মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ২০১৯, ০৫:১৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
দুই ট্রেনের মুখামুখি সংঘর্ষে নিহত ১৬ রাধারমন দত্ত এ দেশের লোক সংস্কৃতির ভান্ডার কে সমৃদ্ধ করেছেন: জেলা প্রশাসক ‘আওয়ামী লীগে দুঃসময়ের কর্মী চাই, বসন্তের কোকিল না’ জগন্নাথপুরে মূল্য তালিকা না থাকায় ভ্রাম‌্যমান আদাতের অভিযানে জরিমানা আদায় ঈদে মীলাদুন্নবী (সা:) উপলক্ষে জগন্নাথপুরে র‌্যালি ও আলোচনাসভা জগন্নাথপুরে যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত সুনামগঞ্জে নৌকাডুবিতে প্রহরীর মৃত্যু দেখে নিন যে স্থানে জন্মগ্রহণ করেছিলেন মহানবী (সা.) বাবরি মসজিদ ধ্বংসকারী সেই বলবীর সিং এখন মুসলিম! রাধারমণের মৃত্যুবার্ষিকীতে ‘ক্লোজআপ ওয়ান’র সেরা প্রতিযোগি সালমা জগন্নাথপুর আসছেন সোমবার

প্রথম আলোর গোলটেবিল বৈঠক-দুর্নীতি বন্ধ করতে না পারলে হাওরের কান্না থামবে না

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ৩০ এপ্রিল, ২০১৭
  • ১১৮ Time View

স্টাফ রিপোর্টার-
সময় মতো বাঁধ নির্মাণ না করায় অসময়ে উজান থেকে নেমে আসায় পাহাড়ি ঢলে তলিয়েছে সুনামগঞ্জের সব হাওরের ফসল। বাঁধ নির্মাণকাজে দুর্নীতি বন্ধ করতে না পারলে হাওরে কান্না থামবে না। হাওরের ফসল রক্ষার পরিকল্পনা হাওরে গিয়ে করতে হবে। নতুবা পাহাড়ি ঢলে ফসল রক্ষা বাঁধ ভেঙে ফসলহানির ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটবে প্রতি বছর।
প্রথম আলোর উদ্যোগে আজ শনিবার সুনামগঞ্জে ‘হাওরে ফসলহানি : করণীয় কী’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে এ কথা বলেছেন স্থানীয় সাংসদ, জনপ্রতিনিধি, হাওরের কৃষকসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার বিশিষ্টজন।
হাওরে বোরো চাষাবাদ শুরু সত্তরের দশক থেকে। পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) হাওরের ফসল রক্ষা প্রকল্প নামে প্রতি বছর অকালবন্যার কবল থেকে ফসল রক্ষায় নতুন বাঁধ নির্মাণ ও সংস্কার কাজ করছে। এবার হাওরে এক হাজার ৫০০ কিলোমিটার
বেড়িবাঁধের ৮৫০টি অংশ সংস্কার ও নির্মাণকাজ করে। এরমধ্যে ৫২৫টি বাঁধের অংশ ভেঙে একে একে ফসলহানি ঘটে ছোট-বড় ১৫৪টি ফসলি হাওরের।
সুনামগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তথ্য বলছে, ছোট-বড় হাওরে এবার বোরো ধানের আবাদ হয়েছিল দুই লাখ ২৩ হাজার ৮২ হেক্টর জমিতে। এক লাখ ৬৬ হাজার ৬১২ হেক্টর জমির ধান পুরোপুরি পানিতে তলিয়ে গেছে।
সুনামগঞ্জ পৌর শহরের শহীদ মুক্তিযোদ্ধা জগৎজ্যোতি পাঠাগার হলে গতকাল সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত গোলটেবিল বৈঠক হয়। শুরুতে স্বাগত বক্তব্য দেন, প্রথম আলোর যুগ্ম সম্পাদক সোহরাব হাসান। গোলটেবিল বৈঠক সঞ্চালনা করেন প্রথম আলোর উপসম্পাদক লাজ্জাত এনাব মহছি।
স্বাগত বক্তব্যে সোহরাব হাসান বলেন, ‘প্রথম আলো সংবাদপত্রের পাশাপাশি একটু বেশি দায়িত্ব পালন করে। সেই নৈতিক ও মানবিক দায়িত্ববোধ থেকে আজ হাওরের বিপন্ন মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য এই আয়োজন করেছে। আপনাদের কথা শুনতে এবং সেই কথা সবাইকে জানাতেই এ আয়োজন।’
