সিলেটে বাড়ছে যানবাহনের চাপ, বাড়ছে না সড়ক

কামরুল ইসলাম মাহি, সিলেট থেকে ::

যানবাহনের চাপ সইতে পারছে না পর্যটন নগরী সিলেটের সড়কগুলো। প্রতিদিনই বাড়ছে নতুন গাড়ির সংখ্যা। কিন্তু বাড়ছে না সড়ক। ফলে যানজটে নাকাল হচ্ছেন নগরবাসী। বাড়ছে পথে বের হওয়া মানুষের দুর্ভোগ, নষ্ট হচ্ছে নগরবাসীর মূল্যবান কর্মঘণ্টা।

সিলেট শহরের সড়কগুলোতে ব্যক্তিগত গাড়ির চেয়ে সিএনজি (অটোরিকশা) ব্যবহার যারপরনাই বৃদ্ধি, নগর পরিকল্পনায় ত্রুটি, সড়ক ব্যবস্থাপনায় ত্রুটি, অপরিকল্পিত রুটবিন্যাস, ট্রাফিক-পুলিশের ঘুষ বাণিজ্যের প্রবণতা, যত্রতত্র পার্কিং, ফুটপাত ও সড়ক দখল করে দোকানপাট বসানো এমন অনেক কারণেই বাড়ছে যানজট।

সিলেট শহরে সড়কের ধারণক্ষমতা অনুযায়ী ৬০ থেকে ৭০ হাজার গাড়ি চলাচলের উপযোগী বলে মনে করছেন পরিবেশ বিশেষজ্ঞরা। তবে বিআরটিএ এর তথ্যমতে সিলেটে নিবন্ধিত গাড়ি রয়েছে ১ লাখ ১৩ হাজার ৪৩৮টি। এর বাইরে অসংখ্য অনিবন্ধিত গাড়ি সড়কে চলাচল করছে। এদিকে আদর্শ নগরীতে প্রয়োজন ২৫ ভাগ সড়ক। তবে বাংলাদেশের কোথাও ১০ থেকে ১২ ভাগের বেশি সড়ক নেই এমটি বলছেন বিশেষজ্ঞরা।

সিলেট বিআরটিএ অফিস সূত্রে জানা যায়, সিলেটে মোট নিবন্ধিত যানবাহন রয়েছে ১ লাখ ১৩ হাজার ৪৩৮টি। তার মধ্যে ২০১৩ থেকে ২০১৮ সালে জুলাই মাস পর্যন্ত অর্থাৎ গত পাঁচ বছরে নিবন্ধিত হয়েছে ৩০ হাজার ৬০৯টি যানবাহন। এই নিবন্ধিত যানবাহনের মধ্যে জেলায় রয়েছে ২৪ হাজার ৫৬১টি ও মহানগর এলাকায় নিবন্ধিত হয়েছে ৬০৪৮টি যানবাহন। এই নিবন্ধিত যানবাহনের সবগুলোই সড়কে সচল রয়েছে বলে জানিয়েছে বিআরটিএ কর্তৃপক্ষ।

বিআরটিএ সূত্র আরো জানায়, ২০১৩ সালে নিবন্ধিত হয়েছে ২ হাজার ৯১৭টি গাড়ি, ২০১৪ সালে নিবন্ধিত হয় ৫ হাজার ২৯৬টি, ২০১৫ সালে নিবন্ধিত হয় ৫ হাজার ৬৮৯টি। ২০১৬ সালে সিলেট জেলা ও মহানগর আলাদা হওয়ায় জেলায় নিবন্ধিত হয় ৫ হাজার ৭৫৮টি ও মহানগরে ১ হাজার ১৮৯টি, ২০১৭ সালে জেলায় নিবন্ধিত হয় ৩ হাজার ১৬৪টি ও মহানগরে ২ হাজার ৩৬৩টি এবং ২০১৮ সালের জুলাই মাস পর্যন্ত জেলায় ১ হাজার ৭৪৭টি ও মহানগরে ২ হাজার ৪৯৬টি গাড়ি নিবন্ধিত হয়। এছাড়া ফিটনেসবিহীন গাড়ির সংখ্যা রয়েছে ২২ হাজার ৪৯টি।

