সুনামগঞ্জের দু’টি আসনে ৪ হেভিওয়েট প্রার্থীর মনোনয়ন লড়াই

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::
সুনামগঞ্জ-৪ (সদর উত্তর- বিশ্বম্ভরপুর) আসনে বিএনপি’র দুই হেভিওয়েট নেতা মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। তাঁরা হলেন, সাবেক হুইপ এবং সুনামগঞ্জ-৪ আসনের তিন বারের সাংসদ (১৫ ফেব্রুয়ারি’র বিতর্কিত নির্বাচনসহ) বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ফজলুল হক আসপিয়া এবং সুনামগঞ্জ পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান, সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদের চার বারের উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা বিএনপির সিনিয়র সহ সভাপতি দেওয়ান জয়নুল জাকেরীন। এরা দুইজনেই মঙ্গলবার সুনামগঞ্জ-৪ আসনের দলীয় মনোনয়নের চিঠি পেয়ে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। দুজনেই চূড়ান্ত মনোনয়ন পাবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন। একইভাবে সুনামগঞ্জ-৫ (ছাতক – দোয়ারা) আসনে বিএনপির দুই কেন্দ্রীয় নেতা মনোনয়নের চিঠি পেয়েছেন। দুইজনেই মনোনয়ন জমা দিয়েছেন এবং চূড়ান্ত মনোনয়নের চিঠি পাওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন।
দেওয়ান জয়নুল জাকেরীন হাসন রাজার প্রপৌত্র। ১৯৮৩ সালে বিপুল ভোটে সুনামগঞ্জ পৌরসভার চেয়ারম্যান হবার পর থেকে নির্বাচনে জয়ের ধারা শুরু হয় তাঁর। ১৯৮৫ সালে পৌর চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদত্যাগ করে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করেন দেওয়ান জয়নুল জাকেরীন। এরপর থেকে চারবার উপজেলা পরিষদ নির্বাচিত হয়েছিলেন তিনি। সর্বশেষ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থীকে দ্বিগুনের চেয়ে বেশি ভোটে পরাজিত করেন তিনি। দলীয় মনোনয়নের চিঠি পেয়ে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের পদ থেকে ইস্তফা দিয়ে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন তিনি। দলীয় মনোনয়নের চিঠি পেয়ে মঙ্গলবার মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন এই আসনের সাবেক সাংসদ সাবেক হুইপ ফজলুল হক আসপিয়াও। ৭ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রয়াত আব্দুজ জহুরকে ১৭৯৫ ভোটে হারিয়ে প্রথম এমপি হন তিনি। ৮ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দেওয়ান শামছুল আবেদীনকে নয় হাজার ৯৪৩ ভোটে হারিয়ে এমপি হন তিনি। ২০০৮’এর নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মহাজোটের প্রার্থী জাপা’র বেগম মমতাজ ইকবাল এই আসনে এক লাখ ২৩ হাজার ৮৮৩ ভোট পেয়েছিলেন। নিকটম প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন তিনি। তিনি পেয়েছিলেন ৫৮ হাজার ৯৬৪ ভোট। সাড়ে তিন মাস পর বেগম মমতাজ ইকবালের মৃত্যু হলে উপ-নির্বাচনে তাঁকে পরাজিত করে জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মতিউর রহমান এমপি নির্বাচিত হন।
এবারের নির্বাচনে ফজলুল হক আসপিয়া ও দেওয়ান জয়নুল জাকেরীন দুজনেই মনোনয়ন প্রত্যাশী। দুজনেই দলীয় মনোনয়নের চিঠি পেয়ে জমা দিয়েছেন। মনোনয়ন প্রত্যাশাও করছেন দুজনেই।
দেওয়ান জয়নুল জাকেরীন এ প্রতিবেদককে বললেন,‘ দুপুর সাড়ে ১২ টায় আমি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদত্যাগ করেছি। বিকাল ৩ টায় মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছি, বিএনপি’র সকল পর্যায়ের নেতা-কর্মী ঐক্যবদ্ধভাবে মনোনয়নপত্র জমা দেবার সময় উপস্থিত ছিলেন।’
