শনিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৫:৪৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
দিরাইয়ে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মানববন্ধন মুসলিমবিদ্বেষী আইনের বিরুদ্ধে ভারতজুড়ে বিক্ষোভ আমি স্বাধীনতা বিরুধী পরিবারের সন্তান নই- চেয়ারম্যান আব্দুল হাশিম জগন্নাথপুরে বাংলা মিরর সম্পাদক আব্দুল করিম গনি সংবর্ধিত জগন্নাথপুরে তিনদিন ব্যাপি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলার উদ্বোধন ব্রিটেনের নির্বাচনে আফসানার বড় জয়ে জগন্নাথপুরে উৎসবের আমেজ ব্রিটিশ পালার্মেন্টে ঝড় তুলবে বিজয়ী বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ৪ নারী এমপি ব্রিটেনের নির্বাচনে একটি আসনে বিশাল জয় পেয়েছেন জগন্নাথপুরের আফসানা বেগম অপরাধীদের প্রতি মহানবীর আচরণ যেমন ছিল সুদখোরদের ধরতে জেলা ও উপজেলায় মাঠে নামছে প্রশাসন

সাগরে ভাসছে বিপন্ন মানুষ

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১২ মে, ২০১৫
  • ৭২ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক:: বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের প্রায় আট হাজার অভিবাসী বাংলাদেশ ও থাইল্যান্ড উপকূলের কাছে সাগরে অপেক্ষা করছে। থাই নিরাপত্তারক্ষীদের অভিযানের কারণে পাচারকারীরা নৌকাগুলো তীরে ভেড়াতে চাইছে না। গহিন অরণ্যে গোপন শিবিরে না এনে পাচারকারীরা এখন অভিবাসীদের সাগরের বুকে রাখছে। এর মধ্যে সেন্টমার্টিনের অদূরে সাগরে ভাসছে থাইল্যান্ড হয়ে মালয়েশিয়াগামী শতাধিক অভিবাসী বোঝাই একটি ট্রলার। থাইল্যান্ডে মানব পাচার রোধে নিরাপত্তা বাহিনীর বিশেষ অভিযান অব্যাহত থাকায় এই ট্রলারটি সেন্টমার্টিন দ্বীপ থেকে কিছু দূরে অবস্থান করছে। এই ট্রলারের একজন যাত্রী চকরিয়া উপজেলার নূরুল ইসলাম ভুট্টো সোমবার দুপুরে মোবাইল ফোনে তার ভাইয়ের সঙ্গে কথা বলেন। একটি নৌকা পাঠিয়ে তাদের উদ্ধার করার জন্য ভাইয়ের কাছে অনুরোধ জানান তিনি।
ভুট্টো মোবাইল ফোনে বলেন, ট্রলারটিতে ২২ জন রোহিঙ্গা নারী রয়েছে। অবশিষ্টরা সবাই বাংলাদেশী। তিনি আরও জানান, নৌবাহিনীর ভয়ে ট্রলারটি সেন্টমার্টিনে ভিড়ছে না। এ বিষয়ে জানতে চাইলে চট্টগ্রাম ইস্টার্ন জোনের কোস্টগার্ডের কমান্ডার লে. শহিদুল ইসলাম জানান, মিয়ানমার সীমান্তবর্তী সীতা পাহাড় নামক স্থানটি মিয়ানমার এলাকায় হওয়ায় সেখানে গিয়ে অভিযান পরিচালনা করা দুরূহ। তবে বিষয়টি নজরে রাখা হয়েছে বলে তিনি জানান। জানা গেছে, প্রায় ৩৫ দিন আগে পরিবারের কাউকে না জানিয়ে চকরিয়া থেকে দালালদের মাধ্যমে ভুট্ট মালয়েশিয়া পাড়ি দিয়েছিল। ধারণা করা হচ্ছে, থাইল্যান্ডে মানব পাচারকারীদের বিরুদ্ধে অভিযান চলায় ট্রলারটি ফিরে আসে। এমন অনেক ট্রলার এখন সাগরে ভাসছে বলে জানা গেছে। বিবিসি, আন্তর্জাতিক অভিবাসী সংস্থা (আইওএম) ও সাগরে আটকে পড়া যাত্রীদের কাছ থেকে জানা গেছে উল্লিখিত সব তথ্য।
বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকা কক্সবাজার, টেকনাফ ও শাহপরীর দ্বীপসহ সম্ভাব্য যেসব স্থান থেকে অভিবাসীদের পাচার করা হয়, ওই সব স্থানে চলছে পুলিশ, র‌্যাব ও গোয়েন্দাদের যৌথ অভিযান। থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়ায়ও চলছে একইভাবে সাঁড়াশি অভিযান। এসব অভিযানে এ পর্যন্ত ২১২৫ অভিবাসীকে উদ্ধার করা হয়েছে।
উপকূলীয় অঞ্চলে তিন দিনের অভিযানে চার শীর্ষ মানব পাচারকারী বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে। কাউকে কাউকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে পাচার সিন্ডিকেটের অনেক হোতাই গ্রেফতার এড়াতে আত্মগোপনে চলে গেছে। পুলিশের সাঁড়াশি অভিযানে ধরপাকড় এড়াতে শতাধিক শীর্ষ মানব পাচারকারী গা ঢাকা দিয়েছে। গণকবর আবিষ্কারের পর ঘটনার তদন্তে নেমেছে থাই পুলিশ। মানব পাচার কেলেঙ্কারিতে গ্রেফতার হয়েছেন সংখলা প্রদেশের এক মেয়র। এছাড়া থাই পুলিশের অর্ধশতাধিক কর্মকর্তার বিভিন্ন মেয়াদে সাজা হয়েছে।
সম্প্রতি থাইল্যান্ডের গহিন অরণ্যে অভিবাসীদের গণকবর আবিষ্কারের পর আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে সমুদ্রপথে ঝুঁকিপূর্ণ মানব পাচার নিয়ে ব্যাপক হৈ চৈ শুরু হয়। মানব পাচার রোধে থাই কর্তৃপক্ষের কঠোর অভিযানের মধ্যে গত শনিবারও সেখানকার একটি জঙ্গল থেকে জীবিত উদ্ধার করা হয় শতাধিক ব্যক্তিকে, যাদের মধ্যে অধিকাংশই বাংলাদেশী বলে দাবি করা হচ্ছে। তারপর একের পর এক অভিযানে মালয়েশিয়া ও ইন্দোনেশিয়ায় অভিবাসীরা উদ্ধার হচ্ছেন। বেশ কয়েকদিন ধরে থাইল্যান্ডের গভীর জঙ্গলে গণকবরের সন্ধান লাভ ও শত শত বাংলাদেশী উদ্ধারের ঘটনায় উখিয়া-টেকনাফের শতাধিক পরিবারে দেখা দিয়েছে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা।
