শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ০২:২৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
সুদখোরদের ধরতে জেলা ও উপজেলায় মাঠে নামছে প্রশাসন জগন্নাথপুরে হাওরের জরিপ কাজ শেষ, কাজের তুলনায় বরাদ্দ কম, প্রকল্প কমিটি হয়নি একটিও জগন্নাথপুরে ডিজিটাল বাংলাদেশ উপলক্ষ্যে র‌্যালি, চিত্রাঙ্কন ও কুইজ প্রতিযোগিদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ জগন্নাথপুরে শিশু সাব্বির হত্যার ঘটনার গ্রেফতার-১ এনটিভি ইউরোপের জগন্নাথপুর প্রতিনিধি নিয়োগ পেলেন আব্দুল হাই আইসিটি লানিং প্রশিক্ষণে থাইল্যান্ড যাচ্ছেন পরিচালক প্রতাপ চৌধুরী ওয়াজ মাহফিল যেন কারো কষ্টের কারণ না হয় জগন্নাথপুরে সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি গ্রেফতার বাসুদেব মন্দিরে শ্রী অদ্বৈত গীতা সংঘের উদ্যাগে অষ্টপ্রহর ব্যাপী নাম সংকীর্তন শুরু এক সপ্তাহে জগন্নাথপুরের চার যুবকের মৃত্যুতে উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা

বাংলাদেশের অগ্রযাত্রায় শেখ হাসিনার বিকল্প নেই-লন্ডনে সৈয়দ আশরাফ

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৩ অক্টোবর, ২০১৫
  • ১৯৪ Time View

।আমিনুল হক ওয়েছ লন্ডন থেকে:;আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে কোন বিতর্ক নয়। গণতন্ত্রের স্বার্থে বাংলাদেশের সকল রাজনৈতিক দলকে ন্যূনতম জাতীয় ঐক্যে এসে পৌঁছতে হবে।
রোববার লন্ডনের ওয়াটার লিলি হলে যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের এক জনসভায় এমন দাবি করেন যুক্তরাজ্য সফররত সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম।
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তার বক্তব্যে বলেন, জাতির জনকের ৪০ তম শাহদাতবার্ষিকীর ৪০ দিনব্যাপী কর্মসূচিতে আমি প্রতিদিন মানুষের যে স্বপ্রণোদিত অংশগ্রহণ দেখেছি; তা বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে বিতর্কের অবসানে ভূমিকা রাখবে। এই ভালোবাসা-শ্রদ্ধা বঙ্গবন্ধু নিজেই অর্জন করেছেন।
১৯৭৫ সালের বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর লন্ডন শহরে অনেককে দেখেছি আনন্দ করতে, বঙ্গবন্ধুর কুশপুত্তলিকা দাহ করতে। নেতৃত্ব চিরস্থায়ী কিছু নয়, সরকার আসবে সরকার যাবে, কিন্তু বঙ্গবন্ধু তার আপন মহিমায় ঠিকে আছেন।
বাংলাদেশের অগ্রযাত্রায় শেখ হাসিনার বিকল্প নেই। আগামী ৪০ বছরের পরিকল্পনা নিয়ে অগ্রসর হচ্ছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশ উন্নত দেশে পরিণত হবে, আর সেটা শুধু বঙ্গবন্ধুর কন্যার পক্ষেই সম্ভব। তাই আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীদের যার যার নিজেদের অবস্থান থেকে সেই অগ্রযাত্রায় অংশ নিতে হবে।
গণতন্ত্রের স্বার্থে জাতীয় ঐক্যের কথা বললেন সৈয়দ আশরাফ উল্লেখ্য প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সঙ্গে জনসভার আয়োজন হয়েছিল। যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সভাপতি সুলতান মোহাম্মদ শরীফ এর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ সাজিদুর রহমান ফারুকের পরিচালনায় যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীদের পাশাপাশি সভায় অন্যান্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্যবিষয়ক সম্পাদক বদিউজ্জামান ডাবলু, ব্যারিস্টার তানিয়া আমির, ব্রিটেনে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাই কমিশনার আব্দুল মান্নান।
সভা শুরুতে যুক্তরাজ্য ছাত্রলীগ ও যুবলীগ নেতাদের বক্তব্য দেয়ার দাবিতে হৈচৈ শুরু হলে কোন নেতাদের সুযোগ না দিয়ে শুধু সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের বক্তব্যের মধ্যদিয়েই শেষ হয়ে যায় যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের বহুকাঙ্ক্ষিত জনসভা।
বক্তব্যে নেতাকর্মীদের উদ্দ্যেশ্যে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ উপমহাদেশের একটি পরিপক্ষ দল। ছাত্রলীগের ও ৫০ বছেরর রাজনীতির ইতিহাস রয়েছে। আপনার আমার বয়স যাই হোক আমাদের প্রমাণ করতে হবে রাজনীতিতে আমরা সাবালক হয়েছি।