ফজলুল হক আসপিয়া চূড়ান্ত মনোনয়ন পাবার আশাবাদ ব্যক্ত করে বললেন,‘দেশের অনেক আসনেই দলীয় মনোনয়নের চিঠি দুজনকে দেওয়া হয়েছে। কোন প্রকার কূটকৌশলে আমাদের কোন প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল হলে আসনে যাতে দলীয় প্রার্থী শূন্য না হয় এজন্য দুজনকে চিঠি দেওয়া হয়েছে। আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছি।’
এদিকে, সুনামগঞ্জ-৫ (ছাতক ও দোয়ারাবাজার) আসনে বিএনপির মনোনয়ন লড়াইয়ে আছেন দলের জেলা কমিটির সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাংগঠনিক সম্পাদক কলিম উদ্দিন আহমদ মিলন এবং কেন্দ্রীয় কমিিটর সদস্য ও ছাতক উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান চৌধুরী। এই দুই নেতাই দলীয় মনোনয়নের চিঠি পেয়ে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। শেষ পর্যন্ত ধানের শীষ কার হাতে থাকবে নেতা-কর্মীদের পাশাপাশি সাধারণ ভোটাদের মধ্যে চলছে সরব আলোচনা।
এই আসনের বর্তমান সাংসদ আওয়ামী লীগের মুহিবুর রহমান মানিক। এবারও তিনিই দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন। এখানে জাতীয় নির্বাচন মানেই মানিক ও মিলনের ভোট যুদ্ধ। এবারও সেটিই হবে নাকি মিলনের জায়গায় মিজান আসছেন-এই প্রশ্ন এখন নির্বাচনী এলাকা মানুষের মুখে মুখে।
এই আসনে মোট ভোটার ৪ লাখ ১৪হাজার ১৯৭ জন। ২০০৮ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে জয়ী হন মুহিবুর রহমান মানিক। তিনি পেয়েছিলেন ১ লাখ ৬২ হাজার ১০৪ভোট। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির কলিম উদ্দিন আহমদ মিলন পেয়েছিলেন ৮৩ হাজার ৭৮ভোট। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে এখানে আবার সাংসদ নির্বাচিত হন মুহিবুর রহমান মানিক।
এখানে বিএনপি কলিম উদ্দিন আহমদ মিলন এবং মিজানুর রহমান চৌধুরীর হয়ে নেতা-কর্মীরা দুই বলয়ে বিভক্ত। কলিম উদ্দিন আহমদের সমর্থক ছাতক পৌর যুবদলের সভাপতি জসিম উদ্দিন বলেন,‘মিলন তিনবারের সাবেক সাংসদ। এখানে শেষশেষ তিনি ধানের শীষ পাবেন এটা নিশ্চিত।’
মিজানুর রহমান চৌধুরী সমর্থক দোয়ারাবাজার উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক শাহজাহান মাস্টার বলেন,‘নেতা-কর্মীরা পরিবর্তন চায়। মিজানুর রহমান তৃণমূল থেকে উঠে আসা নেতা। আমরা আশাবাদী তাঁর হাতেই এবার ধানের শীষ থাকবে।’
কলিম উদ্দিন আহমদ এখানে প্রথম সাংসদ হন ১৯৮৮ সালে। এরপর ১৯৯৬ সালে এবং ২০০১ সালের আবার সাংসদ নির্বাচিত হন তিনি।
কলিম উদ্দিন আহমদ মিলন বলেন,‘এই নির্বাচনী এলাকার প্রতিটি নেতা-কর্মীর সঙ্গে আমার ব্যক্তিগত যোগাযোগ রয়েছে। গ্রামে গ্রামে দলকে সংগঠিত করেছি। এবারও আমিই এখানে দলের প্রার্থী হবো।’ মিজানুর রহমান চৌধুরীর মনোনয়ন পাওয়া প্রসেঙ্গ তিনি বলেন,‘অনেক জায়গাতেই বিকল্প প্রার্থী রাখা হয়েছে।’
মিজানুর রহমান চৌধুরী ২০০৮ সালের নির্বাচনেও এখানে দলীয় মনোনয়ন চেয়েছিলেন। এবার তিনি বেশ জোরেশোরেই আলোচনায় আছেন। তিনবাবের সাবেক সাংসদকে রেখে কেন তাঁকে দল মনোনয়ন দেবে এই প্রশ্ন ছিল মিজানুর রহমান চৌধুরীর কাছে। তিনি বলেন,‘আমি ছাত্রদলের জেলা সভাপতি, কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি, সিলেট এমসি কলেজ ছাত্র সংসদের ভিপি ছিলাম। দলকে তৃণমূল পর্যায়ে শক্তিশালী করেছি। বিভিন্ন সময়ে নির্যাতিত হয়েছি, জেল খেটেছি, গুলিবিদ্ধ হয়েছি। মানুষ পরিবর্তন চায়, নতুনত্ব চায়, এলাকার মানুষের আশা-আকাক্সক্ষা পূরণে প্রার্থী হয়েছি। আমিই ধানের শীষ পাব এ ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী।’