সাম্প্রতিককালে বাংলাদেশের উপকূলবর্তী এলাকা বিশেষ করে কক্সবাজার, টেকনাফ ও শাহপরীর দ্বীপ থেকে ইঞ্জিনচালিত নৌকাযোগে বাংলাদেশী ও রোহিঙ্গাদের বিদেশে কর্মসংস্থানের সুযোগ করে দেয়ার কথা বলে পাচার করা হচ্ছে। তাদের মালয়েশিয়ায় চাকরি দেয়ার প্রলোভন দেয়ার পর নিরীহ অভিবাসীরা বিপদসঙ্কুল সমুদ্রযাত্রায় শামিল হন। মালয়েশিয়ার সীমান্তবর্তী থাইল্যান্ডের সংখলা প্রদেশে গহিন অরণ্যে পাচারকারীদের গোপন আস্তানায় রেখে মুক্তিপণ দাবি করা হয়। জিম্মি অভিবাসীরা টেলিফোনে তাদের পরিবারের কাছে পাচারকারীদের শিখিয়ে দেয়া ভাষায় দালালদের কাছে মুক্তিপণ দেয়ার কথা বলানো হয়। মুক্তিপণের অর্থ পরিশোধ করতে না পারলে চলে নির্যাতন। টর্চার সেলে এমন নির্যাতনের ফলে অনেক অভিবাসী মারা যান। তাদের কারও লাশ সমুদ্রে ফেলে দেয়া হয়। কাউকে আবার গণকবরে মাটি দেয়া হয়। থাইল্যান্ডের পুলিশ গণকবর আবিষ্কারের পর বেরিয়ে আসে একের পর এক নিষ্ঠুরতার কাহিনী।
মানব পাচারের এমন রোমহর্ষক ঘটনার উল্লেখ করে গত বছরের ১৮ নভেম্বর ‘মালয়েশিয়া এয়ারপোর্ট এখন টেকনাফে!’ শিরোনামে প্রধান সংবাদ ছাপা হয়। সংবাদটিতে পাচারকারীদের ২০টি সিন্ডিকেটের উল্লেখ করা হয়েছিল। এর মধ্যে ক্রসফায়ারে নিহত ধলু হোসেন ও জাহাঙ্গীরের দুটি সিন্ডিকেটের কথা বলা হয়েছিল। ৮ মে শুক্রবার ভোরে টেকনাফের বিচ হ্যাচারি এলাকায় পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে তিন মানব পাচারকারী মারা যায়। এরা হল কক্সবাজার জেলার মানব পাচারের জন্মদাতা টেকনাফ শাহপরীর দ্বীপের ধলু হোসেন, সাবরাং খারীয়াখালীর জাফর আহমদ ও কাটাবনিয়ার জাহাঙ্গীর আলম। এছাড়া ১০ মে রোববার রাত ২টার দিকে উখিয়া উপজেলার পশ্চিম সোনারপাড়া পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে জাফর আলম প্রকাশ জাফর মাঝি নামের তালিকাভুক্ত আরেক মানব পাচারকারী নিহত হয়েছে।
জাতিসংঘ শরণার্থীবিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআরের তথ্য মতে, চলতি বছরের প্রথম তিন মাসে প্রায় ২৫ হাজার বাংলাদেশী ও রোহিঙ্গা মানব পাচারকারীদের খপ্পরে পড়ে মালয়েশিয়া বা ইন্দোনেশিয়ায় পাড়ি জমিয়েছে কিংবা লাশ হয়েছে। ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ঝুঁকিপূর্ণ এসব যাত্রায় এ বছরের প্রথম তিন মাসে ৩০০ ব্যক্তি মারা গেছেন। ২০১৪ সালের অক্টোবর থেকে মারা গেছেন মোট ৬২০ জন। এদের অধিকাংশেরই মৃত্যু হয়েছে ক্ষুধা-তৃষ্ণা আর নির্যা?তনে। অনেকে ধর্ষণ ও যৌন নিপীড়নের শিকার হওয়ার কথাও বলেছেন।
এছাড়া আরাকান প্রজেক্ট নামের একটি সংস্থার হিসাবে ২০১৪ সালেই সমুদ্রপথে বাংলাদেশের উপকূল থেকে পাচার হয়েছে প্রায় ৫০ হাজার মানুষ।
