শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৫:৫৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে তিনদিন ব্যাপি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলার উদ্বোধন ব্রিটেনের নির্বাচনে আফসানার বড় জয়ে জগন্নাথপুরে উৎসবের আমেজ ব্রিটিশ পালার্মেন্টে ঝড় তুলবে বিজয়ী বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ৪ নারী এমপি ব্রিটেনের নির্বাচনে একটি আসনে বিশাল জয় পেয়েছেন জগন্নাথপুরের আফসানা বেগম অপরাধীদের প্রতি মহানবীর আচরণ যেমন ছিল সুদখোরদের ধরতে জেলা ও উপজেলায় মাঠে নামছে প্রশাসন জগন্নাথপুরে হাওরের জরিপ কাজ শেষ, কাজের তুলনায় বরাদ্দ কম, প্রকল্প কমিটি হয়নি একটিও জগন্নাথপুরে ডিজিটাল বাংলাদেশ উপলক্ষ্যে র‌্যালি, চিত্রাঙ্কন ও কুইজ প্রতিযোগিদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ জগন্নাথপুরে শিশু সাব্বির হত্যার ঘটনার গ্রেফতার-১ এনটিভি ইউরোপের জগন্নাথপুর প্রতিনিধি নিয়োগ পেলেন আব্দুল হাই

মিয়ানমারকে বৃটেনের কড়া বার্তা, নিরাপত্তা পরিষদে বিতর্ক

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৭
  • ৬১ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::
বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের পূর্ণ নিরাপত্তা ও মর্যাদার সঙ্গে রাখাইনে তাদের বসতভিটায় ফেরাতে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদসহ বৈশ্বিক এবং দ্বিপক্ষীয়ভাবে মিয়ানমারের সঙ্গে আলোচনায় বসতে চাপ অব্যাহত রাখার অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করেছে বৃটেন। ঢাকা সফরকারী বৃটেনের পররাষ্ট্র ও উন্নয়ন বিভাগের দুজন প্রতিমন্ত্রী মার্ক ফিল্ড এমপি ও এলিস্টার বার্ট এমপি এমনটাই জানিয়েছেন। পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমের সঙ্গে বৈঠকে মন্ত্রীদ্বয় স্পষ্ট করেই বলেছেন, আজকে নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকসহ আগামী দিনেও মিয়ানমারের ওপর চাপ বাড়াতে এবং রোহিঙ্গাদের নিজ গৃহে ফেরাতে যেকোনো বৈশ্বিক পদক্ষেপে বৃটেন পূর্ণ সমর্থন দিয়ে যাবে। পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীও এক টুইট বার্তায় রোহিঙ্গা সংকট উত্তরণে সমর্থন প্রদানের জন্য বৃটেনের নেতৃত্বের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন। এদিকে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া নতুন-পুরান মিলে প্রায় ৯ লাখ রোহিঙ্গার অবস্থা সরজমিন দেখতে গতকাল কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং এলাকা পরিদর্শন করেছেন ঢাকাস্থ মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা ব্লুম বার্নিকাট। মার্কিন দূতাবাস জানিয়েছে, রাষ্ট্রদূত বার্নিকাট ব্যক্তিগতভাবে পরিস্থিতি মূল্যায়নে এলাকাটি ঘুরে দেখেছেন। ঢাকা আশা করছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ আগে ওই এলাকা সফরকারী ঢাকাস্থ বিদেশি কূটনীতিকদের পরিদর্শন ও মূল্যায়নে রোহিঙ্গা সংকটের বিষয়টি বিশ্ব সমপ্রদায়ের কাছে আরো স্পষ্ট হবে এবং সংকট উত্তরণে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদসহ বৈশ্বিক পদক্ষেপগুলো আরো জোরালো হবে। ওদিকে মিয়ানমার সফর শেষে