মধ্য আকাশে বিমানের জ্বালানি শেষ- বিকল ল্যান্ডিং সিষ্টেম, অত:পর…

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::ভারতের দিল্লি থেকে নিউ ইয়র্কের জেএফকে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের উদ্দেশ্যে ১১ সেপ্টেম্বর রওনা দেয় এয়ার ইন্ডিয়ার বোয়িং ৭৭৭–৩০০ বিমানটি। যাত্রী এবং কর্মী মিলিয়ে ৩৭০ জন নিয়ে ছিল বিমানটিতে।

কিন্তু মাঝ পথেই দেখা দিল বিপত্তি। জ্বালানি অত্যন্ত কম। তার উপর আবহাওয়া এতোটাই খারাপ যে রানওয়ে দেখা যাচ্ছিল না। এই অবস্থায় সম্পূর্ণ নিজস্ব দক্ষতায় এবং দ্রুত সিদ্ধান্ত নিয়ে অন্য বিমানবন্দরে নিরাপদে বিমান নামিয়েছিলেন পাইলট। ঘটনাটি এয়ার ইন্ডিয়ার এআই-১০১ ফ্লাইটের।
সম্প্রতি ওই ঘটনার রিপোর্ট এয়ার ইন্ডিয়াকে দিয়েছে জেএফকে বিমানবন্দরের এটিসি। এয়ার ইন্ডিয়ার পক্ষ থেকে সেভাবে স্পষ্ট করে কিছু না জানানো হলেও তারপরই বিষয়টি সামনে আসে।

দিল্লি থেকে নিউ ইয়র্কগামী এয়ার ইন্ডিয়ার ওই বোয়িং ৭৭৭–৩০০ বিমানটি ছিল নন স্টপ। কিন্তু জেএফকে বিমানবন্দরে নামার সময় পাইলট দেখতে পান আবহাওয়া অত্যন্ত খারাপ।

৪০০ ফুট নিচের রানওয়ে দেখা যাচ্ছিল না। টানা ১৫ ঘণ্টা উড়ার পর বিমানে জ্বালানি ছিল কম। তার উপর বিমানের ল্যান্ডিং সিস্টেম বা আইএলএস’ই খারাপ হয়ে গিয়েছিল।
সামান্য ভুল হলেই যে সব শেষ। আকাশে চক্কর কাটা শুরু করে বিমানটি। কিন্তু আর কতক্ষণই বা আকাশে চক্কর কাটা সম্ভব! এ দিকে জ্বালানিও শেষ হয়ে আসছিল। পাইলট যোগাযোগ করলেন এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোলের সঙ্গে। পুরো বিষয়টা জানালেন। কিন্তু পরিস্থিতি এতটাই জটিল ছিল যে এটিসি-রও তখন কিছু করার ছিল না। ককপিটের ওই ছোট্ট জায়গার মধ্যে তখন দুই পাইলট মনের সঙ্গে জোর লড়াই চালিয়ে যাচ্ছিলেন। মনের ভিতরের ঝড় আর বাইরের দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া যেন কয়েক মুহূর্তের জন্য ছাপিয়ে গিয়েছিল। কিন্তু সেই পরিস্থিতিতে মাথা ঠাণ্ডা রাখাটাই ছিল পাইলটদের কাছে বড় চ্যালেঞ্জ।

জেএফকে ছাড়া তখন অত বড় বোয়িং বিমান অবতরণের নিরাপদ বিমানবন্দর ছিল অ্যালব্যানি, বস্টন বা কানেটিকাটের ব্র‌্যাডলি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর। কিন্তু জ্বালানি কম থাকায় অত দূর উড়ে যাওয়ার ঝুঁকি নিতে চাননি পাইলট। তাই জেএফকে’র উপর ৩৮ মিনিট চক্কর কাটার পরও আবহাওয়া ঠিক না হওয়ায় সম্পূর্ণ নিজস্ব বুদ্ধি এবং দক্ষতায় জেএফকে’র পাশে তুলনামূলক ছোট বিমানবন্দর নেওয়ার্কে এআই–১০১ অবতরণ করান পাইলট। সূত্র: এনডিটিভি ও আনন্দবাজার পত্রিকা

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» ‘উন্নয়নের মহাসড়কে জগন্নাথপুর’ শীর্ষক বইয়ের মোড়ক উম্মোচণ,

» সুনামগঞ্জ-৩ আসনে বৃষ্টি উপেক্ষা করে দুই প্রার্থীর প্রচারনা

» সারাদেশ বিজিবি মোতায়েন

» ভোটের মাঠে থাকছেন না ইলিয়াসপত্নী লুনা

» আ.লীগের নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষনা, ২১টি অঙ্গীকার