সৌজন্যে দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» ‘উন্নয়নের মহাসড়কে জগন্নাথপুর’ শীর্ষক বইয়ের মোড়ক উম্মোচণ,

» সুনামগঞ্জ-৩ আসনে বৃষ্টি উপেক্ষা করে দুই প্রার্থীর প্রচারনা

» সারাদেশ বিজিবি মোতায়েন

» ভোটের মাঠে থাকছেন না ইলিয়াসপত্নী লুনা

» আ.লীগের নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষনা, ২১টি অঙ্গীকার

» সিলেটে পাইনিয়ার ইয়ুত এসোসিয়শনের উদ্যােগে বিজয় দিবস বিভিন্ন কর্মসুচী পালিত

» জগন্নাথপুর উপজেলা বিএনপির সভাপতি-যুবদল নেতার গ্রেফতারে নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে উপজেলা বিএনপি

» প্রার্থী হতে পারছেন না বিএনপির ৪ উপজেলা চেয়ারম্যান

» জগন্নাথপুরে নৌকার সমর্থনে স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রতিনিধিসভায়- ঐক্যবদ্ধ হয়ে নৌকার বিজয় নিশ্চিতের আহবান

» জগন্নাথপুরে মা সমাবেশ অনুষ্ঠিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

