ফসলরক্ষা বাঁধের উপর ঘাস ও গাছ লাগাতে হবে -পানিসম্পদ সচিব

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::
সুনামগঞ্জে বোরো ফসলরক্ষা বাঁধ নির্মাণ, বাস্তবায়ন ও তদারকি এবং জেলা পানি ব্যবস্থাপনা কমিটির সাথে ভিডিও কনফারেন্সে কথা বলেছেন, পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব আনোয়ার বিন কবির।
পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব মন্ত্রণালয় থেকে ভিডিও কনফারেন্সে সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল আহাদের সাথে কথা বলেন।
মঙ্গলবার বিকাল সোয়া ৪ টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে ভিডিও কনফারেন্স অনুষ্ঠিত হয়।
ভিডিও কনফারেন্সে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ বলেন,‘ সুনামগঞ্জে ৫৬৫ টি প্রকল্প বাস্তবায়ন হচ্ছে। মঙ্গলবার পর্যন্ত ৬৮ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। পিআইসিদের ৪৬ কোটি ৭১ লাখ টাকা বরাদ্দ প্রদান করা হয়েছে। জেলার ১১ উপজেলায় বাঁধের কাজ মনিটরিং করতে ৩১৯ জন কর্মকর্তা দায়িত্ব পালন করছেন। দ্রুত গতিতে বাঁধের বাজ এগিয়ে চলছে। পিআইসিদের বাঁধে সঠিকভাবে স্লোপ ও মাটি কমপেকশন করতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। জেলা ও উপজেলা কমিটি প্রতিদিনই বিভিন্ন এলাকায় বাঁধ পরিদর্শন করছেন। ’
পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব আনেয়ার বিন কবির বলেন,‘ দ্রুত বাঁধ নির্মাণ কাজ শেষ করতে হবে। বাঁধে ঘাস ও গাছ লাগাতে হবে, তাহলে বাঁধ টেকসই হবে। কারণ প্রতি বছরই এত বাঁধ নির্মাণ করা সম্ভব হবে না। বাঁধের উপর ঘাস ও গাছ লাগালে বাঁধের মাটি থাকবে এবং নতুন করে বাঁধ নির্মাণ কাজ কমে আসবে।’
তিনি আরও বলেন,‘হাওরে বাঁধ নির্মাণ ও বালি-পাথর উত্তোলনে বিশেষ নজরদারী রাখতে হবে। পরিবেশ ধ্বংসের সাথে জড়িতরা যত প্রভাবশালীই হোকনা কেন তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে। এতে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয় সব ধরনের সহযোগিতা করবে। হাওরের জীব বৈচিত্র রক্ষা করতে হবে। হাওরের জীব বৈচিত্র নষ্ট করে কোন কাজ করা যাবে না। হাওরের পানি নিস্কাশনের জন্য প্রতিটি হাওরে কজওয়ে নির্মাণের পরিকল্পনা হাতে নেয়া হয়েছে।’
ভিডিও কনফারেন্সে উপস্থিত ছিলেন, জেলা স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ পরিচালক মো. এমরান হোসেন, পানি উন্নয়ন বোর্ডের পওর শাখা-১ এর নির্বাহী প্রকৌশলী আবু বকর সিদ্দিক ভূঁইয়া, ২ এর নির্বাহী প্রকৌশলী খুশি মোহন সরকার, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. শরিফুল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) প্রদীপ সিংহ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হায়াতুন নবী, সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা ইয়াসমিন নাহার রুমা, বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার সমীর বিশ্বাস, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাফী উল্লাহ তপন, জেলা কমিটির সদস্য মুক্তিযোদ্ধা মালেক হোসেন পীর, নুরুর রব চৌধুরী, দৈনিক আমাদেরসময়ের জেলা প্রতিনিধি বিন্দু তালুকদার প্রমুখ।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» আসসালামু আলাইকুম বলে পার্লামেন্টে বক্তব্য দিলেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী

» সুনামগঞ্জে ছুরিকাঘাতে আ.লীগ নেতা খুন, আটক-৩

» আ.লীগের দু’পক্ষের গোলগুলি, নিহত ২

» ওসির বিরুদ্ধে ৫ লাখ টাকা ঘুষ দাবী’র অভিয়োগ আ.লীগ প্রার্থীর

» জগন্নাথপুরে ছাত্রলীগের উদ্যোগে যুক্তরাজ্য আ.লীগ নেতাকে সংবর্ধনা

» বালাগঞ্জে নৌকার প্রার্থী মফুর নির্বাচিত

» নেদারল্যান্ডসে যাত্রীবাহী ট্রামে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ১

