প্রাণ কেড়ে নেয় গাড়ী

আব্দুল মতিন

অামাদের স্কুল পড়ুয়া সন্তানরা রাস্তায় নেমেছে। স্কুলে যাওয়ার পথে ঘাতক চালক তাদের উপরে গাড়ী তুলে দেন । প্রাণ কেড়ে নেন তাদের । রক্তাক্ত শিশুর লাশ দেখে সহপাঠীরা কাঁদে।শিক্ষক কাঁদেন।মা- বাবা শোকে বোবা। দেশ কেঁপে উঠে। হাসেন মন্ত্রী। নিষ্ঠুর হাসি মনে হয় দেশবাসির কাছে। শিশুদের কাছে। স্তম্ভিত সবাই। গাড়ী চলার রাস্তাকে শিশুরা মনে করেন মৃত্যুর ফাঁদ। চালক কে মনে করেন ঠান্ডামাথার খুনি। তাঁদের কোন গাড়ী চালানোর অভিজ্ঞতার সনদ নেই। হেলপার থেকে উস্তাদের বদৌলতে চালক। রাষ্ট্র নিয়ন্ত্রিত প্রশাসনের সামনে তারা মানুষ হত্যা করেন। তাঁদের কিছু হয়না। তাঁদের শ্রমিক সংগঠন অাছে। দেশ অচল করে দেওয়ার চাবি তাদের হাতে। মন্ত্রীর সন্তান থাকলেও পথে স্কুল পড়ুয়া সন্তানতো অার উনার সন্তান নয়! শ্রমিকরা ভোটের জন্য, কামাইয়ের জন্য বরপুত্র। বড়রা শুধু মুখে অন্যায় বলে; ভুলে যান। অাবার দূর্ঘটনায় কোন মায়ের কোল খালি। কেউ কথা বলেননা। না দেখার ভান করেন । স্কুলে জাতীয় সংগীতের সুর শিশুদের মনে ধাক্কা দেয়,’ মা তোর বদন খানি মলিন হলে অামি নয়ন জলে ভাসি’। ইতোমধ্যে অাবার কোন সোনা মনির লাশ। অপরাধ তার এ রাস্তা দিয়ে স্কুলে যাবে কেন? বিকল্প রাস্তা ও শিশুদের জানা নেই।শিশুরা ফুঁসে উঠার প্রতিজ্ঞা করে। রাস্তায় শুয়ে প্রতিবাদ করতে শুরু করে। সরকার কে, প্রশাসন কী এসব তাঁদের মাথায় ঢুকেনা। তারা হয়ে উঠে ‘ওরা এগার জন’। দীপু নান্বার টু। সুন্দর পরিকল্পনা তাদের মাথায় খেলা করে। তারা ট্রাফিক পুলিশ হয়ে উঠে।
যে চালকরা গাড়ী চালান তাঁদের ড্রাইভিং লাইসেন্স পরীক্ষায় রাস্তায় দাঁড়ায়। গাড়ীর ড্রাইভারকে লাইসেন্স দেখাতে অনুরোধ করে।যারা দেখাতে ব্যর্থ তারা অন্যায় ভাবে মানুষ মারে। শিশুদের মাথায় প্রতিশোধ জেগে উঠে। তাদের সহপাঠীর রক্তাক্ত,বিবর্ষ লাশ চোখে ভাসে। তবে তারা ড্রাইভার কে মারেনা। গাড়ীকে শাস্তি দেয়। ভাংচুর করে। এটা অন্যায় তা তাদের চিন্তা করার সময় নেই হাতে। কোন না কোন সন্তানের বাবা চাকুরী করেন পুলিশে,প্রশাসনে। সরকারের হুকুম মানতে বাধ্য। রাস্তায় গন্ডগোল বরদাশত করা ঠিক নয়। হাতে লাঠি দিয়ে অাঘাত করেন স্কুলগামী বদলে যাওয়া ভয়ানক ভাংচুরকারী শিশু ট্রাফিক পুলিশ কে।
অাহত হয়ে ফিনকি দিয়ে রক্ত বের হয়। শিশুর রক্ত রাজপথে। সাদা পোশাকে। সাদা একজোড়া রক্তাক্ত জুতা । শুধু অামাদের বিবেকের মন রক্তাক্ত হয়না?
অাগামী দিনের ভবিষ্যৎ শিশুরা এইটুকু বয়সে ক্লান্ত রাষ্ট্রের দায়িত্বের গাফলতিতে রুখে দাঁড়ায়। অামাদের অন্ধ চোখে রক্তাক্ত অাঙুল দিয়ে দেখিয়ে দেয়, অন্যায় ভাবে প্রাণ কেড়ে নেয় গাড়ী; যদি ফিরে না অাসি বাড়ী কেমন হবে বলো?

লেখক: অধ্যক্ষ, শাহজালাল মহাবিদ্যালয়, জগন্নাথপুর,সুনামগঞ্জ ও সুনামগঞ্জ জেলার শ্রেষ্ঠ অধ্যক্ষ ২০১৭।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» সুনামগঞ্জে বিএনপি নেতাকর্মীর গণপদত্যাগ

