বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯, ০১:৫১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের সন্তান অতিরিক্ত সচিব শিশির রায় কে ফুলেল শ্রদ্ধায় চীরবিদায় সিলেটে হিরন মাহমুদ নিপু আটক তারেক জিয়ার জন্মদিন উপলক্ষে জগন্নাথপুরে ছাত্রদলের এতিমদের মধ্যে খাদ্য বিতরণ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত সসীমের অসহায়ত্ব -মোহাম্মদ হরমুজ আলী তারেক জিয়ার জন্মদিন উপলক্ষে জগন্নাথপুরে বিএনপির দোয়া মাহফিল পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান জগন্নাথপুরে কাল আসছেন জগন্নাথপুরে বাজার মনিটরিং করলেন পুলিশের এএসপি ধর্মঘট স্থগিত, যান চলাচল শুরু ঢাকা-চট্টগ্রাম-সিলেট মহাসড়কে প্রতিকূলতা উপেক্ষা করে নেদার‌ল্যান্ডসের রাজধানীতে প্রথমবার মাইকে আজান জগন্নাথপুরের কৃতি সন্তান অতিরিক্ত সচিব শিশির রায় আর নেই

পৈত্রিক সম্পদ দেখতে গিয়ে গুলিবিদ্ধ হয়ে লন্ডনে ফিরেছেন এক বৃটিশ বাংলাদেশী

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ২ জানুয়ারী, ২০১৬
  • ১৩৭ Time View

আমিনুল হক ওয়েছ লন্ডন থেকে:: বাংলাদেশে প্রবাসী হয়রানী নতুন কোন ঘটনা নয় হরহামেশাই প্রবাসীরা দেশে গিয়ে হয়রানির শিকার হচ্ছেন। বিমান বন্দর থেকে শুরু করে সর্বত্র ঘটে নানাবিধ হয়রানির ঘটনা। বিগত কয়েক বছরে দেশের বিভিন্ন স্থানে বিশেষ করে বৃহত্তর সিলেট অঞ্চলে গড়ে উঠেছে একটি সিন্ডিক্রেট, এই সিন্ডিক্রেটের উদ্দেশ্য প্রবাসীদের সম্পত্তি দখল। ভুমি খোকো সিন্ডিক্রেদের দ্বারা ১৯৮০ সাল থেকে এপর্যন্ত বৃহত্তর সিলেট অ লের শতাধিক পরিবার বিভিন্ন ভাবে নিগৃহীত হয়ে আসছেন। বৃটেন প্রবাসী তিনটি পরিবার প্রাণের ভয়ে দেশের সহায় সম্পদ ফেলে একবারে চলে এসেছেন বৃটেনে। এই সিন্ডিগেট প্রবাসীদের ভুমি দখলের উদ্দেশ্যে মিথ্যা মামলা মোকদ্দমা থেকে শুরু প্রবাসীদের হত্যা করতেও দ্বিধাবোধ করেনা।

গত কয়েক বছরে বিলেত থেকে দেশে গিয়ে সম্পত্তি সংক্রন্ত কারনে খুন হয়েছেন বিশ্বনাথ-ওসমানীনগর-নবীগঞ্জ ও মৌলভীবাজারের চার প্রবাসী। সর্বশেষ হয়রানির শিকার বৃটেনে বেড়ে উঠা তৃতীয় প্রজন্মের ব্রিটিশ বাংলাদেশী ইষ্টলন্ডনের পপলার এলাকার বাসিন্ধা টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের ইয়োথ ওয়ার্কার মেহের আহমদ (জামাল) । একটি ভূমিখোকো চক্র সম্পত্তি আত্মসাতের লক্ষ্যে তাঁকে হত্যার উদ্দেশে রাতের আঁধারে গুলি চালায়, অলৌকি ভাবে তিনি বেঁচে গেছেন। ঘটনাটি ঘটেছে গেল ২০ ডিসেম্বর রাতে দক্ষিন সুরমা উপজেলার ধরাধরপুর গ্রামে। গুলিবিদ্ধ হয়ে বিলেতে ফেরত এসেছেন মেহের আহমদ (জামাল)। লন্ডনে ফিরে মেহের আহমদ জামাল বাংলা মিডিয়ার সাংবাদিকদের কাছে তুলে ধরলেন তার নিগৃহীত হওয়ার কথা।