মহানগর পুলিশের উপ-কমিশনার (ট্রাফিক) মো. তোফায়েল হোসেন জানান, ‘যানবাহনের সংখ্যা বাড়ার কারণে যানজটের পরিমনাও বাড়বে। ট্রাফিক ব্যবস্থা নিয়ন্ত্রন কষ্টকর হয়ে দাঁড়াবে। সড়কে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতেও যানবাহনের চাপ কমাতে বিআরটিএ কর্তৃপক্ষকে এখন থেকেই ভূমিকা রাখতে হবে।’

বিশেষজ্ঞরা বলছেন-যে হারে গাড়ি বাড়ছে সে হারে সড়কের পরিমান সম্প্রসারিত হচ্ছে না। শহরের রাস্তাঘাট অনুযায়ী যে পরিমান যানবাহন রয়েছে সেটিও অপ্রতুল। ঢাকা-সিলেট মহাসড়কও দীর্ঘদিন থেকে চারলেন করার দাবি জানানো হয়েছে। যেভাবে গাড়ি বাড়ছে সেভাবে যাত্রীসেবাও দ্রুত গতিতে বাড়া উচিত।

পরিবেশ অধিদপ্তর সিলেট বিভাগের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ আলতাফ হোসেন বলেন, ‘পরিবেশ দূষণের ক্ষেত্রে গাড়ি থেকে নির্গত কালো ধোঁয়াকে প্রাধান্য দেয়া হয়। কিন্তু বর্তমানে সিএনজির সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় কালো ধোঁয়া কমে গেছে। অতিরিক্ত গাড়ি বাড়লে যানজটের সৃষ্টি হলে শব্দ দূষণের মাত্রা বেড়ে যাবে। যদিও সিলেটে এখনও যানজটের পরিমান তেমন নেই।’

সিলেট সিটি করপোরেশন প্রধান প্রকৌশলী নূর আজিজুর রহমান বলেন, ‘সিলেটে যে পরিমান গাড়ি চলাচল করছে সেটি সড়কের তুলনায় অতিরিক্ত। গাড়ির পরিমান বাড়ছে কিন্তু সড়কের চওড়া তেমন নেই। আলাদা কোনো লেন না থাকায় একই সড়কে মোটারযান ও ননমোটারযান চলাচল করে। আদর্শমানের দিক থেকে সিলেটের সড়কের তুলনায় গাড়ির পরিমান বেশি।’

পরিবহন বিশেষজ্ঞ ও শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয়ের সিভিল এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. জহির বিন আলম বলেন, ‘সড়কে যতটুকু ট্রাফিক ধারণক্ষমতা রয়েছে তার থেকে ১০ ভাগ বেশি গাড়ি চলাচল করতে পারবে। কিন্তু সিলেটে ধারণক্ষমতা থেকে বেশি গাড়ি চলাচল করছে। যার কারণে যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। গাড়ির পরিমান বাড়তে থাকলে মানুষের কর্মক্ষমতা কমে যাবে।’ ভবিষ্যতে গাড়ির চাপ থেকে রেহায় পেতে গণপরিবহনের দিকে জোর দেওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহণ কর্তৃপক্ষ সিলেট সার্কেল সহকারী পরিচালক প্রকৌশলী কে এম মাহাবুব কবীর বলেন, ‘নতুন নিবন্ধনের জন্য গাড়ির আবেদন পড়লে আটকে রাখা হয় না। যদি কোনো সমস্যা থাকে তখন আমরা নিবন্ধন না করে ফিরিয়ে দেই। গাড়ির ফিটনেস যাচাই করে সনদ প্রদান করা হয়। নিবন্ধনের সকল কাগজ ঠিক থাকলে আমরা নিবন্ধন দিয়ে থাকি। গাড়ি বাড়ার বিষয়ে সরকারি সিদ্ধান্ত ছাড়া আমাদের কিছু করার নেই।’

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» ‘উন্নয়নের মহাসড়কে জগন্নাথপুর’ শীর্ষক বইয়ের মোড়ক উম্মোচণ,

» সুনামগঞ্জ-৩ আসনে বৃষ্টি উপেক্ষা করে দুই প্রার্থীর প্রচারনা

» সারাদেশ বিজিবি মোতায়েন

» ভোটের মাঠে থাকছেন না ইলিয়াসপত্নী লুনা

» আ.লীগের নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষনা, ২১টি অঙ্গীকার

