মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৮:২৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে মোটরযান ও ভোক্তা আইনে ভ্রাম্যমান আদালতের জরিমানা সৌদিতে নির্যাতিতা জগন্নাথপুরের কিশোরীকে দেশে ফেরাতে পরিকল্পনামন্ত্রীর ডিও লেটার কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন সম্পন্ন হলেও কমিটি হয়নি আইসিজেতে গাম্বিয়ার আইনমন্ত্রী-মিয়ানমারের গণহত্যা কোনোভাবেই গ্রহণ করা যায় না জগন্নাথপুরে মানবাধিকার দিবসে র‌্যালি ও আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত সিলেটে মাকে হত্যা করল পাষান্ড ছেলে ঘৃনার বদলে অমুসলিমদের মধ্যে ১০ হাজার কোরআন বিতরণ করবে নরওয়ের মুসলিমরা জগন্নাথপুরে ফুটবল এসোসিয়েশনের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন উপলক্ষে প্রস্তুতিসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে পারাপারের সময় খেলা নৌকা থেকে পড়ে মৃগী রোগির মৃত্যু জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহতের স্মরণে শোকসভা অনুষ্ঠিত

সাত বছরের শিশু কন্যার পরিবারের আর কেউ বেঁচে নেই

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৭
  • ৬৫ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::
কোটরে ঢুকে গেছে দু’চোখ। গালে শুকিয়ে যাওয়া অশ্রুর দাগ। গায়ে ময়লা-ছেঁড়া জামা। কাদায় মাখামাখি সারা শরীর। কালো মায়াবী চোখে-মুখে গভীর শূন্যতা। শরীর শুকিয়ে কাঠ। ভিড় থেকে কিছুটা দূরে অর্ধশোয়া অবস্থায় ছিল সাত বছরের নূর কায়দা। তার সঙ্গে কেউ নেই। কিছু নেই। কেবল সে একা। পরিচয় জানতে চাইতেই ফ্যাল ফ্যাল করে তাকিয়ে থাকে। মুখে কথা নেই। তা দেখে পাশে বসা তুলাতলীর তোফায়দা কথা বললেন। জানালেন সে বধির। কানে কম শুনে। তার কেউ নেই। বাবা-মা ও পরিবারের সবাইকে হত্যা করেছে মিয়ানমারের সেনারা। পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে ঘর-বাড়ি। খেলতে গিয়ে সে প্রাণে বেঁচে গেছে। সে এখন এতিম। প্রাণ নিয়ে পালানো প্রতিবেশির সঙ্গে সে গত সোমবার বাংলাদেশে ঢুকে। তোফায়দার কথায় ফোড়ন কাটলেন অন্য এক নারী। বললেন, মংডুর ডিয়লতলীতে বিয়ে দেয়া তার বোন ফাতেমা বেঁচে আছে। নূর কায়দা ফাতেমার দেখা পেয়েছে। তার সঙ্গে আছে।
এরই মধ্যে কাঠফাটা রোদের পর এক পশলা বৃষ্টি অন্তত ৩ হাজার আটকে পড়া ছায়াহীন রোহিঙ্গাকে ভিজিয়ে দিয়ে গেল। খোঁজ নিতেই পাওয়া গেল নূর কায়দার বড় বোন ফাতেমা বেগমের (৩০) দেখা। সঙ্গে জড়োসড়ো হয়ে বসে আছেন স্বামী নূর মোহাম্মদ (৫৩), তাদের শিশু কন্যা জয়নব বেগম (৭), উম্মে হাবিবা (৫) ও পুত্র ইয়াছিন আরাফাত (২)। উখিয়ার আঞ্জুমান পাড়ার মৌলভী আবদুল লতিফ এস্টেট দিঘীর পাড়ে তাদের সঙ্গে কথা হয়।
