বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ১১:২৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে হাওরের জরিপ কাজ শেষ, কাজের তুলনায় বরাদ্দ কম, প্রকল্প কমিটি হয়নি একটিও জগন্নাথপুরে ডিজিটাল বাংলাদেশ উপলক্ষ্যে র‌্যালি, চিত্রাঙ্কন ও কুইজ প্রতিযোগিদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ জগন্নাথপুরে শিশু সাব্বির হত্যার ঘটনার গ্রেফতার-১ এনটিভি ইউরোপের জগন্নাথপুর প্রতিনিধি নিয়োগ পেলেন আব্দুল হাই আইসিটি লানিং প্রশিক্ষণে থাইল্যান্ড যাচ্ছেন পরিচালক প্রতাপ চৌধুরী ওয়াজ মাহফিল যেন কারো কষ্টের কারণ না হয় জগন্নাথপুরে সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি গ্রেফতার বাসুদেব মন্দিরে শ্রী অদ্বৈত গীতা সংঘের উদ্যাগে অষ্টপ্রহর ব্যাপী নাম সংকীর্তন শুরু এক সপ্তাহে জগন্নাথপুরের চার যুবকের মৃত্যুতে উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা সৎ সাহস থাকলে প্রমাণ নিয়ে বসুন, প্রয়োজনে লাইভ হবে: ইলিয়াস কাঞ্চন

সন্তানদের ভবিষ্যত নিয়ে ‘দুশ্চিন্তার কারণে মা খুন করেন দুই সন্তানকে

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৩ মার্চ, ২০১৬
  • ৬৭ Time View

স্টাফ রিপোর্টার::ঢাকার রামপুরায় দুই ভাই-বোনকে খুনের ঘটনায় তাদের মায়ের স্বীকারোক্তি পাওয়ার কথা বলার পর সংবাদ সম্মেলন করে র‌্যাবের পক্ষ থেকে বলা হলো, সন্তানদের ভবিষ্যত নিয়ে ‘দুশ্চিন্তার এক পর্যায়ে’ নিজের ওড়না পেঁচিয়ে শ্বাসরোধে ছেলে-মেয়েকে হত্যা করেন ওই নারী।

পরিবার খাবারে বিষক্রিয়ায় দুই শিশুর মৃত্যুর কথা বললেও ময়নাতদন্তে হত্যার আলামত পাওয়ার পর তিন দিন আগের এ ঘটনা নিয়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। এরপর র‌্যাব দুই শিশুর বাবা, মা, খালাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করলে শুরু হয় নানা জল্পনা-কল্পনা।

ওই তিনজনকে ঢাকার র‌্যাব কার্যালয়ে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে দুই শিশুর মা মাহফুজা মালেক জেসমিনের স্বীকারোক্তি আসে বলে এ বাহিনীর অতিরিক্ত মহাপরিচালক জিয়াউল আহসানের ভাষ্য।

বৃহস্পতিবার সকালে তিনি বলেন, “তাদের মা পরিকল্পিতভাবে সন্তানদের হত্যার কথা জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছেন।”

মাহফুজা কেন তার সন্তানদের হত্যা করেছেন- এই প্রশ্নে র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক মুফতি মাহমুদ খান বলেন, “সাধারণত এই জাতীয় হত্যাকাণ্ডের পেছনে পারিবারিক বিরোধ বা মানসিক অশান্তির বিষয় থাকে। এ ঘটনাটি কী কারণে হয়েছে তা সংবাদ সম্মেলনে জানানো হবে।”

অবশ্য র‌্যাবের গণমাধ্যম শাখা থেকে সংবাদকর্মীদের পাঠানো এক এসএমএসে বলা হয়, “পারিবারিক জটিলতার জের ধরে ২৯ ফেব্রুয়ারি অনুমানিক বিকাল ৫টার দিকে রামপুরার বনশ্রীর বাসায় দুই শিশুকে হত্যা করেন তাদের মা।”

এরপর দুপুরে উত্তরার র‌্যাব সদর দপ্তরে সাংবাদিকদের সামনে আসেন মুফতি মাহমুদ খান। তিনি বলেন, জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে দুই শিশুর মা মাহফুজা মালেক জেসমিন তার সন্তানদের ‘নিজেই হত্যা করেছেন’ বলে স্বীকার করেন। হত্যাকাণ্ডের বিবরণও তিনি বিস্তারিতভাবে দিয়েছেন।

