পৌরশহর থেকে টাকাসহ দুই সাইবার অপরাধী আটক

দিরাই প্রতিনিধি::
দিরাই পৌরসভার এক ওয়ার্ড কাউন্সিলরকে ফেসবুকে ব্ল্যাকমেইল করে অশালীন ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়ার হুমকি দিয়ে ৭০ হাজার টাকা দাবির অভিযোগে ২ জনকে আটক করেছে ডিবি পুলিশ।
বুধবার বিকাল ৩ টায় সুনামগঞ্জ জেলা ডিবি পুলিশের একটি দল টাকা উত্তোলনের সময় সুনামগঞ্জ সদর থানার সামনের মার্কেটের একটি বিকাশ এজেন্ট দোকান থেকে তাদেরকে আটক করে।
আটককৃতরা হলো দিরাই পৌর সদরের চন্ডিপুর গ্রামের হাজী সাইফুল ইসলামের ছেলে হারুন উর রশিদ (২০) ও সুনামগঞ্জ পৌর সদরের মরাটিলা শান্তিবাগ এলাকার নুর মিয়ার ছেলে সালমান হক রানা (১৯)। তারা একে অপরের খালাতো বলে পুলিশকে জানিয়েছে। হারুন রশিদ সুনামগঞ্জ শহরের সালমান হক রানার বাসায় থাকে।
জানা যায়, দিরাই পৌরসভার ২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর এবিএম মাসুম প্রদীপের ফেইসবুক ম্যাসেঞ্জারে সাবিহা খাতুন নামক একটি আইডি থেকে কল দিয়ে ৭০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করা হয়। দাবিকৃত টাকা না দিলে ইন্টারনেটে তার ছবি দিয়ে অশ্লিল ভিডিও তৈরি করে ছড়িয়ে দেয়ার হুমকি দেয়া হয়।
এঘটনায় গত ৮ জানুয়ারি কাউন্সিলর প্রদীপ দিরাই থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) দায়ের করেন। একদিন পর ৯ জানুয়ারি বুধবার তাদের দেয়া বিকাশ নাম্বারে ১০ হাজার পাঠানো হলে টাকা উত্তোলনের জন্য তারা বিকাশের দোকানে যায়। বিকাশের ওই নাম্বারটি ট্্রাকিং করে জেলা ডিবি পুলিশের একটি দল আগ থেকেই সেখানে ওৎ পেতে থাকে এবং টাকা উত্তোলনের সময় তাদেরকে হাতে নাতে আটক করে।
জেলা ডিবি পুলিশের ওসি কাজী মুক্তাদির আহমদ জানান, আটককৃত দুইজন সাইবার অপরাধী। হুমকি দিয়ে টাকা আদায় করতে চেয়েছিল তারা। টাকা উত্তোলনের সময় তাদেরকে হাতে নাতে আটক করা হয়েছে। আটককৃতরা জানিয়েছে তাদের সাথে আরও অনেক জড়িত রয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে দিরাই থানায় মামলা দায়ের করা হবে এবং ডিবি পুলিশ সেই মামলা তদন্ত করবে। এর সাথে জড়িত সিন্ডিকেটের সদস্যদের গ্রেফতারের অভিযান চলছে।
দিরাই পৌর কাউন্সিলর প্রদীপ জানান, সাবিহা খাতুন নামের আমার এক ফেসবুক ফ্রেন্ড কিছুদিন যাবত মেসেঞ্জারে ভিডিও কলে কথাবার্তা বলে আসছে। গত তিনদিন পূর্বে আমাকে মেসেঞ্জারে কল দিয়ে বলে যে, আমার অশালীন ভিডিও তার কাছে রয়েছে। সে আমার নিকট ৭০ হাজার টাকা দাবি করে। টাকা না দিলে সেই ভিডিও ইন্টারনেটে ছেড়ে দেবার হুমকি দেয়। এঘটনায় থানায় একটি জিডি করেছি। আমাকে সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য একটি দুষ্টচক্র এই কাজ করছে। এর আগেও একইভাবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আমার বিরুদ্ধে নামে বেনামে বিভিন্ন ফেক আইডি থেকে বিষোদাগার করা হয়েছিল।’

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» ছাতকে দু’পক্ষের সংর্ঘষে আহত-২০

» ভিকারুননিসায় হঠাৎ দুদক দল অভিযানে

» ব্রিটিশ পার্লামেন্টে ব্রেক্সিট চুক্তি প্রত্যাখ্যান

» জেলা আইনজীবি সমিতির নির্বাচন, সভাপতি চাঁন মিয়া, সেক্রেটারী সাহারুল

» জগন্নাথপুর ক্রিকেট এসোসিয়েশনের বিরুদ্ধে কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করায় সৈয়দপুর ইয়াংম্যান ক্রিকেট ক্লাবকে ৫ বছরের জন্য নিষিদ্ধ