নূর কায়দার বোন কিনা জিজ্ঞেস করতেই কান্নায় ভেঙে পড়লেন ফাতেমা। বিলাপ করে বললেন, আমার বাপের বাড়ি বলিবাজারে। সেখানে মিয়ানমার আর্মি, পুলিশ ও মগেরা শত শত মানুষ মেরেছে। নির্বিচারে গুলি করেছে। এই বোনটিই বেঁচে আছে। এপারে আসার পর ভিড়ের মধ্যে হঠাৎ তাকে দেখি। বাকিদের খোঁজ নিতেই জানতে পারি সবাইকে গুলি করে মেরে ফেলেছে। বাপের বাড়ির সবাই সে কথা বলছে। তার কথায় সম্মতি জানান তুলাতলীর সাফিয়াও। জড়ো হলেন ডিয়লতলীর আরো ক’জন।
জানালেন, নির্বিচারে গণহত্যার ঘটনা। বৃষ্টির মতো গুলি বর্ষণের বর্ণনা। গত ২৫শে আগস্ট ডিয়লতলীতে বিকালে সেনা সদস্যরা হানা দেয়। গুলি করতে থাকে। এতে প্রাণ গেছে অনেকের। মা’য়ের ডাক শুনতে না পেয়ে খেলতে যাওয়া নূর কায়দাই বেঁচে আছে। মারা গেছে বাবা-মা, ভাই বোনসহ পরিবারের সবাই। তারা হলেন, সেতারা, ওবায়দুল হক, রোবেয়া, হাশিম, ইয়াছমিন, রোকেয়া। শুধু তাই নয়। পরিবারের বৃদ্ধ দাদা ছৈয়দ হোছন, দাদী মরছবা খাতুন, চাচা আবু এবং ফুফু আনোয়ারাও মারা গেছেন। শুধু ডিয়লতলীতে নয় একই সময় গারাতিবিলেও গণহত্যা চালোনো হয়েছে বলে জানান একাধিক রোহিঙ্গা।
তবে মংডুর তুলাতলীতে ভয়াবহ গণহত্যা হয়েছে বলে জানিয়েছেন অনেকেই। তাদের ধারণায় সেখানে অন্তত সহস্রাধিক নারী-পুরুষ-শিশু-বৃদ্ধকে নির্বিচারে হত্যা করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রাণে বেঁচে ফেরা প্রত্যক্ষদর্শীরা।
তুলাতলীতে নিহত আবু সৈয়দের ছেলে আমহদ হোছন মানবজমিনকে বলেন, তুলাতলী এলাকায় এক মগ চেয়ারম্যান আমাদেরকে বলেছিল যে, ‘তোমাদেরকে আমরা কিছু করবো না, তোমরাও কিছু করো না। এই বলে সান্ত্বনা দেয়।’ আর পশ্চিমে মগপাড়ায় মুসলমানদের তখনও কাটছিলো। তখন অনেক মানুষ তুলাতলী চরে নেমে আসে। আমি করবস্থানের পাশে একটি বট গাছের আড়ালে লুকিয়ে পড়ি। সেখান থেকে দীর্ঘক্ষণ ধরে দেখি আর্মি সদস্যদের হত্যাযজ্ঞ। নির্বিচারে গুলি করে শত শত মানুষ মেরে ফেলার দৃশ্য। নারীদের তুলাতলীর খালি ঘরগুলোতে নিয়ে ধর্ষণ করছিলো। শেষে লাশের স্তূপে তরল দাহ্য পদার্থ ঢেলে আগুন ঢেলে পুড়িয়ে দেয়। সেখানে আমার বাবা আবু সৈয়দ (৫৭), মা রূপবানও (৫০), বোন রহিমা (৩০), ভাগিনা রফিক (৫), শফিক (৪), ছলিম (৩) এবং আলম (১) মারা গেছে।
মংডুর হোয়াইক্যং এলাকার বলিবাজারের আমীর আলীর পুত্র আবুল হোছনও সারাদিন ওই গণহত্যা প্রত্যক্ষ করেছেন বলে জানান। তুলাতলীর গণহত্যার বর্ণনা দিয়ে তিনি বলেন, প্রাণ বাঁচাতে পালানোর একপর্যায়ে গিয়ে আমরা আরো কয়েকটি পাড়ার রোহিঙ্গা মুসলমানের সঙ্গে এক হই। আর অন্য তিন দিক থেকে সেনা সদস্যরা বিভিন্ন পাড়ায় আগুন দিতে দিতে সে দিকে আসছিলো। কয়েকপাড়ার মানুষ তুলাতলীতে এক হয়। এরপর সেনা সদস্যরা সেদিকে আসলে মানুষ বের হয়ে তুলাতলী চরের দিকে যায়। হোয়াইক্যং কবরস্থানের ঢালে পাহাড়ের উঁচু স্থানে আমি লুকিয়ে পড়ি। সেখান থেকে সবকিছু দেখা যাচ্ছিল। সেনা সদস্যরা গুলি করতে করতে মানুষকে বিলে