সোমবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ০২:৪৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
১৭ ডিসেম্বর থেকে হাওরের বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু লজ্জা শুধু নারীরই নয়, পুরুষেরও ভূষণ জগন্নাথপুর মুক্ত দিবস আজ ডাকাত আতঙ্কে আজও নিদ্রাহীন মিরপুর ইউনিয়নবাসি, চলছে পাহারা জগন্নাথপুরে হালিমা খাতুন ট্রাষ্টের মেধা বৃত্তি পরীক্ষায় প্রথম স্থান অর্জন করেছে তাওহিদা কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলনে পরিকল্পনামন্ত্রী- তোমাদের স্বপ্নের বাংলাদেশ আসছে জগন্নাথপুরে আমার বিদ‌্যালয়, আমার অহংকার, নিজেরাই করি সুন্দর ও পরিস্কার প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে বন্ধুকে নিয়ে বেড়াতে গিয়ে গাছের সঙ্গে ধাক্কায় মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় দুই বন্ধু নিহত ছাতকে একই স্থানে আ.লীগের দুই পক্ষের সমাবেশ,১৪৪ ধারা জারি আজ কলকলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সন্মেলন ভারমুক্ত না নতুন নেতৃত্ব?

রোহিঙ্গাদের নিয়ে বাণিজ্য-২০০ দালালের সাজা

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৭
  • ৩০ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::
রাখাইনের মৃত্যুডেরা থেকে প্রাণে বাঁচতে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের নিয়ে নির্দয় বাণিজ্য শুরু করেছে দালাল চক্র। এই চক্রে আছে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের স্থানীয় নেতাকর্মীরা। তারা আবার কেউ কেউ স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদেরও প্রশ্রয় পাচ্ছেন। অসহায়, বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের অসহায়ত্বের সুযোগ নিচ্ছেন এখানে আগে আসা রোহিঙ্গারাও। উখিয়া উপজেলার বিস্তীর্ণ পাহাড়ি এলাকা এবং আরাকান সড়কের দুই পাশে অস্থায়ীভাবে আশ্রয় নিয়েছে নবাগতরা। তবে ওই এলাকার পুরনো কুতুপালং শরণার্থী ক্যাম্প এবং নতুন বালুখালি ক্যাম্পকে ঘিরেই রোহিঙ্গাদের জটলা। ক্যাম্প এলাকায় অনেকেই ত্রাণ দিচ্ছেন বলে এখানে রোহিঙ্গাদের ভিড় লেগেই আছে। সরজমিন এবং প্রশাসনের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে রোহিঙ্গাদের নিয়ে নানা বাণিজ্যের অভিযোগ পাওয়া গেছে। অবৈধ এ বাণিজ্যের মূল অভিযুক্ত সরকারি দল ও তার অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের হলেও তাদের সহযোগী হিসেবে নাম এসেছে বিএনপি, জামায়াত নেতাদের।
স্থানীয় সূত্র এবং ভুক্তভোগীরা অবশ্য সর্বদলীয় এ সিন্ডিকেটের সঙ্গে বনবিভাগ, পুলিশ ও বিজিবি’র মাঠ পর্যায়ের কয়েকজন সদস্যের সম্পৃক্ততার অভিযোগ তুলেছেন। রোহিঙ্গাদের অস্থায়ী আশ্রম নির্মাণে বন বিভাগ, গরু চোরাচালানে বিজিবির তুমব্রু ফাঁড়ির কয়েকজন সদস্য এবং বালুখালিস্থ হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির কয়েকজন সদস্যের ওপেন সিক্রেট বাণিজ্যের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এসব অভিযোগের বিষয়ে কক্সবাজারের পুলিশ সুপার ড. এ কে এম ইকবালের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি গতকাল বিকালে বলেন, অবৈধ বাণিজ্যের বিষয়ে তাদের কাছে সুনির্দিষ্ট কোনো অভিযোগ আসেনি। তবে রোহিঙ্গা অধ্যুষিত এলাকায় দালাল-সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে প্রশাসন স্বউদ্যোগে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে অভিযান চালিয়েছে। তাৎক্ষণিক ওই অভিযানে এ পর্যন্ত ২০০ দালালকে জেল-জরিমানাসহ বিভিন্ন মেয়াদে শাস্তি দেয়া হয়েছে বলে জানান পুলিশ সুপার। তিনি এও বলেন, নবাগত রোহিঙ্গাদের আশ্রয় কেন্দ্র নির্র্মাণে বালুখালিতে এরই মধ্যে ১৫০০ একর জমি বরাদ্দ দিয়েছে সরকার। নির্ধারিত জায়গায় কাঁটা তারের বেড়া দেয়া হবে। এখানে সবাইকে রেজিস্ট্রেশন করে থাকতে হবে। কেউ যদি রেজিস্ট্রেশন না করে তাহলে তারা কোনো যানবাহনে চড়তে পারবে না। নবাগত প্রায় সব রোহিঙ্গাকে একসঙ্গে ওই প্রস্তাবিত ক্যাম্পে রাখতে চাইছে সরকার। এখন কেউ টাকা পয়সা দিয়ে বন বিভাগ কিংবা সড়ক বিভাগের জায়গায় অবৈধভাবে তাঁবু বা ঘর বানানোর চেষ্টা করছেন তাদের অতিদ্রুত ক্যাম্পে সরিয়ে নেয়া হবে বলে জানান তিনি।
বন বিভাগের জায়গায় সিন্ডিকেটের রোহিঙ্গা বস্তি: বন বিভাগের জায়গায় বিশেষ করে পাহাড়ের আনাচে-কানাচে রোহিঙ্গা বস্তি নির্মাণের নামে জমিদারি শুরু করেছে বেশ কয়েকটি সিন্ডিকেট। সরজমিন এবং স্থানীয়দের সরবরাহ করা তথ্যমতে, চিহ্নিত এসব সিন্ডিকেট বনবিভাগ ও সরকারি খাস জমিতে ঘর বানিয়ে রোহিঙ্গাদের কাছে ভাড়া দিচ্ছে। ঘরপ্রতি অগ্রিম নেয়া হচ্ছে ৫ থেকে ১০ হাজার টাকা। মাসিক ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে ৫০০ থেকে ১ হাজার টাকা। তবে বড় ঘরের ক্ষেত্রে এটি দেড় হাজার টাকা পর্যন্ত দর ওঠছে। উখিয়া উপজেলার রাজাপালং ইউনিয়নের কুতুপালং, পালংখালী ইউনিয়নের বালুখালী, হাকিমপাড়া, তেজনিমার খোলা, বাঘঘোনা নামক স্থানে এসব অবৈধ বস্তি নির্মাণ করা হচ্ছে। নির্মাণাধীন এসব বস্তির পেছনে ঘুরে ফিরে মোটাদাগে ৫ জন স্থানীয় নেতার নাম এসেছে। যদিও এর মধ্যে ৪ জন তাদের বিরুদ্ধে উত্থাপিত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। একজনের মোবাইল বন্ধ পাওয়া গেছে। যাদের সঙ্গে কথা হয়েছে তারা নিজেদের দায় অস্বীকার করলেও রাজনৈতিক বা নির্বাচনী প্রতিপক্ষের ওপর দায় চাপিয়েছেন। সিন্ডিকেটের হোতারা যাদের ওপর দায় চাপিয়েছেন স্থানীয় সূত্রগুলো অবশ্য তাদের সম্পৃক্ততার সত্যতাও নিশ্চিত করেছে। তবে সূত্রগুলো বলেছে, দলের যে কোনো পর্যায়ের নেতারাও রোহিঙ্গাদের কাছ থেকে অবৈধ সুবিধা নিক না কেন হোতাদেরকে এর ভাগ দিতেই হয়। ৫ নেতা অনেকটা ঘরে বসেই তাদের ‘জমিদারি’ নিয়ন্ত্রণ করেন। ঘরে বসেই গত কয়েক দিনে তারা লাখ লাখ টাকা কামাই করেছেন। স্থানীয়ভাবে প্রভাবশালী ওই নেতাদের মধ্যে কুতুপালং বস্তির নিয়ন্ত্রণে রাজাপালং ইউপি সদস্য বখতিয়ারের হাতে। বালুখালী বস্তি নিয়ন্ত্রণ করেন পালংখালী ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের মেম্বার আবছার, হাকিমপাড়া বস্তির নিয়ন্ত্রণ ৫ নং ওয়ার্ড মেম্বার নুরুল আমিনের হাতে। তাজনিমার খোলা বস্তির নিয়ন্ত্রণে ৪ নং ওয়ার্ডের মেম্বার জয়নাল ও বাখঘোনা বস্তির নিয়ন্ত্রণে পালংখালী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি এমএ মন্‌জুর। স্থানীয়রা জানিয়েছে, বস্তি নিয়ন্ত্রণে তারা বস্তিপ্রতি ২০/৩০ জন সহযোগী নিয়োগ দিয়েছেন। সহযোগীরা কেবল বস্তি নির্মাণই নয়, সীমান্ত এলাকা রহমতের বিল, আনজিমান পাড়া, হোয়াংক্যৎ লম্বাবিল থেকে গাইড করে রোহিঙ্গাদের নিয়ে আসার কাজও করে। স্থানীয় তাজমিনার খোলায় বনবিভাগের জায়গায় পাহাড়ের পাদদেশে ইতিমধ্যে হাজারও রোহিঙ্গা বস্তি বা আশ্রম নির্মিত হয়েছে।
সুত্র- মানবজমিন

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24