» সামাদ আজাদের ৯৭ তম জন্মবার্ষিকী তাঁর জন্মভূমি জগন্নাথপুরে পালিত

» জগন্নাথপুরে ঘোড়দৌড় সম্পন্ন: মায়ের আদেশকে হারিয়ে রাজমুকুট চ্যাম্পিয়ান, উৎসুক মানুষের ঢল

» যে ১০ ক্যাটাগরির আবেদনকারী কানাডার যেতে পারবে সহজে

» কাদেরকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইতে বললেন ফখরুল

» ১২ বছর দল না করলে উপজেলায় মনোনয়ন দেবে না আ. লীগ

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

পৌরশহর থেকে টাকাসহ দুই সাইবার অপরাধী আটক

দিরাই প্রতিনিধি::
দিরাই পৌরসভার এক ওয়ার্ড কাউন্সিলরকে ফেসবুকে ব্ল্যাকমেইল করে অশালীন ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়ার হুমকি দিয়ে ৭০ হাজার টাকা দাবির অভিযোগে ২ জনকে আটক করেছে ডিবি পুলিশ।
বুধবার বিকাল ৩ টায় সুনামগঞ্জ জেলা ডিবি পুলিশের একটি দল টাকা উত্তোলনের সময় সুনামগঞ্জ সদর থানার সামনের মার্কেটের একটি বিকাশ এজেন্ট দোকান থেকে তাদেরকে আটক করে।
আটককৃতরা হলো দিরাই পৌর সদরের চন্ডিপুর গ্রামের হাজী সাইফুল ইসলামের ছেলে হারুন উর রশিদ (২০) ও সুনামগঞ্জ পৌর সদরের মরাটিলা শান্তিবাগ এলাকার নুর মিয়ার ছেলে সালমান হক রানা (১৯)। তারা একে অপরের খালাতো বলে পুলিশকে জানিয়েছে। হারুন রশিদ সুনামগঞ্জ শহরের সালমান হক রানার বাসায় থাকে।
জানা যায়, দিরাই পৌরসভার ২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর এবিএম মাসুম প্রদীপের ফেইসবুক ম্যাসেঞ্জারে সাবিহা খাতুন নামক একটি আইডি থেকে কল দিয়ে ৭০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করা হয়। দাবিকৃত টাকা না দিলে ইন্টারনেটে তার ছবি দিয়ে অশ্লিল ভিডিও তৈরি করে ছড়িয়ে দেয়ার হুমকি দেয়া হয়।
এঘটনায় গত ৮ জানুয়ারি কাউন্সিলর প্রদীপ দিরাই থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) দায়ের করেন। একদিন পর ৯ জানুয়ারি বুধবার তাদের দেয়া বিকাশ নাম্বারে ১০ হাজার পাঠানো হলে টাকা উত্তোলনের জন্য তারা বিকাশের দোকানে যায়। বিকাশের ওই নাম্বারটি ট্্রাকিং করে জেলা ডিবি পুলিশের একটি দল আগ থেকেই সেখানে ওৎ পেতে থাকে এবং টাকা উত্তোলনের সময় তাদেরকে হাতে নাতে আটক করে।
জেলা ডিবি পুলিশের ওসি কাজী মুক্তাদির আহমদ জানান, আটককৃত দুইজন সাইবার অপরাধী। হুমকি দিয়ে টাকা আদায় করতে চেয়েছিল তারা। টাকা উত্তোলনের সময় তাদেরকে হাতে নাতে আটক করা হয়েছে। আটককৃতরা জানিয়েছে তাদের সাথে আরও অনেক জড়িত রয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে দিরাই থানায় মামলা দায়ের করা হবে এবং ডিবি পুলিশ সেই মামলা তদন্ত করবে। এর সাথে জড়িত সিন্ডিকেটের সদস্যদের গ্রেফতারের অভিযান চলছে।
দিরাই পৌর কাউন্সিলর প্রদীপ জানান, সাবিহা খাতুন নামের আমার এক ফেসবুক ফ্রেন্ড কিছুদিন যাবত মেসেঞ্জারে ভিডিও কলে কথাবার্তা বলে আসছে। গত তিনদিন পূর্বে আমাকে মেসেঞ্জারে কল দিয়ে বলে যে, আমার অশালীন ভিডিও তার কাছে রয়েছে। সে আমার নিকট ৭০ হাজার টাকা দাবি করে। টাকা না দিলে সেই ভিডিও ইন্টারনেটে ছেড়ে দেবার হুমকি দেয়। এঘটনায় থানায় একটি জিডি করেছি। আমাকে সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য একটি দুষ্টচক্র এই কাজ করছে। এর আগেও একইভাবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আমার বিরুদ্ধে নামে বেনামে বিভিন্ন ফেক আইডি থেকে বিষোদাগার করা হয়েছিল।’

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।