শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ১০:০৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
সুদখোরদের ধরতে জেলা ও উপজেলায় মাঠে নামছে প্রশাসন জগন্নাথপুরে হাওরের জরিপ কাজ শেষ, কাজের তুলনায় বরাদ্দ কম, প্রকল্প কমিটি হয়নি একটিও জগন্নাথপুরে ডিজিটাল বাংলাদেশ উপলক্ষ্যে র‌্যালি, চিত্রাঙ্কন ও কুইজ প্রতিযোগিদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ জগন্নাথপুরে শিশু সাব্বির হত্যার ঘটনার গ্রেফতার-১ এনটিভি ইউরোপের জগন্নাথপুর প্রতিনিধি নিয়োগ পেলেন আব্দুল হাই আইসিটি লানিং প্রশিক্ষণে থাইল্যান্ড যাচ্ছেন পরিচালক প্রতাপ চৌধুরী ওয়াজ মাহফিল যেন কারো কষ্টের কারণ না হয় জগন্নাথপুরে সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি গ্রেফতার বাসুদেব মন্দিরে শ্রী অদ্বৈত গীতা সংঘের উদ্যাগে অষ্টপ্রহর ব্যাপী নাম সংকীর্তন শুরু এক সপ্তাহে জগন্নাথপুরের চার যুবকের মৃত্যুতে উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা

সুনামগঞ্জে আ.লীগ নেতার ছেলে পিটালেন ডাক্তারকে

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর, ২০১৯
  • ৪৩৮ Time View

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে হামলার শিকার হয়েছেন ডা. আখতারুজ্জামান আখন্দ। উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি ছেলে এই ঘটনা ঘটিয়েছে। সোমবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ঘটনাটি ঘটেছে বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার পলাশ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। এ ঘটনায় মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে জানা গেছে।
জানা যায়, সোমবার সকালে বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার পলাশ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে একটি ইনজেকশন দেয়ার জন্য যান পলাশ ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ সভাপতি আব্দুল কাইয়ুম। মেডিকেল চেকআপের পর ডা. আখতারুজ্জামান আখন্দ (নাক, কান গলা) নার্সের কাছ থেকে ইনজেকশন নেয়ার জন্য বলেন। ইউপি চেয়ারম্যান জরুরী বিভাগে ইনজেশন নেয়ার জন্য গিয়েও আবার ফিরে আসেন এবং ডাক্তারকে ইনজেকশন দেয়ার জন্য বলেন। এনিয়ে কথাকাটাকাটির এক পর্যায়ে চেয়ারম্যানের সঙ্গীরা ডাক্তারকে মারতে উদ্যত হয়। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এসময় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। এসময় চেয়ারম্যান আব্দুল কাইয়ুম তার ছেলে ও সঙ্গীদের সামলান। কিছুক্ষণ পর আবার ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল কাইয়ুমের ছেলে সাইদুর রহমান রাজিব তার সঙ্গী সাথী নিয়ে এসে ডা. আখতারুজ্জামান আখন্দ’র উপর হামলা করে।
বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের টিএইচএ ডা. চৌধুরী জালাল উদ্দিন মুর্শেদ বলেন, পলাশ ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল কাইয়ুম একটি ইনজেকশন দিতে এসেছিলেন। মেডিকেল চেক আপের পর ডা. আখতারুজ্জামান আখন্দ নার্সের কাছে গিয়ে ইনজেকশন পুশ করতে বলেন। এনিয়ে তাদের কথাকাটাকাটি হয়। এর কিছুক্ষণ পর চেয়ারম্যানের ছেলে সাইদুর রহমান রাজিব এসে ডাক্তারের উপর চড়াও হয়।
পলাশ ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল কাইয়ুম বলেন, আজ সকালে ইনজেকশন নেয়ার জন্য স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যাই। গিয়ে দেখি টিএইচও সাব নাই। অন্য কাজে তিনি বাইরে ছিলেন। অন্য একজন ডাক্তারের কাছে গেলে তিনি ব্যবস্থাপত্র দেখে নার্সের কাছে যেতে বলেন। আমরা তাকে দিতে বললে তিনি রাজি হননি। এতে আমার ছেলে মনোক্ষুন্ন হয়। ইনজেকশনটির দাম ছিল প্রায় ২২০০টাকা। পরে একজন কম্পাউন্ডার ইনজেকশন দেন। আমি আমার ছেলেকে নিয়ে ফিরে আসি।
তিনি বলেন, এরপর থানার ওসি আমাকে ফোনে জানান আমার ছেলে নাকি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে ডাক্তারের সাথে খারাপ আচরণ করেছে। আমি, উপজেলা চেয়ারম্যান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি তৎক্ষণাৎ সেখানে উপস্থিত হই। টিএইচএ সাহেবও আসেন। আমি তাদেরকে বলেছি, আমার ছেলে অন্যায় করেছে। তার উপযুক্ত ব্যবস্থা আমরা নিব।
বিশ্বম্ভরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মাহবুবুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, সকালে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একজন ডাক্তারের সাথে ইউপি চেয়ারম্যানের ছেলের ঝামেলা হয়েছে। তবে এ বিষয়ে এখনও কোন লিখিত অভিযোগ পাইনি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24