রতি তিনি ছিলেন অবিচল। নিয়মিত নামাজ রোজা করতেন। দুনিয়াবী সুখের প্রতি তাঁর কোন খেয়াল ছিলনা। ’মানুষ তার কর্মের মাধ্যমে বেঁচে থাকতে চায়’ এ কথাটিকে লালন করে ছালিক পদার্পণ করেন সাংস্কৃতিক অঙ্গনে। তাঁর ছোট বেলার স্বপ্ন ’কবি হইব আর গাইব গান’ তাইতো তিনি শুরু করেন গান রচনা। গানের মাধ্যমে শুরু হয় তাঁর জীবন যাত্রা। এভাবে তিনি প্রায় এক যুগ ধরে গান ও কবিতা লিখে যান। শাহ ছালিকের সঙ্গীতের উস্তাদ ছিলেন মরমী কবি দুর্বিন শাহ। আধ্যাতিœক দিক দিয়েও তিনি ছিলেন পীর ভক্ত, তাঁর পীর ছিলেন মুন্সী আলহাজ আব্দুল আজিজ চৌধুরী ।

শাহ্ আব্দুস ছালিক রচিত গানগুলো শ্রোতাদের হৃদয়ে দারুন আবেদন সৃষ্টি করে। আমাদের সংস্কৃতিকে অপসংস্কৃতির হাত থেকে রক্ষা করতে তাঁর মত শিল্পীদের আজ বড় প্রয়োজন। শিল্পী ছাড়াও ছালিক একজন প্রতিশ্রæতিশীল কবি। তিনি ঢাকার জাতীয় গণকবি অঙ্গীকারের তালিকাভ’ক্ত ১৬ নং সদস্য ছিলেন। বাংলাদেশ বেতার সিলেট কেন্দ্রে ১৯৯২ সালে ’ছালিক সঙ্গীত বিদ্যালয় রেডিও শ্রোতা ক্লাব’ নামে একটি সংগঠন অনুমোদিত হয়। দেশের বিভিন্ন স্থানে ও প্রতিষ্ঠানে সঙ্গীত পরিবেশন করে তিনি বহু প্রশংসা লাভ করেন। শাহ্ আব্দুস ছালিকের গানগুলোর মধ্যে স্বার্থকতা রয়েছে। তাঁর গানে প্রকাশ পেয়েছে সমাজের দু;খী মানুষের মর্মবেদনার কথা। গানের মাধ্যমে তিনি সমাজকে জাগিয়ে তোলার চেষ্টা করেছেন আমৃত্যু। কবি ছালিকের গানগুলো বাস্তব সমাজের প্রেক্ষিতে রচিত। তাই সৃজনশীল লেখনি শক্তিকে পর্যালোচনা করা হলে তাঁর আত্মা শান্তি পাবে।

অকাল প্রয়াত এই কবি ১৬ নভেম্বর ২০০০ ইং তারিখে মাত্র ৪৪ বছর বয়সে ইহলোক ত্যাগ করে পরপারে পাড়ি জমান। কবির ১ম গ্রন্থ ’ফুলবাসর পল্লীগীতি’ প্রকাশিত হয় ১৯৮৪ সালে। ’অনুরাগ পল্লীগীতি ১ম খন্ড’ ১৯৮৬ সালে ও ’অনুরাগ পল্লীগীতি ২য় খন্ড’ ১৯৯৯ সালে প্রকাশিত হয়। অনুরাগ পল্লীগীতি ১ম খন্ডে ৫২টি ও ২য় খন্ডে ৮০টি গান লিপিবদ্ধ করা হয়। গ্রন্থ দু’টিতে ভ’মিকা লেখেন সাং তেরাউতিয়া মোকামবাড়ী নিবাসী মরমী কবি পীর মো: ইসকন্দর মিয়া। তিনিও সম্প্রতি আমাদের ছেড়ে পরলোক গমন করেন। আমরা উভয় কবির বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করি।

লেখক: পাঠাগার সংগঠক ও গবেষনা কর্মী।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24