» রাঙ্গামাটিতে সন্ত্রাসীদের ব্রাশফায়ারে প্রিজাইডিং কর্মকর্তাসহ নিহত ৫

» জগন্নাথপুরে ‘বাঁধা’ দেয়ায় হাওরের সড়কের কাজ বন্ধ

» জগন্নাথপুরে সড়ক থেকে মাইক্রোবাস দোকানে, আহত ৩

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

ফসলরক্ষা বাঁধের উপর ঘাস ও গাছ লাগাতে হবে -পানিসম্পদ সচিব

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::
সুনামগঞ্জে বোরো ফসলরক্ষা বাঁধ নির্মাণ, বাস্তবায়ন ও তদারকি এবং জেলা পানি ব্যবস্থাপনা কমিটির সাথে ভিডিও কনফারেন্সে কথা বলেছেন, পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব আনোয়ার বিন কবির।
পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব মন্ত্রণালয় থেকে ভিডিও কনফারেন্সে সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল আহাদের সাথে কথা বলেন।
মঙ্গলবার বিকাল সোয়া ৪ টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে ভিডিও কনফারেন্স অনুষ্ঠিত হয়।
ভিডিও কনফারেন্সে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ বলেন,‘ সুনামগঞ্জে ৫৬৫ টি প্রকল্প বাস্তবায়ন হচ্ছে। মঙ্গলবার পর্যন্ত ৬৮ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। পিআইসিদের ৪৬ কোটি ৭১ লাখ টাকা বরাদ্দ প্রদান করা হয়েছে। জেলার ১১ উপজেলায় বাঁধের কাজ মনিটরিং করতে ৩১৯ জন কর্মকর্তা দায়িত্ব পালন করছেন। দ্রুত গতিতে বাঁধের বাজ এগিয়ে চলছে। পিআইসিদের বাঁধে সঠিকভাবে স্লোপ ও মাটি কমপেকশন করতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। জেলা ও উপজেলা কমিটি প্রতিদিনই বিভিন্ন এলাকায় বাঁধ পরিদর্শন করছেন। ’
পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব আনেয়ার বিন কবির বলেন,‘ দ্রুত বাঁধ নির্মাণ কাজ শেষ করতে হবে। বাঁধে ঘাস ও গাছ লাগাতে হবে, তাহলে বাঁধ টেকসই হবে। কারণ প্রতি বছরই এত বাঁধ নির্মাণ করা সম্ভব হবে না। বাঁধের উপর ঘাস ও গাছ লাগালে বাঁধের মাটি থাকবে এবং নতুন করে বাঁধ নির্মাণ কাজ কমে আসবে।’
তিনি আরও বলেন,‘হাওরে বাঁধ নির্মাণ ও বালি-পাথর উত্তোলনে বিশেষ নজরদারী রাখতে হবে। পরিবেশ ধ্বংসের সাথে জড়িতরা যত প্রভাবশালীই হোকনা কেন তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে। এতে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয় সব ধরনের সহযোগিতা করবে। হাওরের জীব বৈচিত্র রক্ষা করতে হবে। হাওরের জীব বৈচিত্র নষ্ট করে কোন কাজ করা যাবে না। হাওরের পানি নিস্কাশনের জন্য প্রতিটি হাওরে কজওয়ে নির্মাণের পরিকল্পনা হাতে নেয়া হয়েছে।’
ভিডিও কনফারেন্সে উপস্থিত ছিলেন, জেলা স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ পরিচালক মো. এমরান হোসেন, পানি উন্নয়ন বোর্ডের পওর শাখা-১ এর নির্বাহী প্রকৌশলী আবু বকর সিদ্দিক ভূঁইয়া, ২ এর নির্বাহী প্রকৌশলী খুশি মোহন সরকার, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. শরিফুল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) প্রদীপ সিংহ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হায়াতুন নবী, সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা ইয়াসমিন নাহার রুমা, বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার সমীর বিশ্বাস, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাফী উল্লাহ তপন, জেলা কমিটির সদস্য মুক্তিযোদ্ধা মালেক হোসেন পীর, নুরুর রব চৌধুরী, দৈনিক আমাদেরসময়ের জেলা প্রতিনিধি বিন্দু তালুকদার প্রমুখ।

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।