সভায় সভাপতিত্ব করেন, বঙ্গবন্ধু সেন্টারের পরিচালক ও যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী। বিশিষ্ট সাংবাদিক বুলবুল হাসানের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত এই আয়োজনে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অমর একুশে গানের রচয়িতা সাংবাদিক ও কলামিস্ট আব্দুল গাফফার চৌধুরী, প্রফেসর লরেন্স ওয়েটসন, লন্ডনে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার মোহাম্মদ আব্দুল হান্নান ও যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সভাপতি সুলতান মাহমুদ শরীফ।

‘ধন ধান্যে পুষ্পে ভরা’ গানের তালে তালে উদীচী’র শিশু শিল্পীদের নৃত্য পরিবেশনের মাধ্যমে শুরু হওয়া অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য লাখেন বইমেলার অন্যতম উদ্যোক্তা প্রশান্ত বড়ুয়া। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ব্যারিস্টার তানিয়া আমির, যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর সভাপতি আলহাজ্ব শামসুদ্দিন খান, সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ ফারুক ও যুগ্ম সম্পাদক নঈমুদ্দিন রিয়াজ প্রমুখ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর বলেন, জাতি হিসেবে বিশ্ব দরবারে আমাদের পরিচয় করিয়ে দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু। যার ডাকে সাড়া দিয়ে দলমত নির্বিশেষে মানুষ ঝাপিয়ে পড়েছিল মুক্তিযুদ্ধে। দেশের সাধারণ কৃষক শ্রমিক ছাত্র জনতা বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে মুক্তিযুদ্ধ করেছে।

তিনি বলেন, জাতির জনকের ৭ মার্চের ভাষণ শোনার সৌভাগ্য আমারও হয়েছিলো। ৭১’র ৮ মার্চ আমি ঢাকা থেকে গ্রামের বাড়ি চলে গিয়েছিলাম, সেখানে মুক্তিযুদ্ধের প্রস্তুতি নিতে থাকি।

‘বঙ্গবন্ধুই স্বাধীনতার ঘোষক দেশের মানুষ তখন আর কাউকে চিনতো না’ এমন মন্তব্য করে নূর বলেন, আমার বাড়ি উত্তরবঙ্গে সেখানে কেউ কালুরঘাট বেতার শোনেনি।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি আরো বলেন, পাকিস্তান আমল থেকে শুরু করে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে ষড়যন্ত্র হয়েছে । এখনও হচ্ছে। মুক্তিযুদ্ধের পরাজিত শক্তি চেয়েছিল বঙ্গবন্ধুর নাম মুছে ফেলতে, কিন্তু ইতিহাসই তাদের এ অপচেষ্টা সফল হতে দেয়নি। সংস্কৃতি মন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু আমাদের শক্তি, আমাদের প্রেরণা, আমাদের অস্তিত্ব। বাংলাদেশেকে এগিয়ে নিতে হলে তাঁর আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়েই কাজ করতে হবে।

যুগে যুগে বাঙালির বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র হয়েছে এমন মন্তব্য করে অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি আব্দুল গাফফার চৌধুরী বলেন, সকল ষড়যন্ত্রের জাল ছিন্ন করেই আমরা এগিয়ে গিয়েছি। এটিই বাঙ্গালির ইতিহাস।

লন্ডনে মাসব্যাপী চলবে এই বঙ্গবন্ধু বইমেলা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24