বাংলাদেশে আসা বৃটিশ ফরেন অ্যান্ড কমনওয়েলথ অফিসের এশিয়া বিষয়ক মন্ত্রী মার্ক ফিল্ড প্রায় অভিন্ন ভাষাতেই বাস্তুচ্যুতদের ফিরিয়ে নিতে বার্মা সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। রাখাইনে ২৫শে আগস্ট থেকে শুরু হওয়া সহিংসতার মধ্যে এই প্রথম কোনো বিদেশি উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধিকে সেখানে যাওয়ার সুযোগ দেয় মিয়ানমার। ধ্বংসস্তূপ থেকে ফেরার পর বার্মায় দাঁড়িয়ে দেশটির সামরিক-বেসামরিক নেতৃত্বের প্রতি অত্যন্ত কড়া ভাষায় বৃটিশ মন্ত্রী বলেন, রাখাইনে গত কয়েক সপ্তাহে যে ভয়াবহ মানব-ট্র্যাজেডি ঘটে গেছে তা পুরোপুরি অগ্রহণযোগ্য। দেশটির কার্যকর নেতা স্টেট কাউন্সেলর অং সান সুচির সঙ্গে বৈঠকেও বৃটিশ মন্ত্রী বলেছেন, রাখাইন সহিংসতার লাগাম টেনে ধরতে এখনই ব্যবস্থা নিতে হবে। বাস্তুচ্যুত লাখ লাখ রোহিঙ্গা, যারা প্রাণে বাঁচতে নিজের জন্মমাটি কিংবা দেশ ছাড়তে বাধ্য হয়েছে তাদের দ্রুততম সময়ের মধ্যে নিজ নিজ গৃহে ফেরাতে হবে। রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর বর্মী বাহিনীর অব্যাহত আক্রমণের প্রেক্ষাপটে আজ জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে এক উন্মুক্ত আলোচনা হতে যাচ্ছে। বাংলাদেশ সময় রাত ১টায় এই আলোচনা শুরু হবে। সেখানে কী সিদ্ধান্ত হবে সে দিকে এখন দুনিয়ার দৃষ্টি। বৃটেন, যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স, সুইডেন, মিশর, কাজাকিস্তান ও সেনেগাল- নিরাপত্তা পরিষদের ওই ৭ সদস্যের আহ্বানে ঐতিহাসিক এ আলোচনার আয়োজন। ২০০৫ সালের পর রোহিঙ্গা প্রসঙ্গে এই প্রথম বৈঠকে বসেছে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ। বৈঠক রোহিঙ্গাদের ওপর মিয়ানমার সেনাদের নৃশংসতা নিয়ে উন্মুক্ত বিতর্ক হবে। তাতে জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেঁজ বক্তৃতা করবেন। জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি মাসুদ বিন মোমেনও বাংলাদেশের অবস্থা ও অবস্থান তুলে ধরার সুযোগ পাবেন। ওই আলোচনায় চীন ও রাশিয়ার সমর্থন নিয়ে রোহিঙ্গা নির্যাতন বন্ধ এবং তাদের নিরাপত্তা ও মর্যাদার সঙ্গে রাখাইনে ফেরানো সংক্রান্ত একটি বিবৃতি আশা করছে রোহিঙ্গা সংকটে জর্জরিত বাংলাদেশসহ গোটা বিশ্ব। এদিকে রোহিঙ্গা ইস্যুতে জাতিসংঘের রাজনৈতিক ফোরাম থার্ড কমিটির বৈঠক আগামী ২রা অক্টোবর হবে। সেখানে ওআইসির পক্ষ থেকে সৌদি আরব বিষয়টি তুলবে। ওআইসির প্রস্তাবে রোহিঙ্গাদের ওপর মাত্রাতিরিক্ত বলপ্রয়োগ বন্ধ, জাতিসংঘের মানবাধিকার কমিশনের তদন্ত দলকে মিয়ানমারে যাওয়ার অনুমতি দেয়া, আনান কমিশনের সুপারিশ বাস্তবায়ন এবং রোহিঙ্গা সমস্যার টেকসই সমাধানের আহ্বান জানানো হয়েছে।
রোহিঙ্গাদের জন্য আরো সহায়তা দেবে বৃটেন: বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের সাহায্যার্থে আরো ৩০ মিলিয়ন পাউন্ড দেবে যুক্তরাজ্য। গতকাল যুক্তরাজ্যের ফরেন অ্যান্ড কমনওয়েলথ বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মার্ক ফিল্ডের নেতৃত্বে ৯ সদস্যের প্রতিনিধি দল সচিবালয়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়ার সঙ্গে বৈঠক করেন। বৈঠক শেষে ত্রাণমন্ত্রী সাংবাদিকদের এই তথ্য জানিয়েছেন। মন্ত্রী বলেন, যুক্তরাজ্যের প্রতিনিধি দল রোহিঙ্গাদের জন্য আরো ৩০ মিলিয়ন পাউন্ড সহায়তা দেয়ার কথা বলেছেন। এর আগে দেশটি ৫ দশমিক ৯ মিলিয়ন পাউন্ড সহায়তা দিয়েছিল।
