শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৫:২১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
সুদখোরদের ধরতে জেলা ও উপজেলায় মাঠে নামছে প্রশাসন জগন্নাথপুরে হাওরের জরিপ কাজ শেষ, কাজের তুলনায় বরাদ্দ কম, প্রকল্প কমিটি হয়নি একটিও জগন্নাথপুরে ডিজিটাল বাংলাদেশ উপলক্ষ্যে র‌্যালি, চিত্রাঙ্কন ও কুইজ প্রতিযোগিদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ জগন্নাথপুরে শিশু সাব্বির হত্যার ঘটনার গ্রেফতার-১ এনটিভি ইউরোপের জগন্নাথপুর প্রতিনিধি নিয়োগ পেলেন আব্দুল হাই আইসিটি লানিং প্রশিক্ষণে থাইল্যান্ড যাচ্ছেন পরিচালক প্রতাপ চৌধুরী ওয়াজ মাহফিল যেন কারো কষ্টের কারণ না হয় জগন্নাথপুরে সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি গ্রেফতার বাসুদেব মন্দিরে শ্রী অদ্বৈত গীতা সংঘের উদ্যাগে অষ্টপ্রহর ব্যাপী নাম সংকীর্তন শুরু এক সপ্তাহে জগন্নাথপুরের চার যুবকের মৃত্যুতে উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা

সুনামগঞ্জের ৫টি আসনে নৌকার কান্ডারীরা

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ৩১ জানুয়ারী, ২০১৮
  • ২০১ Time View

মাহবুবুল হাছান শাহীন::
এ বছর গত ৬৮ বছরের মধ্যে শীতলতম দিন বাংলাদেশ অতিক্রম করেছে। এ বছরের জানুয়ারি থেকে সারাদেশ ব্যাপী তীব্র শৈত্য প্রবাহে সারা দেশের মানুষের অবস্থা জবুথবু। এ শীতের মাঝেই বাংলাদেশের বৃহত্তম রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ তার টানা দুই মেয়াদের ৪র্থ বছর পূর্ণ করেছে। এ বছরের শেষ দিকে জাতীয় নির্বাচনের প্রস্তুতি পর্ব শুরু হয়েছে। এরই মধ্যে ৩০শে জানুয়ারি সিলেট বিভাগ থেকেই প্রধানমন্ত্রীর নির্বাচনী প্রচারণা শুরু হয়েছে।
আগামী নির্বাচনে সুনামগঞ্জের পাঁচ আসনে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের কে মনোনয়ন পাবেন, কাকে মনোনয়ন দিলে দল ভালো করবে, কে কর্মীবান্ধব, এসব বিষয়ে জোর আলোচনা চলছে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী এবং সাধারণ ভোটারদের মধ্যে। ঐতিহ্যগতভাবেই সুনামগঞ্জের ভোটাররা সব সময় সততা, নিষ্ঠাবান ও জনসম্পৃক্ত নেতাদের তাদের প্রতিনিধি হিসাবে নির্বাচিত করেছেন। সারা জেলায় যাঁদের উজ্জ্বল রাজনৈতিক সুনাম রয়েছে। স্বাধীনতার স্বপক্ষের শক্তিসহ এলাকার ভোটাররা তাকিয়ে আছেন আওয়ামী লীগ কাদের মনোনয়ন দেবেন। একজন রাজনৈতিক কর্মী হিসেবে আমিও এর বাইরে নই। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী ও সাধারণ ভোটারের অবস্থানের জায়গা থেকে আগামী নির্বাচনে সুনামগঞ্জ জেলায় ক্ষমতাসীন নৌকার কান্ডারী কারা হলে দল ভালো করবে অনেকের মতামতের ভিত্তিতেই তা নিয়ে আলোচনা করা হলো।
সুনামগঞ্জ ১
(তাহিরপুর, ধর্মপাশা, জামালগঞ্জ, মধ্যনগর)
চার থানা নিয়ে গঠিত সুনামগঞ্জ ১ নির্বাচনী এলাকা। সারাদেশের বৃহত্তর কয়েকটি সংসদীয় আসনের মধ্যে এটি একটি। হাওরাঞ্চল পরিবেষ্টিত এ আসনটি নৌকার আসন হিসেবে পরিচিত। নৌকা নিয়ে এখানে বরুণ রায়, নজির হোসেন সাংসদ হন। দলীয় রাজনীতিতে অপরিচিত হলেও ২০০৮ সালের নির্বাচনে অপ্রত্যাশিতভাবে নৌকার মনোনয়ন পান ধর্মপাশা এলাকার একেবারেই আনকোরা ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন। সারাদেশে নৌকার জোয়ারের মাঝে ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতনও সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ২০০৮ পরবর্তী পাঁচ বছর সারাদেশের উন্নয়নের মধ্যে সুনামগঞ্জের এ আসনের প্রচুর উন্নয়নের সারথী হতে পেরেছিলেন ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন। চার থানাতে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মাঝে তিনি গ্রহণযোগ্যতা গড়ে তুলতে পেরেছিলেন। তৎপরবর্তিতে ২০১৪ সালের নির্বাচনে তিনি নৌকার কান্ডারী হন এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাড. রফিকুল হক সোহেল কে পরাজিত করে ২য় বারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এ চার বছরেও অত্র অঞ্চলের অনেক উন্নয়ন কার্যক্রম তার হাত ধরেই সূচিত হয়। এর মাঝে তিনি ধর্মপাশা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন এবং দলীয় ফোরামে তার গ্রহণযোগ্যতার দিকে নজর দেন। এতে পুরো নির্বাচনী এলাকায় তার প্রভাব পড়ে। এবারও তিনি এ আসনের শক্ত প্রার্থী। নতুন কোন প্রার্থীর পক্ষে হাওর বেষ্টিত এই চার থানার অর্থাৎ নির্বাচনী এলাকা সুনামগঞ্জ ১ এ নির্বাচন করা কষ্টকর ব্যাপার হবে। কিছু বিরোধিতার পরেও এবারও নৌকার প্রার্থী তিনি হলেই দল ভালো করবে।
সুনামগঞ্জ ২
(দিরাই, শাল্লা)
বাংলাদেশের অন্যতম প্রভাবশালী আসন হিসেবে বিবেচিত। সারা বাংলাদেশেই সুনামগঞ্জ ২ আসন নিয়ে আলাদা নজর থাকতো। এখানকার সাতবারের সংসদ সদস্য বাবু সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত। এক নামেই তাঁকে সারা দেশের মানুষ বিশিষ্ট
পার্লামেন্টারিয়ান হিসেবে চিনতো। সুনামগঞ্জ জেলার মধ্যে দিরাই শাল্লার মানুষই সবচেয়ে রাজনীতি সচেতন। যা বাবু সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের কারণেই সম্ভব হয়েছে। অসম্ভব জনপ্রিয় এ নেতা প্রয়াত হয়েছেন। কিন্তু এখানকার প্রতিটি মানুষই তার স্মৃতি ধারণ করে বেঁচে আছেন। রাজনীতি, গণতন্ত্রকে এখানকার মানুষজন পরিপূরক হিসেবে দেখেছে। তাঁর প্রয়াণের পর উপ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের টিকেট পান তাঁর স্ত্রী ড. জয়া সেনগুপ্ত। বাবু সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের মতো রাজনীতির মানুষ না হলেও দিরাই শাল্লার মানুষের প্রতি তাঁর মমত্ববোধ নির্বাচনে বিরাট ফ্যাক্টর হিসেবে কাজ করেছে। শিক্ষিত, পরিচ্ছন্ন ও নিবেদিত এ কর্মীর ভাবমূর্তি পুরো জেলার নির্বাচনেই প্রভাব বিস্তার করবে। এ আসনে তাই ড. জয়াসেন গুপ্তার কোন বিকল্প নেই।
সুনামগঞ্জ ৩
(দক্ষিণ সুনামগঞ্জ, জগন্নাথপুর)
শুধু এ জেলা নয় সারাদেশের ভিআইপি কয়েকটি আসনের মধ্যে অন্যতম সুনামগঞ্জ ৩ আসন। বাংলাদেশ সরকারের প্রথম পররাষ্ট্রমন্ত্রী, জাতীয় পাঁচ নেতার অন্যতম, বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ট সহচর, বিদ্যান রাজনীতিবিদ আব্দুস সামাদ আজাদের জন্যই এ আসনটি অন্যতম আলোচিত। সর্বশেষ দুই বার এ আসনের সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন সজ্জন রাজনীতিবিদ এমএ মান্নান। সরকারী আমলা থাকাকালীন সময়েই এলাকার উন্নয়নে তিনি জোরালো ভূমিকা পালন করেছেন। ২০১৪ সালের নির্বাচনের পর সুনামগঞ্জ জেলার একমাত্র মন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন এবং অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী