সোমবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৮:১৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে আইনশৃংঙ্খলা সভায়-আনন্দ সরকারের হত্যাকারিদের গ্রেফতারের দাবি জগন্নাথপুরে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালন, ৫ জয়িতাকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে দুর্নীতি বিরোধী দিবসে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত ১৭ ডিসেম্বর থেকে হাওরের বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু লজ্জা শুধু নারীরই নয়, পুরুষেরও ভূষণ জগন্নাথপুর মুক্ত দিবস আজ ডাকাত আতঙ্কে আজও নিদ্রাহীন মিরপুর ইউনিয়নবাসি, চলছে পাহারা জগন্নাথপুরে হালিমা খাতুন ট্রাষ্টের মেধা বৃত্তি পরীক্ষায় প্রথম স্থান অর্জন করেছে তাওহিদা কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলনে পরিকল্পনামন্ত্রী- তোমাদের স্বপ্নের বাংলাদেশ আসছে জগন্নাথপুরে আমার বিদ‌্যালয়, আমার অহংকার, নিজেরাই করি সুন্দর ও পরিস্কার প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত

বাকবিতন্ডার জেরে জগন্নাথপুরের আশারকান্দিতে কৃষকদের ধান বিক্রির নিয়ে সংশয়

বিশেষ প্রতিনিধি::
  • Update Time : সোমবার, ২০ মে, ২০১৯
  • ৫৭২ Time View
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার আশারকান্দি ইউনিয়নের কৃষকদের সরকারি খাদ্য গুদামে ধান বিক্রি নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। ইউনিয়ন উপ সহকারি কৃষি কর্মকর্তার সাথে  ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যর ককথাকাটাকাটির কারনে ধান বিক্রির কৃষকদের তালিকা করা হয়নি।
সোমবার পর্যন্ত কৃষি কার্যালয়ের কাউকে তালিকা সংগ্রহে পাওয়া যায়নি। ফলে একজন কৃষকও ধান বিক্রির তালিকায় নাম লেখাতে পারেনি। অনেক কৃষক ইউনিয়ন পরিষদে এসে নাম লেখাতে না পেরে ফিরে গেছেন।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে,আশারকান্দি ইউনিয়নের দায়িত্বেথাকা উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা নাজিম উদ্দিনের সাথে আশারকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য জাকির হোসেনের সাথে গত ১২ মে কৃষি বিভাগের একটি প্রশিক্ষণ নিয়ে ইউনিয়নের শংকপুর গ্রামে কথা কাটাকাটি হয়। যার কারনে সরকারি গুদামে ধান বিক্রির কৃষক তালিকা করা হয়নি।
আশারকান্দি ইউনিয়নের তিলক গ্রামের কৃষক আব্দুর রহিম জানান,তিনি তিন দিন ধরে ইউনিয়ন পরিষদে ধান বিক্রির জন্য নাম লেখাতে গিয়ে কৃষিবিভাগের কাউকে না পেয়ে ফিরে এসেছেন। তিনি বলেন,শুনেছি ১৩ মে থেকে ১৯ মে পর্যন্ত সব ইউনিয়নে তালিকা করা হচ্ছে।
আশারকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের ইউ,পি সদস্য জাকির হোসেন বলেন,আমার ওয়ার্ডে কৃষক প্রশিক্ষণের বিষয়ে কৃষি বিভাগের দায়িত্বে থাকা নাজিম উদ্দিনের কাছে জানতে চাইলে তিনি উত্তেজিত হয়ে আমার সাথে কথা বলেন।এনিয়ে কথা কাটাকাটি হয় তাই বলে কৃষকদের গুরুত্বপূর্ণ কাজ না করা ঠিক হয়নি।
আশারকান্দি ইউনিয়নের দায়িত্বেথাকা উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা নাজিম উদ্দিন বলেন,ইউ,পি সদস্য জাকির হোসেন আমাকে লাঞ্ছিত করেছেন।বিষয়টি আমি আমার কতৃপক্ষ কে জানালে তারা এবিষয় সুরাহা না হওয়া পর্যন্ত আশারকান্দি ইউনিয়নে কৃষি বিভাগের সব কাজ বন্ধ রাখতে বলেন।
জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা সাহাব উদ্দিন বলেন,আমাদের মাঠকর্মীকে লাঞ্ছিত করায় এ ইউনিয়নে কাজ বন্ধ রাখা হয়েছে। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা দাপ্তরিক কাজে ঢাকায় আছেন আসলে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে।
আশারকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু ঈমানী বলেন,কৃষি বিভাগের লোকজন না আসায় সরকারি গুদামে ধান বিক্রি করতে কৃষকদের তালিকা হয়নি।প্রতিদিন কৃষকরা এসে খোঁজ খবর নিচ্ছেন।আমি কৃষি বিভাগের সাথে যোগাযোগ করেও কোন সদুত্তর পাইনি।
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহ্ফুজুল আলম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন,কৃষি কর্মকর্তা এলে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24