তার উপর ভূমি খোকো চক্রের নির্যাতনের ঘটনাশুনে রীতিমতো শিউরে উঠতে হয়। ঘটনার বিবরনে প্রকাশ ধরাধরপুর গ্রামের বৃটেন প্রবাসী মরহুম তোরন আহমদের দ্বিতীয় পুত্র জামাল আহমদ জানান ১৯৭৯ সালে তারা ভাই/ বোন সকলে পিতার সাথে বৃটেনে পাড়ি জমান। সকলেই বেড়ে উঠেছেন বৃটেনে, দেশ সম্পর্কে তাদের তেমন কোন ধারনা নেই এমনকি ভাল করে বাংলাও বলতে পারেনা পরিবারের কেউ। তোরন আহমদ ১৯৮৪সালে বাংলাদেশে বিপুল পরিমান সহায় সম্পদ রেখে মারা যান। মরহুম তোরন আহমদের পরিবার বিলেতে বসবাস কারনে তার সহায় সম্পদ দেখা শুনাা করেন দেশের আত্মীয় স্বজননেরা।

সন্তানেরা সকলেই ছোট এবং লেখাপড়ার কারণে পরিবারের কারো পক্ষেই স্থায়ীভাবে দেশে গিয়ে বসবাসকরা সম্ভব নয়, তাই তাদের ঘনিষ্ট আত্মীয়রাই তাদের অবর্তমানে সম্পদের দেখভাল করে আসছিলেন। সব সময় মেহের আহমদের জামালের পরিবারের সদস্যরা পত্র ও ফোনে আত্মীয়দের সাথে যোগাযোগ রাখেন, দেশ থেকে সব সময় জানানো হয় তাদের সব কিছু ঠিক আছে। দীর্ঘ দিন মরহুম তোরন আহমদের সন্তানেরা দেশে নাযাওয়াতে দেশের আত্মীয়দের কেউ কেউ ভেবে ছিলেন হয়তোবা তোরন আহমদের সন্তানেরা কেউ আর দেশে যাবেনা এই সুযোগে একটি চক্র তাদের সম্পদ আত্মসাতে চেষ্টা চালায়। দেশের আত্মীয় স্বজনদের সাথে যোগাযোগ করলে জানানো হয় তোমাদের সব ঠিক আছে। ২০১১ সাল থেকে তোরন আহমদের দ্বিতীয় পুত্র মেহের আহমদ (জামাল) দেশে আসা যাওয়া শুরু করেন। দেশে গিয়ে প্রথমেই তাঁকে পড়তে হয় বিড়ম্বনায়, আত্মীয়রা তাঁকে বাড়ীতে উঠতে দেয়নি, তিনি বাসা ভাড়া করে শহরে উঠেনে এখান থেকে গ্রাম্য সালিশ এবং পুলিশের সহায়তা তার বাড়ীতে ঢুকতে হয়। এর পর থেকে মেহের আহমদকে পৈতৃক সম্পদ রক্ষনাবেক্ষনের জন্যে প্রতিবছরই নিয়মিত দেশে আসা যাওয়া করতে হয়।

২০১৩ সালে তিনি যখন দেশে যান তখন আবারও ঐগোষ্ঠী তাকে বিভিন্ন ভাবে হয়রানি করতে থাকে। তখন মিনহাজ ও হারুন গংরা তার কাছে ২০লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করে, এলাকার একজন মধ্যস্ততা কারী যোগদেন এদের সাথে তিনি প্রস্তাব করেন তাঁকে পাঁচ লক্ষ টাকা দিলে সব কিছু ঠিকটাক হয়ে যাবে। তিনি তাদের প্রস্থাবে রাজি না হয়ে আবারও আশ্রয় নেন আইনের।