হাওর শুধু সৌন্দর্যের স্থান নয়, হাওরের অর্থনৈতিক গুরুত্ব রয়েছে উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, ‘আজ হাওরে যে দুযোর্গ চলছে, সেই দুর্গত মানুষের পাশে সরকার দাঁড়িয়েছে কিন্তু এই দাঁড়ানোটা যথেষ্ট নয়। এই যথেষ্ট নয় কথাটি আমরা জানাতে চাই। তিনি এর সঙ্গে যোগ করেন, মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে অর্জিত এই বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। প্রথম আলো এই অগ্রযাত্রায় সহযোগী হিসেবে থাকতে চায়।’
গোলটেবিল বৈঠক সঞ্চালনার শুরুতে বক্তব্যে প্রথম আলোর উপসম্পাদক লাজ্জাত এনাব মহছি বলেন, “হাওরের এই ভয়াবহ পরিস্থিতি শুরুতে ঠিকভাবে অনুধাবন করা যায়নি। পয়লা বৈশাখ যখন আমাদের পত্রিকায় ‘হাওরে ফসলহানি : সুনামগঞ্জে আজ উৎসব নেই, আছে প্রতিবাদ’ শিরোনামে খবর ছাপা হয়। তখন বোঝা গেছে পরিস্থিতি কতটা ভয়াবহ। এই পরিস্থতি মোকাবিলায় এবং ভবিষ্যতের করণীয় সম্পর্কে দীর্ঘ মেয়াদে পরিকল্পনা নিতে হবে। এ পরিকল্পনা কী হতে পারে, হাওরবাসীই বলবেন।”
গোলটেবিল বৈঠকে সুনামগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ, সিলেট ও হবিগঞ্জ সংরক্ষিত আসনের নারী সাংসদ আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন। সুনামগঞ্জ ও হবিগঞ্জ সিলেট বিভাগের হাওর অধ্যুষিত জেলা। সুনামগঞ্জে ফসলডুবির পর হবিগঞ্জের হাওরাঞ্চলেও ফসলডুবি ঘটছে। দুই সাংসদের কথায় স্থানীয় প্রেক্ষাপট উঠে আসে। সাংসদ পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ বলেন, ‘দুটি কারণে সুনামগঞ্জে ফসলহানি ঘটেছে। একটি হচ্ছে চৈত্রমাসে অতিবৃষ্টি আর আরেকটি হলো কিছু মানুষের অতিলোভের কারণে। তাই পাউবোর প্রতি কৃষক ও মানুষের আর আস্থা নেই।’
হাওরে ফসল রক্ষা প্রকল্প বাস্তবায়ন করে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)্ এবার ফসল রক্ষা প্রকল্পে সরকারের অর্থ বরাদ্দ ছিল ৬৮কোটি ৮০লাখ টাকা। এর মধ্যে ঠিকাদারির মাধ্যমে ৪৮কোটি টাকা ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির (পিআইসি) মাধ্যমে ২০ কোটি ৮০ লাখ টাকা ব্যয়ে ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মাণের কথা ছিল। অভিযোগ রয়েছে, পাউবোর কাজ সময় মতো হয়নি, টাকাও লুটপাট হয়েছে।
ভবিষ্যতে ফসল রক্ষা বাঁধের কাজ আর পাউবোকে দিয়ে না করার আহবান জানিয়ে সাংসদ বলেন, পানি উন্নয়ন বোর্ড আামদের ফসলরক্ষায় ব্যর্থ হয়েছে। তাদের ওপর মানুষের আর কোনো আস্থা নেই। তাই তাদের দিয়ে আর বাঁধের কাজ করানো যাবে না। আগামীতে আমরা করতে দেব না। এ অবস্থায় বিকল্প খোঁজে নিতে হবে।
হাওর অধ্যুষিত জেলা সুনামগঞ্জ। হাওরের দুই প্রধান সম্পদ ধান ও মাছ। সরকারি হিসেবে জলমহাল আছে (নদী, বিল, হাওরসহ) এক হাজার ১১৯টি। ইজারা বন্দোবস্তের মাধ্যমে জলমহাল থেকে সরকারের রাজস্ব আদায়ের পাশাপাশি সুস্বাদু মাছের প্রাকৃতিক আঁধার জলমহাল। সাংসদ মিসবাহ জলমহাল প্রসঙ্গে বলেন, অনেকেই ইজারা বাতিলের কথা বলছেন। আমি এর সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করি। এখন ইজারা স্থগিত করলে তারাও ক্ষতির সম্মুখীন হবে। তাই সেটি না করে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষদের ভাসানাপানিতে মাছ ধরার সুযোগ অবারিত করতে হবে।
