সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯, ১০:৫৩ অপরাহ্ন

রানীগঞ্জ বাজারে দোকান উচ্ছেদ কে কেন্দ্র করে আওয়ামীলীগ ও ছাত্রলীগ সভাপতির দ্বন্ধ,উত্তেজনা ভাংচুরের অভিযোগ

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৬
  • ৪৭ Time View

স্টাফ রিপোর্টার:: জগন্নাথপুর উপজেলার রানীগঞ্জ বাজারে একটি ফলের দোকান বসানো ও উচ্ছেদকে কেন্দ্র করে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি সুন্দর আলী ও ছাত্রলীগ সভাপতি আজমল হোসেন মিটুর মধ্যে দিনভর উত্তেজনা ও সংঘর্ষ,ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষে ঘটনায় কোন হতাহতের খবর পাওয়া না গেলেও একটি দোকান ভাংচুর ও লুটপাটের অভিযোগ উঠেছে। রানীগঞ্জ বাজারের

স্থানীয় ব্যাবসায়ীরা জানান- জগন্নাথপুর উপজেলার রানীগঞ্জ বাজারের এক ব্যাবসায়ী রাণীগঞ্জ বাজারে ফলের ব্যবসা করে আসছেন। সম্প্রতি কৃষি ব্যাংকের নীচে ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি আজমল হোসেন মিটুর মিটুন টাচ নামের দোকানের সামনে ওই ব্যবসায়ীর ফলের দোকান বসানো হলে কৃষি ব্যাংকে যাতায়াতকারী গ্রাহক ও মসজিদে যাতায়াতকারী লোকদের সমস্যার সৃষ্টির অভিযোগ এনে মিটু ওই দোকান উচ্ছেদের প্রচেষ্ঠা চালান। আর এতে বাধা দেন বাজার কমিটির একাংশের সভাপতি ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি সুন্দর আলী। উল্রেখ্য বাজার কমিটি নিয়েও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি সুন্দর আলীর সাথে ছাত্রলীগ সভাপতি মিটুর দ্বন্ধ চলে অাসছে।
রবিবার দোকান উচ্ছেদকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। এক পর্যায়ে পুলিশ রানীগঞ্জ বাজারে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনার চেষ্ঠা করে। ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি রানীগঞ্জ বাজারের ব্যবসায়ী
অাজমল হোসেন মিটু জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে জানান, সুন্দর আলী ও আবুল কাশের নেতৃত্বে আমার মালিকানাধীন মিটুন টাচ নামের কাপড়ের দোকানে হামলা চালিয়ে ভাংচুর ও কয়েক লাখ টাকার মালামাল লুটপাট করা হযেছে। বিষয়টি লিখিতভাবে আমি জগন্নাথপুর থানা পুলিশকে অবহিত করেছি। মিটু আরো জানান,কৃষি ব্যাংকের নীচে তার দোকানের সামনে ফলের দোকান বসানো হলে ব্যংকে ও মসজিদে যাতায়াতকারীদের সমস্যার সৃষ্টি হয়।

এ ব্যাপারের রাণীগঞ্জ ইউপি আ.লীগের সভাপতি ও বাজার ব্যাবসায়ী পরিচালনা কমিটির নেতা সুন্দর আলী বলেন- মিটু তার গায়ের ও টাকার জোরে নেতৃত্ব দিতে চায়। কিন্তু জনসাধারন তার এসব কাজ মেনে নিতে পারছেনা। তাই সে সবময় ঝগড়া সৃষ্টি করে এলাকাবাসীকে বিভ্রান্তী করার পরিকল্পনা করে আসছে। ইতোমধ্যে সে বিভিন্ন সমস্যা সৃষ্টি করে দু’গ্রামের মধ্যে বড় ধরনের সংঘর্ষের ঘটিয়ে ছিল। তাই আবার সে অপ্রয়োজনীয় ভাবে মসজিদের যাতাযাতের সমস্যা হচ্ছে বলে দুই গ্রামবাসীর মধ্যে দ্বন্ধ সৃষ্টি করে। সে তার দোকান নিজেই লুটপাট করে মামলা করার চেষ্টা করছে বলেও শুনেছি।

জগন্নাথপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মুরসালিন জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান,পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে এনে উত্তেজনা প্রশমিত করেছে। তিনি বলেন, অভিযোগ ও পাল্টা অভিযোগের বিষয়ে তদন্ত করে পুলিশ আইনানুগ পদক্ষেপ নিবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24