শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ০২:২৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
সুদখোরদের ধরতে জেলা ও উপজেলায় মাঠে নামছে প্রশাসন জগন্নাথপুরে হাওরের জরিপ কাজ শেষ, কাজের তুলনায় বরাদ্দ কম, প্রকল্প কমিটি হয়নি একটিও জগন্নাথপুরে ডিজিটাল বাংলাদেশ উপলক্ষ্যে র‌্যালি, চিত্রাঙ্কন ও কুইজ প্রতিযোগিদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ জগন্নাথপুরে শিশু সাব্বির হত্যার ঘটনার গ্রেফতার-১ এনটিভি ইউরোপের জগন্নাথপুর প্রতিনিধি নিয়োগ পেলেন আব্দুল হাই আইসিটি লানিং প্রশিক্ষণে থাইল্যান্ড যাচ্ছেন পরিচালক প্রতাপ চৌধুরী ওয়াজ মাহফিল যেন কারো কষ্টের কারণ না হয় জগন্নাথপুরে সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি গ্রেফতার বাসুদেব মন্দিরে শ্রী অদ্বৈত গীতা সংঘের উদ্যাগে অষ্টপ্রহর ব্যাপী নাম সংকীর্তন শুরু এক সপ্তাহে জগন্নাথপুরের চার যুবকের মৃত্যুতে উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা

সাম্প্রতিক বন্যায় জগন্নাথপুরে কৃষি ও মৎস্য সেক্টরে প্রায় ২০ কোটি টাকার ক্ষতি

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর, ২০১৫
  • ৭৬ Time View

সানোয়ার হাসান সুনু : সাম্প্রতিক বন্যায় জগন্নাথপুর উপজেলায় কৃষি ও মৎস্য সেক্টরে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। উপজেলা কৃষি অধিদপ্তর জানায়, বন্যায় উপজেলার ৬৩৫০ হেক্টর আমন জমির মধ্যে প্রায় ২ হাজার হেক্টর আমন জমি বন্যার পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় প্রায় ১০ কোটি টাকার ক্ষতি সাধিত হয়েছে। এতে প্রায় ২ হাজার কৃষক মারাত্মক ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন। আসন্ন বোর মৌসুমে এসব দুঃস্থ কৃষকরা যাতে বোর আবাদ করতে পারেন প্রয়োজনীয় কৃষি উপকরন যাতে পান এ ব্যাপারে সরকারের আশু পদক্ষেপ কামনা করেছেন স্থানীয় কৃষক সমাজ।
জগন্নাথপুর গ্রামের কৃষক শামীম আহমদ জানান, আমি স্থানীয় মমিনপুর হাওরে ১০ কেদার (৩০ শতকে ১ কেদার) জমি করেছিলাম সবগুলোই সাম্প্রতিক বন্যায় তলিয়ে যায়। তাই আসন্ন বোর মৌসুমে আবাদ করতে সব ধরনের কৃষি উপকরন দিয়ে সহযোগীতা করতে সরকারের হস্তক্ষেপ কামনা করছি। ইকড়ছই গ্রামের কৃষক ফারুক আহমদ বলেন, আমি স্থানীয় মমিনপুর হাওরে প্রায় ১৮ কেদার জমি করেছিলাম কিন্তু সবগুলোই পানিতে তলিয়ে যায়। আসন্ন বোর মৌসুমে জমিতে বোর ধান লাগাতে চাই। তাই সরকার আমাদের ক্ষতির বিষয়টি বিবেচনা করে যদি সহায়তা করেন তবে আমরা উপকৃত হইব। এদিকে সাম্প্রতিক বন্যায় মৎস্য সেক্টরেও প্রায় ১০ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে উপজেলা মৎস্য অধিদপ্তর জানিয়েছে। উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা ওয়াহিদুল আবরার জানান, উপজেলায় প্রায় সহস্রাধিক মৎস্য চাষকৃত পুকুর, খাল, বিল ও জলাশয়ে বন্যার পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় বন্যার পানির সাথে মাছগুলো চলে গেছে। এতে কয়েক হাজার মৎস্যচাষী ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন। জগন্নাথপুর গ্রামের মৎস্যচাষী শেখ আলী আহমদ জানান, বন্যার পূর্বে আমি ২০ একর জমিতে মৎস্য চাষের ব্যবস্থা করি। এতে আমার খরচ হয় প্রায় ১০ লক্ষ টাকা। আমি রুই, কাতলা, মৃগেল, তেলাপিয়াসহ প্রায় আড়াই লক্ষ টাকার পোনা মাছ ছেড়ে ছিলাম। কিন্তু বন্যার পানিতে আমার পোনা মাছ গুলো ভেসে যায়। আমি মারাত্মক ক্ষতির সম্মুখীন হই। উপজেলার হিজলা গ্রামের মহব্বত উল্লা জানান, আমার পাঁচ কেদার পুকুরে ২ লক্ষ টাকার রুই, কাতলা, মৃগেল, বাউস পোনা মাছ ছেড়ে ছিলাম প্রায় ২ বছর পূর্বে। কিন্তু সাম্প্রতিক বন্যায় অধিকাংশ মাছই ভেসে গেছে। এ ধরনের অনেক মৎস্য চাষী ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন। ক্ষতিগ্রস্থ চাষীদের উন্নয়নে সরকার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন এটা স্থানীয় মৎস্য চাষীদের প্রত্যাশা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24