মানব পাচার প্রতিরোধে এই অঞ্চলের দেশগুলোর মধ্যে সহযোগিতার প্রতি গুরুত্ব আরোপ করছে বাংলাদেশ। এ সংক্রান্ত থাইল্যান্ডের উদ্যোগে যোগ দেবে বাংলাদেশ। বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চাইলে পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হক সোমবার যুগান্তরকে বলেন, ‘মানব পাচার প্রতিরোধে আঞ্চলিক সমাধানের লক্ষ্যে থাইল্যান্ড একটি উদ্যোগ নিয়েছে। আমরা এই উদ্যোগের সঙ্গে থাকব।’ পররাষ্ট্র সচিব আরও বলেন, ‘মানব পাচার একটি আন্তঃদেশীয় সমস্যা। কোনো দেশের একার পক্ষে এই সমস্যা সমাধান করা সম্ভব নয়। এ জন্য আঞ্চলিক সহযোগিতা জরুরি। বিশেষ করে জনশক্তি রফতানিকারী, ট্রানজিট এবং জনশক্তি গ্রহণকারী দেশগুলোর এ মানব পাচার প্রতিরোধে একযোগে কাজ করতে হবে।’
মালয়েশিয়ায় উদ্ধার এক হাজারের বেশি : বিবিসিসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমে জানা গেছে, মালয়েশিয়া উপকূলে সোমবার (১১ মে) উদ্ধার হওয়া এক হাজারের বেশি অভিবাসীর মধ্যে ৫৫৫ জনই বাংলাদেশী বলে জানিয়েছে দেশটির কর্তৃপক্ষ। বাকিদের মধ্যে ৪৬৩ জন রোহিঙ্গা বলেও নিশ্চিত করেছে তারা।
সোমবার সকালে দেশটির লংকাবি দ্বীপের সমুদ্র সৈকতের কাছ থেকে তিনটি বড় নৌকা থেকে ওই অভিবাসীদের আটক করে স্থানীয় কোস্টকার্ড ও পুলিশ। নৌকা তিনটিতে মোট এক হাজার ১৮ অভিবাসী ছিলেন।
লংকাবি পুলিশের পুলিশ প্রধান হারিথ কম আবদুল্লাহ বলেন, তিনটি নৌকা থেকে উদ্ধার হওয়া এই ১০১৮ অবৈধ অভিবাসীর মধ্যে ৫৫৫ জনই বাংলাদেশী। আর ৪৬৩ জন রোহিঙ্গা এবং বাকিরা এ অঞ্চলেরই কোনো দেশের বাসিন্দা। এদের মধ্যে আবার ৯৯ নারী ও ৫৪ জন শিশু। হারিথ আবদুল্লাহ জানান, অবৈধভাবে মালয়েশিয়ার মাটিতে পা রাখা এ লোকদের শিগগিরই অভিবাসন অধিদফতরের কাছে হস্তান্তর করা হবে।
ইন্দোনেশিয়ায় ১০০০ উদ্ধার : ইন্দোনেশিয়া সরকারের সংশ্লিষ্ট সংস্থা জানিয়েছে, সোমবার দেশটির উত্তর-পশ্চিম উপকূলের আচেহ প্রদেশের জলসীমায় পৌঁছানো একটি বড় নৌকা থেকে বাংলাদেশীসহ প্রায় ৪০০ অভিবাসীকে উদ্ধার করে স্থানীয় কোস্টকার্ড ও পুলিশ। বঙ্গোপসাগরের ভারতীয় দ্বীপপুঞ্জ আন্দামান ও নিকোবারের কাছাকাছি আচেহ ভূখণ্ডের অবস্থান। এর আগে রোববার (১০ মে) আচেহ উপকূলে ম্যানতাং পুনতংগামী দুটি নৌকা থেকে ৬০০ রোহিঙ্গাকে উদ্ধার করে কোস্টগার্ড ও পুলিশ। দু’দিনে ইন্দোনেশিয়ায় উদ্ধার হয়েছে প্রায় এক হাজার অভিবাসী। নারী ও শিশুসহ একটি নৌকায় ৪৩০ জন ছিল, আরেকটিতে ছিল ৭০ জন। তেল ফুরিয়ে যাওয়ায় সপ্তাহখানেক ধরে নৌকা দুটি নিয়ন্ত্রণহীন অবস্থায় ভাসছিল।
