প্রকল্পের গতি আনতে মাঠ পর্যায়ে পরিদর্শনে যাচ্ছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর অনলাইন ডেস্ক ঃ
প্রকল্প বাস্তবায়নে গতি আনতে মাঠ পর্যায়ে পরিদর্শনে যাচ্ছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান। খুলনা থেকে বিভাগীয় পর্যায়ের প্রকল্প পরিদর্শন আজ বুধবার শুরু করবেন তিনি। এ বিভাগের মোট ৫৮ আঞ্চলিক ও জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পের বাস্তবায়ন পর্যায়ে সমস্যার কথা প্রকল্প পরিচালকদের কাছ থেকে শুনবেন তিনি। মাঠ পর্যায়ের পরিস্থিতি জানার পর প্রকল্পভিত্তিক সমাধানের উপায় নির্ধারণ করা হবে বলে জানিয়েছেন পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা।
কর্মকর্তারা জানান, খুলনা বিভাগে চলমান ৫৮ প্রকল্পকে পরিদর্শন কার্যক্রমের জন্য চিহ্নিত করা হয়েছে। কী ধরনের সমস্যার কারণে প্রকল্পগুলোর বাস্তবায়ন অগ্রগতি বাধাগ্রস্ত হচ্ছে তা প্রকল্প পরিচালকদের কাছ থেকে শুনবেন মন্ত্রী। এরপর প্রকল্প পরিচালকদের প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা দেবেন তিনি। সরেজমিন পরিদর্শন শেষে প্রকল্পের সব ধরনের জটিলতা দূর করতে সংশ্নিষ্ট মন্ত্রণালয়গুলোর সঙ্গেও পরে বৈঠক করবেন পরিকল্পনামন্ত্রী।
জানতে চাইলে পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান জানান, প্রকল্প বাস্তবায়নে কাজে গতি আনাই তার মূল লক্ষ্য। কেন প্রকল্প বাস্তবায়ন বিলম্ব হচ্ছে, তা মাঠ পর্যায়ে গিয়ে জানতে হবে। এ জন্য প্রথমে খুলনা বিভাগের প্রকল্পগুলো নিয়ে বসা হচ্ছে। এরপর ২৪ ফেব্রুয়ারি বৈঠক হবে সিলেট বিভাগের প্রকল্পগুলো নিয়ে।
বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগের (আইএমইডি) কর্মকর্তারা জানান, ভোমরা স্থলবন্দর সংযোগসহ সাতক্ষীরা শহর বাইপাস সড়ক নির্মাণের কাজ শুরু হয় ২০১০ সালের শেষের দিকে। ২০১৪ সালের জুনে এ কাজ শেষ হওয়ার কথা। পাঁচবার মেয়াদ বাড়িয়েও প্রকল্পের কাজ শেষ করা সম্ভব হয়নি। ভূমি অধিগ্রহণে বিলম্ব, প্রকল্পে অপ্রতুল অর্থ বরাদ্দ এবং প্রকল্প এলাকায় বছরে পাঁচ মাস পানি ডুবে থাকার কারণে প্রকল্প বাস্তবায়ন বিলম্বিত হয়। প্রকল্পের কাজ যথাসময়ে না হওয়ায় ১১৭ কোটি টাকার প্রকল্পে অতিরিক্ত ব্যয় বেড়েছে প্রায় ৬৭ কোটি টাকা।
বাস্তবায়নের বিভিন্ন সমস্যাসহ বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে (এডিপি) পর্যাপ্ত বরাদ্দ না পাওয়ার সমস্যাও রয়েছে খুলনা বিভাগে বাস্তবায়নাধীন অন্যান্য উন্নয়ন প্রকল্পে। আঞ্চলিক প্রকল্পগুলোতে প্রতি অর্থবছরে পর্যাপ্ত বরাদ্দ পাওয়া যায় না। ফলে বছর বছর মেয়াদ বাড়ে, সেই সঙ্গে ব্যয়ও বাড়ে।
আঞ্চলিক ছাড়াও এ বিভাগে জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পও বাস্তবায়ন হচ্ছে। এ বিভাগের চলমান গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পের মধ্যে রয়েছে- খুলনা থেকে মোংলা বন্দর পর্যন্ত রেলপথ নির্মাণ, বেনাপোল ও বুড়িমারী স্থলবন্দর উন্নয়নের মাধ্যমে সার্ক সংযোগ সড়ক নির্মাণ, মোংলা বন্দর চ্যানেলের আউটার বারে ড্রেজিং ও রূপসা ৮০০ মেগাওয়াট কমবাইন্ড বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন প্রকল্প।
সূত্র : সমকাল

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» আজ স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস

» চানপুর সাতহাল স.প্রা. বিদ্যালয়ে বার্ষিক ক্রীড়া,সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ

» একই পরিবারের ৫ সদস্যের ইসলাম ধর্ম গ্রহণ

» নির্বাচনী সহিংসতায় স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

» জগন্নাথপুরে টমটম উল্টে স্কুল ছাত্রসহ আহত-৫

» গণহত্যা দিবসে জগন্নাথপুরে আ,লীগের আলোচনা সভা

» জগন্নাথপুরে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে স্ট্যান্ডসহ জাতীয় পতাকা বিতরণ