» সিলেটে পাইনিয়ার ইয়ুত এসোসিয়শনের উদ্যােগে বিজয় দিবস বিভিন্ন কর্মসুচী পালিত

» জগন্নাথপুর উপজেলা বিএনপির সভাপতি-যুবদল নেতার গ্রেফতারে নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে উপজেলা বিএনপি

» প্রার্থী হতে পারছেন না বিএনপির ৪ উপজেলা চেয়ারম্যান

» জগন্নাথপুরে নৌকার সমর্থনে স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রতিনিধিসভায়- ঐক্যবদ্ধ হয়ে নৌকার বিজয় নিশ্চিতের আহবান

» জগন্নাথপুরে মা সমাবেশ অনুষ্ঠিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

সিলেটে বাড়ছে যানবাহনের চাপ, বাড়ছে না সড়ক

কামরুল ইসলাম মাহি, সিলেট থেকে ::

যানবাহনের চাপ সইতে পারছে না পর্যটন নগরী সিলেটের সড়কগুলো। প্রতিদিনই বাড়ছে নতুন গাড়ির সংখ্যা। কিন্তু বাড়ছে না সড়ক। ফলে যানজটে নাকাল হচ্ছেন নগরবাসী। বাড়ছে পথে বের হওয়া মানুষের দুর্ভোগ, নষ্ট হচ্ছে নগরবাসীর মূল্যবান কর্মঘণ্টা।

সিলেট শহরের সড়কগুলোতে ব্যক্তিগত গাড়ির চেয়ে সিএনজি (অটোরিকশা) ব্যবহার যারপরনাই বৃদ্ধি, নগর পরিকল্পনায় ত্রুটি, সড়ক ব্যবস্থাপনায় ত্রুটি, অপরিকল্পিত রুটবিন্যাস, ট্রাফিক-পুলিশের ঘুষ বাণিজ্যের প্রবণতা, যত্রতত্র পার্কিং, ফুটপাত ও সড়ক দখল করে দোকানপাট বসানো এমন অনেক কারণেই বাড়ছে যানজট।

সিলেট শহরে সড়কের ধারণক্ষমতা অনুযায়ী ৬০ থেকে ৭০ হাজার গাড়ি চলাচলের উপযোগী বলে মনে করছেন পরিবেশ বিশেষজ্ঞরা। তবে বিআরটিএ এর তথ্যমতে সিলেটে নিবন্ধিত গাড়ি রয়েছে ১ লাখ ১৩ হাজার ৪৩৮টি। এর বাইরে অসংখ্য অনিবন্ধিত গাড়ি সড়কে চলাচল করছে। এদিকে আদর্শ নগরীতে প্রয়োজন ২৫ ভাগ সড়ক। তবে বাংলাদেশের কোথাও ১০ থেকে ১২ ভাগের বেশি সড়ক নেই এমটি বলছেন বিশেষজ্ঞরা।

সিলেট বিআরটিএ অফিস সূত্রে জানা যায়, সিলেটে মোট নিবন্ধিত যানবাহন রয়েছে ১ লাখ ১৩ হাজার ৪৩৮টি। তার মধ্যে ২০১৩ থেকে ২০১৮ সালে জুলাই মাস পর্যন্ত অর্থাৎ গত পাঁচ বছরে নিবন্ধিত হয়েছে ৩০ হাজার ৬০৯টি যানবাহন। এই নিবন্ধিত যানবাহনের মধ্যে জেলায় রয়েছে ২৪ হাজার ৫৬১টি ও মহানগর এলাকায় নিবন্ধিত হয়েছে ৬০৪৮টি যানবাহন। এই নিবন্ধিত যানবাহনের সবগুলোই সড়কে সচল রয়েছে বলে জানিয়েছে বিআরটিএ কর্তৃপক্ষ।

বিআরটিএ সূত্র আরো জানায়, ২০১৩ সালে নিবন্ধিত হয়েছে ২ হাজার ৯১৭টি গাড়ি, ২০১৪ সালে নিবন্ধিত হয় ৫ হাজার ২৯৬টি, ২০১৫ সালে নিবন্ধিত হয় ৫ হাজার ৬৮৯টি। ২০১৬ সালে সিলেট জেলা ও মহানগর আলাদা হওয়ায় জেলায় নিবন্ধিত হয় ৫ হাজার ৭৫৮টি ও মহানগরে ১ হাজার ১৮৯টি, ২০১৭ সালে জেলায় নিবন্ধিত হয় ৩ হাজার ১৬৪টি ও মহানগরে ২ হাজার ৩৬৩টি এবং ২০১৮ সালের জুলাই মাস পর্যন্ত জেলায় ১ হাজার ৭৪৭টি ও মহানগরে ২ হাজার ৪৯৬টি গাড়ি নিবন্ধিত হয়। এছাড়া ফিটনেসবিহীন গাড়ির সংখ্যা রয়েছে ২২ হাজার ৪৯টি।

