শনিবার, ২৩ নভেম্বর ২০১৯, ০৮:২৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুর আর্ট স্কুলের অধ্যক্ষ প্রণব বণিক আর নেই হাওরের দুনীতির বিরুদ্ধে সোচ্চার থাকবে হাওর বাঁচাও আন্দোলন কমিটি যুক্তরাজ্য বিএনপি থেকে সাবেক ছাত্র নেতা এম এ কাদিরের পদত্যাগ জগন্নাথপুরে শনিবার সকাল ৮টা থোক বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ থাকবে বিদেশে থেকেও তিনি ‘হত্যা’ মামলার দুই নম্বর আসামী! সন্মেলনকে সামনে রেখে কলকলিয়া ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের সভা অনুষ্ঠিত ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) উপলক্ষে জগন্নাথপুরে মোবারক র‌্যালি জগন্নাথপুর পৌরসভার ৭ নং ওয়ার্ড আ.লীগের কমিটি গঠন তাহিরপুরকে হারিয়ে বিজয়ী জগন্নাথপুর,ম‌্যাচ সেরা অলি বাস-মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ৭

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ‘লুটেরা যেন হাওর বাসীর ত্রাণেও ভাগ না বসায়-অধ্যক্ষ মো.অাব্দুল মতিন

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ৩০ এপ্রিল, ২০১৭
  • ১০৯ Time View

বৈশাখের ধান উঠার সম্ভাবনা তৈরী হলে চৈতালী চাঁদনীরাতের রোমান্টিকতা,সবুজ ধান সোনালী হয়ে গোলায় উঠলে বৈশাখের নবান্ন সুখে সাগর সদৃশ জলের বিস্তর প্রান্তর হয়ে উঠে শুধু সুখের হাওর। অন্ন সুখে শ্রাবন মেঘের দিনে ভাটির কন্যা রূপ গুনে মুগ্ধতা ছড়ায়। হাওরের ঢেউয়ে কৃষক – মাঝি অন্ন সুখে রাধারমন,করিম,হাছন,দূর্বিন সুরে গান ধরে। বারোমাসের অন্ন সংস্থান করে হাওরের একফসলি বোরো ধান। ক্ষুধা মুক্ত মনে বাউলিয়া সুর বাসা বাঁধে ; শ্রাবনের অবিরাম বর্ষণের অথৈ পানিতে জীবন যুদ্ধে পরাজিত মন বৈঠাহাতে হৃদয়ে জমাট জীবন যুদ্ধের গ্লানি অবচেতন মনে গেয়ে উঠে, ‘ মন মাঝি তোর বৈঠা নেরে,অামি অার বাইতে পারলামনা’। অভাবে অাগুন লাগা সংসার ছেড়ে যাওয়া প্রেয়সীর টান পড়ে হৃদয়ে বাউল করিমের সুরে, ‘কেন পীড়িতি বাড়াইলা রে বন্ধু ছেড়ে যাইবা যদি’?টান পড়ে দূর্বীন শাহের বিচ্ছেদ সুরে,’ কিসুখে রইয়াছি অামি গো সখী জানে বন্ধে দেখেনা /গেল বন্ধু অার অাইলনা’! এটাই ভাটির হাওরের উত্তরাধিকার সূত্রে পাওয়া অসাম্প্রদায়িক ভাটি অার হাওরের শাশ্বত রূপ।

