রবিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯, ১১:০২ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে হালিমা খাতুন ট্রাষ্টের মেধা বৃত্তি পরীক্ষায় প্রথম স্থান অর্জন করেছে তাওহিদা কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলনে পরিকল্পনামন্ত্রী- তোমাদের স্বপ্নের বাংলাদেশ আসছে জগন্নাথপুরে আমার বিদ‌্যালয়, আমার অহংকার, নিজেরাই করি সুন্দর ও পরিস্কার প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে বন্ধুকে নিয়ে বেড়াতে গিয়ে গাছের সঙ্গে ধাক্কায় মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় দুই বন্ধু নিহত ছাতকে একই স্থানে আ.লীগের দুই পক্ষের সমাবেশ,১৪৪ ধারা জারি আজ কলকলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সন্মেলন ভারমুক্ত না নতুন নেতৃত্ব? কাশফুলের শাদা যন্ত্রণা ||আব্দুল মতিন জগন্নাথপুরের মিরপুরে ডাকাত আতঙ্ক, রাত জেগে দলবেঁধে পাহারা চলছে কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলনে রোববার পরিকল্পনামন্ত্রী প্রধান অতিথি হিসেবে থাকবেন ৫ বছর পর কাল কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন: বিতর্কিত নেতৃত্ব চান না নেতাকর্মীরা

সন্তানের বিচারকাজ দেখতে আদালতে বাবা, অতঃপর…

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৮ মে, ২০১৯
  • ২০৫ Time View

ছেলে রাজশাহীর সিনিয়র সহকারীর একটি জজ আদালতের বিচারক। সোমবার দুপুরে ছেলের বিচারকাজ দেখতে আদালতে যান ইয়াকুব আলী। এ সময় বিচারক এজলাসে উপস্থিত হলে আইনজীবী, বিচারপ্রার্থীসহ অন্যদের সঙ্গে তিনিও দাঁড়িয়ে সম্মান জানান।

বিষয়টি চোখে পড়ে বিচারক সন্তানেরও। পরে বিচারক সাইদ শুভ তার অবসরপ্রাপ্ত স্কুলশিক্ষক বাবাকে নিয়ে ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন।

সাইদ শুভ লেখেন- ‘একজন বিচারকের খাসকামরায় বিচারকের চেয়ারে বসা তার খুব সাধারণ অথচ গর্বিত বাবার স্থিরচিত্র এটি। এই স্থিরচিত্রটি খুবই সাধারণ কিন্তু অনেক কারণে তাৎপর্যমণ্ডিত।

গত কয়েক দিন আগে বাবা রাজশাহীতে এসেছেন। আজ আদালতে এসেছিলেন তার সন্তানের বিচার কার্যক্রম স্বচক্ষে প্রত্যক্ষ করতে।

নির্ধারিত সময়ের আগে এজলাসে বসে অপেক্ষা করছিলেন। আদালতে বিচারক হিসেবে আসন গ্রহণের সময় খেয়াল করলাম আইনজীবী, বিচারপ্রার্থীদের সঙ্গে বাবাও দাঁড়িয়ে আদালতকে সম্মান জানালেন।

নিয়মানুযায়ী, আদালত আসন গ্রহণের সময় এজলাসে উপস্থিত আইনজীবী, বিচারপ্রার্থীসহ সব মানুষ দাঁড়িয়ে আদালতের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করেন। বিচারকদের জন্য এটি নিত্যনৈমিত্তিক একটা সাধারণ ঘটনা।

কিন্তু যে ব্যাপারটিতে আমার চোখ আটকে গেল, সেটি হলো- অন্যরা নিয়ম পালনের স্বার্থে আদালতকে দাঁড়িয়ে সম্মান করলেন। আর বাবার চোখেমুখে যে সম্মানটা দেখলাম, সেটি একেবারেই ভেতর থেকে এসেছে; এই সম্মানটা উনি তার নিজ ঔরসজাত সন্তানের প্রতি প্রদর্শন করলেন।’

তিনি আরও লেখেন, ‘পৃথিবীর সব বাবাই তাদের সন্তানদের এভাবে সম্মান জানাতে পারলে সব থেকে বেশি খুশি হন। সত্যি বলতে, পৃথিবীর কোনো মানুষই কারও কাছে পরাজয়কে মেনে নিতে পারেন না।

দুজন মানুষ পরাজয়ে অত্যন্ত আনন্দিত হন। বাবা ও শিক্ষক- এ দুই প্রজাতির মানুষ সন্তান ও ছাত্রের কাছে পরাজিত হতে পেরে সব থেকে বেশি আনন্দিত হন। এই পরাজয় মানে তাদের বিজয়।

এ ধরনের বিজয়লাভ করার সুযোগ খুব অল্প মানুষের ভাগ্যে ঘটে। বাবা ও শিক্ষক হিসেবে সার্থক মানুষদের ক্ষেত্রে এটি ঘটে থাকে। সত্যি বলতে, এই অধম সন্তানও পৃথিবীতে সব থেকে বেশি সম্মান করে তার পিতাকে এবং তার মাতাকে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24