রবিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ০৯:২৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
সুনামগঞ্জে বিতর্কিতদের আওয়ামী লীগে স্হান না দিতে তৃণমূল নেতাদের দাবি প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী পরীক্ষা:জগন্নাথপুরে প্রথম দিনে অনুপস্থিত ২৬০ যুক্তরাজ্য বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটিকে জগন্নাথপুর বিএনপির অভিনন্দন পেঁয়াজ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের সমালোচনা করলেন কাদের সিদ্দিকী ‘ব্রিটিশ বাংলাদেশী হুজহু’র প্রকাশনা ও এওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানের বারোতম আসর বর্ণাঢ্য আয়োজনে সম্পন্ন পেঁয়াজ খাওয়া বন্ধ করে দিয়েছি:প্রধানমন্ত্রী জগন্নাথপুর পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ড আ.লীগের কমিটি গঠন জগন্নাথপুরে অগ্নিকাণ্ডে নি:স্ব ৮ পরিবার আশ্রয় নিলেন স্কুলে.মানবেতর জীবন যাপন মিশর থেকে কার্গো বিমানে পেঁয়াজ আসছে মঙ্গলবার যুক্তরাজ্যে বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটি

‘‘ভবিষ্যতে হাওরগুলো রক্ষায় সমন্বিত উদ্যোগ প্রয়োজন’’ হাওরের বেরি বাঁধ নির্মানের দায়িত্ব সেনা বাহিনীকে দেওয়া হউক

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২৮ এপ্রিল, ২০১৭
  • ৭১ Time View