» জগন্নাথপুরে অতিরিক্ত মূল্যে বোরো ধানের বীজ বিক্রির অভিযোগ

» সুনামগঞ্জ-৩ আসনে মনোনয়ন সংগ্রহ করলেন বিএনপির তিন নেতা

» সিলেটে বাড়ছে যানবাহনের চাপ, বাড়ছে না সড়ক

» জগন্নাথপুরে মাসিক আইনশৃঙ্খলা সভা অনুষ্ঠিত

» অটোরিকশার চাকায় ওড়না পেচিয়ে নারীর মৃত্যু

» ঐক্য ধরে রেখে সামনে এগিয়ে যাওয়ার আহ্বান খালেদা জিয়ার

» দ্বিতীয় দিন শেষে চালকের আসনে বাংলাদেশ

» জগন্নাথপুরে ডাকাতি মামলার সাজাপ্রাপ্ত আসামীসহ গ্রেফতার-৬

» স্পিডবোটডুবির ঘটনায় নবদম্পতিসহ তিন যাত্রীর লাশ উদ্ধার

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

প্রাণ কেড়ে নেয় গাড়ী

আব্দুল মতিন

অামাদের স্কুল পড়ুয়া সন্তানরা রাস্তায় নেমেছে। স্কুলে যাওয়ার পথে ঘাতক চালক তাদের উপরে গাড়ী তুলে দেন । প্রাণ কেড়ে নেন তাদের । রক্তাক্ত শিশুর লাশ দেখে সহপাঠীরা কাঁদে।শিক্ষক কাঁদেন।মা- বাবা শোকে বোবা। দেশ কেঁপে উঠে। হাসেন মন্ত্রী। নিষ্ঠুর হাসি মনে হয় দেশবাসির কাছে। শিশুদের কাছে। স্তম্ভিত সবাই। গাড়ী চলার রাস্তাকে শিশুরা মনে করেন মৃত্যুর ফাঁদ। চালক কে মনে করেন ঠান্ডামাথার খুনি। তাঁদের কোন গাড়ী চালানোর অভিজ্ঞতার সনদ নেই। হেলপার থেকে উস্তাদের বদৌলতে চালক। রাষ্ট্র নিয়ন্ত্রিত প্রশাসনের সামনে তারা মানুষ হত্যা করেন। তাঁদের কিছু হয়না। তাঁদের শ্রমিক সংগঠন অাছে। দেশ অচল করে দেওয়ার চাবি তাদের হাতে। মন্ত্রীর সন্তান থাকলেও পথে স্কুল পড়ুয়া সন্তানতো অার উনার সন্তান নয়! শ্রমিকরা ভোটের জন্য, কামাইয়ের জন্য বরপুত্র। বড়রা শুধু মুখে অন্যায় বলে; ভুলে যান। অাবার দূর্ঘটনায় কোন মায়ের কোল খালি। কেউ কথা বলেননা। না দেখার ভান করেন । স্কুলে জাতীয় সংগীতের সুর শিশুদের মনে ধাক্কা দেয়,’ মা তোর বদন খানি মলিন হলে অামি নয়ন জলে ভাসি’। ইতোমধ্যে অাবার কোন সোনা মনির লাশ। অপরাধ তার এ রাস্তা দিয়ে স্কুলে যাবে কেন? বিকল্প রাস্তা ও শিশুদের জানা নেই।শিশুরা ফুঁসে উঠার প্রতিজ্ঞা করে। রাস্তায় শুয়ে প্রতিবাদ করতে শুরু করে। সরকার কে, প্রশাসন কী এসব তাঁদের মাথায় ঢুকেনা। তারা হয়ে উঠে ‘ওরা এগার জন’। দীপু নান্বার টু। সুন্দর পরিকল্পনা তাদের মাথায় খেলা করে। তারা ট্রাফিক পুলিশ হয়ে উঠে।
যে চালকরা গাড়ী চালান তাঁদের ড্রাইভিং লাইসেন্স পরীক্ষায় রাস্তায় দাঁড়ায়। গাড়ীর ড্রাইভারকে লাইসেন্স দেখাতে অনুরোধ করে।যারা দেখাতে ব্যর্থ তারা অন্যায় ভাবে মানুষ মারে। শিশুদের মাথায় প্রতিশোধ জেগে উঠে। তাদের সহপাঠীর রক্তাক্ত,বিবর্ষ লাশ চোখে ভাসে। তবে তারা ড্রাইভার কে মারেনা। গাড়ীকে শাস্তি দেয়। ভাংচুর করে। এটা অন্যায় তা তাদের চিন্তা করার সময় নেই হাতে। কোন না কোন সন্তানের বাবা চাকুরী করেন পুলিশে,প্রশাসনে। সরকারের হুকুম মানতে বাধ্য। রাস্তায় গন্ডগোল বরদাশত করা ঠিক নয়। হাতে লাঠি দিয়ে অাঘাত করেন স্কুলগামী বদলে যাওয়া ভয়ানক ভাংচুরকারী শিশু ট্রাফিক পুলিশ কে।
অাহত হয়ে ফিনকি দিয়ে রক্ত বের হয়। শিশুর রক্ত রাজপথে। সাদা পোশাকে। সাদা একজোড়া রক্তাক্ত জুতা । শুধু অামাদের বিবেকের মন রক্তাক্ত হয়না?
অাগামী দিনের ভবিষ্যৎ শিশুরা এইটুকু বয়সে ক্লান্ত রাষ্ট্রের দায়িত্বের গাফলতিতে রুখে দাঁড়ায়। অামাদের অন্ধ চোখে রক্তাক্ত অাঙুল দিয়ে দেখিয়ে দেয়, অন্যায় ভাবে প্রাণ কেড়ে নেয় গাড়ী; যদি ফিরে না অাসি বাড়ী কেমন হবে বলো?

লেখক: অধ্যক্ষ, শাহজালাল মহাবিদ্যালয়, জগন্নাথপুর,সুনামগঞ্জ ও সুনামগঞ্জ জেলার শ্রেষ্ঠ অধ্যক্ষ ২০১৭।

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।