মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ০৩:০৬ অপরাহ্ন

সুনামগঞ্জে চলছে কালো টাকার খেলা- কেউ নগদে, কেউ বা আবার প্রতিশ্রুতিতে ভোট কিনছেন !

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৭ ডিসেম্বর, ২০১৬
  • ৩১ Time View

স্টাফ রিপোর্টার;; জেলা পরিষদ নির্বাচন কে সামনে রেখে সারাদেশের মতো সুনামগঞ্জে ভোটযুদ্ধ জমে উঠেছে। প্রথমবারের মতো ইলেক্টোরাল পদ্ধতিতে অনুষ্ঠিতব্য এ নির্বাচনে সাধারণ জনগণের সংশ্লিষ্টতা না থাকায় কালো টাকার প্রভাবের শঙ্কা দেখা দিয়েছে।
নির্বাচনে অংশ নেয়া প্রার্থীদের অনেকেরই আশঙ্কা, দলীয় প্রভাব ছাপিয়ে কালো টাকার প্রভাবে ভোট কেনাবেচা হবে, যা সুষ্ঠু নির্বাচনে জয় পরাজয়ে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করতে পারে। ইতিমধ্যে নির্বাচনে কালো টাকা বিতরণ শুরু হয়ে গেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।তবে মৌখিকভাবে বিভিন্ন প্রার্থীর বিরুদ্ধে কালো টাকার ব্যবহারের অভিযোগ রয়েছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন জনপ্রতিনিধি জানান, তাদের কাছে বেশ কিছু প্রার্থী টাকা বা অন্যান্য সুযোগ সুবিধার ব্যবস্থা করে দিবেন জানিয়ে ভোট প্রার্থনা করেন, যা স্বাভাবিকভাবেই নির্বাচনের নিরপেক্ষ ফলাফলকে বিঘ্নিত করবে।
এসব জনপ্রতিনিধিরা জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, জেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধী দুই প্রার্থীর একজন নগদে ভোট কেনার চেষ্ঠা করছেন অপরজন নির্বাচিত হলে নানা প্রকল্প দেয়ার আশ্বাস দিয়ে ভোট আদায়ের চেষ্ঠা করছেন। এছাড়াও তাদের মধ্যে কেউ কেউ ভোট প্রতি ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা দেয়ার কথা শুনা যাচ্ছে। কেউবা ১০ হাজার টাকা করে দিচ্ছেন বলেও অভিযোগ রয়েছে। তৃনমুলের জনপ্রতিনিধিদের টাকার বিনিময়ে ভোটকেনা বেচার বিষয়টি স্থানীয় সরকার ব্যবস্থাকে প্রশ্নবিদ্ধ করে দিতে পারে বলে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন বিশেষজ্ঞ রাজনৈতিক মহল। নির্বাচনে মুল প্রতিদ্বন্ধী আওয়ামী লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল হুদা মুকুট দুজনেই একে অপরের বিরুদ্ধে টাকা ছড়ানোর অভিযোগ তুললেন।
ব্যারিস্টার এনামুল কবির ইমন বলেন,‘কালো টাকা এবং দুর্বৃত্তায়নের মাধ্যমে সুনামগঞ্জের রাজনীতিকে যারা দীর্ঘদিন কলুষিত করে রেখেছিল তারা নানা কৌশলে টাকা ছড়িয়ে, ভয়-ভীতি দেখিয়ে ভোট আদায়ের অপচেষ্টা করছে। জনপ্রতিনিধিরা তাদের এমন কৌশলকে প্রত্যাখ্যান করে ২৮ ডিসেম্বর আমার ‘চশমা’ প্রতীকে ভোট দিয়ে সকল অপকর্মের জবাব দেবেন ইনশাল্লাহ্’।
নুরুল হুদা মুকুট বলেন,‘ব্যারিস্টার ইমন টাকা ছড়াচ্ছেন। সংসদ সদস্যগণ আচরণবিধি লঙ্ঘন করে প্রচারণা চালাচ্ছেন। সংসদ সদস্যরা কোন কোন জনপ্রতিনিধিকে হুমকি দিয়ে বলছেন, ব্যারিস্টার ইমনকে ভোট না দিলে কোন প্রকল্পে নাম রাখা হবে না। আবার কাউকে কাউকে মামলার ভয়ও দেখানো হচ্ছে। এরপরও জনপ্রতিনিধিরা আমার ‘মোটরসাইকেল’ প্রতীকেই ভোট দেবেন ইনশাল্লাহ্’।

সুনামগঞ্জে কালো টাকার ছড়াছড়ির ব্যাপারে জানতে চাইলে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা সাদেকুল ইসলাম জানান, বেশ কিছু মৌখিক অভিযোগ এসেছে যে প্রার্থীরা ভোট প্রভাবিত করতে কালো টাকার ব্যবহার করছেন, কিন্তু এখন পর্যন্ত প্রামাণ্য কোন প্রমাণসহ অভিযোগ নির্বাচন কমিশনে কেউ করেনি। তবে আমরা এবিষয় তৎপর রয়েছি।
উল্লেখ্য সুনামগঞ্জ জেলা পরিষদ নির্বাচনে ৪ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রতিদ্ধদ্বিতা করছেন। প্রার্থীরা হলেন,সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক ব্যরিষ্টার এম এনামুল কবির ইমন,সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নুরুল হুদা মুকুট,যুক্তরাজ্য প্রবাসী চঞ্চলা দাশ ও মুক্তিযোদ্ধা আহবাব হোসেন। তাদের মধ্যে আওয়ামীলীগ সমর্থিত প্রার্থী ব্যরিষ্টার এম এনামুল কবির ইমন (চশমা)ও আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী নুরুল হুদা মুকুট (মোটর সাইকেল) প্রতীকের মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। মুকুটের পক্ষে মাঠে রয়েছেন জেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি মতিউর রহমান ও সুনামগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আইয়ুব বখত জগলুসহ বেশকিছু জনপ্রতিনিধি। অপরদিকে ইমনের পক্ষে মাঠে সক্রিয় রয়েছেন জেলার সংসদ সদস্যরাসহ অনেক জনপ্রতিনিধি। দুই প্রার্থীই নির্বাচনকে নিজেদের অসিত্বের লড়াই হিসেবে দেখছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24