মোঃ সানোয়ার হাসান সুনু: হাওর বাঁচলে কৃষক বাঁচবে, কৃষক বাঁচলে দেশ বাঁচবে ”কৃষিই উন্নতি কৃষিই সমৃদ্ধি’’এই স্লোগান শুধু মুখে বললেই হবে না, অন্তরে লালন করতে হবে, অন্তরে ধারন করতে হবে। কৃষি ও কৃষককে বাঁচাতে হাওর রক্ষায় এখনই সুষ্ঠু পরিকল্পনা প্রয়োজন। সমন্বিত উদ্যোগ প্রয়োজন। প্রতি বছর বেরীবাঁধ নির্মানের নামে কোটি কোটি টাকা সরকারি বরাদ্দ দেওয়া হয়। সেগুলোর আদৌ কোন সদ্ব্যবহার হয় না। অধিকাংশ টাকাই লুটপাট হয়ে যায়। পানি উন্নয়ন বোর্ডের দূর্নীতিবাজ কর্মকর্তা সরকারী দলের নেতা কর্মীরা বরাদ্দকৃত টাকা ভাগ বাটোয়ারা করে নিয়ে যায়। ফলে বেরীবাঁধের কাজ কিছুই হয় না। সরকারি দলের সাইনবোর্ড ব্যবহার করে তারা পার পেয়ে যায়। এদের কোন জবাব দীহিতাও নেই এবারও তাই হয়েছে। এবার সুনামগঞ্জ জেলায় বেরী বাঁধের জন্য বরাদ্দকৃত ৩২ কোটি টাকা একটি বড় অংশের কাজ ভাগিয়ে নিয়েছে সুনামগঞ্জের প্রভাবশালী দুই যুবলীগ নেতা। প্রতি বছর নাকি এরা কাজ ভাগিয়ে নিয়ে লুটপাট করলেও এদের কিছুই হয়না। এদের খুঁটির জোর নাকি খুব শক্ত। এই দুই যুবলীগ নেতা নলুয়ার হাওরের ৩ কোটি টাকার বরাদ্দের কাজ পেলেও এদের চেহারা এলাকার কেউ দেখেনি। এরা বেরীবাঁধের কাজ না করে সুনামগঞ্জে বসে টাকা উত্তোলন করে পাউবো’র দূর্নীতিবাজা কর্মকর্তাদের সাথে ভাগভাটোয়ারা করে নিয়ে গেছে। এছাড়া জগন্নাথপুর নলুয়ার হাওরের ৭২ কি.মি.বেরী বাঁধ নির্মানের ৩২টি পিআইসির মাধ্যমে ৮০ লাখ টাকা। পরে আরও ২ কোটি টাকা বাড়ানো হলেও বেরীবাঁধের ২ কিলোমিটার কাজও হয়নি। বাংলাদেশের খাদ্য ভান্ডার হিসাবে পরিচিত সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরের বৃহৎ হাওর নলুয়ার হাওরের বেরীবাঁধের জন্য প্রায় ৬ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। সরজমিন গিয়ে দেখা গেছে ৭২ কি.মি. বেরী বাঁধের অধিকাংশ স্থানে বাঁধ দেওয়া হয়নি ও মাটি ফেলা হয় নি। স্থানীয় কৃষকরা জানিয়েছেন বেরী বাঁধের জন্য বরাদ্দকৃত টাকা পাউবো ঠিকাদাররা ও পিআইসি সভাপতিরা লুটপাট করে নিয়েছেন। অনেক কৃষক বলেছেন যদি বরাদ্দকৃত ৬ কোটি টাকার মধ্যে অর্ধৈক টাকার কাজ সঠিক সময়ে সঠিক উচ্চতা দিয়ে করা হতো তবে পহাড়ের মত উচুঁ টেকসই বাঁধ হত। তাহলে হয়তো এত সহজে হাওড়ে পানি ঢুকতনা। কয়েকদিন সময় পেলেই কৃষকরা অতিকষ্টের সোনালী ফসল গোলায় তুলতে পারতেন। আর বর্তমানে যে খাদ্যভাব দেখা দিয়েছে সেটাও হতো না। হাওরের টাকা লুটপাটকারীদের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবীতে ও ভবিষ্যতে হাওর রক্ষার বিভিন্ন কর্মসূচি নিয়ে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন এলাকাবাসী। কৃষকদের দাবীরপ্রতি সরকার একাত্রতা ঘোষনা করেছেন। ইতি মধ্যে প্রেসিডেন্ট আব্দুল হামিদ হাওর অঞ্চল পরিদর্শন করে দূর্নীতিবাজদের শাস্তি ও ভবিষ্যতে এ হাওর রক্ষায় কার্যকর উদ্যোগের কথা বলেছেন। অন্যদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও দূর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলেছেন। ইতি মধ্যে দূর্নীতি দমন কমিশন সরকারি বরাদ্দকৃত টাকা লুটপাটকারীদের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করেছেন। এতে স্থানীয় কৃষকরা আশার আলো দেখেছেন। ভবিষ্যতে যাতে লুটপাট বন্ধ হয় ও সরকারি টাকা সদ্ব্যবহার হয় এর জন্য সরকারকে এখনই কার্যকর উদ্যোগ নিতে হবে। সেই সাথে বাংলাদেশের শস্যা ভান্ডার হিসাবে খ্যাত সুনামগঞ্জ জেলার বৃহৎ হাওর জগন্নাথপুর উপজেলার নলুয়াসহ জেলার সবকটি হাওর রক্ষার সুষ্ঠ পরিকল্পনা গ্রহন করতে হবে। উল্লেখ করা প্রয়োজন বিগত ২০০৭ সালে ফখরুদ্দিন সরকারের আমলে নলুয়ার হাওরের ৭২ কিলোমিটার বেরীবাঁধের জন্য প্রায় ৩ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। তখন সেনাবাহিনীর মাধ্যমে হাওরের বাঁধ গুলো কাজ করা হয়েছিল। কৃষকরা জানিয়েছেন একমাত্র তখনই যথাসময়ে পাহাড় সম উচুঁ বাঁধ নির্মান করা হয়েছিল এবং শতভাগ কাজ হয়েছিল। কেউ লুটপাট করারও সাহস করেনি। তাই অনেক কৃষক দাবী জানিয়েছেন আগামীতে অত্র অঞ্চলের হাওরগুলো বেরীবাঁধ নির্মানের দায়িত্ব যেন আমাদের দেশ প্রেমিক সেনা বাহিনীকে দেওয়া হয়। কৃষকদের বিশ্বাস সেনাবাহীনিকে দায়িত্ব দিলে টেকসই সম্পন্ন সঠিক উচ্চতার বেরীবাঁধ নির্মান সম্ভব। অন্য দিকে সরকারি টাকা লুটপাট হবে না। উপজেলা প্রশাসনের সাথে সেনাবাহীনিকে সম্পৃক্ত করে দিলে কাজের স্বচ্ছতা থাকবে। এছাড়া হাওড়গুলো রক্ষায় যে কাজ করতে হবে সেগুলো হচ্ছে:- ১। কৃষকদের সাথে পরামর্শ করে হাওর রক্ষা বেরী বাঁধ অথবা স্থায়ী বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধ নির্মান ২। ভরাট হয়ে যাওয়া নলজুর নদী, কাটাগাংসহ উপজেলার হাওর অঞ্চলের সবগুলো নদী দ্রুত খননের ব্যবস্থা করা। ৩। কৃষকদের কৃষি ঋণ মওকুফ করে আগামী বোরো মৌসুমে নতুন করে সুদমুক্ত কৃষি ঋণ বিতরনের ব্যবস্থা করা। ৪। ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের পুর্নবাসন এর ব্যবস্থা করা। ৫। আগামী মৌসুমে কৃষকদের মধ্যে বিনা মূল্যে কৃষি উপকরন বিতরনের ব্যবস্থা করা। ৬। এবারে হাওর তলিয়ে যাওয়ার পিছনে দায়ী দূর্নীতিবাজ পানি উন্নয়ন কর্মকর্তা, ঠিকাদার ও পি,আই,সির সভাপতিদের গ্রেফতার করে শাস্তি মূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা। ৭। কৃষকদের জন্য কৃষিবীমা চালু করতে হবে।

লেখক: সাংবাদিক যুগান্তর জগন্নাথপুর

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24