যুক্তরাষ্ট্রের সহায়তা অব্যাহত: এদিকে মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা ব্লুম বার্নিকাটের রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন বিষয়ে দূতাবাস একটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তি প্রচার করেছে। এতে জানানো হয়েছে, রোহিঙ্গা সংকট মোকাবিলায় বাংলাদেশে যুক্তরাষ্ট্রের সহায়তা অব্যাহত রয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের আন্তর্র্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা ইউএসএআইডি’র মাধ্যমে বাংলাদেশে রোহিঙ্গা সংকট মোকাবিলায় আরো ষাট লাখ ডলার জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য সংস্থাকে (ডব্লিউএফপি) প্রদান করছে। এই তহবিল ডব্লিউএফপিকে এই বছরের শুরুতে দেয়া দশ লাখ ডলারের সঙ্গে যুক্ত হলো। এই সহায়তা খাদ্য বিতরণের পাশাপাশি মানবিক সহায়তা প্রদান করতে প্রয়োজনীয় সরঞ্জামাদি দেবে।
নিরাপত্তা পরিষদে রোহিঙ্গা ইস্যুতে বিতর্ক: ধর্ষিত নারীর আর্তনাদ। যুবতীর নগ্ন ক্ষতবিক্ষত, ছিন্নভিন্ন মৃতদেহ। বুলেটে ঝাঁঝরা হয়ে যাওয়া সাধারণ মানুষের মৃতদেহ। জীবন্ত মানুষের হাত, পা কেটে নেয়ার পর গলা কেটে হত্যা। নবজাতককে নৃশংস নির্যাতনের পর পিতা-মাতার সামনে পানিতে ছুড়ে ফেলে দেয়া। ভেতরে মানুষ রেখে বাড়িতে আগুন দেয়া। গ্রামের পর গ্রাম জ্বালিয়ে দেয়া- মিয়ানমারের এসব কষ্টকথা বিশ্ববাসীকে স্তম্ভিত, ক্ষুব্ধ করেছে। চারদিকে ঘৃণা ছড়িয়ে পড়ছে। কিন্তু বন্ধ হচ্ছে না মিয়ানমারে সেনাবাহিনীর নৃশংসতা। এমনই এক প্রেক্ষাপটে গত রাতে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে রোহিঙ্গা ইস্যুতে বিতর্ক হয়। বাংলাদেশের সময় অনুযায়ী গভীর রাতে চলা এ অনুষ্ঠান থেকে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার কথা জাতিসংঘের। এর মধ্যে অবরোধ, অস্ত্র নিষেধাজ্ঞার আহ্বানও ছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সবকিছু নির্ভর করছিল চীন ও রাশিয়ার ওপর। ২৫শে আগস্ট রাখাইনে সহিংসতা শুরুর পর মিয়ানমারের সেনাবাহিনী যে নৃশংসতা শুরু করে তাতে বিশ্বজুড়ে ক্ষোভ ও নিন্দা ঝরে পড়ে। কিন্তু মিয়ানমারের পক্ষাবলম্বন করে চীন ও রাশিয়া। গত রাতে নিরাপত্তা পরিষদে কী সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বা হচ্ছে সে সম্পর্কে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত জানা যায় নি। ১৫ সদস্যের নিরাপত্তা পরিষদে মিয়ানমার বা অন্য যেকোনো দেশের বিরুদ্ধে কোনো প্রস্তাব আনা হলে তা পাস হতে কমপক্ষে ৯টি ভোট পড়তে হয়। ওই ভোটে প্রস্তাব পাস হলেও নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী ৫ সদস্যের অন্যতম একটি সদস্য দেশ ভেটো দিলেই প্রস্তাব বাতিল হয়ে যায়। ফলে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের শাস্তিমূলক পদক্ষেপ, বিশেষত যদি অবরোধের প্রস্তাব আসে তাহলে তা ব্যর্থ হওয়ার আশঙ্কাই বেশি। এরই মধ্যে মিয়ানমারকে সমর্থন দেয়ায় আগেই ধারণা করা হচ্ছিল, চীন