প্রদেশটির অনুসন্ধান ও উদ্ধারকারী বিভাগের প্রধান বুদিওয়ান সংবাদমাধ্যমকে বলেন, উদ্ধার এ ৪০০ অভিবাসীর মধ্যে মিয়ানমারের রোহিঙ্গা ও বাংলাদেশীরা রয়েছেন। তবে এদের মধ্যে কতোজন রোহিঙ্গা ও কতোজন বাংলাদেশী রয়েছেন তা নিশ্চিত করে বলতে পারেননি বুদিওয়ান। আচেহ প্রদেশের উদ্ধারকারী বিভাগের প্রধান বুদিওয়ান এএফপিকে জানিয়েছেন, সকালে জেলেদের কাছ থেকে নৌকায় অনেক মানুষের ভাসার খবর পাই। সঙ্গে সঙ্গেই আমরা কয়েকটি উদ্ধারকারী দল ওই এলাকায় পাঠিয়ে তাদের উদ্ধার করা হয়, যারা মিয়ানমার ও বাংলাদেশের নাগরিক।’
উদ্ধারকৃতরা মালয়েশিয়ায় যাওয়ার চেষ্টা করছিল বলে জানিয়েছেন আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থার (আইওএম) কর্মকর্তা স্টিভ হ্যামিল্টন। তিনি বিবিসিকে বলেন, “ধারণা করা হচ্ছে মোট চারটি নৌকা উপকূলের কাছাকাছি পৌঁছার পর পাচারকারীরা সটকে পড়েছিল। উদ্ধারকৃতরা ভেবেছিল তারা মালয়েশিয়া পৌঁছে গেছে। কিন্তু উদ্ধারের পর তারা জানতে পারে এটি ইন্দোনেশিয়া।”
আচেহ সার্চ অ্যান্ড রেসকিউ এজেন্সির মুখপাত্র মোহাম্মদ আরিফ মুতাকিন রয়টার্সকে বলেন, “এ পর্যন্ত যে তথ্য আমরা পেয়েছি, তাতে উদ্ধারকৃতদের অধিকাংশ এসেছে মিয়ানমার থেকে, তারা রোহিঙ্গা মুসলমান।” তবে আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা (আইওএম) বলছে, তাদের মধ্যে বাংলাদেশী নাগরিকরা আছেন, যারা আনুমানিক এক সপ্তাহ আগে থাইল্যান্ড ছেড়ে আসেন বলে কর্তৃপক্ষের ধারণা। ইন্দোনেশিয়া উপকূলে আসার পথে নৌকার মধ্যেই অনেকের মৃত্যু হয়েছে। উদ্ধারের পর ক্ষুধা-তৃষ্ণায় অসুস্থ অন্তত ৫০ জনকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন আচেহর পুলিশপ্রধান আচমাদি।
মানবপাচারকারীদের বিরুদ্ধে সাঁড়াশি অভিযান : অনুসন্ধানে জানা গেছে, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে কক্সবাজার, টেকনাফ ও শাহপরীর দ্বীপে চলছে মানব পাচারকারীদের বিরুদ্ধে পুলিশের সাঁড়াশি অভিযান। ধড়পাকড় এড়াতে শতাধিক শীর্ষ মানব পাচারকারী গা-ঢাকা দিয়েছে। অভিযানের অংশ হিসেবে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে ৩ দিনে চার শীর্ষ মানব পাচারকারী নিহত হয়েছে। এর পর থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত মানব পাচারকারী ছাড়াও অন্যান্য গডফাদার গা-ঢাকা দিয়েছে। অনেকে আবার নিজেরাই সাগরপথে পালানোর চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। ফলে বর্তমানে মালয়েশিয়ায় মানব পাচার বন্ধ রয়েছে। এদিকে সোমবার ভোরে টেকনাফের বাহারছড়া দক্ষিণ বড় ডেইল এলাকা থেকে তালিকাভুক্ত ৩ মানব পাচারকারীকে আটক করেছে পুলিশ। এছাড়া ৯ মে থাইল্যান্ডের দক্ষিণাঞ্চলে শংখলা প্রদেশের জঙ্গল থেকে উদ্ধার হওয়া দুই কিশোরের বাড়ি কক্সবাজার সদর উপজেলার ইসলামপুর নতুন অফিসপাড়ায়। এরা হলেন- ওই এলাকার নাজমুল হকের পুত্র সেলিমুল হক রিফাত ও ফরিদুল আলমের পুত্র দেলোয়ার হোসেন।