সাংসদ আতামুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী সিলেট ও হবিগঞ্জের হাওরের প্রেক্ষাপট তুলে ধরেন। তিনি বলেন, হাওরেরর এই দুর্যোগকে অনেকেই বলছেন মানবসৃষ্ট। আমি এর সঙ্গে যুক্ত করতে চাই, আমরা কী কখনো মার্চের শেষ দিকে এত বৃষ্টি দেখেছি। এটাও আমাদের মাথায় রাখতে হবে। জলবায়ু পরিবর্তন হয়েছে। সেটারও প্রভাব আছে। এখন হাওরকে নিয়ে আলাদাভাবে ভাবতে হবে। হাওরের মানুষকে অর্থনীতির মূল ধারায় নিয়ে আসতে হবে। হাওরে ফসল গেছে, মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, মাছ, হাঁসও মরেছে। এ অবস্থায় আমরা আশার আলোও দেখছি। হাওরে মানুষের ঘুরে দাঁড়ানোর ক্ষেত্রে সরকারের প্রেরণামূলক বিভিন্ন কর্মসূচি জোরদার হচ্ছে।
আজ রোববার প্রধানমন্ত্রীর হাওর সফরের বিষয়টি উল্লেখ করে সাংসদ কেয়া চৌধুরী বলেন, হাওরের এই পরিস্থিতিকে সরকার বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে দেখছে। মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে। রাষ্ট্রপতি এসেছেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আসছেনÑএর মানে হাওরে বিপন্ন মানুষের পাশে সরকার আছে। হাওরের মানুষের এই হাহাকারের বিষয়টি মাথায় রেখেই ভবিষ্যতের পরিকল্পনা করতে হবে। আওয়ামী লীগ সরকার কৃষকদের নিয়ে কাজ করছে। সরকার যা করছে তা মানুষকে জানাতে হবে। না হলে কাজে ফাঁকি থেকে যাবে। মানুষ সচেতন হলে, সব কিছু জানলে, নিজেরাই অনেক কিছু করতে পারবে।
হাওরে ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মাণ, অনিয়ম ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে সংবাদমাধ্যমের ভূমিকাকে অপরিসীম বলে মন্তব্য করেছেন সুনামগঞ্জের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী হুমায়ুন মনজুর চৌধুরী। তিনি বলেন, ১২টি বাঁধের কাজ শুরুই হয়নি। আমি বলব অন্য যেগুলো হয়েছে সেগুলোতেও প্রকৃত অর্থে কোনো কাজ হয়নি। স্থানীয় ভাষায় বলতে হয় উড়া উড়া মাটি ফেলা হয়েছে। আমরা দুর্নীতির বিচার চাই। আইনজীবী সমিতির পক্ষ থেকে সাধারণ সভা করে সুনামগঞ্জকে দুর্গত এলাকার ঘোষণার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি দেওয়া হয়েছে। বাঁধ নিমার্ণে অনিয়মের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে মামলা করারও প্রস্তুতি চলছে।
হাওরে এক ফসলি জমি। গৃহস্থ বছরের এই একটি ফসল ঘরে তুলে অর্থনৈতিক পরিকল্পনা করছে। জেলার প্রত্যন্ত ধরমপাশা উপজেলায় সরকরি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে প্রথম সাময়িক পরীক্ষায় ৩৩ হাজার ১৫৬ পরীক্ষার্থীর মধ্যে তিন হাজার ৫১৫ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারেনি শিক্ষার্থীরা। এ অবস্থায় হাওর এলাকায় এবার ঝড়ে পড়া শিক্ষার্থীর হার বাড়তে পারে বলে মনে করেন শিক্ষাবিদ পরিমল কান্তি দে। সুনামগঞ্জ সরকারি কলেজের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ তিনি। বক্তৃতায় পরিমল কান্তি দে বলেন, ফসলহারা মানুষ চারদিকে থেকে অসহায়। ঘরে খাবার নেই, হাতে টাকা নেই। সেই সঙ্গে রয়েছে তাদের সন্তানদের লেখাপড়ার খরচ নিয়ে চিন্তা। এবার জেলার মাধ্যমিক শিক্ষার্থীদের পুরো বছরের বেতন মওকুফ করা দরকার। সেই সঙ্গে সবাইকে উপবৃত্তি দেওয়া যেতে পারে। না হলে এসব শিক্ষার্থীদের অভিভাবকেরা তাদের অন্যকাজে লাগিয়ে দেবে।
