শুক্রবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৭:৫০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ২২তম ক্রিকেট টুর্নামেন্টের উদ্বোধন সম্পন্ন জগন্নাথপুরে সেই সড়কে ২৩ কোটি টাকার টেন্ডার সম্পন্ন, নতুন বছরের শুরুতেই কাজ শুরু হতে পারে জগন্নাথপুরে ১৫ দিন পর অবশেষে ধান কেনা শুরু জগন্নাথপুরে গলায় ফাঁস দিয়ে দুর্বৃত্তরা হত্যা করল স্টুডিও’র মালিক আনন্দকে সিলেট জেলা আ’লীগের নেতৃত্বে লুৎফুর-নাসির, মহানগরে মাসুক-জাকির প্রতিবন্ধীদের জন্য প্রতিটি উপজেলায় সহায়তা কেন্দ্র: প্রধানমন্ত্রী জগন্নাথপুর পৌরশহরে স্টুডিও দোকানদারের মরদেহ পাওয়া গেছে হিন্দুরাষ্ট্রের পথে ভারত: সংসদে বিজেপি নেতা জামিন শুনানি পেছালো, এজলাসে হট্টগোল, আইনজীবীদের অবস্থান মানবজাতির প্রতি কোরআনের অমূল্য উপদেশ

পৌর নির্বাচন জগন্নাথপুর-৮ নং ওয়ার্ডে পরিবর্তনের আওয়াজ উঠেছে

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২৪ ডিসেম্বর, ২০১৫
  • ৪০ Time View

স্টাফ রিপোর্টার:: জগন্নাথপুর পৌররসভা নির্বাচন আর মাত্র ৬ দিন বাকী। প্রতিটি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে ভোটযুদ্ধ চলছে জোরেশোরে। জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম পাঠকের জন্য ধারাবাহিক ওয়ার্ড ভিত্তিক প্রতিবেদনে অংশ হিসেবে আজ ৮নং ওয়ার্ড প্রকাশিত হল।
জগন্নাথপুর পৌরসভার পশ্চিমপাড়ের মধ্যস্থলে অবস্থিত ওয়ার্ড হচ্ছে ৮নং ওয়ার্ড। এ ওয়ার্ডে এবার কাউন্সিলর পদে ৪জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধীতা করছেন। তার মধ্যে এ ওয়ার্ডে এবার বর্তমান কাউন্সিলর আবাব মিয়া, গত নির্বাচনের প্রার্থী আকমল হোসেন, নতুন মুখ উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা সাফরোজ ইসলাম মুন্না, ও উপজেলা ছাত্রদল নেতা শামীম আহমদ প্রার্থী হয়েছেন।
ভবানীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে এ ওয়ার্ডের ভোটাররা তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। ওয়ার্ডের মোট ভোটার১৮৫৭ এই ওয়ার্ডটি ভবানীপুরগ্রামসহ চারটি মহল্লা নিয়ে গঠিত। তন্মেধ্যে ছিলিমপুরে পুরুষ ভোটার ৬১ নারী ভোটার ৬০,পারুয়া পুরুষ ভোটার ১৪৬ ও নারী ভোটার ১৫৩ বলবল পুরুষ ভোটার ৭২ নারী ভোটার ৬৭ র্পূব ভবানীপুরে পুরুষ ভোটার ৬৫৫ ও নারী ভোটার ৬৪৩ নির্বাচনী প্রতিদ্বন্ধী ৪ প্রার্থীর মধ্যে সাফরোজ ইসলাম মুন্না পেয়েছেন পানির বোতল, আকমল হোসেন পেয়েছেন পাঞ্জাবি প্রতীক ও শামীম আহমদ পেয়েছেন ডালিম প্রতীক ও আবাব মিয়া পেয়েছেন উটপাখি। প্রতীক পাওয়ার পর থেকে প্রার্থী সমর্থকরা ঘরে ঘরে গিয়ে ভোট প্রার্থনার পাশাপাশি দিচ্ছেন নানা উন্নয়ন প্রতিশ্রুতি।
