বিশ্বনাথে পুলিশের ওপর হামলা,এসআইসহ আহত ২

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক:: সিলেটের বিশ্বনাথের কুখ্যাত মাদক সম্রাট সুহেল মিয়া (৩২)’কে গ্রেপ্তার করতে গিয়ে তার (সুহেল) বাহিনীর হামলায় আহত হয়েছেন থানা পুলিশের এসআই সবুজ কুমার নাইডু ও কনস্টেবল সুমন মালাকার।

বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে উপজেলার বৈরাগী বাজারে এ ঘটনাটি ঘটে। হামলা করে পুলিশের হাতে আটক হওয়া মাদক সম্রাট সুহেল মিয়াকে ছিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে যায় তার (সুহেল) সহযোগীতারা। এসময় অভিযানে অংশগ্রহনকারী পুলিশ সদস্যরা অবরুদ্ধ হয়ে পড়লে থানা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদেরকে উদ্ধার করেন।

জানা গেছে, উপজেলার রামপাশা ইউনিয়নের নওধার পূর্বপাড়া (বিন্দাটেক) গ্রামের মৃত আহমদ আলী উরফে শাবাল শাহ বাড়িতে ওরুসের নামে অসামাজিক কর্মকান্ড চালিয়ে আসছিলেন শাবাল শাহ’র পুত্র আশিক নূর এবং একই গ্রামের করিম বক্সের পুত্র মাদক সম্রাট সুহেল আহমদ, সুরুজ আলী ও কামরুল ইসলাম। এসব অসামাজিক কর্মকান্ডে প্রতিবাদ করায় অভিযুক্তরা আহমদ আলী উরফে শাবাল শাহর মেয়ে কলেজ ছাত্রী তাসলিমা বেগম (১৮)’কে ২০১৮ সালের ১৯ জুলাই মারধার করে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয় এবং তাসলিমার ঘরে থাকা স্বর্ণালংকার ও নগদ টাকাসহ আসবাবপত্র লুট করে নেয়।

এঘটনায় গত বছরে ৪ সেপ্টেম্বর ৫ জনকে অভিযুক্ত করে বিশ্বনাথ থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন কলেজ ছাত্রী তাসলিমা বেগম। অভিযোগটি দীর্ঘদিন তদন্তের পর বৃহস্পতিবার সকালে অভিযোগটি মামলা হিসেবে রেকর্ড করে থানা পুলিশ।

এরপর ওই দিবাগত রাত ৮টার দিকে বিশ্বনাথ থানার এসআই সবুজ কুমার নাইডুর নেতৃত্বে একদল পুলিশ বৈরাগী বাজার থেকে অভিযুক্ত সুহেল মিয়াকে আটক করে হাতকড়া লাগাতে চাইলে সুহেলের সহযোগী সুরুজ মিয়া, আলি নুর, লিলু মিয়া ও মানিক মিয়ার নেতৃত্বে তার (সুহেল) বাহিনীর লোকজন পুলিশের উপর হামলা চালায়। একপর্যায়ে হামলাকারীরা মারধর করে এসআই সবুজ কুমার নাইডু ও কনস্টেবল সুমন মালাকারকে আহত করে এবং পুলিশের হাত থেকে আসামী সুহেল মিয়াকে ছিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে যায়।

এসময় অভিযানে অংশগ্রহনকারী পুলিশ সদস্যরা অবরুদ্ধ হয়ে পড়লে জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ওসমানীনগর সার্কেল) সাইফুল ইসলাম ও বিশ্বনাথ থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) মোহাম্মদ শামসুদ্দোহা পিপিএম ঘটনাস্থলে গিয়ে পুলিশ সদস্যদের উদ্ধার করেন। আহত পুলিশ সদস্যদেরকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

ঘটনার পর বিপুল সংখ্যক পুলিশ বৈরাগীবাজার ও নওধার গ্রামে অভিযান চালালেও বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১১টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি।
হামলার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বিশ্বনাথ থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) মোহাম্মদ শামসুদ্দোহা পিপিএম বলেন, কুখ্যাত অপরাধী সুহেল ও তার তার বাহিনীকে গ্রেপ্তারে পুলিশী অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» আবু খালেদ চৌধুরীর ১৬তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

» জগন্নাথপুরে নবগঠিত পৌর যুবলীগের একাংশের আনন্দ মিছিল

» হবিগঞ্জে স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগ, স্বামী গ্রেফতার

» জগন্নাথপুরে পৌর যুবলীগের কমিটি প্রত্যাখান করে ঝাড়ু মিছিল

» জগন্নাথপুরে ‘অপহরণের অভিযোগ সত্য নয়, প্রেমের টানে পালিয়েছিল তরুণী’

