শুক্রবার, ২২ নভেম্বর ২০১৯, ০৫:১১ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
তাহিরপুরকে হারিয়ে বিজয়ী জগন্নাথপুর,ম‌্যাচ সেরা অলি বাস-মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ৭ জগন্নাথপুরের রসুলপুর আর্দশ ক্রিকেট ক্লাবের জার্সি উম্মোচন শাহারপাড়ায় মেডিকেল সেন্টার উদ্ধোধন ও মেডিকেল ক্যাম্প অনুষ্ঠিত এম এ মান্নান প্রাথমিক মেধাবৃত্তি পরীক্ষা ২৯ নভেম্বর ‘মার্টিন স্বপ্নে ইসলামের কোনো এক নবীর কথা বারবার উচ্চারণ করছিল’ জগন্নাথপুরের নয়াবন্দর-শংকপুর সড়ক উদ্বোধন করলেন পরিকল্পনামন্ত্রী জগন্নাথপুরে পরিকল্পনামন্ত্রী-ক্ষমতায় আসতে না পেরে একটি মহল গুজব ছড়াচ্ছে মিরপুর ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান শেরীন শপথ নেবেন ২৫ নভেম্বর দক্ষিণ সুরমার একাধিক মামলার আসামি গ্রেফতার

বঙ্গবন্ধুর সান্নিধ্যে ধন্য একজন সিদ্দেক আলী তালুকদারের মুক্তিযুদ্ধের গল্পগাঁথা

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৬
  • ৬৫ Time View

আবুল মোহাম্মদ ওসমানী নগর থেকে::

বাঙালি জাতির অভিসংবাদিত নেতা জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সান্নিধ্য পাওয়া একজন সিদ্দেক আলীর একাত্তরের গল্পগাঁথা আমাদের অভিভুত করেছে। তিনি ওসমানীনগরের ওমরপুর গ্রামের মরহুম হাজী হোসেন আলী তালুকদার ও মরহুমা ছুরত বিবির সন্তান। তিনি ১৯৫২ সালের ১৫ জুলাই ওমরপুরে জন্ম গ্রহণ করেন। বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে নিজেকে মুক্তিযুদ্ধে সম্পৃক্ত করেছিলেন নির্ভয়ে অস্ত্র হাতে শত্র“দের মোকাবেলায় গর্জে উঠেছিলেন তিনি। মহান বিজয়ের মাসে তিনি ১৯৬৮, ১৯৬৯, ১৯৭০ ও ১৯৭১ সালের কিছু স্মৃতিচারণ করে অনেক অজানা বিষয় আমাদেরকে জানিয়ে দিলেন। সিদ্দেক আলী তালুকদার বঙ্গবন্ধু ও তাঁর সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি অবিচল শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেন, বঙ্গবন্ধু কত বড় মনের মানুষ ছিলেন এবং সাধারণ মানুষের প্রতি তাঁর অসাধারণ মমত্ববোধ যে কত গভীর ছিলো তা তিনি উপলব্দি করেছেন তাঁর পাশে থেকেই। তিনি নিজেকে সৌভাগ্যবান উল্লেখ করে বলেন, ১৯৬৮ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান লন্ডনে গিয়েছিলেন। এ সময় তাঁর উপর আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা চলছিল। লন্ডনে গিয়ে তিনি ভিক্টোরিয়া এলাকার শিমলা রেস্টুরেন্টে বসতেন ও প্রবাসী নেতাকর্মীসহ অনেকই বঙ্গবন্ধুর সাথে দেখা করতে যেতেন। সে রেস্টুরেন্টের একজন কর্মী ছিলেন সিদ্দেক আলী তালুকদার। তিনি তার অন্যান্য সহকর্মীদের নিয়ে বঙ্গবন্ধু ও অতিথিদের আপ্যায়নের কাজ করার সৌভাগ্য অর্জন করেছিলেন। সেই সময় তিনি দেখেছেন, মহান নেতা বঙ্গবন্ধু হোটেলের কর্মচারী বেয়ারাসহ সাধারণ মানুষদের তিনি কতটুকু স্নেহ করতেন। তিনি মাথায় হাত বুলিয়ে দিয়ে সুন্দর ভবিষ্যতের দিকে এগিয়ে যাওয়ার প্রেরণা দিয়েছেন এসব মানুষদের। তিনি যে কত বড় মনের মানুষ বা মহামানব তা ভাষায় প্রকাশ করা সম্ভব নয়। তিনি বলেন, ১৯৬৫ সালে জীবিকার তাগিদে যুক্তরাজ্যে যাত্রা করেছিলেন। ১৯৭০ সালের জাতীয় নির্বাচনের পূর্বেই তিনি লন্ডন থেকে দেশে আসেন। দেশে ফিরে বঙ্গবন্ধুর নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নিয়ে ভোট গ্রহণের দিন মহিলাদের ভোট কেন্দ্রে নিয়ে যেতে সহযোগিতা করেছেন।