সুনামগঞ্জের দু’টি আসনে ৪ হেভিওয়েট প্রার্থীর মনোনয়ন লড়াই

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::
সুনামগঞ্জ-৪ (সদর উত্তর- বিশ্বম্ভরপুর) আসনে বিএনপি’র দুই হেভিওয়েট নেতা মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। তাঁরা হলেন, সাবেক হুইপ এবং সুনামগঞ্জ-৪ আসনের তিন বারের সাংসদ (১৫ ফেব্রুয়ারি’র বিতর্কিত নির্বাচনসহ) বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ফজলুল হক আসপিয়া এবং সুনামগঞ্জ পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান, সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদের চার বারের উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা বিএনপির সিনিয়র সহ সভাপতি দেওয়ান জয়নুল জাকেরীন। এরা দুইজনেই মঙ্গলবার সুনামগঞ্জ-৪ আসনের দলীয় মনোনয়নের চিঠি পেয়ে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। দুজনেই চূড়ান্ত মনোনয়ন পাবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন। একইভাবে সুনামগঞ্জ-৫ (ছাতক – দোয়ারা) আসনে বিএনপির দুই কেন্দ্রীয় নেতা মনোনয়নের চিঠি পেয়েছেন। দুইজনেই মনোনয়ন জমা দিয়েছেন এবং চূড়ান্ত মনোনয়নের চিঠি পাওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন।
দেওয়ান জয়নুল জাকেরীন হাসন রাজার প্রপৌত্র। ১৯৮৩ সালে বিপুল ভোটে সুনামগঞ্জ পৌরসভার চেয়ারম্যান হবার পর থেকে নির্বাচনে জয়ের ধারা শুরু হয় তাঁর। ১৯৮৫ সালে পৌর চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদত্যাগ করে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করেন দেওয়ান জয়নুল জাকেরীন। এরপর থেকে চারবার উপজেলা পরিষদ নির্বাচিত হয়েছিলেন তিনি। সর্বশেষ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থীকে দ্বিগুনের চেয়ে বেশি ভোটে পরাজিত করেন তিনি। দলীয় মনোনয়নের চিঠি পেয়ে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের পদ থেকে ইস্তফা দিয়ে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন তিনি। দলীয় মনোনয়নের চিঠি পেয়ে মঙ্গলবার মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন এই আসনের সাবেক সাংসদ সাবেক হুইপ ফজলুল হক আসপিয়াও। ৭ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রয়াত আব্দুজ জহুরকে ১৭৯৫ ভোটে হারিয়ে প্রথম এমপি হন তিনি। ৮ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দেওয়ান শামছুল আবেদীনকে নয় হাজার ৯৪৩ ভোটে হারিয়ে এমপি হন তিনি। ২০০৮’এর নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মহাজোটের প্রার্থী জাপা’র বেগম মমতাজ ইকবাল এই আসনে এক লাখ ২৩ হাজার ৮৮৩ ভোট পেয়েছিলেন। নিকটম প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন তিনি। তিনি পেয়েছিলেন ৫৮ হাজার ৯৬৪ ভোট। সাড়ে তিন মাস পর বেগম মমতাজ ইকবালের মৃত্যু হলে উপ-নির্বাচনে তাঁকে পরাজিত করে জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মতিউর রহমান এমপি নির্বাচিত হন।
এবারের নির্বাচনে ফজলুল হক আসপিয়া ও দেওয়ান জয়নুল জাকেরীন দুজনেই মনোনয়ন প্রত্যাশী। দুজনেই দলীয় মনোনয়নের চিঠি পেয়ে জমা দিয়েছেন। মনোনয়ন প্রত্যাশাও করছেন দুজনেই।
দেওয়ান জয়নুল জাকেরীন এ প্রতিবেদককে বললেন,‘ দুপুর সাড়ে ১২ টায় আমি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদত্যাগ করেছি। বিকাল ৩ টায় মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছি, বিএনপি’র সকল পর্যায়ের নেতা-কর্মী ঐক্যবদ্ধভাবে মনোনয়নপত্র জমা দেবার সময় উপস্থিত ছিলেন।’