জড়ো করে। একপর্যায়ে মানুষের ভিড় দু’ভাগ করে ফেলে। আসে হেলিকপ্টারও। এরপর তারা নির্বিচারে গুলি করতে থাকে। তাতে একের পর এক নারী-পুরুষ-শিশু ঝরে পড়ছিলো। সবার আর্তচিৎকার ও অনুনয়-বিনয়ে ভারি হয়ে উঠেছিল পরিবেশ। প্রাণ ভিক্ষা চাইলেও কোনো পাত্তা দিচ্ছিল না। অনেকে প্রাণ বাঁচাতে খালে ঝাঁপ দেয়। কিন্তু সেখানেও রক্ষা নেই। সেখানে গিয়েও গুলি চালানো হয়। একপর্যায়ে কিছু যুবক ও সুন্দরী নারীদের সেখান থেকে আলাদা করা হয়। নারীদের একটি খাদে এক কোমর পানিতে দাঁড় করিয়ে রাখা হয়। ছেলেদের দিয়ে কয়েকটি গর্ত খুঁড়ানো হয়। এরপর তাদের মাধ্যমে লাশ সেখানে ফেলা হয়। আর যারা মারা যায়নি তাদের জবাই করে দেয়া হয়। বেয়নেট দিয়ে খোঁচানো হয়। রক্তের স্রোত বইতে থাকে খাল ও গর্তে। গর্ত থেকে নারীদের তুলে নেয়া হয় তুলাতলীর খালি ঘরগুলোতে। আমি আর সহ্য করতে না পেরে শেষে ঘটনার দিন বিকাল চারটায় সেখান থেকে সরে পড়ি। বর্ণনা করা এই গণহত্যার প্রমাণ আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, অনেকেই এই গণহত্যা পাহাড়ের উপর থেকেও দেখেছে। আমরা যে কোনো ঘটনাস্থল দেখিয়ে দিতে পারবো। সেখানে গর্তগুলো খুঁড়ে দেখলে হাজার হাজার মাথার খুলি ও হাড় পাওয়া যাবে।
এ ঘটনায় অন্তত কয়েক হাজার মানুষ মেরে ফেলা হয়েছে উল্লেখ করে তুলাতলীর ফকির আহমদের ছেলে জাহেদ হোসেন বলেন, আমি পরিবারের সবাইকে হারিয়েছি। আমার মা আম্বিয়া খাতুন (৫১), স্ত্রী নূর বেগম (২৩), ছেলে আনাছ (৩), মেয়ে ফায়েজা বিবি (১০ মাস), বোন ফাতেমা খাতুন (২৮) ও ছারা খাতুন (২৫), ভাইয়ের স্ত্রী রশিদা (২৮), তার ছেলে মো. ছাদেক (৭) এবং তার ৪০ দিনের নবজাতক ভাই।
মাথায় গুলিবিদ্ধ নয় বছরের শিশু মনছুরও তুলাতলী গণহত্যায় বাবা-মাসহ সবাইকে হারিয়েছে বলে জানা গেছে। তার পরিবারে বেঁচে থাকা অপর একমাত্র সদস্য তার বড় ভাই জুবায়েরকে দেখিয়ে দিয়ে তার প্রতিবেশিরা তা জানান। মনছুর এখন কক্সবাজারে হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছে। অপর ভাই এতিম জুবায়ের উখিয়ার বালুখালী এলাকায় প্রতিবেশীদের সঙ্গে রয়েছে। জুবায়ের তার পিতা আলী আকবর (৬০), মা রহিমা খাতুন (৫৫), ভাই ইদ্রিস (৩০), মঞ্জুর আলম (৭), বোন রেহানা (১৮), রশিদা (১৩) ও ইয়াছমিন আকতার (৬), নিহত ভাই ইদ্রিসের স্ত্রী আনোয়ারা (৩০), তাদের শিশু সন্তান ইসমাইল (৪) সালাম (১) অপর ভাই মরজানা (২৮)। তবে তার অপর ভাই ও মারজানার স্বামী ইউনুচের ভাগ্যে কী ঘটেছে তা জানতে পারেনি জুবাইয়ের। তিনি এখনও নিখোঁজ। শুধু নূর কায়দা বা মনছুর নয়। মিয়ানমার আর্মি, পুলিশ ও মগের গুলি ও ধারালো অস্ত্রের আঘাতে চালানো পৈশাচিক নির্বিচার গণহত্যায় অনেক পরিবারের কেউই আর বেঁচে নেই বলে জানান ডিয়লতলীর নেতা পালিয়ে আসা মোহাম্মদ নূর।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24