রোহিঙ্গা সংকট: মানবিক আশ্রয় দেয়ার জন্যই কি বাংলাদেশকে মূল্য দিতে হচ্ছে?

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::

নিগৃহীত সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের প্রতি সহানুভূতি প্রকাশ করে তাদের মানবিক আশ্রয় দেয়ার জন্যই কি বাংলাদেশকে মূল্য দিতে হচ্ছে? জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে এক বিশেষ সভায় বিশ্ব সম্প্রদায়কে এই প্রশ্ন করেছেন পররাষ্ট্র সচিব শহিদুল হক। মিয়ানমার পরিস্থিতি নিয়ে বৃস্পতিবার নিরাপত্তা পরিষদে এক বিশেষ সভায় তিনি এ কথা বলেন বলে জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী মিশন থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

নিরাপত্তা পরিষদের ফেব্রুয়ারি মাসের সভাপতি ইকোটরিয়াল গিনি আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে মিয়ানমার বিষয়ক জাতিসংঘ মহাসচিবের বিশেষ দূত ক্রিস্টিন শ্রেনার বার্গেনার তার সাম্প্রতিক বাংলাদেশ ও মিয়ানমার সফরের বিষয়ে ব্রিফ করেন। সেই সাথে নিরাপত্তা পরিষদের ১৫ সদস্যের বাইরে বাংলাদেশ ও মিয়ানমার সভায় বক্তব্য রাখে।
পররাষ্ট্র সচিব নিরাপত্তা পরিষদ ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে উদ্দেশ করে বলেন, ‘আমাদের পূর্ণ আন্তরিক প্রচেষ্টা সত্ত্বেও মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশে অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টি না হওয়ার কারণে দীর্ঘদিনেও রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন কাজ শুরু করা যায়নি। এ থেকে দুর্ভাগ্যজনক আর কী হতে পারে? রোহিঙ্গাদের নিরাপদ, স্বেচ্ছামূলক, টেকসই ও মর্যাদাপূর্ণ প্রত্যাবাসন ছাড়া বাংলাদেশ আর কিছু চায় না।

তিনি অরো বলেন, আমাদের পূর্ণ আন্তরিক প্রচেষ্টা সত্ত্বেও মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশে অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টি না হওয়ার কারণে দীর্ঘদিনেও রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন কাজ শুরু করা যায়নি। এ থেকে দুর্ভাগ্যজনক আর কী হতে পারে? প্রতিবেশী দেশের নাগরিক যারা নিজ দেশে বর্বরোচিত নৃশসংতা এবং জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুতির শিকার, এমন নিগৃহীত সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের প্রতি সহানুভূতি প্রকাশ করে তাদের মানবিক আশ্রয় দেয়ার জন্যই কি বাংলাদেশকে মূল্য দিতে হচ্ছে?

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে তিনি নিরাপত্তা পরিষদের বিবেচনার জন্য তিনটি প্রস্তাবনা তুলে ধরেন। এগুলো হল- কফি আনান অ্যাডভাইজরি কমিশনের সুপারিশগুলোর পূর্ণ বাস্তবায়ন, নিরাপত্তা পরিষদের পুনরায় কক্সবাজার ও রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গা শিবির পরিদর্শন এবং মিয়ানমারের অভ্যন্তরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রস্তাবিত অসামরিক ‘সেফ জোন’ সৃষ্টি করা।

শহিদুল হক আরো বলেন, আমরা রোহিঙ্গাদের নিরাপদ, স্বেচ্ছা-প্রণোদিত, টেকসই ও মর্যাদাপূর্ণ প্রত্যাবাসন ছাড়া আর কিছুই চাই না। রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে আমরা নিরাপত্তা পরিষদের অব্যাহত অভিভাবকত্ব প্রত্যাশা করি।
এছাড়া, প্রত্যাবাসন ত্বরান্বিত করতে মিয়ানমার কর্তৃপক্ষকে কয়েকটি পদক্ষেপ নেয়া প্রস্তাব দেন পররাষ্ট্র সচিব। যার মধ্য রয়েছে- রোহিঙ্গাদের ওপর সৃষ্ট সহিংসতা ও জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুতির ঘটনার দায়বদ্ধতা নিরূপণ, ইউএনএইচসিআর ও ইউএনডিপির সাথে মিয়ানমারের হওয়া ত্রিপক্ষীয় সমঝোতা স্মারক পূর্ণ বাস্তবায়ন, মিয়ানমারের অভ্যন্তরে অবস্থিত আইডিপি ক্যাম্পগুলো তুলে নেয়া ও সীমান্তের শূন্য রেখায় অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়া।

এদিকে আলোচনায় অংশ নিয়ে জাতিসংঘ মহাসচিবের বিশেষ দূত ক্রিস্টিন শ্রেনার বার্গেনার বলেন, সংকট সমাধানে দৃশ্যমান পদক্ষেপ অত্যন্ত ধীর গতির হলেও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের পূর্ণ সহযোগিতায় এর সমাধান সম্ভব হতে পারে।
এর আগে বৃহস্পতিবার দুপুরে জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসের সাথে বৈঠক করেন পররাষ্ট্র সচিব শহিদুল হক।
সৌজন্যে মানব জমিন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» জগন্নাথপুরে প্রবাসিদের সঙ্গে আইডিয়াল ভিলেজ ফোরামের মতবিনিময় সভা

» নিউজিল্যান্ডের সংসদে পবিত্র আল কোরআন তিলাওয়াত!

» প্রাথমিক শিক্ষক পদে এপ্রিলে পরীক্ষা

» বিশ্বনাথে দুই ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ ৯ জনের জামাত বাজেয়াপ্ত

» স্যান্ডেলের ভেতর ১০ হাজার ডলার!

