মঙ্গলবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০২:৫২ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
পরিকল্পনামন্ত্রীর ডিও লেটারে জগন্নাথপুরে ২১টি স: প্রা: স্কুলে নতুন ভবন নির্মাণ হচ্ছে সুনামগঞ্জে স্বামীর মৃত্যুর খবর পেয়ে স্ত্রীর আত্মহত্যা জগন্নাথপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে মিড ডে মিল চালু জগন্নাথপুরে প্রকাশ্য দিবালোকে গ্রামীণ ফোনের ৫ লাখ টাকা ছিনতাই, জনতার ধাওয়ায় বাইকসহ আটক ১ জগন্নাথপুরে সড়ক রক্ষায় ১০ টন ওজনের অধিক যান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থীদের মধ্যে প্রতিক বরাদ্দ, আনুষ্ঠানিকভাবে প্রচারণা প্রার্থীরা গরুর মাংস বিক্রি: ভারতে খ্রিস্টান যুবককে পিটিয়ে হত্যা জগন্নাথপুরের ব‌্যবসায়ী ফেরদৌস মিয়া খুনের ঘটনায় সানিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড সুনামগঞ্জে হত্যা মামলায় একজনের মৃত্যুদণ্ড, তিনজনের যাবজ্জীবন ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের ওপর ছাত্রলীগের ‘হামলা’ আহত ২৫

সিরাজের নির্দেশে চারজন নুসরাতকে পোড়ানোর মিশনে অংশ নেয়

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ১৩ এপ্রিল, ২০১৯
  • ৯৪ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::

সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদরাসার আলিম পরীক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফিকে (১৮) কেরোসিন ঢেলে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় নিজের সম্পৃক্ততা স্বীকার করেছেন গ্রেপ্তারকৃত নুর উদ্দিন। শনিবার দুপুর আড়াইটার দিকে রাজধানীর ধানমন্ডির ৪ নম্বর রোডস্থ পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান ডিআইজি ও পিবিআই প্রধান বনোজ কুমার মজুমদার।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, নুসরাত হত্যাকাণ্ডে নিজের সম্পৃক্ততার কথা স্বীকার করেছে নুর উদ্দিন। ঘটনাটি পরিকল্পিত বলেও জানিয়েছেন তিনি। জবানবন্দিতে সে জানায়, অপারেশনে চারজন বোরখা পরিহিতের মধ্যে একজন ছেলে আর বাকি তিনজন মেয়ে ছিল। আর ওই একজন ছেলেটাই শামীম।বাকিরা সবাই ওই মাদরাসার শিক্ষার্থী। মিশনে অংশ নেয়াদের মধ্যে ছাত্রলীগ সভাপতি শাহদাত হোসেন শামীমকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকি মেয়েগুলোর একজনের দায়িত্ব ছিল কেরোসিন ও বোরকা সরবরাহ করা। আর শম্পা বা চম্পা নামের আরেকটা মেয়ের দায়িত্ব ছিল নুসরাতকে ছাদে পাঠানো। সে পরীক্ষাহলের বাইরে এসে নুসরাতকে জানায় যে নিশাতকে (নুসরাতের বান্ধবী) মারা হচ্ছে ছাদে। সেই শম্পা বা চম্পাও গ্রেপ্তার হয়েছে।

সম্মেলনে পিবিআই আরো জানায়, এ ঘটনায় জড়িত মোট ১৩। এখন পর্যন্ত ৭ জন গ্রেপ্তার হয়েছে। সিরাজ উদ দৌলার নির্দেশেই হত্যাকাণ্ডের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করে শামীম ও নুর উদ্দিন। তবে পুড়িতে হত্যার প্রস্তাব করে শামীম নিজে। এখন পর্যন্ত গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- শামীম, এস এম সিরাজ উদ দৌলা, নুর উদ্দিন, কাউন্সিলর মাকসুদ আলম, জুবায়ের আহম্মেদ, জাবেদ হোসেন এবং আফছার উদ্দিন। বাকিদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

গত ৬ এপ্রিল সকালে আলিম পরীক্ষা দিতে সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসায় যান নুসরাত। সেদিনই নুসরাতকে পরীক্ষা কেন্দ্রের ছাদে নিয়ে যায়। সেখানে ৪ জন বোরকা পরিহিত অবস্থায় ছিল। তারা মাদ্রাসার অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে করা শ্লীলতাহানির মামলা তুলে নিতে চাপ দেয়। নুসরাত অস্বীকৃতি জানালে তার গায়ে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। ওই দিনই তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় পাঁচদিন পর ১০ এপ্রিল রাতে আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান নুসরাত। বৃহস্পতিবার গ্রামের বাড়িতে তার দাফন সম্পন্ন হয়। এ ঘটনায় ৮ এপ্রিল রাতে অধ্যক্ষ ও পৌর কাউন্সিলরসহ ৮ জনের নাম উল্লেখ করে সোনাগাজী মডেল থানায় মামলা করেন নুসরাতের বড় ভাই মাহমুদুল হাসান নোমান।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24