শনিবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৬:৪১ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে আমনের বাম্পার ফলন হলেও, ন্যায্য দাম নিয়ে সংশয়ে কৃষকরা জগন্নাথপুরে আনন্দ হত্যাকাণ্ডের রহস্য অজানা, নেই গ্রেফতার খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে কাল সারাদেশে বিএনপির বিক্ষোভ সুস্থতা আল্লাহ পাকের নেয়ামত একটি নৃশংস হত্যাকাণ্ড নাড়িয়ে দিল জগন্নাথপুরবাসীকে, ক্রাইম সিন ইউনিটের ঘটনাস্থল পরিদর্শন অফিসার্স ক্লাব থেকে রানীগঞ্জের তহশীলদারসহ ৪ জুয়াড়ি গ্রেফতার আজানের মর্মবানী জগন্নাথপুরে ২২তম ক্রিকেট টুর্নামেন্টের উদ্বোধন সম্পন্ন জগন্নাথপুরে সেই সড়কে ২৩ কোটি টাকার টেন্ডার সম্পন্ন, নতুন বছরের শুরুতেই কাজ শুরু হতে পারে জগন্নাথপুরে ১৫ দিন পর অবশেষে ধান কেনা শুরু

বাংলাদেশ সীমান্তের কাছে ভূমি মাইন পেতেছে মিয়ানমার: অ্যামনেস্টি

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৭
  • ৪০ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::
বাংলাদেশ সীমান্তের কাছে মিয়ানমার ভূমি মাইন পেতেছে বলে জানিয়েছে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল। এতে করে সেনা অভিযানের কারণে জীবন বাঁচাতে পলায়নপর রোহিঙ্গাদের প্রাণহানির ঝুঁকি তৈরি হচ্ছে। শনিবার এক বিবৃতিতে মিয়ানমারের এমন আচরণের নিন্দা জানিয়েছে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল। যুক্তরাজ্যভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থাটি, এমন ঘটনা উদ্বেগজনক।

বিবৃতিতে বলা হয়, সীমান্ত সংলগ্ন রাখাইনের তুং পায়ো লেট ওয়াল (তুমরো হিসেবে পরিচিত) এলাকায় কিছু মাইন পাওয়া গেছে। এ রাজ্যের সীমান্তে গত সপ্তাহে নিষিদ্ধ ভূমি মাইনের আঘাতে দুই শিশুসহ অন্তত তিনজন আহত হয়েছেন। কমপক্ষে একজনের প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে। প্রত্যক্ষদর্শী এবং আমাদের নিজস্ব অস্ত্র বিশেষজ্ঞদের বিশ্লেষণ থেকে এটা পরিষ্কার যে, মিয়ানমারের সেনা সদস্যরাই এসব মাইন পেতে রেখেছে।

৩ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ থেকে সীমান্ত পেরিয়ে ফিরে আসার সময় পঞ্চাশোর্ধ এক নারীর পা মাইনের ওপর পড়ে। পা উড়ে যাওয়ায় তাকে এখন বাংলাদেশের একটি হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

অ্যামনেস্টির বিবৃতিতে সামগ্রিক বিষয় নিয়ে কথা বলেন সংস্থাটির ক্রাইসিস রেসপন্স ডিরেক্টর তিরানা হাসান। তিনি বলেন, ‘রাখাইন রাজ্যের অবস্থা এতটাই ভয়ঙ্কর যে, ভূমি মাইন পেতে রাখা পুরো পরিস্থিতিকে আরও খারাপের দিকে নিয়ে গেছে। প্রাণভয়ে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে যেখানে বিপুল সংখ্যক মানুষ পালিয়ে যাচ্ছেন, সেখানে পথিমধ্যে এভাবে অমানবিকভাবে মারণাস্ত্রের ব্যবহার সাধারণ মানুষের জীবনকে আরও ঝুঁকিপূর্ণ করে তুলছে।’

রোহিঙ্গাদের অনেকেই বাংলাদেশের ভেতরের অস্থায়ী ক্যাম্পগুলোতে পালিয়ে এলেও প্রয়োজনীয় কিছু আনা ও অন্যদের সীমান্ত পার হতে সাহায্য করতে মাঝে মাঝে সীমান্ত এলাকায় যাতায়াত করেন।

ভূমিমাইন নিয়ে কাজ করা সংস্থা ল্যান্ডমাইন মনিটরের একটি সূত্র জানিয়েছেন, মিয়ানমারের নর্থ মংডুর একাধিক গ্রামে ল্যান্ডমাইন পাতা হয়েছে। মূলত এসব গ্রাম দিয়েই রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে আসছেন।

জীবন বাঁচাতে পলায়নপর রোহিঙ্গাদের সীমান্ত পারাপারকে প্রাণঘাতী করে তুলতেই মিয়ানমার এই কৌশল নিয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে ল্যান্ডমাইন মনিটরের একজন কর্মকর্তা বলেন, সীমান্তবর্তী এই অঞ্চলজুড়ে তিন শতাধিক মাইন রয়েছে বলে আমাদের ধারণা। ইতোমধ্যে কয়েকজন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

বাংলাদেশ সীমান্তে ল্যান্ডমাইন পোঁতার ঘটনা এবারই প্রথম নয়। এর আগে ২০১৫ সালের ৭ জানুয়ারি বাংলাদেশের নাইক্ষ্যংছড়ি-মিয়ানমার সীমান্তবর্তী ৪৯ নম্বর পিলারের নো-ম্যান্স ল্যান্ড থেকে ১২টি স্থলমাইন উদ্ধার করে বিজিবি। এরপর গত বছরের ৬ নভেম্বর বাংলাদেশ-ভারত-মায়ানমার সীমান্তে স্থলমাইন বিস্ফোরণে তিনজন আহত হন। রাঙ্গামাটির বিলাইছড়ি উপজেলার বড়থলি ইউনিয়নের জারুল্যাছড়ি পয়েন্টে এই বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে।