ও রাশিয়া এমন শাস্তিমূলক কোনো পদক্ষেপের বিরুদ্ধে ভেটো দেবে। যদি তারা তা-ই দেয় তাহলে এক্ষেত্রে জাতিসংঘ ব্যর্থ হবে তাদের মূল লক্ষ্য অর্জনে। আর সেটা হলো গণহত্যা বন্ধ করা। তবে চীন ও রাশিয়া বিবেককে দংশন করে শুধু নিজেদের স্বার্থে এমন কাজ করবে বা করেছে কিনা তা নিশ্চিত করে কেউ বলতে পারেন নি আগেভাগে। আজ ভোর নাগাদ এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত পাওয়ার কথা। অতীতে এরকমভাবে কয়েকটি দেশের বিরুদ্ধে গণহত্যা বন্ধে সক্ষম হয় নি জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ। এর কারণ, পরিষদে ভেটো ক্ষমতাসম্পন্ন কতিপয় শক্তিধর রাষ্ট্র। তাদের রাজনৈতিক প্রতিশ্রুতির অভাবে মাত্র ১০০ দিনে আট লাখ মানুষকে গণহত্যা করা হয় রুয়ান্ডায়। ওদিকে এর আগে রোহিঙ্গা ইস্যুতে তিন দফা রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেছে নিরাপত্তা পরিষদ। জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তনিও গুতেরাঁ রোহিঙ্গাদের ওপর নৃশংসতাকে জাতি নিধন হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। গত রাতের উন্মুক্ত বিতর্কে বক্তব্য রাখার কথা জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তনিও গুতেরাঁর। মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সহিংসতার বিস্তারিত বর্ণনা দেয়ার কথা তার। জাতিসংঘে বৃটিশ উপ- রাষ্ট্রদূত জোনাথন অ্যালেন বলেছেন, সহিংসতা যাতে বন্ধ হয় সেজন্য মিয়ানমারকে পরিষ্কার বার্তা দিতে হবে। রাখাইন রাজ্যে মানবিক সহায়তা অনুমোদন করতে হবে। রোহিঙ্গাদের মর্যাদা নির্ধারণ করতে হবে। ওদিকে ফরাসি রাষ্ট্রদূত ফ্রাঁসোয়া দেলাত্রি বলেছেন, মিয়ানমারের ওপর তীব্র চাপ সৃষ্টি করতে নিরাপত্তা পরিষদকে কঠোর ও ঐক্যবদ্ধ সিদ্ধান্ত নিতে হবে। এ মাসের শুরুর দিকে এই সহিংসতা বন্ধের আহ্বান জানিয়েছিল নিরাপত্তা পরিষদ। তাতে সমর্থন দিয়েছিল চীন। দেশটি মিয়ানমারের সাবেক সামরিক জান্তাদের মিত্র বলে পরিচিত। এমন কি এখনো নির্বাচিত সরকার ক্ষমতায় আসার পর তাদেরকেই ‘বিগ ব্রাদার’ মানছে মিয়ানমার। নিরাপত্তা পরিষদের ওই আহ্বান ও তাতে চীনের সমর্থনের পরও রোহিঙ্গাদের দেশত্যাগ অব্যাহত রয়েছে।
রোহিঙ্গা ট্র্যাজেডি অগ্রহণযোগ্য-বৃটেন: অং সান সুচির সঙ্গে সাক্ষাৎ করে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে নৃশংসতার বিরুদ্ধে কঠোর বার্তা পৌঁছে দিলেন বৃটেনের ফরেন অ্যান্ড কমনওয়েলথ অফিসের এশিয়া বিষয়ক মন্ত্রী মার্ক ফিল্ড। তিনি গতকাল রাখাইন রাজ্য সফর শেষে সুচির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। এ সময় তিনি সাফ জানিয়ে দিয়েছেন রাখাইনে আমরা গত কয়েক সপ্তাহে যা দেখেছি তা কঠোরতম ও অগ্রহণযোগ্য এক ট্র্যাজেডি। এই সহিংসতা বন্ধ করতে হবে। যারা বাড়ি ছাড়া হয়েছে, দেশ ছাড়া হয়েছে তাদেরকে দ্রুততম সময়ে এবং নিরাপদে তাদের বাড়িতে ফিরতে দিতে হবে। সাক্ষাৎ শেষে মার্ক ফিল্ড বলেছেন, অং সান সুচি ও অন্যদের সঙ্গে সাক্ষাতে আমি সহিংসতা বন্ধে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের আহ্বান মেনে নেয়ার ওপর খুব বেশি জোর দিয়েছি। বলেছি, রাখাইনে ওইসব মানুষের কাছে মানবিক সুবিধা পৌঁছে দেয়ার অনুমতি দিতে হবে। বৃটিশ সরকারের