ফজলুল হক আসপিয়া চূড়ান্ত মনোনয়ন পাবার আশাবাদ ব্যক্ত করে বললেন,‘দেশের অনেক আসনেই দলীয় মনোনয়নের চিঠি দুজনকে দেওয়া হয়েছে। কোন প্রকার কূটকৌশলে আমাদের কোন প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল হলে আসনে যাতে দলীয় প্রার্থী শূন্য না হয় এজন্য দুজনকে চিঠি দেওয়া হয়েছে। আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছি।’
এদিকে, সুনামগঞ্জ-৫ (ছাতক ও দোয়ারাবাজার) আসনে বিএনপির মনোনয়ন লড়াইয়ে আছেন দলের জেলা কমিটির সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাংগঠনিক সম্পাদক কলিম উদ্দিন আহমদ মিলন এবং কেন্দ্রীয় কমিিটর সদস্য ও ছাতক উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান চৌধুরী। এই দুই নেতাই দলীয় মনোনয়নের চিঠি পেয়ে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। শেষ পর্যন্ত ধানের শীষ কার হাতে থাকবে নেতা-কর্মীদের পাশাপাশি সাধারণ ভোটাদের মধ্যে চলছে সরব আলোচনা।
এই আসনের বর্তমান সাংসদ আওয়ামী লীগের মুহিবুর রহমান মানিক। এবারও তিনিই দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন। এখানে জাতীয় নির্বাচন মানেই মানিক ও মিলনের ভোট যুদ্ধ। এবারও সেটিই হবে নাকি মিলনের জায়গায় মিজান আসছেন-এই প্রশ্ন এখন নির্বাচনী এলাকা মানুষের মুখে মুখে।
এই আসনে মোট ভোটার ৪ লাখ ১৪হাজার ১৯৭ জন। ২০০৮ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে জয়ী হন মুহিবুর রহমান মানিক। তিনি পেয়েছিলেন ১ লাখ ৬২ হাজার ১০৪ভোট। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির কলিম উদ্দিন আহমদ মিলন পেয়েছিলেন ৮৩ হাজার ৭৮ভোট। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে এখানে আবার সাংসদ নির্বাচিত হন মুহিবুর রহমান মানিক।
এখানে বিএনপি কলিম উদ্দিন আহমদ মিলন এবং মিজানুর রহমান চৌধুরীর হয়ে নেতা-কর্মীরা দুই বলয়ে বিভক্ত। কলিম উদ্দিন আহমদের সমর্থক ছাতক পৌর যুবদলের সভাপতি জসিম উদ্দিন বলেন,‘মিলন তিনবারের সাবেক সাংসদ। এখানে শেষশেষ তিনি ধানের শীষ পাবেন এটা নিশ্চিত।’
মিজানুর রহমান চৌধুরী সমর্থক দোয়ারাবাজার উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক শাহজাহান মাস্টার বলেন,‘নেতা-কর্মীরা পরিবর্তন চায়। মিজানুর রহমান তৃণমূল থেকে উঠে আসা নেতা। আমরা আশাবাদী তাঁর হাতেই এবার ধানের শীষ থাকবে।’
কলিম উদ্দিন আহমদ এখানে প্রথম সাংসদ হন ১৯৮৮ সালে। এরপর ১৯৯৬ সালে এবং ২০০১ সালের আবার সাংসদ নির্বাচিত হন তিনি।
কলিম উদ্দিন আহমদ মিলন বলেন,‘এই নির্বাচনী এলাকার প্রতিটি নেতা-কর্মীর সঙ্গে আমার ব্যক্তিগত যোগাযোগ রয়েছে। গ্রামে গ্রামে দলকে সংগঠিত করেছি। এবারও আমিই এখানে দলের প্রার্থী হবো।’ মিজানুর রহমান চৌধুরীর মনোনয়ন পাওয়া প্রসেঙ্গ তিনি বলেন,‘অনেক জায়গাতেই বিকল্প প্রার্থী রাখা হয়েছে।’
মিজানুর রহমান চৌধুরী ২০০৮ সালের নির্বাচনেও এখানে দলীয় মনোনয়ন চেয়েছিলেন। এবার তিনি বেশ জোরেশোরেই আলোচনায় আছেন। তিনবাবের সাবেক সাংসদকে রেখে কেন তাঁকে দল মনোনয়ন দেবে এই প্রশ্ন ছিল মিজানুর রহমান চৌধুরীর কাছে। তিনি বলেন,‘আমি ছাত্রদলের জেলা সভাপতি, কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি, সিলেট এমসি কলেজ ছাত্র সংসদের ভিপি ছিলাম। দলকে তৃণমূল পর্যায়ে শক্তিশালী করেছি। বিভিন্ন সময়ে নির্যাতিত হয়েছি, জেল খেটেছি, গুলিবিদ্ধ হয়েছি। মানুষ পরিবর্তন চায়, নতুনত্ব চায়, এলাকার মানুষের আশা-আকাক্সক্ষা পূরণে প্রার্থী হয়েছি। আমিই ধানের শীষ পাব এ ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী।’

সৌজন্যে দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।