২০১৪ সালে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে সীমান্তে মাইন স্থাপনের প্রতিবাদ এবং বন্ধের দাবি করা হয়। একাধিক সূত্র জানায়, গত পাঁচবছরে সীমান্তে মাইন বিস্ফোরণে অনন্ত সাতজন নিহত হয়েছেন। নিহত হয়েছে হাতিসহ বন্যপ্রাণীও।

ইন্টারন্যাশনাল ক্যাম্পেইন টু ল্যান্ড মাইন্স বা আইসিবিএলএম-এর হিসাব অনুযায়ী, ২০০১ থেকে ২০০৩ সাল পর্যন্ত ল্যান্ডমাইন বিস্ফোরণে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের ৬৪ জন প্রাণ হারিয়েছে। এরা মূলত কাঠুরিয়া বা বনজীবী। আহত হয়েছেন আরও ৮৭ জন।

সীমান্তে পুঁতে রাখা স্থলমাইন ভূমিক্ষয়সহ নানা কারণে সরে গিয়ে কৃষিভূমি বা লোকালয়েও চলে যায়। এ রকম বেশকিছু মাইন বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিভিন্ন সময় অপসারণ করেছে। তবে নিরাপত্তা বাহিনীর কোনও মাইনে যদি বেসামরিক কেউ নিহত হন তবে সেটা যুদ্ধাপরাধ হিসেবে বিবেচিত হয়।
স্থলমাইনকে গুপ্তঘাতক হিসেবেও উল্লেখ করা হয়। কারণ এটি মাটি, ঘাস বা বালুর নিচে পুঁতে রাখা হয়। এর উপর দিয়ে ট্যাঙ্ক, লরি, যানবাহন ও মানুষসহ কোন সক্রিয় ওজন গেলেই এটি বিস্ফোরিত হয়।

জাতিসংঘের ওয়েবসাইট থেকে জানা যায়, ১৯৯৭ সালে অ্যান্টি-পার্সোনেল ল্যান্ড মাইন নিষিদ্ধ করা হয়। এর ব্যবহার, প্রস্তুত ও রফতানি নিষিদ্ধের ব্যাপারে একমত হয় ১৫০টিরও বেশি দেশ।

রাখাইনে চলমান সহিংসতার ঘটনায় যেসব রোহিঙ্গা সীমান্ত পার হয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আসছেন তাদের মধ্যে রয়েছেন আঘাতপ্রাপ্ত নারী, পুরুষ ও শিশুরা। তাদের বেশিরভাগই গুলিবিদ্ধ ও স্থল মাইন বিস্ফোরণে আহত। এই সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলেছে। এছাড়া সর্দি, কাশি, জ্বর ও ডায়রিয়া আক্রান্ত শিশুদের সংখ্যাও উদ্বেগজনক হারে বাড়ছে। উখিয়ার কুতুপালং ক্যাম্পের ‘এমএসএফ’ হাসপাতাল, কুতুপালং কমিউনিটি ক্লিনিকসহ বিভিন্ন হাসপাতালে এসব রোহিঙ্গা চিকিৎসা নিচ্ছে।

স্থানীয় চিকিৎসকরা জানান, ইতোমধ্যে যে সব রোগী আঘাতজনিত কারণে চিকিৎসাসেবা নিতে এসেছেন, তাদের অধিকাংশই সীমান্ত পার হতে গিয়ে স্থল মাইন বিস্ফোরণে আহত। একইভাবে গুলিবিদ্ধ রোগীর সংখ্যাও কম নয়। গত এক সপ্তাহে ১০ জন স্থল মাইন বিস্ফোরণে আহত ও ৫০ জন গুলিবিদ্ধ হয়ে ভর্তি হয়েছেন। তাদের প্রত্যেকেই চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

৫ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ সীমান্তে মিয়ানমারের পুঁতে রাখা মাইন বিস্ফোরণে পা হারিয়েছেন রোহিঙ্গা নারী সাবেকুন্নাহার (৫০)। তিনি প্রাণ বাঁচাতে বাংলাদেশে আসছিলেন। তিনি মিয়ানমারের তুমব্রু বাজার এলাকার জাফর আলমের স্ত্রী। তাকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

আহত সাবেকুন্নাহারের ভগ্নিপতি মোহাম্মদ সাদ জানান, ‘চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন সাবেকুন্নাহারের ডান পা কেটে ফেলা হয়েছে। তিনি এখনও শঙ্কামুক্ত নন। ’ তিনি জানান, ‘সীমান্তজুড়ে মিয়ানমার সেনাবাহিনী নতুন করে মাইন পুঁতে রেখেছে। এতে কোনও রোহিঙ্গা সীমান্ত পার হতে গেলেই বিকট শব্দে বিস্ফোরিত হয়।’

উল্লেখ্য, বাংলাদেশের সঙ্গে মিয়ানমারের ২৭১ কিলোমিটার সীমান্তের মধ্যে ২০৮ কিলোমিটার স্থল সীমান্ত এবং ৬৪ কিলোমিটার নৌ সীমান্ত। সীমান্তের প্রতিটি পয়েন্টে মাইন পুঁতে রাখা হয়েছে বলে আশঙ্কা করছেন সীমান্তরক্ষীরা। সূত্র: অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24