নিযুক্ত হন। গত চার বছর দক্ষিণ সুনামগঞ্জ ও জগন্নাথপুর সহ সারা জেলার উন্নয়নে তাঁর ভূমিকা অপরিসীম। দল-মতের উর্দ্ধে থেকে তাঁর ব্যক্তিত্ব দিয়েই তিনি তাঁর নির্বাচনী এলাকার সকলকেই উন্নয়নের প্লাটফর্মে দাঁড় করাতে পেরেছেন। আমার জানা মতে এখানে সবাই উন্নয়নের নৌকায় একই কাতারে সামিল হয়েছেন। এ আসনের অনেক ভোটারই বিশ্বাস করেন আগামীতে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় গেলে তিনি পূর্ণ মন্ত্রী হবেন। পুরো জেলাজুড়ে যে উন্নয়নের জোয়ার বইছে তা আরো বেগবান হবে। মেডিকেল কলেজ, টেক্সটাইল ইন্সটিটিউট, চার লেনের রাস্তা সবই বাস্তবায়নের পথে। অনেক ভোটারের বিশ্বাস আগামী নির্বাচনে এমএ মান্নান সংসদ সদস্য হলে তিনি সরকারের প্রভাবশালী মন্ত্রী এবং পুরো জেলার চেহারাই পাল্টে দেবেন। এ আসনে এমএ মান্নানের কোন বিকল্প নেই।
সুনামগঞ্জ ৪
(সুনামগঞ্জ সদর, বিশ্বম্ভরপুর)
এ আসনের যারা ভোটার তাদের দুটি দুঃখবোধ দীর্ঘদিনের। এ আসনটি মনে হয় বিরোধী দলের জন্যই সৃষ্ট এবং এখানকার অনেক সংসদ সদস্য এখানকার স্থানীয় নন। এ দুটি কারণেই আসলে সুনামগঞ্জ ও বিশ্বম্ভরপুরে উন্নয়ন তেমনভাবে হয়নি। আমাদের মতো সাধারণ ভোটারের আবেগের বিষয় কোন সরকারের কাছে যথাযথভাবে পৌঁছেনি। দীর্ঘ নয় বছর একটানা ক্ষমতায় থাকার পরও এখানে চোখে পড়ার মতো কোন উন্নয়ন নেই। এবার সময় এসেছে পূর্বের অবস্থান থেকে দল এবং ভোটারদের সরে আসার। এলাকার জনগণ এবং আওয়ামী লীগের তৃণমূল নেতাকর্মীরা মনে করেন দীর্ঘদিনের রাজপথের সৈনিক আওয়ামী লীগের জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য, আওয়ামীলীগের সব সময়ের সারথী দুই দুই বারের বিপুল ভোটে নির্বাচিত পৌর মেয়র আয়ুব বখত জগলুলকে মনোনয়ন দিলে সুনামগঞ্জ সদর এবং বিশ্বম্ভরপুরবাসীর উন্নয়নের দ্বার উন্মোচিত হবে। ক্যারিসমেটিক এ নেতাকে আওয়ামীলীগ এ আসনে মনোনয়ন দিলে দল ভালো করবে বলে সাধারণ ভোটাররা মনে করেন। একই সাথে দলের নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করবেন বলে সকলেই বিশ্বাস করেন।
সুনামগঞ্জ ৫
(ছাতক, দোয়ারাবাজার)
মুহিবুর রহমান মানিক ছাতক দোয়ারায় দীর্ঘদিনের নৌকার মাঝি হিসেবে আছেন। এ আসনে তাঁর কোন বিকল্প নেই। বাবু সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের হাত ধরে তার উত্থান। জনগণের সঙ্গে তার সার্বক্ষণিক যোগাযোগ এবং ঘনিষ্টতা এ নেতাকে জনবান্ধব নেতায় পরিণত করেছে। এখানকার অনেক ভোটার মনে করেন এবার আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় গেলে মুহিবুর রহমান মানিক মন্ত্রীত্ব পেতে পারেন। এ আসনে তাঁর কোন বিকল্প নেই।
দল, জনসম্পৃক্ততা, উন্নয়ন, গতিশীলতা সব কিছুর জন্যই প্রয়োজন সঠিক মনোনয়ন। সুনামগঞ্জের পাঁচটি আসনের মধ্যে আওয়ামী লীগ তার চার সংসদ সদস্যকে নিয়ে গর্ব করতে পারে তাদের জনবান্ধব রাজনীতির জন্য। আমার বিশ্বাস তারা এবারও মনোনয়ন পাবেন এবং জয় ছিনিয়ে আনতে পারবেন।
সময়ই বলে দেবে সময়ের সিদ্ধান্ত। পাঠক সে পর্যন্ত আমরা অপেক্ষায় রইলাম। সুষ্ঠু গণতন্ত্রের জন্য একটি সঠিক নির্বাচন আমাদের সকলেরই কাম্য।
লেখক : আইনজীবী ও আইন সম্পাদক পৌর আওয়ামী লীগ, সুনামগঞ্জ। সূত্র সুনামগঞ্জের খবর

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24