১৯৭১ সালের যুদ্ধ শুরুর দিকে তিনি প্রাথমিক চিকিৎসা বিষয়ে অভিজ্ঞতা অর্জন করেন। একদিন বিকেলে তাদের বাড়িতে দুইজন লোক এসে বলেন, সাদিপুরে কাঁদাপানিতে ভরপুর একটি ব্যাংকারে ক্ষুধার্থ অবস্থায় রয়েছেন মুক্তিযোদ্ধারা। সেই সংবাদ পেয়ে তিনি তার মা ছুরত বিবিকে বিষয়টি জানালেন। মা তখন সাথে সাথে বাড়িতে থাকা একটি মুরগি ধরে মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য খাবার তৈরি করে দিলেন। খাবার নিয়ে প্রতিবেশি আবদুল মুমিনকে সঙ্গী করে সন্ধ্যার দিকে সাদিপুরের উদ্দেশ্যে পায়ে হেটে রওনা হলেন সিদ্দেক আলী তালুকদার। তিনি সেখানে গিয়ে দেখলেন মুক্তিযোদ্ধাদের পরনে শুধু লুঙ্গিছাড়া আর কিছু নেই। কাঁদামাটিতে তাদের শরীর আচ্ছন্ন। তাদের ব্যাংকার কাঁদাপানিতে বিপর্যস্থ। খাবার নিয়ে সামনে যেতেই খুশিতে আত্মহারা হয়ে মুক্তিযোদ্ধারা খাবার গ্রহণ করে তৃপ্তি পেলেন। এরপর তিনি ফিরে আসার সময় কয়েকজন রাজাকার সাদিপুর ফেরিঘাটে তাকে পেয়ে জিজ্ঞেস করে, কোথায় গিয়েছিলেন। তিনি খাবার নিয়ে আত্মীয়ের বাড়িতে গিয়েছিলেন বলে তাদের জানান। এ অবস্থায় তাকে রাজাকারা ফেরী টানার কাজে যোগ দিতে বলেন। তখনকার সময় দড়ি দিয়ে জোড় নৌকা টেনে নদীর এপার ওপারে আসা-যাওয়া করা হতো। একদিন মা বলেন, তিনি জানতে পেরেছেন, পাক-হানাদার ও রাজাকারদের লিষ্টে সিদ্দেক আলী তালুকদারের নাম রয়েছে। যে কারণে তাকে সতর্কভাবে চলাফেরা করা প্রয়োজন। তখন তার বাবা তাকে লন্ডন চলে যাওয়ার কথা বললেন। এ সময় তিনি যুদ্ধের ট্রেনিং নিতে সুনাগঞ্জের বল্লাঘাটের টেকের হাট দিয়ে ভারতে চলে যান। সেখানে ৫নং সেক্টর কমান্ডার কেবি চৌধুরীর অধীনে থেকে ৩ মাস বন্দুক চালানোর ট্রেনিংয়ে অংশগ্রহণ করেন। মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেওয়াকালীন সময়ে মুক্তিযোদ্ধাদের অর্থনৈতিক সমস্যাসহ অন্যান্য সমস্যার সমাধান করা জরুরি হয়ে পড়ে। এ অবস্থায় সহযোদ্ধারা সিদ্দেক আলী তালুকদারকে লন্ডন গিয়ে যুদ্ধের জন্য টাকা পয়সা সংগ্রহের কাজে যোগ দেওয়ার পরামর্শ দেন। সে অনুযায়ী তিনি ভারত থেকে লন্ডন চলে যান। ৭১’র মুক্তিযুদ্ধের সময় লন্ডনে সেভ দ্যা বাংলাদেশ নামে একটি ফান্ড পরিচালনা করতেন আবু সাঈদ চৌধুরী। তিনি তাদের সাথে যোগ দেন এবং তার কাজকর্ম থেকে উপার্জিত অর্থের অর্ধেকাংশ সেই ফান্ডে জমা দিতেন। এভাবে অন্যান্যরাও সহযোগিতা করতেন। তখন সেখানে বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলনের বিষয়টি জরুরি হয়ে পড়ে। সেখানে বাংলাদেশের হাইকমিশন অফিস করার জন্য নাটিংহিল গেইটে একটি ঘরের আঙ্গিনায় বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। দেশ স্বাধীনের পর যখন বিভিন্ন রাষ্ট্র বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দিয়ে যাচ্ছিল, তখন যুক্তরাষ্ট্র ছিলো নীরব। তাই যুক্তরাজ্যে অবস্থিত যুক্তরাজ্য হাইকমিশনারের সামনে প্রায় ১৫জন বাঙালি স্বীকৃতির দাবিতে অনশন কর্মসূচি পালন করেন। সেই অনশনে তিনিও অংশ নিয়েছিলেন। সপ্তাহখানেক অনশন করার পর দূতাবাসের একজন উর্ধ্বতন কর্মকর্তা এসে অনশনরত বাংলাদেশীদেরকে বলেন, যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশকে শীঘ্রই আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি জানাবে। সেই আশ্বাসের প্রেক্ষিতে তারা অনশন ভঙ্গ করেন। সিদ্দেক আলী তালুকদার বলেন, বঙ্গবন্ধু লন্ডনের ভিক্টোরিয়া এলাকায় অবস্থিত মৌলভীবাজারের ছানাওয়ার মিয়ার (মিনহাজ উদ্দিন) শিমলা রেস্টুরেন্টে যাতায়ত করতেন। সেই রেস্টুরেন্টের আপ্যায়নে মুগ্ধ ছিলেন তিনি। তাই তৎকালীন সময়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতি রেস্টুরেস্টের মালিকপক্ষ যে শ্রদ্ধা ভালোবাসা ও সম্মান প্রদর্শন করেছেন, সে জন্য তাদেরকেও সম্মান জানানো উচিত। তিনি জাতির জনকের সুযোগ্য তনয়া জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের প্রতি এ সব কৃতজ্ঞ মানুষের প্রতি যথাযথ সম্মান প্রদর্শনের জন্য অনুরোধ জানান। তিনি আরো দাবি জানান, যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশের প্রথম হাইকমিশন অফিসের স্থানে একটি ঐতিহাসিক স্মৃতি স্তম্ভ যেন প্রতিষ্ঠা করা হয়। সর্বোপরি আমরা মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী দেশপ্রেমিক ব্যক্তিত্ব সিদ্দেক আলী তালুকদারকেও রাষ্ট্রীয়ভাবে একটি স্বীকৃতি যেন দেওয়া হয়, সেই প্রত্যাশাও রাখছি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24