শনিবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৯:১৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
সৌদিতে জগন্নাথপুরের কিশোরীকে আটককে রেখে অমানবিক নির্যাতন চলছে, মেয়েকে ফিরে পেতে মায়ের আহাজারি জগন্নাথপুরে আমনের বাম্পার ফলন হলেও, ন্যায্য দাম নিয়ে সংশয়ে কৃষকরা জগন্নাথপুরে আনন্দ হত্যাকাণ্ডের রহস্য অজানা, নেই গ্রেফতার খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে কাল সারাদেশে বিএনপির বিক্ষোভ সুস্থতা আল্লাহ পাকের নেয়ামত একটি নৃশংস হত্যাকাণ্ড নাড়িয়ে দিল জগন্নাথপুরবাসীকে, ক্রাইম সিন ইউনিটের ঘটনাস্থল পরিদর্শন অফিসার্স ক্লাব থেকে রানীগঞ্জের তহশীলদারসহ ৪ জুয়াড়ি গ্রেফতার আজানের মর্মবানী জগন্নাথপুরে ২২তম ক্রিকেট টুর্নামেন্টের উদ্বোধন সম্পন্ন জগন্নাথপুরে সেই সড়কে ২৩ কোটি টাকার টেন্ডার সম্পন্ন, নতুন বছরের শুরুতেই কাজ শুরু হতে পারে

যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশের নদী রক্ষার দাবীতে প্রবাসীদের মানববন্ধব

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৭
  • ৭৩ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::
যুক্তরাষ্ট্রের প্রবাসীদের উদ্যোগে সুরমা নদীর উৎসমুখ খনন এবং দখল ও দূষনের হাত থেকে সিলেট বিভাগ ও দেশের নদ-নদীকে রক্ষার দাবীতে মানববন্ধব কর্মসূচির আয়োজন করে পরিবেশবাদী সংগঠন বাংলাদেশ এনভায়রমেন্ট নেটওয়ার্ক (বেন), বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) ও সুরমা রিভার ওয়াটারকিপার ।

রোববার বিকাল ৫টায় নিউইয়র্ক নগরীর জ্যাকসন হাইটস-এর ডাইভারসিটি প্লাজায় আয়োজিত এ মানববন্ধন কর্মসুচীতে বিভিন্ন বয়সী প্রবাসী নাগরিকেরা অংশগ্রহন করেন । ‘সুরমা বাঁচাও সিলেট বাঁচাও, নদী বাঁচাও, দেশ বাঁচাও’, ‘সেইভ রিভার, সেইভ আওয়ার এগজিস্টেন্স’, ‘নদী বাঁচলে বাঁচবে দেশ, সুন্দর থাকবে বাংলাদেশ’, ‘সিলেটের নদী সিলেটের প্রাণ, সিলেট বাঁচাতে নদী বাঁচান’, ‘মরলে নদী সবুজ শেষ, বাংলা হবে মরুর দেশ’ ইত্যাদি নানান বক্তব্যের প্ল্যাকার্ড হাতে নিয়ে প্রায় দেড় ঘন্টাব্যাপী এ মানববন্ধন কর্মসুচি পালন করা হয় ।

মানববন্ধন কর্মসূচি পালনকালে অনুষ্ঠিত হয় সমাবেশে । বেন-এর সংগঠক রানা ফেরদৌস-এর সভাপতিত্বে ও লেখক-গীতিকার ইশতিয়াক রুপু-এর সঞ্চালনায় সমাবেশে মূল বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা)-এর সিলেট শাখার সাধারন সম্পাদক ও সুরমা রিভার ওয়াটারকিপার আব্দুল করিম কিম । কিম বলেন, সিলেটের প্রধান নদী সুরমার উৎসমুখ ভরাট হয়ে গেছে । অবিলম্বে সুরমার উৎসমুখ খনন করা না হলে সুরমা তাঁর আত্মপরিচয় হারিয়ে ফেলবে । দেশে এই দাবী জানানো হয়েছে অনেকবার । প্রবাসের মানুষকে সাথে নিয়ে সুরমার উৎসমুখ খননের দাবি আবারো জানাচ্ছি । তিনি, সুরমা’সহ সিলেট বিভাগের শত নদী রক্ষায় প্রবাসীদের জোরালো ভাবে এগিয়ে আসার আহবান জানান ।