রির্টানিং অফিসারের কাছে দাখিলকৃত হলফনামা পর্যালোচনায় দেখা যায় কাউন্সিলর প্রার্থী আবাব মিয়া শিক্ষাগত যোগ্যতা স্বশিক্ষিত তার বিরুদ্ধে মামলা রয়েছে সুনামগঞ্জের বিজ্ঞ জেলা ও দায়রা জজ আদালতে দায়রা ১৯৩/২০১৫ পেশা কৃষি,কৃষিখাতে আয় দেড় লাখ টাকা নগদ টাকা ৫০হাজার, ব্যাংকে জমাটাকা আছে ৫ হাজার টাকা, মোটর সাইকেল ১টি ইলেকট্রনিক সামগ্রী আছে মোবাইল ২টি ফ্রিজ ১টি। আসবাপত্র আছে ৪টি খাট, ১টি সোকেস,১টি আলমারি ,৬ চেয়ার,১টেবিল২ সোফা, ২০ কেদার বোরো জমি ও টিনসেট দালান রয়েছে।
কাউন্সিলর প্রার্থী সাফরোজ ইসলামে মুন্নার বিরুদ্ধে ফৌজদারী কোন মামলা নেই। পেশা ঠিকাদারী ও শিক্ষাগত যোগ্যতা স্বশিক্ষিত ব্যবসায় আয় দেড় লাখ । নগদ আছে ২০ হাজার টাকা ,ব্যাংকে জমা ১৫ হাজার টাকা। ইলেকট্রনিক সামগ্রী আছে ১টি টিভি, ১টি ফ্রিজ ৪ ফ্যান। আসবাপত্র ৪টি পালং ৬টি চেয়ার ১টি টেবিল,১ সোফা সেট ও ৪টা ড্রেসিং টেবিল রয়েছে।
অপর কাউন্সিলর প্রাথী আকমল হোসেন তার হলফনামায় উল্লেখ করেছেন শিক্ষাগত যোগ্যতা এসএসসি , কোন মামলা মোকদ্দমা নেই। পেশা ব্যবসা। ব্যবসায় আয় ২ লাখ টাকা। নগদ টাকা ৫০ হাজার, ব্যাংকে জমা আছে ৫০ হাজার, ইলেকট্রনিক সামগ্রী আছে ১টিভি ১ ফ্রিজ। আসবাপত্র আছে ১ পালং,১ আলনা,১ সোকেস,২ চেযার ১ টেবিল রয়েছে। বাড়ি রয়েছে ৩০ শতক। কাউন্সিলর প্রাথী শামীম আহমদ উল্লেখ করেছেন শিক্ষাত যোগ্যতা স্বশিক্ষিত তার বিরুদ্ধে কোন মামলা নেই। পেশা কৃষি। আয় ২ লাখ ৬০ হাজার নগদ টাকা ২০ হাজার ব্যাংকে ১০ হাজার টাকা রয়েছে। ইলেকট্রনিক সামগ্রী রয়েছে ১টিভি, ১ফ্রিজ ও ৩ ফ্যান। আসবাপত্র রয়েছে ১ খাট ১০ চেয়ার ১ টেবিল।
নির্বাচনী প্রচারনা প্রসঙ্গে ৮নং ওয়ার্ডের বাসিন্দারা জানান, এ ওয়ার্ডে লড়াই হবে হাড্ডাহাড্ডি। তবে ভোটাররা এবার পরিবর্তনের আওয়াজ তুলেছেন। নির্বাচনের দিন পর্যন্ত ফলাফলের জন্য অপেক্ষা করতে হবে। ৪জনই শক্তিশালী প্রার্থী হিসেবে ভোটযুদ্ধে অবতীর্ণ হয়েছেন। সময় যত ঘনিয়ে আসছে ততই উত্তাপ বাড়ছে। এলাকার ভোটারদের ধারনা ভোটযুদ্ধে কেউ কাউকে সহজে হারাতে পারবে না। তবে বর্তমান কাউন্সিলর এবার ধরাশায়ি হতে পারেন।এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে জানা গেছে, তরুণ কাউন্সিলর প্রার্থী ছাত্রনেতা সাফরোজ ইসলাম মুন্না এবার শক্তিশালী প্রার্থী হিসেবে ভোটযুদ্ধে অবতীর্ণ হয়েছেন। এছাড়াও তারপক্ষে রয়েছে ব্যাপক প্রচারনা। ওয়ার্ডে একজন উদ্যোমী তরুণ হিসেবে সবার সাথে সুসর্ম্পক থাকায় নির্বাচনী মাঠে অনেকটা সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছে সাফরোজ।