ওয়েবসাইটে গতকাল রাতে প্রকাশিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা বলা হয়। এতে বলা হয়, অং সান সুচিকে সাক্ষাতে এ সংক্রান্ত বিষয়ে জরুরি পদক্ষেপ নিতে আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। এক্ষেত্রে আর্জেন্ট ভিত্তিতে তিনি রাখাইনে রোহিঙ্গা সংকট সমাধানের আহ্বান জানান। রাখাইনে গত ২৫শে আগস্ট সহিংসতা শুরুর পর প্রথম কোনো বিদেশি পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য পরিদর্শন করলেন। ওই সহিংসতায় প্রায় ৫ লাখ রোহিঙ্গা পালিয়ে আশ্রয় নিয়েছেন বাংলাদেশে। রাখাইন রাজ্য সফর শেষে তিনি রাজধানী ন্যাপিড’তে সুচির সঙ্গে ওই সাক্ষাৎ হয় তার। রাখাইন রাজ্য সফরের সময় তিনি সেখানে বাস্তুচ্যুত মানুষদের দেখতে পেয়েছেন। রোহিঙ্গা মুসলিমদের বিরুদ্ধে সহিংসতায় এসব মানুষ বাড়িঘর ছাড়তে বাধ্য হয়েছে। এসব প্রত্যক্ষ করে মার্ক ফিল্ড সহিংসতা বন্ধের আহ্বান জানান। সব সম্প্রদায়কে সুরক্ষা নিশ্চিত করতে নিরাপত্তা রক্ষাকারীদের দায়িত্ব নিতে আহ্বান জানান। সরকারের কাছে আহ্বান জানান আক্রান্ত এলাকায় সহায়তা পৌঁছে দেয়ার পূর্ণাঙ্গ সুযোগ। জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব কফি আনানের নেতৃত্বাধীন রাখাইন এডভাইজরি কমিশন (এআরসি) যেসব সুপারিশ করেছে তাদের রিপোর্টে তা বাস্তবায়নে বৃটেনের আহ্বানকে আবারো তিনি জোরালোভাবে তুলে ধরেন।
সুচিকে নিয়ন্ত্রণ করে বার্মার সামরিক নেতৃত্ব-বৃটিশ মন্ত্রী: এদিকে রাখাইনে চলমান সহিংসতা নিয়ে বৃটেনের সঙ্গে আলোচনায় মিয়ানমারের কার্যকর নেতা অং সান সুচি নিজের ক্ষমতা নিয়ে অসহায়ত্ব প্রকাশ করেছেন। দু’দিন আগে রাখাইন সফরকারী বৃটিশ পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মার্ক ফিল্ড এমপি বৈঠক করেন স্টেট কাউন্সেলর সুচির সঙ্গে। বার্মা থেকে ঢাকায় আসা ওই মন্ত্রী গকতাল বারিধারায় এক সংবাদ সম্মেলনে গুরুত্বপূর্ণ ওই বৈঠকের বিষয়ে কথা বলেন। বৃটিশ মন্ত্রী বলেন, সুচি আমাকে স্পষ্ট করেই বলেছেন তিনি রাখাইনের বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের তাদের বসতভিটায় নিরাপদে ফেরাতে চান। কিন্তু সেখানে এক জটিল (কমপ্লিকেটেড) পরিস্থিতি বিরাজমান। তাছাড়া সংবিধান তাকে বেশি ক্ষমতা দেয়নি। সামরিক নেতৃত্ব তাকে (সুচিকে) নিয়ন্ত্রণ করে! রোহিঙ্গা ইস্যুতে আন্তর্জাতিক চাপ এবং দেশের অভ্যন্তরীণ বাধ্যবাধকতার মধ্যে সমন্বয়ের চেষ্টা করছেন বলে জানিয়েছেন সুচি। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ইউএনএইচসিআর বলেছে সেখানে রোহিঙ্গাদের ফেরত যাওয়া নিয়ে তাদের শঙ্কা রয়েছে। বিষয়টিকে বৃটেন কিভাবে দেখছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, জটিলতা আছে এটা মানতে হবে। তারপরও আমরা আশাবাদী। অবশ্য এ জন্য বাংলাদেশকে আরো কিছু সময় ধৈর্য ধরতে হবে। বৃটিশমন্ত্রী রাখাইনে সহিংসতা বন্ধ, ত্রাণকর্মীদের প্রবেশ উন্মুক্তকরণ, রাখাইন কমিশনের পূর্ণ এবং দ্রুত বাস্তবায়নের তাগিদ দেন। এ ইস্যুতে ঐতিহাসিক বন্ধুত্বের কথা স্মরণ করে বৃটিশমন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গা সংকটের সুরাহায় আমরা আন্তর্জাতিক যে কোনো ফোরামে বাংলাদেশের পাশে থাকবো। রাখাইনে অশান্তির আগুন