রবিবার, ১৬ জুন ২০১৯, ১০:৪৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে বিদ্যালয়ের নির্বাচন স্থগিত করায় প্রতিবাদে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে মাদক মামলার ৫ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ হরমুজ আলীর কবিতা-অমাবস্যা সময় সংবাদ সম্মেলনে জগন্নাথপুরের রাখাল চন্দ্রের অভিযোগ, ‘সামাজিকভাবে হেয় করতেই সীমানা পিলার চুরির অপবাদ দেওয়া হয়েছে’ বেশি দামে সিগারেট বিক্রি করায় ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অবশেষ ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন গ্রেফতার ভারতে তীব্র দাবদাহে ৪০ জনের মৃত্যু আদালতের কাছে নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা চাইলেন নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান জগন্নাথপুরে ধান বিক্রয়ে কৃষকের ভয়, বাড়ি বাড়ি যাচ্ছেন ইউএনও জগন্নাথপুরে ডাকাত গ্রেফতার

রোহিঙ্গা সংকট: মানবিক আশ্রয় দেয়ার জন্যই কি বাংলাদেশকে মূল্য দিতে হচ্ছে?

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১ মার্চ, ২০১৯
  • ২১ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::

নিগৃহীত সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের প্রতি সহানুভূতি প্রকাশ করে তাদের মানবিক আশ্রয় দেয়ার জন্যই কি বাংলাদেশকে মূল্য দিতে হচ্ছে? জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে এক বিশেষ সভায় বিশ্ব সম্প্রদায়কে এই প্রশ্ন করেছেন পররাষ্ট্র সচিব শহিদুল হক। মিয়ানমার পরিস্থিতি নিয়ে বৃস্পতিবার নিরাপত্তা পরিষদে এক বিশেষ সভায় তিনি এ কথা বলেন বলে জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী মিশন থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

নিরাপত্তা পরিষদের ফেব্রুয়ারি মাসের সভাপতি ইকোটরিয়াল গিনি আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে মিয়ানমার বিষয়ক জাতিসংঘ মহাসচিবের বিশেষ দূত ক্রিস্টিন শ্রেনার বার্গেনার তার সাম্প্রতিক বাংলাদেশ ও মিয়ানমার সফরের বিষয়ে ব্রিফ করেন। সেই সাথে নিরাপত্তা পরিষদের ১৫ সদস্যের বাইরে বাংলাদেশ ও মিয়ানমার সভায় বক্তব্য রাখে।
পররাষ্ট্র সচিব নিরাপত্তা পরিষদ ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে উদ্দেশ করে বলেন, ‘আমাদের পূর্ণ আন্তরিক প্রচেষ্টা সত্ত্বেও মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশে অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টি না হওয়ার কারণে দীর্ঘদিনেও রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন কাজ শুরু করা যায়নি। এ থেকে দুর্ভাগ্যজনক আর কী হতে পারে? রোহিঙ্গাদের নিরাপদ, স্বেচ্ছামূলক, টেকসই ও মর্যাদাপূর্ণ প্রত্যাবাসন ছাড়া বাংলাদেশ আর কিছু চায় না।

তিনি অরো বলেন, আমাদের পূর্ণ আন্তরিক প্রচেষ্টা সত্ত্বেও মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশে অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টি না হওয়ার কারণে দীর্ঘদিনেও রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন কাজ শুরু করা যায়নি। এ থেকে দুর্ভাগ্যজনক আর কী হতে পারে? প্রতিবেশী দেশের নাগরিক যারা নিজ দেশে বর্বরোচিত নৃশসংতা এবং জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুতির শিকার, এমন নিগৃহীত সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের প্রতি সহানুভূতি প্রকাশ করে তাদের মানবিক আশ্রয় দেয়ার জন্যই কি বাংলাদেশকে মূল্য দিতে হচ্ছে?

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে তিনি নিরাপত্তা পরিষদের বিবেচনার জন্য তিনটি প্রস্তাবনা তুলে ধরেন। এগুলো হল- কফি আনান অ্যাডভাইজরি কমিশনের সুপারিশগুলোর পূর্ণ বাস্তবায়ন, নিরাপত্তা পরিষদের পুনরায় কক্সবাজার ও রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গা শিবির পরিদর্শন এবং মিয়ানমারের অভ্যন্তরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রস্তাবিত অসামরিক ‘সেফ জোন’ সৃষ্টি করা।

শহিদুল হক আরো বলেন, আমরা রোহিঙ্গাদের নিরাপদ, স্বেচ্ছা-প্রণোদিত, টেকসই ও মর্যাদাপূর্ণ প্রত্যাবাসন ছাড়া আর কিছুই চাই না। রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে আমরা নিরাপত্তা পরিষদের অব্যাহত অভিভাবকত্ব প্রত্যাশা করি।
এছাড়া, প্রত্যাবাসন ত্বরান্বিত করতে মিয়ানমার কর্তৃপক্ষকে কয়েকটি পদক্ষেপ নেয়া প্রস্তাব দেন পররাষ্ট্র সচিব। যার মধ্য রয়েছে- রোহিঙ্গাদের ওপর সৃষ্ট সহিংসতা ও জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুতির ঘটনার দায়বদ্ধতা নিরূপণ, ইউএনএইচসিআর ও ইউএনডিপির সাথে মিয়ানমারের হওয়া ত্রিপক্ষীয় সমঝোতা স্মারক পূর্ণ বাস্তবায়ন, মিয়ানমারের অভ্যন্তরে অবস্থিত আইডিপি ক্যাম্পগুলো তুলে নেয়া ও সীমান্তের শূন্য রেখায় অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়া।

এদিকে আলোচনায় অংশ নিয়ে জাতিসংঘ মহাসচিবের বিশেষ দূত ক্রিস্টিন শ্রেনার বার্গেনার বলেন, সংকট সমাধানে দৃশ্যমান পদক্ষেপ অত্যন্ত ধীর গতির হলেও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের পূর্ণ সহযোগিতায় এর সমাধান সম্ভব হতে পারে।
এর আগে বৃহস্পতিবার দুপুরে জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসের সাথে বৈঠক করেন পররাষ্ট্র সচিব শহিদুল হক।
সৌজন্যে মানব জমিন

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24