দীর্ঘদিন ধরে কক্সবাজারের উখিয়া, টেকনাফ, মহেশখালী, কুতুবদিয়া, রামু ও সদর উপজেলার বিভিন্ন উপকূলীয় এলাকা দিয়ে সাগরপথে অবৈধভাবে মালয়েশিয়ায় মানব পাচার করে আসছিল সংঘবদ্ধ কয়েকটি শক্তিশালী সিন্ডিকেট। অল্প খরচে সোনার হরিণ ধরতে শেষসম্বল জায়গাজমি পর্যন্ত বিক্রি করে দিয়ে কক্সবাজার, নরসিংদী, নারায়ণগঞ্জ, চট্টগ্রাম, সিরাজগঞ্জ, বাঁশখালী, কুমিল্লা, ফেনী, নোয়াখালী, বরিশাল, রাজশাহীসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে সহজ সরল লোকেরা দালালদের মিঠা কথায় ভুলে গিয়ে সাগরপথে ট্রলারে করে মালয়েশিয়ায় যাওয়ার চেষ্টা অব্যাহত রাখে। বিশেষ করে টেকনাফের শাহ পরীরদ্বীপ, সাবরাং, কাটা বনিয়া, শীলখালী, উখিয়ার মনখালী, ছেপটখালী, ইনানী, সোনারপাড়া, রেজুখালী দিয়ে মালয়েশিয়ায় মানব পাচার করা হয়। এসব এলাকায় আইনশৃংখলা বাহিনীর অভিযান চললে পাচারকারীরা রুট পরিবর্তন করে চট্টগ্রাম, বাঁশখালী ও আনোয়ারার উপকূলীয় এলাকা দিয়ে পাচার কাজ অব্যাহত রাখে। এ পথে মালয়েশিয়ায় যেতে গিয়ে অনেকের ভাগ্যে জুটেছে কারাগার আবার অনেকের কপালে জুটেছে মৃত্যু। একের পর এক প্রাণহানি ও কারাবরণের ঘটনা ঘটলেও থেমে থাকেনি মালয়েশিয়ায় মানব পাচার। আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যদের চোখ ফাঁকি দিয়ে আবার অনেক স্থানে খোদ পুলিশ-বিজিবির কিছু অসাধু সদস্যদের সহযোগিতায়ও মানবপাচারের অভিযোগ রয়েছে। এসবের পরও আইনশৃংখলা বাহিনীর টনক নড়েনি, চলেনি তেমন কোনো অভিযান। কিন্তু সম্প্রতি থাইল্যান্ডের জঙ্গলে বেশ কয়েকটি গণকবরের সন্ধান লাভ ও উদ্ধার হওয়াদের মধ্যে বেশির ভাগই বাংলাদেশী নাগরিক হওয়ায় টনক নড়েছে সরকারের উচ্চপর্যায় থেকে শুরু করে মাঠ পর্যায় পর্যন্ত।
স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে কড়া নির্দেশ আসে মানব পাচারকারীদের বিরুদ্ধে সাঁড়াশি অভিযান পরিচালনার। তারই অংশ হিসেবে ৮ মে ভোরে টেকনাফের বিচ হ্যাচারি এলাকায় পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে তিন মানাব পাচারকারী মারা যায়। তারা হল- জেলার মানবপাচারের জন্মদাতা টেকনাফ শাহ পরীরদ্বীপের ধলু হোসেন, সাবরাং খারীয়াখালীর জাফর আহমদ ও কাটাবনিয়ার জাহাঙ্গীর আলম। এছাড়া ১০ মে রাত ২টার দিকে উখিয়া উপজেলার পশ্চিম সোনারপাড়ায় পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে জাফর আলম প্রকাশ জাফর মাঝি নামের তালিকাভুক্ত আরেক মানব পাচারকারী নিহত হয়েছে। এ সময় তার কাছ থেকে একটি দেশীয় বন্দুক ও ৫ রাউন্ড কার্তুজ উদ্ধার করে পুলিশ। সে ওই এলাকার জহির আহমদের ছেলে। তার বিরুদ্ধে অর্ধডজন মানব পাচার মামলা রয়েছে বলে পুলিশ জানায়।