সিলেটর আ লিক ভাষায় কথা বলতে পরলেও জানেননা বাংলা পড়তে, প্রথমেই তার কাছে ধরা পড়ে তার বাবার খরিদা ১৯৬৬সালে ঔ গ্রামের সফর আলীর কাছ থেকে ফেরেজপুর মৌজার সাবেক দাগ ৯৯৯ ও সাবেক খতিয়ান ৪৬০ এর ৩৮ শতক আমন জমি খরিদ করেন পরবর্তিতে একই দাগের আরো ৩৮শতক জমি খরিদ করেন মরহুম তোরন আহমদের স্ত্রী মেহেরুন নেছা খাতুন। যা ঐ গ্রামের কৃষকেরা বর্গাচাষ করে আসছেন, জমিটি মেহের আহমদের বর্গাচাষীদের দখলে থাকলেও চলতি ভুমি জরিপে তার আত্মীয় স্বজন এবং বিক্রেতার কয়েকজন উত্তরাধীকারী মিলে ঐ জমিটুকু তাদের নামে রেকর্ড করিয়ে নেয়। মেহের আহমদ দেশে গিয়ে রেকর্ড সংশোধনীর জন্যে সিলেটের এডিসি অফিসে আপত্তি করলে, তদন্ত শেষে তা আবার তাদের নামে রেকর্ড ভূক্ত হয়।

অনুরুপ ভাবে মরহুম তোরন আহমদের কোন সন্তান নেই দাবী করে জনৈক হারুনুর রশিদ গং একটি ভ’মি খোকো চত্রæ ফেরেজপুর মৌজার কিছু জমি অন্য এলাকার এক ব্যাক্তির কাছে বিক্রি করে দেয়। তখন মেহের আহমদ দেশে অবস্থান করায় দেখতে পান কিছু সংখ্যক লোক তাদের ভুমিতে কাজ করতেছে। বাধা দিলে তারা জানান ঔ জমি তারা খদির করেছেন হিরন মিয়ার পুত্র হারুন রশিদের কাছ থেকে। এখানে মজার ব্যাপার হলো যে জমিটুকু হারুন অন্যের কাছে বিক্রি করেছে। ঐজমি হারুনের আপন বড়ভাই হাজী মজনু মিয়া তোরন আহমদের সন্তানদের নামে খরিদ করে দেন বিগত ভুমি জরিপেও তিনি তাদের পক্ষে মাঠ জরিপ করার।

এনিয়ে নাড়াচারা শুরু হলে হারুন গং ভ’মি খেকো চক্র তাঁকে বিভিন্ন ভাবে হুমকী দিতে থাকে, এখানে কেঁচো খুড়তে সাপ বেরিয়ে আসে ধরা পড়ে বলদি মৌজার একএকর জমি ঐচক্র তোরন আহমদের কোন সন্তান নেই বলে অনুপুর ভাবে বিক্রি করে দেয় বিভিন্ন জনের কাছে। ২০১৫ সালের নভেম্বর মাসে মেহের আহমদ আবারও বাংলাদেশে যান, সাথে দেশে যায় তার পুত্র ও ভাতিজা। ২০ ডিসেম্ব মেহের আহমদ বাড়ীর পাশে তাদের একটি ডোবায় মাছ ধরার উদ্দেশ্য পানি সেচের মেশিন লাগান। সন্ধ্যার পর পানির মেশিন দেখতে গেলে রাতের আঁদারে কয়েজন লোক তাঁকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়। একটি গুলি তার বাম হাতে ও একটি গুলি বাম পায়ে লাগে। তিনি চিতকার করে দৌড় দিয়ে পাশের বাড়ীতে উঠলে ঐ বাড়ীর লোকেরা তাঁকে হাসপাতলে নিয়ে যায়। তার চিতকারে আশপাশের লোকজন ছুটে আসলে হামলাকারীরা সটকে পড়ে। এব্যাপারে মেহের আহমদ দক্ষিন সুরমা থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন মামলা নং ১৫/২২৫ এবং দেশে তার জান মালের নিরাপত্তা চেয়ে র‌্যাব-৯ বরাবরে হারুন রশিদ পিতা মৃত হিরন মিয়া, মিনহাজ ও মাসুক মিয়া সহ কয়েকজনকে আসামী করে একটি পিটিশন দাখিল করে বৃটেন চলে এসেছেন। এখনও তিনি পুরোপুরি সুস্থ হতেপারেননি। তিনি সাংবাদিকদের জানান এযাত্রায় তিনি প্রাণে বেঁচে এসেছেন। এখন দেশে যেতেও ভয় পাচ্ছেন। এব্যারে মেহের আহমদ তার সহায় সম্পদ রক্ষায় আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সহযোগীতা কামনা করেছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24