সুনামগঞ্জে ২৭ মার্চ থেকে টানা বৃষ্টিপাত শুরু হয়। ২৯ মার্চ থেকে একে একে হাওরের ফসলহানি শুরু হয়। বাঁধ ভেঙে ফসলহানি ঘটায় পাউবোর প্রকল্প কাজ বাস্তবায়ন ও ঠিকাদারদের দুর্নীতির বিরুদ্ধে সাধারণ কৃষকদের ক্ষোভ ফুঁসে ওঠায় গঠন করা হয় সর্বদলীয় একটি মোর্চা। ‘হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলন’ এর আহবায়ক মুক্তিযোদ্ধা বজলুল মজিদ চৌধুরী বলেন, ‘অনেকেই আমাদের জিজ্ঞেস করেন আমরা হাওর বাঁচানোর কথা কেন বলছি। হাওর এখন লাইফ সাপোর্টে আছে। হাওর উন্নয়ন নিয়ে পরিকল্পনা হয়, কথা হয়, কিন্তু কাজ হয় না। প্রতি বছর হাওরের ফসল রক্ষায় বাঁধের নামে পাউবো ঠিকাদার ও পিআইসি লুটপাট করে। এবারও বাঁধ নির্মাণকাজে সীমাহীন দুর্নীতি হয়েছে। অসময়ে অতিবৃষ্টি, পাহাড়ি ঢল-এই সব বলে দুর্নীতিবাজদের দায়মুক্তি দেওয়ার চেষ্টা হচ্ছে। হাওর রক্ষার নামে দুর্নীতির বিচার চাই।’
ফসলহানির পর গত ১৬ এপ্রিল থেকে সুনামগঞ্জের হাওরে শুরু হয় আরেক দুযোর্গ। পানিদূষণ ও মাছের মৃত্যু উদ্বেগ হয়ে ছড়ায়। মৎস্য বিভাগের তথ্য বলছে, শুধু সুনামগঞ্জে ৫০ মেট্রিক টন মাছ ও দুই হাজার ৫০০ হাঁসের মৃত্যু হয়েছে। সুনামগঞ্জ পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক মলয় চক্রবর্তী বলেন, ‘পানি দূষণ নিয়েও নানা ধরনের গুজব ছড়ানোর চেষ্টা হয়েছে। প্রথম আলো সচেতনভাবে এ গুজব ছড়ানো থেকে বিরত ছিল। তবে কাঁচা ধান পচে পানিদূষণের অবস্থা মোকাবিলার পন্থা ভবিষ্যতের জন্য জনসাধারণের মাঝে একটি বার্তা থাকতে হবে। এটি জেলা প্রশাসন অথবা মৎস বিভাগের মাধ্যমে হতে হবে।’
গোলটেবিল বৈঠকে সুনামগঞ্জে ১৯৭৩ সালে দেখার হাওরের ঐতিহাসিক পা-ারখালের বাঁধ নির্মাণের অন্যতম উদ্যোক্তা প্রয়াত রাজনীতিবিদ আলফাতউদ্দিন আহমদের (মোক্তার সাহেব) ছেলে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা জগৎজ্যোতি পাঠাগারের সাধারণ সম্পাদক সালেহ আহমদ, জেলা নারী উন্নয়ন ফোরামের সভাপতি শামীমা শাহরিয়ার, সুনামগঞ্জের খবর সম্পাদক পঙ্কজ কান্তি দে, সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) সুনামগঞ্জের সম্পাদক আলী হায়দার ও জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদীর আহমদ বক্তব্য দেন। তাঁরা অভিন্ন সুরে বলেন, হাওরে ফসলহানির কান্না নতুন নয়। এ কান্নার মূলে রয়েছে কিছু মানুষের লোভ। হাওরের বাঁধ নির্মাণে দুর্নীতি বন্ধ না হাওরের কান্না থামানো যাবে না।
সুনামগঞ্জে একের পর এক হাওর যখন ডুবছিল, তখন স্বেচ্ছাশ্রমে তাহিরপুর উপজেলার শনির হাওরকে রক্ষা করা চলছিল। একটানা ২৪ দিন রক্ষার পরও শেষ রক্ষা হয়নি। শনির হাওরে স্বেচ্ছাশ্রমে বাঁধ রক্ষার কাজে নিয়োজিত জনপ্রতিনিধিদের একজন তাহিরপুর উপজেলা চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কামরুল ও জামালগঞ্জ উপজেলার বেহিলী ইউনিয়ন পরিষদের নারী ওয়ার্ড সদস্য মনেছা বেগম ও নেত্রকোনার খালিয়াজুড়ি হাওরে পাহাড়ি ঢল মোকাবিলায় কৃষকদের ‘মানবঢাল’-এ অংশ নেওয়া কৃষক অমর চাদ দাশ বক্তব্য দেন।
তাঁরা তিনজন অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরে বলেন, প্রকৃতির সঙ্গে যুদ্ধ করে হাওরের মানুষ অভ্যস্থ। হাওর উন্নয়ন পরিকল্পনায় প্রাকৃতিক দুর্যোগ চিন্তা মোকাবিলার চিন্তা থাকতে হবে। হাওরের জন্য পানি সমস্যা আবার আশীর্বাদও। পানি ধারণ করার ক্ষমতা বাড়াতে হাওরের নদ-নদী খনন করতে হবে। প্রয়োজনে নাব্যতা হারানো হাওরও খননের আওতায় আনতে হবে। গোলটেবিল বৈঠক শেষে এ তিনজনকে প্রথম আলোর পক্ষ থেকে সম্মাননা দেওয়া হয়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24