হাওরের সেই শাশ্বত রূপ খুব বিরূপ হয়েছে এইবার । এবার সাতজেলায় কোটি মানুষের ভাগ্যে অন্ন সুখ নেই। চৈত্রে অাগাম প্রবলবৃষ্টি, পাহাড়ি ঢল,কালবৈশাখী,শিলা বৃষ্টি, কাঁচা-পাকা ধান তলিয়েছে, কোটি স্বপ্ন ভেঙ্গে দিয়েছে, ধানে ব্যবহৃত কীটনাশক পানিতে অ্যামোনিয়া তৈরী করে অক্সিজেন কমেছে,মাছ,হাস,গরু মরা সহ হাওরের বাস্তুসংস্থান পুরোপুরি ধ্বংস হয়েছে ;হাওরের কষ্টের দুর্গন্ধে বসবাস করা দায় হয়েছে। সবচেয়ে বেশীক্ষতি হয়েছে’ হাওরের রাজধানী’ খ্যাত সুনামগঞ্জ জেলার কৃষকের।এখানে ২লাখ ২৩ হাজার ৮৫০ হেক্টর জমির পুরোটাই তলিয়ে গেছে। সচিবের ভাষ্য অর্ধেকের বেশী মানুষ মারা নাগেলে দূর্গত এলাকা না হলেও এখানের গরীব,ধনী সবাই জীবন্মৃত,অসহায় অবস্থায় অাছেন যা অাপনার অন্তর্দৃষ্টিই কেবল তাঁদের কাতর সুর বুঝতে পারে। মহা দূর্দিনে শান্তনার বাণী অার কৃষকের নিদানের দুঃখ গোচাতে মাননীয় প্রধান মন্ত্রীঅাপনি সুনামগঞ্জে অাসছেন। ইতোমধ্যে হাওরের দু:খ লাগবে সরকার অপ্রতুল হলেও ত্রাণসামগ্রী দিয়ে পদক্ষেপ নিয়েছেন। কিন্তু হাওর বাসীর শংকা যারা
হাওরের বাঁধের টাকা হাওরের কোটি মানুষের পেটের
অন্নের কথা চিন্তা না করে; হাওর বাসীর সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনির জন্য সরকারী বরাদ্দকৃতকোটি কোটি টাকা নিজেদের বেষ্টনীর জন্য ভাগ করেছে সে সেসব লুটেরা যেন নতুন করে বরাদ্দকৃত ত্রাণের মধ্যে ও অাবার ভাগ না বসায়: অাপনার মঞ্চে যেন তাঁরা চোখে রঙ্গিন চশমা লাগিয়ে অাপনার বক্তব্যে অতি উৎসাহী হয়ে হাততালি দিয়ে দূর্গতদের নিয়ে তামাশা না করে। অার এদের বিচার ও যেন সত্যিকারে হয়।
যদি তা করতে পারেন তবে দু:খী মানুষ একটু হলেও হাসবে, অাপনার উপর তাঁদের অাস্থা ও সম্মান দুটিই বাড়বে। কারণ চৈত্রের অাগাম অতিবৃষ্টি কে উপেক্ষা করে এই হাওরের মানুষ ড.জয়াসেনকে অাপনার দেয়া
নৌকাকে এইতো সে দিন তাঁরা বিজয়ী করেছেন।
অামি এর অাগে অত্যন্ত বিশ্বাস নিয়ে পত্রিকায় লিখেছিলাম ‘ মাননীয় প্রধান মন্ত্রীই পারেন হাওরে কৃষকের কান্নার জলের নিদানের ঢেউ থামাতে’ শিরোনামে। জানিনা একথা গুলো অাপনার কাছে যাবে কিনা?যারা হাওরের ইজারার নামে বুর্জোয়া বেশে সব খাই এর দলে তাঁদের কাছ থেকে সেটা বাতিল করে প্রাকৃতিক সম্পদ ব্যবহারের মাধ্যমে
হাওর বাসী স্বাবলম্বী হওয়ার সুযোগ দেয়া সেটা করুনা নয়, সময়ের দাবি। তাছাড়া ঋণ,সুদ,বিদ্যুত বিলের বোঝা সহ বহুবিধ সমস্যায় জর্জরিত হাওর বাসী যেন
শহরের বাড়তি বোঝায় পরিণত না হয় সেটা দেখার দায়িত্ব ও অাপনার। নগরবিদদের মতে,শুধু ঢাকাতে ৩০ লাখ লোক বসবাস করার সক্ষমতা থাকলেও এখন সেখানে দেড়কোটির ও বেশী লোক বাস করছে! পত্রিকায় প্রকাশিত তথ্যে জানা যায় ঢাকা মহা নগরে প্রতিদিন ১হাজার ৪শত ১৮জন মানুষ বাড়ছে ফলে বছরে যুক্ত হচ্ছে৫লাখ ১৭হাজার ৫০০জন। হাওর দূর্যোগ যদি পুশ ফ্যাক্টর হিসেবে মানুষকে শহর মুখী করে তাহলে অবস্থা কি দাঁড়াবে? এছাড়া ইতোমধ্যে পরিকল্পনা কমিশনের সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের (জিইডি) প্রতিবেদনে প্রকাশিত তথ্যে দেখা যায়,পর্যাপ্ত
পুষ্টির অভাবে হাওর অঞ্চলে খর্বকায় মানুষের সংখ্যা সবচেয়ে বেশী। এ অবস্থা চলতে থাকলে হাওর অঞ্চল থেকে দক্ষ মানব সম্পদ প্রাপ্তির বিষয়টি ও অাজ বড়
হয়ে দাঁড়িয়েছে অার এজন্য হাওর অঞ্চলের জন্য পৃথক ভাবে ভাবার সুযোগ রাখে।
পরিবেশ বিষয়ের তাত্ত্বিকরা পরিবেশবাদের ক্ষেত্রে উন্নত বিশ্বের ৮০% ভোগ এবং উন্নয়নশীল দেশের দারিদ্র কে বিবেচনায় পরিবেশ বিপর্যয়ের যে শংকা প্রকাশ করে অাসছিলেন তার ভয়াল থাবা যে অাজ হাওরে অাঘাত করেছে তাতে সন্দেহ নেই। এ বিষয়ে সরকার না ভাবলে নিকট ভবিষ্যতে অারো চরম মূল্য দিতে হবে। :: মো. অাব্দুল মতিন প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ শাহজালাল মহাবিদ্যালয় জগন্নাথপুর,সুনামগঞ্জ

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24