» আবারও নিরাপদ সড়ক’র দাবীতে আন্দোলনে নামছে শিক্ষার্থীরা

» গ্র্যাজুয়েটদের উদ্দেশে রাষ্ট্রপতি- রডের পরিবর্তে বাঁশ দেবেন না

» জগন্নাথপুরে গাঁজাসহ গ্রেফতার-১

» আসসালামু আলাইকুম বলে পার্লামেন্টে বক্তব্য দিলেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী

» সুনামগঞ্জে ছুরিকাঘাতে আ.লীগ নেতা খুন, আটক-৩

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

রোহিঙ্গা সংকট: মানবিক আশ্রয় দেয়ার জন্যই কি বাংলাদেশকে মূল্য দিতে হচ্ছে?

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::

নিগৃহীত সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের প্রতি সহানুভূতি প্রকাশ করে তাদের মানবিক আশ্রয় দেয়ার জন্যই কি বাংলাদেশকে মূল্য দিতে হচ্ছে? জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে এক বিশেষ সভায় বিশ্ব সম্প্রদায়কে এই প্রশ্ন করেছেন পররাষ্ট্র সচিব শহিদুল হক। মিয়ানমার পরিস্থিতি নিয়ে বৃস্পতিবার নিরাপত্তা পরিষদে এক বিশেষ সভায় তিনি এ কথা বলেন বলে জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী মিশন থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

নিরাপত্তা পরিষদের ফেব্রুয়ারি মাসের সভাপতি ইকোটরিয়াল গিনি আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে মিয়ানমার বিষয়ক জাতিসংঘ মহাসচিবের বিশেষ দূত ক্রিস্টিন শ্রেনার বার্গেনার তার সাম্প্রতিক বাংলাদেশ ও মিয়ানমার সফরের বিষয়ে ব্রিফ করেন। সেই সাথে নিরাপত্তা পরিষদের ১৫ সদস্যের বাইরে বাংলাদেশ ও মিয়ানমার সভায় বক্তব্য রাখে।
পররাষ্ট্র সচিব নিরাপত্তা পরিষদ ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে উদ্দেশ করে বলেন, ‘আমাদের পূর্ণ আন্তরিক প্রচেষ্টা সত্ত্বেও মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশে অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টি না হওয়ার কারণে দীর্ঘদিনেও রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন কাজ শুরু করা যায়নি। এ থেকে দুর্ভাগ্যজনক আর কী হতে পারে? রোহিঙ্গাদের নিরাপদ, স্বেচ্ছামূলক, টেকসই ও মর্যাদাপূর্ণ প্রত্যাবাসন ছাড়া বাংলাদেশ আর কিছু চায় না।

তিনি অরো বলেন, আমাদের পূর্ণ আন্তরিক প্রচেষ্টা সত্ত্বেও মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশে অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টি না হওয়ার কারণে দীর্ঘদিনেও রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন কাজ শুরু করা যায়নি। এ থেকে দুর্ভাগ্যজনক আর কী হতে পারে? প্রতিবেশী দেশের নাগরিক যারা নিজ দেশে বর্বরোচিত নৃশসংতা এবং জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুতির শিকার, এমন নিগৃহীত সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের প্রতি সহানুভূতি প্রকাশ করে তাদের মানবিক আশ্রয় দেয়ার জন্যই কি বাংলাদেশকে মূল্য দিতে হচ্ছে?

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে তিনি নিরাপত্তা পরিষদের বিবেচনার জন্য তিনটি প্রস্তাবনা তুলে ধরেন। এগুলো হল- কফি আনান অ্যাডভাইজরি কমিশনের সুপারিশগুলোর পূর্ণ বাস্তবায়ন, নিরাপত্তা পরিষদের পুনরায় কক্সবাজার ও রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গা শিবির পরিদর্শন এবং মিয়ানমারের অভ্যন্তরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রস্তাবিত অসামরিক ‘সেফ জোন’ সৃষ্টি করা।

শহিদুল হক আরো বলেন, আমরা রোহিঙ্গাদের নিরাপদ, স্বেচ্ছা-প্রণোদিত, টেকসই ও মর্যাদাপূর্ণ প্রত্যাবাসন ছাড়া আর কিছুই চাই না। রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে আমরা নিরাপত্তা পরিষদের অব্যাহত অভিভাবকত্ব প্রত্যাশা করি।
এছাড়া, প্রত্যাবাসন ত্বরান্বিত করতে মিয়ানমার কর্তৃপক্ষকে কয়েকটি পদক্ষেপ নেয়া প্রস্তাব দেন পররাষ্ট্র সচিব। যার মধ্য রয়েছে- রোহিঙ্গাদের ওপর সৃষ্ট সহিংসতা ও জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুতির ঘটনার দায়বদ্ধতা নিরূপণ, ইউএনএইচসিআর ও ইউএনডিপির সাথে মিয়ানমারের হওয়া ত্রিপক্ষীয় সমঝোতা স্মারক পূর্ণ বাস্তবায়ন, মিয়ানমারের অভ্যন্তরে অবস্থিত আইডিপি ক্যাম্পগুলো তুলে নেয়া ও সীমান্তের শূন্য রেখায় অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়া।

এদিকে আলোচনায় অংশ নিয়ে জাতিসংঘ মহাসচিবের বিশেষ দূত ক্রিস্টিন শ্রেনার বার্গেনার বলেন, সংকট সমাধানে দৃশ্যমান পদক্ষেপ অত্যন্ত ধীর গতির হলেও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের পূর্ণ সহযোগিতায় এর সমাধান সম্ভব হতে পারে।
এর আগে বৃহস্পতিবার দুপুরে জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসের সাথে বৈঠক করেন পররাষ্ট্র সচিব শহিদুল হক।
সৌজন্যে মানব জমিন

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।