মহানগর পুলিশের উপ-কমিশনার (ট্রাফিক) মো. তোফায়েল হোসেন জানান, ‘যানবাহনের সংখ্যা বাড়ার কারণে যানজটের পরিমনাও বাড়বে। ট্রাফিক ব্যবস্থা নিয়ন্ত্রন কষ্টকর হয়ে দাঁড়াবে। সড়কে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতেও যানবাহনের চাপ কমাতে বিআরটিএ কর্তৃপক্ষকে এখন থেকেই ভূমিকা রাখতে হবে।’

বিশেষজ্ঞরা বলছেন-যে হারে গাড়ি বাড়ছে সে হারে সড়কের পরিমান সম্প্রসারিত হচ্ছে না। শহরের রাস্তাঘাট অনুযায়ী যে পরিমান যানবাহন রয়েছে সেটিও অপ্রতুল। ঢাকা-সিলেট মহাসড়কও দীর্ঘদিন থেকে চারলেন করার দাবি জানানো হয়েছে। যেভাবে গাড়ি বাড়ছে সেভাবে যাত্রীসেবাও দ্রুত গতিতে বাড়া উচিত।

পরিবেশ অধিদপ্তর সিলেট বিভাগের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ আলতাফ হোসেন বলেন, ‘পরিবেশ দূষণের ক্ষেত্রে গাড়ি থেকে নির্গত কালো ধোঁয়াকে প্রাধান্য দেয়া হয়। কিন্তু বর্তমানে সিএনজির সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় কালো ধোঁয়া কমে গেছে। অতিরিক্ত গাড়ি বাড়লে যানজটের সৃষ্টি হলে শব্দ দূষণের মাত্রা বেড়ে যাবে। যদিও সিলেটে এখনও যানজটের পরিমান তেমন নেই।’

সিলেট সিটি করপোরেশন প্রধান প্রকৌশলী নূর আজিজুর রহমান বলেন, ‘সিলেটে যে পরিমান গাড়ি চলাচল করছে সেটি সড়কের তুলনায় অতিরিক্ত। গাড়ির পরিমান বাড়ছে কিন্তু সড়কের চওড়া তেমন নেই। আলাদা কোনো লেন না থাকায় একই সড়কে মোটারযান ও ননমোটারযান চলাচল করে। আদর্শমানের দিক থেকে সিলেটের সড়কের তুলনায় গাড়ির পরিমান বেশি।’

পরিবহন বিশেষজ্ঞ ও শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয়ের সিভিল এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. জহির বিন আলম বলেন, ‘সড়কে যতটুকু ট্রাফিক ধারণক্ষমতা রয়েছে তার থেকে ১০ ভাগ বেশি গাড়ি চলাচল করতে পারবে। কিন্তু সিলেটে ধারণক্ষমতা থেকে বেশি গাড়ি চলাচল করছে। যার কারণে যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। গাড়ির পরিমান বাড়তে থাকলে মানুষের কর্মক্ষমতা কমে যাবে।’ ভবিষ্যতে গাড়ির চাপ থেকে রেহায় পেতে গণপরিবহনের দিকে জোর দেওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহণ কর্তৃপক্ষ সিলেট সার্কেল সহকারী পরিচালক প্রকৌশলী কে এম মাহাবুব কবীর বলেন, ‘নতুন নিবন্ধনের জন্য গাড়ির আবেদন পড়লে আটকে রাখা হয় না। যদি কোনো সমস্যা থাকে তখন আমরা নিবন্ধন না করে ফিরিয়ে দেই। গাড়ির ফিটনেস যাচাই করে সনদ প্রদান করা হয়। নিবন্ধনের সকল কাগজ ঠিক থাকলে আমরা নিবন্ধন দিয়ে থাকি। গাড়ি বাড়ার বিষয়ে সরকারি সিদ্ধান্ত ছাড়া আমাদের কিছু করার নেই।’

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।