» ১২ ব্যক্তি ও এক প্রতিষ্ঠানকে সর্বোচ্চ সম্মাননা স্বাধীনতা পুরস্কার প্রদান

» সিলেটে পাইপগানসহ আটক ১

» ১৩০০ যাত্রী নিয়ে সাগরে আটককে আছে প্রমোদতরী

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

প্রকল্পের গতি আনতে মাঠ পর্যায়ে পরিদর্শনে যাচ্ছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর অনলাইন ডেস্ক ঃ
প্রকল্প বাস্তবায়নে গতি আনতে মাঠ পর্যায়ে পরিদর্শনে যাচ্ছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান। খুলনা থেকে বিভাগীয় পর্যায়ের প্রকল্প পরিদর্শন আজ বুধবার শুরু করবেন তিনি। এ বিভাগের মোট ৫৮ আঞ্চলিক ও জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পের বাস্তবায়ন পর্যায়ে সমস্যার কথা প্রকল্প পরিচালকদের কাছ থেকে শুনবেন তিনি। মাঠ পর্যায়ের পরিস্থিতি জানার পর প্রকল্পভিত্তিক সমাধানের উপায় নির্ধারণ করা হবে বলে জানিয়েছেন পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা।
কর্মকর্তারা জানান, খুলনা বিভাগে চলমান ৫৮ প্রকল্পকে পরিদর্শন কার্যক্রমের জন্য চিহ্নিত করা হয়েছে। কী ধরনের সমস্যার কারণে প্রকল্পগুলোর বাস্তবায়ন অগ্রগতি বাধাগ্রস্ত হচ্ছে তা প্রকল্প পরিচালকদের কাছ থেকে শুনবেন মন্ত্রী। এরপর প্রকল্প পরিচালকদের প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা দেবেন তিনি। সরেজমিন পরিদর্শন শেষে প্রকল্পের সব ধরনের জটিলতা দূর করতে সংশ্নিষ্ট মন্ত্রণালয়গুলোর সঙ্গেও পরে বৈঠক করবেন পরিকল্পনামন্ত্রী।
জানতে চাইলে পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান জানান, প্রকল্প বাস্তবায়নে কাজে গতি আনাই তার মূল লক্ষ্য। কেন প্রকল্প বাস্তবায়ন বিলম্ব হচ্ছে, তা মাঠ পর্যায়ে গিয়ে জানতে হবে। এ জন্য প্রথমে খুলনা বিভাগের প্রকল্পগুলো নিয়ে বসা হচ্ছে। এরপর ২৪ ফেব্রুয়ারি বৈঠক হবে সিলেট বিভাগের প্রকল্পগুলো নিয়ে।
বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগের (আইএমইডি) কর্মকর্তারা জানান, ভোমরা স্থলবন্দর সংযোগসহ সাতক্ষীরা শহর বাইপাস সড়ক নির্মাণের কাজ শুরু হয় ২০১০ সালের শেষের দিকে। ২০১৪ সালের জুনে এ কাজ শেষ হওয়ার কথা। পাঁচবার মেয়াদ বাড়িয়েও প্রকল্পের কাজ শেষ করা সম্ভব হয়নি। ভূমি অধিগ্রহণে বিলম্ব, প্রকল্পে অপ্রতুল অর্থ বরাদ্দ এবং প্রকল্প এলাকায় বছরে পাঁচ মাস পানি ডুবে থাকার কারণে প্রকল্প বাস্তবায়ন বিলম্বিত হয়। প্রকল্পের কাজ যথাসময়ে না হওয়ায় ১১৭ কোটি টাকার প্রকল্পে অতিরিক্ত ব্যয় বেড়েছে প্রায় ৬৭ কোটি টাকা।
বাস্তবায়নের বিভিন্ন সমস্যাসহ বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে (এডিপি) পর্যাপ্ত বরাদ্দ না পাওয়ার সমস্যাও রয়েছে খুলনা বিভাগে বাস্তবায়নাধীন অন্যান্য উন্নয়ন প্রকল্পে। আঞ্চলিক প্রকল্পগুলোতে প্রতি অর্থবছরে পর্যাপ্ত বরাদ্দ পাওয়া যায় না। ফলে বছর বছর মেয়াদ বাড়ে, সেই সঙ্গে ব্যয়ও বাড়ে।
আঞ্চলিক ছাড়াও এ বিভাগে জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পও বাস্তবায়ন হচ্ছে। এ বিভাগের চলমান গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পের মধ্যে রয়েছে- খুলনা থেকে মোংলা বন্দর পর্যন্ত রেলপথ নির্মাণ, বেনাপোল ও বুড়িমারী স্থলবন্দর উন্নয়নের মাধ্যমে সার্ক সংযোগ সড়ক নির্মাণ, মোংলা বন্দর চ্যানেলের আউটার বারে ড্রেজিং ও রূপসা ৮০০ মেগাওয়াট কমবাইন্ড বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন প্রকল্প।
সূত্র : সমকাল

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।