জ্বলতে থাকলে বার্মার ওপর অবরোধ আরোপের কোনো প্রস্তাব বৃটেন দিবে কি-না? এমন প্রশ্নে অবশ্য মন্ত্রী সরাসরি কোনো জবাব দেননি। বলেন, আর কয়েক ঘণ্টা পরেই নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠক বসছে। এখনই এ নিয়ে আগাম মন্তব্য সমীচীন হবে না। তাছাড়া মিয়ানমারের গণতন্ত্র বিকাশমান। গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় যাওয়ার পর (অল্প কয়েক বছর হয়) অবরোধ তুলে নেয়া হয়েছে। এ অবস্থায় গণতন্ত্র বিকাশের সুযোগ দেয়ার কথা বলেন তিনি। রোহিঙ্গা ইস্যুতে বার্মার সামরিক নেতৃত্বের সঙ্গে আলোচনায় বৃটেনের কোনো আগ্রহ আছে কি-না এমন প্রশ্নে বৃটিশমন্ত্রী বলেন, আমরা গণতান্ত্রিক দেশ। গণতান্ত্রিক নেতৃত্বের সঙ্গেই ডিল করি। সামরিক নেতৃত্বের সঙ্গে নয়।
রাখাইনে জাতিসংঘ কর্মকর্তাদের সফর বাতিল করলো মিয়ানমার: রাখাইন রাজ্যে জাতিসংঘ কর্মকর্তাদের পূর্বপরিকল্পিত সফর বাতিল করেছে মিয়ানমার। কিন্তু সফর বাতিল করার কারণ সম্পর্কে কিছু জানায়নি দেশটি। মিয়ানমারের ইয়াংগুনে জাতিসংঘের একজন মুখপাত্র বিবিসি’কে এ তথ্য জানান। এ সফর বাস্তবায়ন হলে তা হতো সহিংসতা শুরুর পর রাখাইনে জাতিসংঘ কর্মকর্তাদের প্রথম সফর। বুধবার জাতিসংঘের মুখপাত্র স্টিফেন দুজারিক বলেছিলেন, জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থার প্রধানরা রাখাইন সফরে অংশ নেবেন। ওই অঞ্চলে ব্যাপক প্রবেশাধিকার দেয়ার ক্ষেত্রে এই সফর প্রথম পদক্ষেপ বলে উল্লেখ করেন তিনি।
পাশে থাকবে যুক্তরাষ্ট্র: এদিকে আমাদের স্টাফ রিপোর্টার, কক্সবাজার থেকে জানান, মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাট বিপন্ন রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বাংলাদেশের জনগনের প্রশংসা করেন। বলেন, রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে যুক্তরাষ্ট্র আন্তরিক। এ জন্য তিনি এবার সহ ৩ বার ক্যাম্প পরিদর্শনে এসেছেন। খোঁজখবর নিয়েছেন মিয়ানমার সেনাবাহিনীর বর্বরতার শিকার হয়ে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের। এ সময় তিনি রোহিঙ্গাদের সমস্যা সমাধানে যুক্তরাষ্ট্র কাজ করবে বলেও জানান। এছাড়া রোহিঙ্গাদের সবধরনের সহযোগিতার ও আশ্বাস দেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বাংলাদেশে নিযুক্ত রাষ্ট্রদূত মার্শিয়া বার্নিকাট বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১টায় কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং শরণার্থী ক্যাম্প পরিদর্শন করেছেন। রাষ্ট্রদূত পরিদর্শনকালে বিভিন্ন এনজিও পরিচালিত মেডিক্যাল সেন্টার, স্যানিটেশন, টিকাদান কর্মসূচি, বাসস্থানসহ বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে নিবন্ধন কার্যক্রম ঘুরে দেখেন। তিনি মিয়ানমারের নির্যাতিত সম্ভ্রম হারানো রোহিঙ্গা নারীও শিশুদের করুণ অবস্থা দেখে আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন। এছাড়াও রাখাইন রাজ্যে সেনা পুলিশের হত্যাযজ্ঞের লৌমহষর্ক ঘটনার কথা ধৈর্র্য সহকারে শুনেন। পরিদর্শন শেষে এসময় ইউএনএইচসিআর, আইওএম এর বাংলাদেশস্থ প্রতিনিধিসহ জেলা প্রশাসনের উচ্চ পর্যায়ের বিভিন্ন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24