“কেন তিনি সন্তানদের হত্যা করেছেন তার কারণ জানতে তদন্ত করেছি। ছেলেমেয়ের লেখাপড়া ও ভবিষ্যত নিয়ে তিনি দুশ্চিন্তায় ছিলেন। এর এক পর্যায়ে ছেলেমেয়েকে শ্বাসরোধে হত্যা করেন।”

এই র‌্যাব কর্মকর্তা বলছেন, জিজ্ঞাসাবাদের সময় দুই শিশুর মাকে সুস্থ ও স্বাভাবিক দেখেছেন তারা। মাহফুজা ‘মানসিকভাবেও সুস্থ ছিলেন’।

তবে এ ঘটনায় দুই শিশুর বাবা পোশাক ব্যবসায়ী আমানুল্লাহর সংশ্লিষ্টতার কোনো প্রমাণ র‌্যাব এখনো পায়নি বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।

হত্যাকাণ্ডের বিবরণে তিনি বলেন, “গত ২৯ ফেব্রুয়ারি মেয়ে অরণীর যখন গৃহ শিক্ষকের কাছে পড়ছিল, তার মা ও ভাই তখন শোবার ঘরে ঘুমাচ্ছিলেন। গৃহ শিক্ষক চলে যাওয়ার পর মাহফুজা তার মেয়েকেও ঘুমাতে ডাকেন।

“অরণী বিছানায় যাওয়ার পর মাহফুজা তার ওড়না দিয়ে পেঁচিয়ে মেয়ের শ্বাসরোধ করেন। এক পর্যায়ে ধস্তাধস্তিতে মেয়ে বিছানা থেকে পড়ে যায়। মেয়ের মৃত্যু হয়েছে নিশ্চিত হওয়ার পর ছেলেকেও একইভাবে ওড়না দিয়ে পেচিয়ে হত্যা করেন।”

“প্রথমে সে ঘটনা গোপন করার জন্য স্বামীকে ফোন করে ছেলেমেয়ের অসুস্থতার কথা বলে। আমানুল্লাহ তখন দুই বন্ধুকে বাসায় পাঠায়। বাচ্চাদের হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।”

মানসিকভাবে সুস্থ একজন মা লেখাপড়া নিয়ে দুশ্চিন্তা থেকে কেন নিজের হাতে দুই সন্তানকে হত্যা করতে যাবেন, সে প্রশ্নের সদুত্তর র‌্যাবের সংবাদ সম্মেলনে মেলেনি।

মুফতি মাহমুদ খান বলেন, এ বিষয়ে একটি মামলা হবে; বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন। মামলার তদন্ত হলে বিস্তারিত জানা যাবে।

“আপাতত যেসব তথ্য পেয়েছি, সেটাই আপনাদের জানালাম। প্রথমে আমরাও বিশ্বাস করতে পারিনি। কিন্তু জিজ্ঞাসাবাদে এ বিষয়টিই বেরিয়ে এসেছে।”

দুই শিশুর মধ্যে ১৪ বছর বয়সী নুসরাত জাহান অরণী ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের ইস্কাটন শাখার সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী ছিল। আর তার ছোটভাই আলভী আমান (৬) পড়তো হলি ক্রিসেন্ট স্কুলের নার্সারিতে।

সোমবার রাত ৮টার দিকে রামপুরা বনশ্রীর বাসা থেকে অচেতন অবস্থায় তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

চাইনিজ রেস্তোরাঁ থেকে আনা খাবার খেয়ে শিশু দুটির মৃত্যুর সন্দেহের কথা পরিবারের পক্ষ থেকে বলা হলেও পরদিন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ময়নাতদন্তে মেলে হত্যাকাণ্ডের আলামত।

ঢাকা মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোহাম্মদ সোহেল মাহমুদ বলেন, দুটি বাচ্চার গলায় তারা ‘দাগ’ পেয়েছেন। সেখানে আঙুলের ছাপও ছিল। থুতনিসহ বিভিন্ন জায়গায় আঘাতের চিহ্ন দেখা গেছে। দুজনেরেই জিহ্বায় কামড় লেগে ছিল।

এরপর বুধবার জামালপুর থেকে শিশু দুটির বাবা, মা ও খালাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ঢাকায় নিয়ে আসে র‌্যাব। সূত্র বিডিনিউজ

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24