» সিলেটে পাইনিয়ার ইয়ুত এসোসিয়শনের উদ্যােগে বিজয় দিবস বিভিন্ন কর্মসুচী পালিত

» জগন্নাথপুর উপজেলা বিএনপির সভাপতি-যুবদল নেতার গ্রেফতারে নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে উপজেলা বিএনপি

» প্রার্থী হতে পারছেন না বিএনপির ৪ উপজেলা চেয়ারম্যান

» জগন্নাথপুরে নৌকার সমর্থনে স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রতিনিধিসভায়- ঐক্যবদ্ধ হয়ে নৌকার বিজয় নিশ্চিতের আহবান

» জগন্নাথপুরে মা সমাবেশ অনুষ্ঠিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

মধ্য আকাশে বিমানের জ্বালানি শেষ- বিকল ল্যান্ডিং সিষ্টেম, অত:পর…

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::ভারতের দিল্লি থেকে নিউ ইয়র্কের জেএফকে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের উদ্দেশ্যে ১১ সেপ্টেম্বর রওনা দেয় এয়ার ইন্ডিয়ার বোয়িং ৭৭৭–৩০০ বিমানটি। যাত্রী এবং কর্মী মিলিয়ে ৩৭০ জন নিয়ে ছিল বিমানটিতে।

কিন্তু মাঝ পথেই দেখা দিল বিপত্তি। জ্বালানি অত্যন্ত কম। তার উপর আবহাওয়া এতোটাই খারাপ যে রানওয়ে দেখা যাচ্ছিল না। এই অবস্থায় সম্পূর্ণ নিজস্ব দক্ষতায় এবং দ্রুত সিদ্ধান্ত নিয়ে অন্য বিমানবন্দরে নিরাপদে বিমান নামিয়েছিলেন পাইলট। ঘটনাটি এয়ার ইন্ডিয়ার এআই-১০১ ফ্লাইটের।
সম্প্রতি ওই ঘটনার রিপোর্ট এয়ার ইন্ডিয়াকে দিয়েছে জেএফকে বিমানবন্দরের এটিসি। এয়ার ইন্ডিয়ার পক্ষ থেকে সেভাবে স্পষ্ট করে কিছু না জানানো হলেও তারপরই বিষয়টি সামনে আসে।

দিল্লি থেকে নিউ ইয়র্কগামী এয়ার ইন্ডিয়ার ওই বোয়িং ৭৭৭–৩০০ বিমানটি ছিল নন স্টপ। কিন্তু জেএফকে বিমানবন্দরে নামার সময় পাইলট দেখতে পান আবহাওয়া অত্যন্ত খারাপ।

৪০০ ফুট নিচের রানওয়ে দেখা যাচ্ছিল না। টানা ১৫ ঘণ্টা উড়ার পর বিমানে জ্বালানি ছিল কম। তার উপর বিমানের ল্যান্ডিং সিস্টেম বা আইএলএস’ই খারাপ হয়ে গিয়েছিল।
সামান্য ভুল হলেই যে সব শেষ। আকাশে চক্কর কাটা শুরু করে বিমানটি। কিন্তু আর কতক্ষণই বা আকাশে চক্কর কাটা সম্ভব! এ দিকে জ্বালানিও শেষ হয়ে আসছিল। পাইলট যোগাযোগ করলেন এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোলের সঙ্গে। পুরো বিষয়টা জানালেন। কিন্তু পরিস্থিতি এতটাই জটিল ছিল যে এটিসি-রও তখন কিছু করার ছিল না। ককপিটের ওই ছোট্ট জায়গার মধ্যে তখন দুই পাইলট মনের সঙ্গে জোর লড়াই চালিয়ে যাচ্ছিলেন। মনের ভিতরের ঝড় আর বাইরের দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া যেন কয়েক মুহূর্তের জন্য ছাপিয়ে গিয়েছিল। কিন্তু সেই পরিস্থিতিতে মাথা ঠাণ্ডা রাখাটাই ছিল পাইলটদের কাছে বড় চ্যালেঞ্জ।

জেএফকে ছাড়া তখন অত বড় বোয়িং বিমান অবতরণের নিরাপদ বিমানবন্দর ছিল অ্যালব্যানি, বস্টন বা কানেটিকাটের ব্র‌্যাডলি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর। কিন্তু জ্বালানি কম থাকায় অত দূর উড়ে যাওয়ার ঝুঁকি নিতে চাননি পাইলট। তাই জেএফকে’র উপর ৩৮ মিনিট চক্কর কাটার পরও আবহাওয়া ঠিক না হওয়ায় সম্পূর্ণ নিজস্ব বুদ্ধি এবং দক্ষতায় জেএফকে’র পাশে তুলনামূলক ছোট বিমানবন্দর নেওয়ার্কে এআই–১০১ অবতরণ করান পাইলট। সূত্র: এনডিটিভি ও আনন্দবাজার পত্রিকা

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।