বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৩:০০ পূর্বাহ্ন

মনকাঁটার সঙ্গে কিছুক্ষণ- মো.অাব্দুল মতিন

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৭
  • ১২৬২ Time View

কলেজেরউত্তর দক্ষিণ পাশের দুইদিকেই দুটি মন কাঁটার গাছ(সিলেটের অাঞ্চলিক ভাষায় মনগাছ) পত্র পল্লবে কন্টাকীর্ণ। যার বৈজ্ঞানিক নাম Meyna laxiflora। রাস্তার পূর্বে জলাশয়ে নানা জলজ উদ্ভিদ,পথের ধারে বাহারি বনফুল, পূর্ব উত্তরে অাকাশের দিকে তাকালে হিমালয়,চেরাপুঞ্জির অস্পষ্ট সবুজের পাহাড় দেখা যায়। রাতের বেলা জলা ভূমিতে জল জোৎস্নার মিতালী ; পাহাড়ের বাতিগুলো বাগানের মতো দেখায়। সুনামগঞ্জ জেলাধীন জগন্নাথপুরউপজেলার কলকলিয়াস্থ শাহজালাল মহাবিদ্যালয় সংলগ্ন পারিপাশ্বিক অাবহের কথাই বলছি। মনকাঁটা অামাদের বাস্তব জীবনের কি সত্য নিয়ে সবুজাভ অবস্থায় দাড়িয়ে অাছে তা ভাবতে চাই। বিজ্ঞানী স্যার জগদীশ চন্দ্র বসু ( ১৮৫৮-১৯৩৯)১৯০২ সালে প্রকাশিত “Response inthe living and nonliving ” রচনায় বিভিন্ন পরিস্থিতিতে জীবও জড়ের যান্ত্রিক এবং বৈদ্যুতিক সাড়া দেওয়ার প্রবণতা দেখিয়েছিলেন। তিনি প্রমাণ করেন অামাদের মতো গাছেরও সুখ- দুঃখের অনুভুতি অাছে। সম্প্রতি গাছের বুদ্ধিমত্তা নিয়ে “Brilliant Green: The surprising history and science of plant intelligence” নামে গ্রন্থে নিউরোবায়োলজিস্ট স্টেফানো ম্যানকুসো ও অ্যালেস্যান্ড্রো ভিয়োলো প্রমাণ করেন গাছ শুধু জীবিত নয় গাছের বুদ্ধিও অাছে। মনকাঁটার কাছে দাঁড়িয়ে এসব ভাবছিলাম;ভাবছিলাম গোলাপের কাঁটা অাছে, ফুলের, ফলেরগাছের ও কাঁটা অাছে ;অার তাদের সান্নিধ্যের অাগে অামাদের কে তাঁদের কাঁটার কথা মনে করিয়ে দেয়। গাছ মানুষের মতো কাঁদেও! অার মানুষ মনের মধ্যে লুকিয়ে থাকা বিষাক্ত কাঁটায় মানুষকে কষ্ট দিয়ে হাসে? এই জটিল বিষাক্ত কাঁটা বাইরে থেকে বোঝা বড় দায়!
মনকাঁটাকেে জিজ্ঞেস করি, বিশ্বব্যাপী মানুষ মানুষকে ধর্মের নামে,দখলের নামে হত্যা করে; মৃত্যু যন্ত্রনা ছটফট করলে মানুষের দল হাসে ; মানবতা বিপর্যস্ত হলে মানবতা বাদী তখন পাওয়া যায়না। এরাও শক্তিভেদে,স্বার্থভেদে চিৎকার করে এটা দেখে অাপনাদের অনুভুতি কেমন হয়”?
উত্তরে বলল,” অামাদের অনুভুতি হয় জনাব! অাপনাদের সবাক ভন্ড অনুভুতি অার অামাদের নির্বাক সত্য অনুভুতি এই হলো পার্থক্য! প্রকৃতির সন্তানরা অাজ বিভিন্ন দেশে,ধর্ম,গোষ্ঠী,জাতিতে
ভাগ হয়ে মরণাস্ত্রে নিজেদেরই ধ্বংস করে নিজেরা
অানন্দিত,দূর্দশাগ্রস্ত হয় প্রকৃতি এতে ক্ষুব্দ। অামরা নির্বাক হয়ে বুঝি; কষ্ট পাই। কিন্তু মানুষরা?
এটা মানুষের লজ্জা নয়কি “? অাপনারা অাবার মানবতার গান বাজান কেমনে”? মনকাঁটার
কথা গুলো মনে নিয়ে এসে কানে বাজনা দিয়ে শুনি।
নিজেকে বলি,’মানবতার গান বাজান কেমনে’?
লেখকঃ মো.অাব্দুল মতিন প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ শাহজালাল মহাবিদ্যালয়,

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24