আর বর্তমান কাউন্সিলর আবাব মিয়া ইতিমধ্যে দুইবার এ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। আর নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন ৪বার। যে কারণে তিনিও শক্তিশালী প্রার্থী থাকলেও ভোটাররা এবার পরিবর্তনের পক্ষে অবস্থান নেয়ায় তিনি বেকায়দায় পড়েছেন। প্রার্থী আকমল হোসেন গত নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধীতা করেন। এবারও মাঠে রয়েছেন। ভোটারদের সহমর্মিতা তার প্রতি রয়েছে। তরুণ রাজনৈতিক কর্মী শামীম আহমদ বলবল থেকে প্রাথী হয়েছেন। ঐক্যবদ্ধভাবে তার এলাকার ভোটাররা প্রচারনা চালাচ্ছেন। তার সম্ভাবনাকে হালকাভাবে দেখার সুযোগ নেই। নির্বাচনী মাঠের আলোচনায় তার নাম রয়েছে। এ ওয়ার্ডে মুলত ত্রিমুখি লড়াই হতে পারে। তবে পরবর্তনের পক্ষে আওয়াজ উঠেছে জোরেশোরে। নির্বাচনে অংশ নেয়া প্রসঙ্গে কাউন্সিলর প্রার্থী তরুণ রাজনৈতিককর্মী সাফরোজ উসলাম মুন্না জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, আমি পরিবর্তনের অঙ্গীকার নিয়ে ওয়ার্ডবাসীর সেবা করতে এসেছি। ওয়ার্ডের সার্বিক উন্নয়নে আমার প্রচেষ্ঠা অব্যাহত থাকবে। পানির বোতল প্রতীকে ভোটাররা স্বতঃস্ফুতভাবে সাড়া দিচ্ছেন। আশাকরি ওয়ার্ডবাসী আমাকে তাদের সেবা করার সুযোগ দিবেন। তরুণ সমাজকর্মী শামীম আহমদ বলেন, বিগতদিনে কাঙ্খিত উন্নয়ণ হয়নি। তাই আমরা ওয়ার্ডের উন্নয়নে নিজেকে নিয়োজিত করতে প্রার্থী হয়েছি। আশা করি ডালিম প্রতীকে ভোট দিয়ে ওয়ার্ডবাসী আমাকে সেই সুযোগ দিবেন।
কাউন্সিলর প্রার্থী আকমল হোসেন জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, আমি গত দুটি নির্বাচনে মাঠে রয়েছি। এবারও সুখে দুঃখে ওয়ার্ডবাসীর পাশে আছি। আশাকরি জনগন আমাকে নিরাশ করবেন না। পাঞ্জাবি প্রতীকে ভোট দিয়ে সেবা করার সুযোগ দিবে।
কাউন্সিলর প্রার্থী (বর্তমান কাউন্সিলর) আবাব মিয়া বলেন, দীর্ঘদিন জনপ্রতিনিধি থাকাবস্থায় ওয়ার্ডবাসীর উন্নয়নে কাজ করছি। অসমাপ্ত কাজগুলো সমাপ্ত করতে আবারও প্রার্থী হয়েছি। আশাকরিভোটারা আমাকে উটপাখি প্রতীকে ভোট দিবেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24