» বেরাতে এসে নদীতে ডুবে প্রাণ গেলো এসএসসি শিক্ষার্থীর

» বাস-মাহেন্দ্রের সংঘর্ষে কলেজছাত্রীসহ নিহত ৬

» নিউজিল্যান্ডে যেভাবে ইসলাম এসেছে

» জগন্নাথপুরে কলেজ শিক্ষক সমিতির কমিটি গঠন, আহবায়ক মতিন, সদস্য সচিব আব্দুর রহমান

» নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকি

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

বিশ্বনাথে পুলিশের ওপর হামলা,এসআইসহ আহত ২

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক:: সিলেটের বিশ্বনাথের কুখ্যাত মাদক সম্রাট সুহেল মিয়া (৩২)’কে গ্রেপ্তার করতে গিয়ে তার (সুহেল) বাহিনীর হামলায় আহত হয়েছেন থানা পুলিশের এসআই সবুজ কুমার নাইডু ও কনস্টেবল সুমন মালাকার।

বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে উপজেলার বৈরাগী বাজারে এ ঘটনাটি ঘটে। হামলা করে পুলিশের হাতে আটক হওয়া মাদক সম্রাট সুহেল মিয়াকে ছিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে যায় তার (সুহেল) সহযোগীতারা। এসময় অভিযানে অংশগ্রহনকারী পুলিশ সদস্যরা অবরুদ্ধ হয়ে পড়লে থানা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদেরকে উদ্ধার করেন।

জানা গেছে, উপজেলার রামপাশা ইউনিয়নের নওধার পূর্বপাড়া (বিন্দাটেক) গ্রামের মৃত আহমদ আলী উরফে শাবাল শাহ বাড়িতে ওরুসের নামে অসামাজিক কর্মকান্ড চালিয়ে আসছিলেন শাবাল শাহ’র পুত্র আশিক নূর এবং একই গ্রামের করিম বক্সের পুত্র মাদক সম্রাট সুহেল আহমদ, সুরুজ আলী ও কামরুল ইসলাম। এসব অসামাজিক কর্মকান্ডে প্রতিবাদ করায় অভিযুক্তরা আহমদ আলী উরফে শাবাল শাহর মেয়ে কলেজ ছাত্রী তাসলিমা বেগম (১৮)’কে ২০১৮ সালের ১৯ জুলাই মারধার করে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয় এবং তাসলিমার ঘরে থাকা স্বর্ণালংকার ও নগদ টাকাসহ আসবাবপত্র লুট করে নেয়।

এঘটনায় গত বছরে ৪ সেপ্টেম্বর ৫ জনকে অভিযুক্ত করে বিশ্বনাথ থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন কলেজ ছাত্রী তাসলিমা বেগম। অভিযোগটি দীর্ঘদিন তদন্তের পর বৃহস্পতিবার সকালে অভিযোগটি মামলা হিসেবে রেকর্ড করে থানা পুলিশ।

এরপর ওই দিবাগত রাত ৮টার দিকে বিশ্বনাথ থানার এসআই সবুজ কুমার নাইডুর নেতৃত্বে একদল পুলিশ বৈরাগী বাজার থেকে অভিযুক্ত সুহেল মিয়াকে আটক করে হাতকড়া লাগাতে চাইলে সুহেলের সহযোগী সুরুজ মিয়া, আলি নুর, লিলু মিয়া ও মানিক মিয়ার নেতৃত্বে তার (সুহেল) বাহিনীর লোকজন পুলিশের উপর হামলা চালায়। একপর্যায়ে হামলাকারীরা মারধর করে এসআই সবুজ কুমার নাইডু ও কনস্টেবল সুমন মালাকারকে আহত করে এবং পুলিশের হাত থেকে আসামী সুহেল মিয়াকে ছিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে যায়।

এসময় অভিযানে অংশগ্রহনকারী পুলিশ সদস্যরা অবরুদ্ধ হয়ে পড়লে জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ওসমানীনগর সার্কেল) সাইফুল ইসলাম ও বিশ্বনাথ থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) মোহাম্মদ শামসুদ্দোহা পিপিএম ঘটনাস্থলে গিয়ে পুলিশ সদস্যদের উদ্ধার করেন। আহত পুলিশ সদস্যদেরকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

ঘটনার পর বিপুল সংখ্যক পুলিশ বৈরাগীবাজার ও নওধার গ্রামে অভিযান চালালেও বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১১টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি।
হামলার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বিশ্বনাথ থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) মোহাম্মদ শামসুদ্দোহা পিপিএম বলেন, কুখ্যাত অপরাধী সুহেল ও তার তার বাহিনীকে গ্রেপ্তারে পুলিশী অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।