বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ১০:৩৩ পূর্বাহ্ন

রাজন হত্যার মতো জগন্নাথপুরের সন্তান স্কুল ছাত্র আবু সাঈদ খুনের দ্রুত বিচার দাবি

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর, ২০১৫
  • ১০৮ Time View

স্টাফ রিপোর্টার:: সিলেটের আলোচিত শিশু রাজন হত্যার মতো আরেক আলোচিত শিশু জগন্নাথপুরের সন্তান সাঈদ হত্যার দ্রুত বিচার দাবী করলেন সাঈদের বাবা। তিনি বলেন, রাজন হত্যার মতো আমার ছেলের হত্যার ভিডিও নেই। ফলে সারাদেশে এ নিয়ে আলোড়নও সৃষ্টি হয়নি। তাই বলে কী আমি ছেলে হত্যার বিচার পাবো না। তিনি ক্ষুব্দকন্ঠে বলেন,আমি দ্রুত ন্যায় বিচার চাই। জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়নের খাসিলা গ্রামের মতিন মিয়া সিলেট শহরের দর্জিবন্দ বসুন্ধরা ৭৪ নম্বর বাসা ভাড়া নিয়ে ছেলে আবু সাঈদ (৯)কে নিয়ে বসবাস করতেন। ছেলেটি রায়নগর শাহমীর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪র্থ শ্রেণির ছাত্র ছিলো । তিনি বলেন, আজ বৃহস্পতিবার ওই হত্যা মামলার চার্জগঠনের শুনানির তারিখ ধার্য আছে মহানগর হাকিম আদালতে। চার্জশীট এর ওপর শুনানির দুটি তারিখ পিছিয়েছে মহানগর দায়রা জজ আদালত থেকে নিম্ন আদালতে মামলার নথি না আসার অজুহাতে বলে জানিয়েছেন সাইদের বাবা।
গত ১১ মার্চ সকাল সাড়ে ১১টার স্কুলে যাওয়ার পথে অপহরণ করা হয় শিশু সাঈদকে। পুলিশ কনস্টেবল এবাদুর রহমান, পুলিশের সোর্স আতাউর রহমান গেদা, জেলা ওলামা লীগ নেতা নুরুল ইসলাম রাকিব ও মাহিদ হোসেন মাসুদ মিলে অপরহরণ করে সাঈদকে। পরের দিন (১২ মার্চ) কনস্টেবল এবাদুরের বাসায় শিশুটিকে হত্যা করে ঘাতকরা। লাশ গুম করে রাখা হয় এবাদুরের ভাড়া বাসার ছাদের চিলেকোঠায়। হত্যার পর ঘাতকেরা সাঈদের বাবা ও মামা জয়নাল আবেদীনের কাছে ৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করেন।পরে ১৪ মার্চ রাত ১০টায় কনস্টেবল এবাদুরের বাসার ছাদের চিলেকোঠা থেকে ৭টি বস্তায় মোড়ানো আবু সাঈদের গলিত মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।সাঈদকে হত্যার চার মাস পর গত ৮ জুলাই সিলেটের কুমারগাঁওয়ে নৃশংস নির্যাতনের মাধ্যমে হত্যা করা হয় শিশু সামিউল আলম রাজনকে। সেই হত্যাকান্ডের ভিডিওচিত্র ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়লে দেশজুড়ে আলোড়ন সৃষ্টি হয়। দেশজুড়ে ক্ষোভের মুখে রাজন হত্যার আসামীদের গ্রেপ্তার ও দ্রুত বিচার সম্পন্ন করতে উদ্যোগী হয় সরকার।
এরফলে হত্যাকান্ডের চার মাসের মধ্যেই শেষ হয়ে গেছে রাজন হত্যার বিচার কাজ। আগামী ৮ নভেম্বর চাঞ্চল্যকর এই মামলার রায়ের তারিখ ধার্য করা হয়েছে। তবে আটকে আছে রাজনের চার মাস আগে সিলেটে খুন হওয়া শিশু সাঈদ হত্যার বিচার কাজ।

এনিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে সাঈদের বাবা মতিন মিয়া বলেন, রাজন হত্যার ঘটনা অত্যন্ত নৃশংস। এই হত্যার ভিডিও সকলকেই নাড়া দিয়েছে। রাজন হত্যার বিচার দ্রুত সম্পন্ন হওয়ায় আমিও খুশি। এটি একটি দৃষ্ঠান্ত হয়ে থাকবে। কিন্তু আমার ছেলেকে হত্যার সময় ঘাতকরা ভিডিও করেনি বলে আমি কী বিচার পাবো না, প্রশ্ন রাখেন মতিন মিয়া।
সাঈদের মামা জয়নাল আবেদীন জানান, বৃহস্পতিবার সিলেট মহানগর হাকিম আদালতে সাঈদ হত্যার মামলার অভিযোগ পত্রের উপর শুনানি অনুষ্ঠিত হবে। এরআগে মামলার নথি উচ্চ আদালতে থাকায় দু’দফা পিছিয়ে যায় শুনানি।

জানা যায়, হত্যার প্রায় ছয়মাস পর গত ২৪ সেপ্টেম্বর শিশু আবু সাঈদ হত্যা মামলায় চারজনকে অভিযুক্ত করে অভিযোগপত্র প্রদান করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) মোশাররফ হোসাইন।

পুলিশ কনস্টেবল এবাদুর রহমান, পুলিশের সোর্স আতাউর রহমান গেদা, জেলা ওলামা লীগ নেতা নুরুল ইসলাম রাকিব ও মাহিদ হোসেন মাসুদকে অভিযুক্ত করে এ অভিযোগপত্র প্রদান করা হয়।

এরআগে এ ঘটনায় গ্রেপ্তার করা হয়, সিলেট মহানগরীর বিমানবন্দর থানার পুলিশ কনস্টেবল এবাদুর, জেলা ওলামা লীগের এক নেতা নুরুল ইসলাম রাকিব, সোর্স আতাউর রহমান গেদাকে। এদের তিনজনই আদালতে হত্যার দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দেন। এদিকে জগন্নাথপুরের সন্তান আবু সাঈদ খুনের ঘটনায় জগন্নাথপুরসহ সিলেটের বিভিন্ন জায়গা প্রতিবাদ ও নিন্দার ঝড় উঠে।জগন্নাথপুরবাসী শিশু রাজন হত্যার মতো শিশু আবু সাঈদ খুনের দ্রুত বিচার দাবী করেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24