টাইম টিভির সিইও প্রবাসী সাংবাদিক এম এ তাহের বলেন, প্রবাসীরা যেখানেই থাকেন না কেন, শৈশবের স্মৃতিময় নদীর কথা ভুলতে পারেন না । সেই নদীর বিপন্নতার কথা শুনলে মন বিষণ্ণ হয়ে যায় । তিনি পিয়াইন, সারি, ডাউকি, ধলাই, ভাদেশ্বরা নদীর স্মৃতিচারণ করে বলেন, সিলেট অঞ্চলের নদ-নদীরক্ষায় পরিবেশবাদীদের চলমান লড়াইয়ে প্রবাসীদের সম্পৃক্ত করতে তিনি প্রচেষ্টা চালাবেন ।

বেন-এর সংগঠক রানা ফেরদৌস বলেন, পরিবেশ আন্দোলনের অব্যাহত কর্মসুচির কারনে মানুষ নদীরক্ষার কথা ভাবতে শুরু করেছে । সরকারও নদী রক্ষাকে গুরুত্ব দিতে বাধ্য হচ্ছে । উচ্চ আদালত পরিষ্কারভাবে নদী বিষয়ক দিক নির্দেশনা ঘোষণা করেছে । প্রধানমন্ত্রী নদী বাঁচাতে টাস্কফোর্স ও নদী কমিশন তৈরি করে দিয়েছেন। কিন্তু গত ৮ বছরে একটি নদীও সম্পুর্ণরুপে দখল-দূষন মুক্ত হয়নি। তাই পরিবেশ আন্দোলনকে আরোও শক্তিশালী করার মাধ্যমে নদীরক্ষার কাজকে সহযোগিতা করা প্রয়োজন । তিনি বলেন, পরিবেশ রক্ষার লড়াই কারো ব্যাক্তিগত লড়াই নয় । এ লড়াইয়ে জয়ী হলে সকলের জয়, পরাজয় হলে সকলের পরাজয় ।

সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সুনামগঞ্জ জেলা সমিতি’র সভাপতি জোসেফ চৌধুরী, প্রবাসী সংগঠক ও সাংবাদিক হেলিম আহমদ, কমিউনিটি নেতা ফকু চৌধুরী, শেখ আতিকুল ইসলাম ও এবাদ চৌধুরী, লেখিকা শাহানা বেগম, নিউইয়র্ক সিটি যুবলীগ সভাপতি হোসেন আহমদ টিপু, খোয়াই তীরের মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল বারি, সিলেটের সুরমা তীরের প্রবাসী গৃহিণী শাহিনা বেগম, বালাগঞ্জের বড়ভাগা নদীতীরের খন্দকার আলী হামজা, বিয়ানীবাজারের লুলা নদী তীরের মাহবুব সুন্নাহ, মনু তীরের সৈয়দ লিটু, তাহিরপুরের যাদুকাটা নদীতীরের সুধাময় দাস, বিশ্বনাথের বাসিয়া তীরের নিরঞ্জন কুমার চৌধুরী, খুলনার পশুর তীরের লরেন্স সরকার, ঢাকার বুড়িগঙ্গা তীরের প্রবাসী টেক্সিচালক মো শাহজাহান, নেত্রকোনার সোমেশ্বরী নদীতীরের আসলাম খাঁন প্রমুখ ।

‘দখল দূষণমুক্ত প্রবহমান নদী; বাঁচবে প্রাণ ও প্রকৃতি’ প্রতিপাদ্যে এ বছর বাংলাদেশে বিশ্ব নদী দিবস উদযাপন হয়েছে । প্রতিবছর সেপ্টেম্বর মাসের শেষ রোববার বিশ্বময় নদী রক্ষার সংগ্রামীরা বিশ্ব’ নদী দিবস পালন করে । কানাডার নদীপ্রেমী মার্ক অ্যাঞ্জেলোর উদ্যোগে ১৯৮০ সালে দিবসটি সর্বপ্রথম পালিত হয়। বিশ্বের অন্যান্য দেশে দিবসটি পরবর্তিতে উদযাপন হতে থাকে । স্বস্ব অঞ্চলের নদীরক্ষার লড়াইয়ে দিবসটি নদীকর্মীদের অনুপ্রেরণা যোগায় । জাতিসংঘ ২০০৫ সালে দিবসটি ‘এনডোর্স’ বা অনুসমর্থন করে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24