মানব পাচারকারীদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু হওয়ার পর থেকেই গা-ঢাকা দেয়া শুরু করেছে চিহ্নিত মানব পাচারকারীরা। এদের অনেকে সাগরপথে কক্সবাজারের বিভিন্ন দুর্গম অঞ্চলে আবার অনেকে চট্টগ্রামের দিকে পালিয়ে যায় বলে খবর পাওয়া গেছে। আবার অনেকে মিয়ানমারে পালিয়ে যায় বলেও জানা গেছে।
এদের মধ্যে কাটাবনিয়া-কচুবনিয়ার শীর্ষ মানব পাচারকারী নজির ডাকাতের নেতৃত্বে পাচারের গডফাদার হামিদ, গুড়া মিয়া, আবদুল্লাহ তাদের বিশ্বস্ত বেশ কয়েকজন সহযোগীসহ একটি বড় ট্রলারে বঙ্গোপসাগরে অবস্থান নিয়েছে বলে জানা গেছে। আবার এলাকাবাসীর অনেকে জানিয়েছে এরা শুক্রবার রাতে উখিয়ার সোনারপাড়া এলাকা দিয়ে সড়ক পথে চট্টগ্রামের দিকে পালিয়ে গেছে। অপর পাচারকারী মো. ইসলাম বাঘু মিয়ানমারে পালিয়েছে বলে জানা গেছে। এছাড়া গা-ঢাকা দিয়েছে শাহ পরীরদ্বীপের ফিরুজ, পোয়া মাঝি, কাটাবনিয়া-কচুবনিয়ার আইয়াজ, কেয়ায়েত উল্লাহ, জাবের, ডাইলা, মোজাহের মিয়া, মৌলভী বশির, তৈয়ুব, শামসু, ফরিদ মাঝি, নজিরের পিতা রকিম মাঝি ভাই আজম উল্লাহ, চাচা আব্দু গফুর, হারিয়াখালীর সাদ্দাম, ভুট্টা, আমান, শাহজাহানসহ শীর্ষ পাচারকারীরা।
এদিকে সোমবার (১১ মে) রাত ২টার দিকে থানা পুলিশ দক্ষিণ বড় ডেইল এলাকায় সৈকতে অভিযান চালিয়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় আরও ৩ মানব পাচারকারীকে আটক করে। আটককৃতরা হল- সাবরাং ইউনিয়নের রহুল্লার ডেবা এলাকার আলী হোছেনের ছেলে খাইর হোসেন (৪৫), আলী আহমদের ছেলে আলী হোসাইন (৩০) ও মুন্ডার ডেইল এলাকার আবুল কাসেমের ছেলে আবদুর রহমান(৩৫)।
জানতে চাইলে কক্সবাজারের পুলিশ সুপার শ্যামল কুমার নাথ বলেন- পুলিশের সাঁড়াশি অভিযানে মানব পাচারকারীরা গা-ঢাকা দিলেও তাদের মোবাইল টেকিংয়ের মাধ্যমে আইনের আওতায় আনা হবে। টেকনাফ মডেল থানার ওসি মো. আতাউর রহমান খোন্দকার সংবাদের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, মানব পাচারকারীদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে অভিযানের তদারকি করা হচ্ছে বলে জানান তিনি। এছাড়া অভিযানের পাশাপাশি মানব পাচার প্রতিরোধ ও পাচারকারীদের গ্রেফতারে জনসচেতনতা সৃষ্টির প্রতি গুরুত্ব দেয়া উচিত বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24